বিচার বিভাগের অন্যদের জন্য একটি বার্তা : অ্যাটর্নি জেনারেল

এই অনুসন্ধানকে স্বাগত জানাই -মাহবুব উদ্দিন খোকন * সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত ও ব্যবস্থা নিতে পারে -ব্যারিস্টার আমীর উল ইসলাম

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৩ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।ফাইল ছবি
অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।ফাইল ছবি

হাইকোর্টের তিন বিচারপতির বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগের অনুসন্ধান বিচার বিভাগের অন্যদের জন্য একটি বার্তা বলে মন্তব্য করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। বৃহস্পতিবার সুপ্রিমকোর্টে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, আইনের ঊর্ধ্বে কোনো মন্ত্রী, বিচারপতি বা সাধারণ মানুষ থাকতে পারেন না।

এ পদক্ষেপের ফলে যারা নিজেদের সঠিক পথে পরিচালনা করছেন না, তাদের কাছে একটি ইঙ্গিত (বার্তা) যাবে। অসদাচরণের অভিযোগের অনুসন্ধান শুরুর বিষয়টি তিন বিচারপতিকে অবহিত করার পর তারা ছুটি চেয়েছেন। এ ঘটনায় সিনিয়র আইনজীবীরা প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার এম আমীর উল ইসলাম বলেছেন, সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত এবং ব্যবস্থা নিতে পারে। অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, বর্তমানে আমাদের বিচারকদের বিরুদ্ধে যদি কোনো অসদাচরণের অভিযোগ ওঠে, সেটা কোন প্রতিষ্ঠান নিষ্পত্তি করবে সে ব্যাপারে আমরা এখন পর্যন্ত স্পষ্ট নই।

সুপ্রিমকোর্ট বারের সভাপতি এম আমিন উদ্দিন বলেন, প্রধান বিচারপতি এবং রাষ্ট্রপতি- এ দু’জনের মধ্যে যে অতি গোপনীয় বিষয় নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে, সে বিষয়ে আমার কোনো ব্যক্তিগত ধারণা নেই। সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেছেন, হাইকোর্টের তিন বিচারপতির বিরুদ্ধে প্রধান বিচারপতি পদক্ষেপ নিয়েছেন।

এ পদক্ষেপকে আমি স্বাগত জানাই। এ পদক্ষেপ অনেক আগেই নেয়া উচিত ছিল : অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, আইনের ঊর্ধ্বে কোনো মন্ত্রী, বিচারপতি বা সাধারণ মানুষ থাকতে পারেন না। এ পদক্ষেপের ফলে যারা নিজেদের সঠিক পথে পরিচালনা করছেন না, তাদের কাছে একটি ইঙ্গিত (বার্তা) যাবে।

সুপ্রিমকোর্টে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন আলোচনা করেই তিন বিচারপতিকে সাময়িক অব্যাহতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই তিন জন হলেন : বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী, বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি একেএম জহুরুল হক।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, বিচার বিভাগকে সঠিক রাস্তায় রাখার প্রাথমিক দায়িত্ব রাষ্ট্রপতি ও প্রধান বিচারপতির। বিচার বিভাগকে কলুষমুক্ত করতে যা যা করা দরকার, তা তাদের করা উচিত। এ ধরনের পদক্ষেপ অনেক আগেই নেয়া উচিত ছিল বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ এই আইন কর্মকর্তা বলেন, আইনজীবীরা চান সব বিচারপতি বিতর্কের ঊর্ধ্বে থাকুক। আমরা অনেক আগে থেকেই বলে আসছি- বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি রক্ষা ও একে কলুষমুক্ত করতে বারের (আইনজীবী সমিতি) অধিকাংশ সদস্য দাবি করে আসছিলেন।

তিন বিচারপতির বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অনুসন্ধানের বিষয়টি কীভাবে পরিচালিত হবে, জানতে চাইলে মাহবুবে আলম বলেন, প্রধান বিচারপতি ও রাষ্ট্রপতি অনুসন্ধানের বিষয়ে ঠিক করবেন। বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি রক্ষায় তারাই সিদ্ধান্ত নেবেন। তবে এ ধরনের ঘটনা আগে ঘটেনি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের মাধ্যমে অনুসন্ধান হবে কি না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে মাহবুবে আলম বলেন, সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল নিয়ে রিভিউ (রায় পুনর্বিবেচনা) ফাইল করে রেখেছি। তবে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল থাকলেও প্রধান বিচারপতি তার জুনিয়র তিনজন বিচারপতিকে নিয়ে এ বিষয়ে অনুসন্ধান করে রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠাতেন।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, এই তিন বিচারপতির বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ জনসম্মুখে প্রকাশ করা বিচার বিভাগের ভাবমূর্তির জন্য শুভ হবে না।

আরও অনেকের বিরুদ্ধেও অভিযোগ রয়েছে : শুধু এই তিন বিচারপতিই নন, আরও অনেক বিচারপতির বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন।

তিনি বলেছেন, সুপ্রিমকোর্টের কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে প্রধান বিচারপতিকে অবহিত করেছি। সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির শহীদ সফিউর রহমান মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমরা সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের তিন বিচারপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত করার বিষয়টিকে স্বাগত জানাই।

তবে এ তদন্ত কারা করছে, তা স্পষ্ট করারও দাবি জানাচ্ছি। বিচারপতিদের অসদাচরণের অভিযোগ অনুসন্ধানে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল আবারও পুনরুজ্জীবিত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের পর সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল আবারও পুনরুজ্জীবিত হয়েছে।

এখন এটির কার্যক্রম কী অবস্থায় রয়েছে, আমরা জানি না। তাই এটি স্পষ্ট করা দরকার। নবম সংসদ বহাল থাকাবস্থায় দশম সংসদের সদস্যদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিটের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা এ বিষয়ে একটি রিট করেছিলাম। কিন্তু হাইকোর্ট রিটটি সরাসরি খারিজ করে দিয়েছেন। এখন হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেছি। আর আপিলে ন্যায়বিচার পাওয়ার বিষয়ে আশা প্রকাশ করছি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×