ঈদযাত্রার শুরুতেই ভোগান্তি

ঢাকায় বাস আসতে লাগছে অতিরিক্ত ৩-৫ ঘণ্টা * সিডিউল বিপর্যয়ের আশঙ্কা * ঢাকায় ভয়াবহ যানজটে নাকাল যাত্রীরা * ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ২০ কিলোমিটার যানজট * আজ শেষ কর্মদিবস

  কাজী জেবেল ০৮ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঈদযাত্রার শুরুতেই ভোগান্তি

ঈদযাত্রার শুরুতে ভোগান্তিতে পড়েছে ঘরমুখো মানুষ। রাজধানীতে যানজট থাকায় টার্মিনালগুলোতে বাস পৌঁছতে অতিরিক্ত ৩-৫ ঘণ্টা লেগে যায়।

এছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে মহাসড়কের উপর পশুর হাট বসানো, বিপরীত দিক থেকে গাড়ি চলাচল, সড়ক ভাঙাচোরা হওয়াসহ নানা কারণে সড়ক-মহাসড়কে থেমে থেমে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে।

বুধবার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে প্রায় ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এদিকে বৈরী আবহাওয়ায় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া এবং শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী রুটে ফেরি চলাচল বাধাগ্রস্ত হয়েছে।

ফলে দুই ফেরিঘাটে হাজারের বেশি গাড়ি আটকা পড়ে। এসব কারণে ঢাকায় বাস পৌঁছতে তিন থেকে পাঁচ ঘণ্টা অতিরিক্ত সময় লাগছে। এ অবস্থা চললে আজ বৃহস্পতিবার সিডিউল বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন পরিবহন মালিকরা।

সরকারি অফিস-আদালত এবং বেশির ভাগ শিল্পকারখানায় আজ শেষ কর্মদিবস। আজ বিকাল থেকে ঘরমুখো মানুষের ঢল নামবে। সময়মতো বাস রাজধানীতে না ঢুকলে ঘরমুখো মানুষের ভোগান্তি বাড়বে। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ করে এসব তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রায় রমেশ চন্দ্র যুগান্তরকে বলেন, বুধবার গাড়ি নির্ধারিত সময়ের চেয়ে ৪-৫ ঘণ্টা দেরিতে এসেছে।

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পার থেকে হাটিকুমরুল পর্যন্ত যানজট হচ্ছে। ফেরিঘাটে বাস পারাপারে অতিরিক্ত সময় লাগছে। এ অবস্থা চললে আজ বাসের সিডিউল ধরে রাখা কঠিন হবে।

তিনি বলেন, একটি গাড়ি ঢাকায় আসার পর সেটি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়। কিন্তু গাড়ি নির্ধারিত সময়ের পরে এলে পরিচ্ছন্নতার সময় পাওয়া যায় না। যাত্রীরাও অধৈর্য হয়ে পড়েন। তার মতে, আজ দুপুরের পর থেকে ১১ আগস্ট সকাল পর্যন্ত যাত্রীদের চাপ থাকবে।

তবে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের কন্ট্রোল রুমের কাছে যানজটের এ তথ্য নেই। কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত রিয়াজ ফারুক বুধবার যুগান্তরকে জানান, সারা দেশ যানজটমুক্ত। দেশের সর্বত্র যান চলাচল স্বভাবিক। শুধু ফেরিঘাটে গাড়ির দীর্ঘ লাইন থাকার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

গাবতলীর হানিফ পরিবহনের কাউন্টারের সামনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলাম বলেন, পরিবারের সঙ্গে ঈদ করতে খুলনা যাচ্ছি। কিন্তু ঢাকায় যানজটে ভোগান্তির শিকার হয়েছি।

শাহাবাগ থেকে গাবতলী আসতে ৩ ঘণ্টা ৪০ মিনিট লেগেছে। শাহাবাগ থেকে কারওয়ান বাজার পর্যন্ত আমি হেঁটে এসেছি। এরপর বাসে উঠেছি।

সরেজমিন রাজধানীর শ্যামলী, কল্যাণপুর, গাবতলী ও মহাখালী এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ঈদের আনন্দ স্বজনদের সঙ্গে উপভোগ করতে বিপুল সংখ্যক মানুষ বাড়ি ফিরছেন।

এসব এলাকার বাস কাউন্টারগুলোয় ঘরমুখো যাত্রীদের ভিড় দেখা গেছে। জায়গা সংকুলান না হওয়ায় কেউ কেউ কাউন্টারের সামনে কোনো রকমে বসার জায়গা করে নিয়েছে। হানিফ, শ্যামলী, আগমনী, নাবিলসহ কয়েকটি বাস কোম্পানি যাত্রীদের বসার জন্য পৃথক ব্যবস্থা করলেও তা পর্যাপ্ত নয়।

এদিকে গাবতলীর বেশির ভাগ বাস কাউন্টারে বাসের টিকিট নেই বলে জানান কাউন্টার মাস্টাররা। তবে কিছু লোকাল ও দক্ষিণাঞ্চলের বাসের তাৎক্ষণিক টিকিট বিক্রি করতে দেখা গেছে।

