যুবলীগের নতুন পথচলা শুরু, কংগ্রেস প্রস্তুতি কমিটির প্রথম বৈঠক আজ

বিতর্কিতদের বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকব-চয়ন ইসলাম

  যুগান্তর রিপোর্ট ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

যুবলীগ
যুবলীগ। ফাইল ছবি

‘ক্যাসিনো-ঝড়ে লণ্ডভণ্ড’ যুবলীগের নতুন পথচলা শুরু হল। আজ বিকাল চারটায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয় কংগ্রেসের (সম্মেলন) প্রস্তুতি কমিটির প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

এতে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ অনুযায়ী পরবর্তী কর্মপরিকল্পনা চূড়ান্ত হবে। গঠন করা হবে কংগ্রেস প্রস্তুতির বিভিন্ন উপকমিটি। কংগ্রেসের কাউন্সিলর ডেলিগেটসের তালিকা তৈরি ও পোস্টারসহ সার্বিক বিষয়ে আলোচনা হবে এদিনের বৈঠকে।

রোববার সন্ধ্যায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে অব্যাহতি দেয়া হয়। গঠন করা হয় আহ্বায়ক কমিটি। প্রেসিডিয়াম সদস্য চয়ন ইসলামকে আহ্বায়ক ও সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদকে সদস্য সচিব করে কংগ্রেসের প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে যুবলীগের সপ্তম জাতীয় কংগ্রেসের প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক চয়ন ইসলাম সোমবার যুগান্তরকে বলেন, আমাদের লক্ষ্য সুশৃঙ্খল ও সুন্দর একটি কংগ্রেস প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দেয়া। সে লক্ষ্যে কাজ শুরু করে দিয়েছি। মঙ্গলবার (আজ) দলীয় কার্যালয়ে যাব।

সেখানে সংগঠনের সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে কংগ্রেসের উপকমিটিগুলো গঠন করা হবে। এসব উপকমিটিতে বিতর্কিত কাউকে রাখা হবে না। প্রধানমন্ত্রীর সেই নির্দেশনাই আছে। আমরাও এ বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্ক। যে উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব দিয়েছেন, তা পালনে সবার কাছে সহযোগিতা কামনা করেন চয়ন ইসলাম।

ক্যাসিনো-কাণ্ডে আলোচনা-সমালোচনার পর আড়ালে চলে যান যুবলীগ চেয়ারম্যান। এর মধ্যে সপ্তম জাতীয় কংগ্রেসের তারিখ ঘোষণা হলেও ছিলেন না সংগঠনের কোনো কার্যক্রমে। অন্যদিকে তাকে বাইরে রেখে প্রেসিডিয়ামের মিটিং করলেও কংগ্রেস প্রস্তুতির কার্যক্রম এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনার অপেক্ষায় ছিলেন সংগঠনের নেতারা।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, যুবলীগের বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অবৈধভাবে সম্পদ অর্জন এবং দলীয় ভাবমূর্তি নষ্ট করার অভিযোগ উঠেছে। ইতিমধ্যে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

রোববারের মিটিংয়ে যুবলীগের বিতর্কিতদের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী কঠোর মনোভাবের কথা জানিয়েছেন। যুবলীগের প্রেসিডিয়ামের এক নেতা বলেন, বর্তমান কমিটির যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে তারা দলীয় কার্যালয়েও আর ঢুকতে পারবেন না। কোনো ধরনের কার্যক্রমেও রাখা হবে না।

১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর শেখ ফজলুল হক মনি আওয়ামী যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠাকালে গঠনতন্ত্রে উল্লেখ ছিল যে ৪০ বছর বয়সীরা যুবলীগের নেতৃত্ব দিতে পারবেন। কিন্তু ১৯৭৮ সালের দ্বিতীয় কংগ্রেসের পর এ বিধানটি বিলুপ্ত করা হয়।

১৯৮৬ সালে অনুষ্ঠিত তৃতীয় কংগ্রেসে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন ৩৭ বছর বয়সী মোস্তফা মহসীন মন্টু। ১৯৯৬ সালের চতুর্থ জাতীয় কংগ্রেসে ৪৭ বছর বয়সে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন শেখ ফজলুল করিম সেলিম।

২০০৩ সালের পঞ্চম জাতীয় কংগ্রেসে ৪৯ বছর বয়সে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন জাহাঙ্গীর কবির নানক। এ কমিটি ২০০৯ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করে। ২০১২ সালে অনুষ্ঠিত হয় সংগঠনটির ষষ্ঠ জাতীয় কংগ্রেস। এ কংগ্রেসে ৬৪ বছর বয়সে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী।

এবার যুবলীগের নেতাদের বয়সসীমা ৫৫ বছর নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে সংগঠনটির পদপ্রত্যাশী অনেক নেতাই বাদ পড়তে যাচ্ছেন। বিশেষ করে বর্তমান কমিটির প্রেসিডিয়ামের বেশিরভাগ নেতার বয়স ৫৫-র বেশি। এতে সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ করা গেছে।

একটা অংশের নেতারা বলছেন- নেত্রী (শেখ হাসিনা) যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা সঠিক। কারণ যুবলীগ করতে হলে তাদের বয়সসীমা থাকা দরকার। এটা নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যেও আলোচনা রয়েছে। কারণ নতুন প্রজন্মের সঙ্গে তাল মেলাতে যুবলীগের আগামী কাউন্সিলে তরুণ নেতাদের মূল দায়িত্বে আনা প্রয়োজন।

তবে বয়সের কারণে বাদ পড়া নেতারা দেখাচ্ছেন অন্য যুক্তি। দীর্ঘদিন সম্মেলন না হওয়া ও গড় আয়ু বাড়ার বিষয়টিকে বিবেচনায় নিয়ে অন্তত এ সম্মেলনে বয়সের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করার পক্ষে তারা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×