বিনিয়োগে প্রধান বাধা দুর্নীতি

মার্কিন রাষ্ট্রদূত

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিনিয়োগ

দুর্নীতি এবং অবকাঠামো দুর্বলতা বিদেশি বিনিয়োগের (এফডিআই) প্রধান প্রতিবন্ধকতা। এ কারণেই এফডিআই খুব বেশি বাড়ছে না। ব্যবসা পরিচালনা প্রক্রিয়া সহজ করা নিয়ে সরকারের অনেক উদ্যোগের কথা শোনা যাচ্ছে। কিন্তু এ বিষয়ে উন্নয়ন তেমন একটা দৃশ্যমান নয়।

বাংলাদেশের বিনিয়োগ পরিবেশ নিয়ে এ পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেছেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা ব্লুম বার্নিকাট। তবে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রশংসা করে তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের উন্নতি অসাধারণ। একই সময়ে অন্য যে কোনো দেশের তুলনায় বাংলাদেশের উন্নয়ন বিশেষভাবে লক্ষণীয়।

মার্কিন পণ্য ও সেবা প্রদর্শনী উপলক্ষে রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মঙ্গলবার এসব পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেন তিনি। মার্কিন দূতাবাস এবং অ্যামেরিকান চেম্বার অব কমার্স ইন বাংলাদেশ (অ্যামচেম) যৌথভাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার হোটেল সোনারগাঁওয়ে তিন দিনের এ প্রদর্শনী শুরু হবে। সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের কমার্স অ্যাডভোকেসি সেন্টারের দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক ম্যালকম বার্ক, অ্যামচেমের সাবেক সভাপতি আফতাব-উল ইসলাম, সংগঠনের সহ-সভাপতি শাদাব আহম্মেদ খান প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। গণতন্ত্র না উন্নয়ন- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে রাষ্ট্রদূত বলেন, দুটোই প্রয়োজন। এর একটি অন্যটি হাত ধরে এগিয়ে যায়। দেশ উন্নত হলে জনগণকে প্রয়োজনীয় সেবা দেয়া সম্ভব হয়। আবার আন্দোলন ও কথা বলার স্বাধীনতাও থাকতে হয়। তবে এ বিষয়ে কোনো দেশের নাম উল্লেখ করেননি তিনি।

মার্কিন বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের শুল্কমুক্ত রফতানি সুবিধা (জিএসপি) ফিরিয়ে দেয়া সম্পর্কিত এ প্রশ্নের জবাবে রাষ্ট্রদূত বলেন, এ বিষয়ে মার্কিন প্রশাসন থেকে যে কর্মপরিকল্পনা দেয়া হয়েছে তা এখনও পুরোপুরি বাস্তবায়ন হয়নি। তৈরি পোশাক খাতে কিছু কিছু ক্ষেত্রে অনেক উন্নয়ন হয়েছে সত্য। তবে শ্রম অধিকার প্রশ্নের উন্নয়ন এখনও আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত হয়নি। বিশেষ করে আন্তর্জাতিক শ্রমসংস্থার (আইএলও) এ বিষয়ক চার অনুচ্ছেদের অগ্রগতি সন্তোষজনক নয়। রাষ্ট্রদূত বলেন, স্থগিত হওয়ার আগেও খুব কম পণ্যই জিএসপি সুবিধা পেত। প্রধান পণ্য তৈরি পোশাক এ সুবিধার আওতায় ছিল না। এ পণ্যের রফতানি এখন বরং বাড়ছে। ২০১৩ সালের এপ্রিলে রানা প্লাজা ধসের পর কর্মপরিবেশের নিরাপত্তা না থাকার অভিযোগে একই বছরের সেপ্টেম্বরে জিএসপি স্থগিত করে যুক্তরাষ্ট্র।

দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্য অগ্রগতি সম্পর্কে বার্নিকাট বলেন, গত কয়েক বছরে যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ বাণিজ্য বেড়েছে ৭ গুণ। ১০০ কোটি ডলারের বাণিজ্য এখন ৭০০ কোটি ডলার হয়েছে। এ হার আরও বাড়ানোর চেষ্টা করছেন তারা। তার দেশের উদ্যোক্তারা এ দেশে আরও বেশি বিনিয়োগ করতে চান বলে জানান তিনি।

ঢাকায় মার্কিন পণ্য ও সেবা প্রদর্শনী কাল : সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, প্রদর্শনীর মাধ্যমে বিশ্বমানের মার্কিন পণ্য ও সেবা সম্পর্কে ধারণা পাবেন এ দেশের ব্যবসায়ী এবং ভোক্তারা। এবারের প্রদর্শনীতে উবার, বার্গার কিংয়ের মতো আলোচিত সেবা ও পণ্য প্রদর্শন করা হবে। মোট ১৫০টি মার্কিন কোম্পানির ৪৩টি প্রতিষ্ঠান ৭২টি বুথে পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করবে। হোটেল সোনারগাঁওয়ে আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। এ উপলক্ষে ব্যবসা ও বিনিয়োগসংক্রান্ত চারটি পৃথক সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিদিন সকাল ১০টায় শুরু হয়ে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে প্রদর্শনী। এতে প্রবেশ ফি ত্রিশ টাকা। শনিবার প্রদর্শনী শেষ হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter