সেন্টমার্টিনে আটকা সহস্রাধিক পর্যটক

  টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি ০৯ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সেন্টমার্টিন
সেন্টমার্টিন। ফাইল ছবি

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে সেন্টমার্টিনে সহস্রাধিক পর্যটক আটকা পড়েছেন। শুক্রবার বৈরী আবহাওয়ায় টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে জাহাজ চলাচল বন্ধ থাকায় সেখানে আটকা পড়েন তারা। বৃহস্পতিবার ও তার আগে এসব পর্যটক প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন ভ্রমণে গিয়েছিলেন।

নিুচাপ থেকে ‘বুলবুল’ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়ে উপকূলের দিকে ধেয়ে আসায় আবহাওয়া অধিদফতর বৃহস্পতিবার বিকালেই ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত জারি করেছিল। শুক্রবার এ সংকেত ৪ নম্বরে উন্নীত হয়েছে। এ দিন ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সাগর উত্তাল হতে শুরু করে। এ কারণে জাহাজ চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় জেলা প্রশাসন।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, দ্বীপে এক হাজারের বেশি পর্যটক আটকা পড়েছেন। পর্যটকদের যাতে কোনো অসুবিধা না হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। আটকা পড়া পর্যটকদের সুলভ মূল্যে থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করতে হোটেল মোটেল ব্যবসায়ীদের প্রতি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আবহাওয়া স্বাভাবিক হয়ে এলে পর্যটকদের ফিরিয়ে আনা হবে। এছাড়া ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সাইক্লোন শেল্টারগুলো প্রস্তুত ও জেলেদের সাগরে যাওয়া থেকে বিরত রাখাসহ যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএ টেকনাফ অফিস সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার টেকনাফের দমদমিয়া জেটিঘাট থেকে আড়াই হাজারের মতো পর্যটক সেন্টমার্টিন বেড়াতে যান। প্রায় এক হাজারের মতো পর্যটক রাতে দ্বীপে অবস্থান করেন। আরও অন্তত ২শ’ পর্যটক আগে থেকেই সেখানে ছিলেন।

পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারি আটলান্টিক ক্রুজের ব্যবস্থাপক আবদুল আজিজ বলেন, সমুদ্র উত্তাল থাকায় টেকনাফ থেকে কোনো জাহাজ দ্বীপে যায়নি। দ্বীপে বেড়াতে গিয়ে অনেক পর্যটক আটকা পড়েছেন। আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে তাদের ফিরিয়ে আনা হবে।

সেন্টমার্টিন পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক আজমীর ইলাহি বলেন, কোনো পর্যটক যাতে হয়রানির শিকার না হন সেদিকে নজর রাখা হচ্ছে।

সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূর আহম্মদ বলেন, পর্যটকদের ভালো-মন্দ খোঁজখবর রাখা হচ্ছে। হোটেলে যাতে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় না করে সেজন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি বৈরী আবহাওয়ায় কোনো পর্যটক যাতে সমুদ্রে গোসল করতে না নামেন, সে বিষয়ে বিচকর্মীদের সতর্ক করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×