উত্তরবঙ্গ, দক্ষিণাঞ্চল ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের বাস গাবতলী বাস টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যায়। বিভিন্ন গন্তব্য থেকে এ টার্মিনালে ফিরে আসা বাসের চালকরা জানান, দুই থেকে তিন দিন ধরে রাস্তার অবস্থা ভালো নয়।

সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইলসহ বিভিন্ন সড়কে যানজট হচ্ছে। এতে প্রতিটি গন্তব্যে যেতে অতিরিক্ত ৩-৫ ঘণ্টা বা তার বেশি সময় লাগছে।

বেলা ৩টায় কল্যাণপুরে যাত্রী উঠানো হচ্ছিল এসআর প্লাস নামের শীততাপ নিয়ন্ত্রিত বাসে। ওই বাসের চালক ও সুপারভাইজার জানান, মঙ্গলবার রাত ১১টায় বগুড়া থেকে গাড়িটি ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিয়ে বুধবার বেলা ১২টায় পৌঁছেছে। তারা জানান, সাধারণত ঢাকা থেকে বগুড়া যেতে ৫-৬ ঘণ্টা লাগে। এখন ১৩ ঘণ্টা লাগছে। এর কারণ হিসেবে তারা জানান, সিরাজগঞ্জ থেকে টাঙ্গাইল পুরো পথেই যানজট হচ্ছে।

মাজার রোডের নাবিল পরিবহনের দুই নম্বর কাউন্টারের মাস্টার জোবায়ের হোসেন প্রিন্স জানান, প্রতিটি বাস ৩-৪ ঘণ্টা দেরিতে ঢাকায় আসছে।

দেরিতে বাস আসায় সময়মতো গাড়ি ছাড়া কঠিন হয়ে পড়ছে। তিনি বলেন, মঙ্গলবার রাত ৮টায় ছেড়ে আসা বাস বুধবার সকাল ১০টার দিকে গাবতলীতে পৌঁছেছে। অথচ গাড়িটির সকাল ৫-৬টার মধ্যে আসার কথা ছিল। একইভাবে অন্যসব গাড়িরও দেরি হচ্ছে।

দেরির কারণে সকাল সাড়ে ৯টায় যে গাড়িটি ঈদযাত্রী নিয়ে নীলফামারী যাওয়ার কথা ছিল, সেটি ১১টায় ছেড়ে গেছে। তিনি জানান, ঈদের আগে বাসের কোনো টিকিট নেই।

ওই এলাকার এনা পরিবহনের কাউন্টার মাস্টার সোলায়মান বলেন, প্রতিটি বাস গন্তব্যে যেতে বা আসতে তিন থেকে পাঁচ ঘণ্টা অতিরিক্ত সময় লাগছে।

যে বাসটি সকাল ৭টার মধ্যে ঢাকা ঢুকত, এখন তা বেলা ১২টায় আসতে পারে না। যে গন্তব্যে যেতে আগে ৮ ঘণ্টা লাগত, দুই-তিনদিন ধরে সেখানে ১২-১৩ ঘণ্টা লাগছে।

রূপগঞ্জে দুই মহাসড়কে তীব্র যানজট : রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, রূপগঞ্জে মহাসড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। আটকা পড়ছে শত শত যানবাহন।

এতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে ঘরমুখো যাত্রীরা। বুধবার দিনব্যাপী এশিয়ান হাইওয়ে (বাইপাস) সড়কের পলখান এলাকা থেকে শিংলাবো ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আধুরিয়া এলাকা থেকে বিশ্বরোড এলাকা পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার এলাকায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

এ দীর্ঘ যানজটের প্রধান কারণ হিসেবে জানা গেছে, ভুলতা ফ্লাইওভার ও রাস্তার নির্মাণকাজ চলা, যত্রতত্র যাত্রী ওঠানামা, চালকরা নিয়ম না মেনে গাড়ি চালানো, হাটবাজারে লোড-আনলোড, মহাসড়কের কাছাকাছি গরুর হাট।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের বরাব ও বিশ্বরোড স্টেশন থেকে প্রায় ৫০০ গজ ভেতরে নোয়াপাড়া গরুর হাট। হাটে গরুর গাড়ি প্রবেশ করাতে গিয়ে এখানে যানজট লেগে যাচ্ছে।

বৈরী আবহাওয়ায় শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি বন্ধ : শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি জানান, বৈরী আবহাওয়ায় বুধবার কয়েক ঘণ্টা ছাড়া ফেরি পারাপার বন্ধ ছিল। মঙ্গলবার রাত ১১টা থেকে বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ফেরিতে যানবাহন পারাপার বন্ধ করে দেয়া হয়।

৭টা থেকে যানবাহন পারাপার শুরু হলেও এরপর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তা আবার বন্ধ করে দেয়া হয়। তবে কয়েকটি ফেরি শুধু যাত্রী নিয়ে চলাচল করে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×