আবরার হত্যা মামলার চার্জশিট নির্ভুল হয়েছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বিচার হবে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে- আইনমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আসাদুজ্জামান খান কামাল

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, আবরার ফাহাদ হত্যায় তদন্ত সংস্থা যে অভিযোগপত্র দিয়েছে তা ‘নির্ভুল হয়েছে’। শিগগির এর বিচার হবে, আমরা এটা আশা করছি।

অন্যদিকে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, সব আইনি বাধ্যবাধকতা শেষ করে আবরার হত্যা মামলার বিচার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে করা হবে। সোমবারের মধ্যে প্রসিকিউশন টিমকে এ মামলা গ্রহণ করতে বলব।

বুধবার সচিবালয়ে আবরার হত্যা মামলার চার্জশিট দাখিল প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের তারা পৃথকভাবে এসব কথা বলেন।

এদিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বিজয় দিবস উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত বৈঠক শেষে এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, আবরার ফাহাদ হত্যায় তদন্ত সংস্থা যে অভিযোগপত্র দিয়েছে তা ‘নির্ভুল হয়েছে’।

শিগগির এর বিচার হবে বলে আমরা আশা করছি। আবরার হত্যার চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ, তাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কেমন বিচার আশা করছেন- জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিচারের বিষয়টি পুলিশের আন্ডারে নয়। এটা আদালত করবেন।

আমরা আগেই বলেছি, আমরা একটা নির্ভুল চার্জশিট দেয়ার জন্য প্রচেষ্টা নেব। আশা করি, তদন্ত সংস্থা পুলিশ বাহিনীর মাধ্যমে যে চার্জশিটটি দিয়েছে, নির্ভুল চার্জশিট হয়েছে। শিগগির এর বিচার হবে, এটা আমরাও আশা করছি।

আবরার হত্যায় জড়িত কয়েকজন আসামি পলাতক আছে, তাদের ধরা হয়নি- এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ধরা হয়নি বলবেন না। বলবেন, তারা পলাতক। প্রচেষ্টা চলছে, ধরা পড়ে যাবে।

একই বিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক নিজ দফতরে সাংবাদিকদের বলেন, এ মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ড যখন ঘটে তখনই বলেছিলাম, তদন্ত শেষ হওয়ার পর অভিযোগপত্র যখন আদালতে সাবমিট করা হবে, তারপর দায়িত্ব পড়বে প্রসিকিউশন টিমের ওপর।

এ মামলা বিচারিক আদালতে আসার পরই যেন কার্যক্রম শুরু করা যায় এ জন্য একটা প্রসিকিউশন টিম ঠিক করে রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, আমি খবর নেব অভিযোগপত্র (চার্জশিট) চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে দাখিল করা হয়েছে কি না।

দাখিল করার পর কিছু ফরমালিটিজ রয়েছে। যেমন: যদি পলাতক আসামি থাকে, তাহলে তাকে হাজির হওয়ার জন্য একটা আদেশ দিতে হবে। সে যদি আদেশে হাজির না হয়, তাহলে তার অনুপস্থিতিতে বিচার করা যায়।

সে জন্যও একটা গেজেট নোটিফিকেশন করতে হবে। এসব ফরমালিটিজ যত শিগগির সম্ভব আমরা শেষ করব এবং এ দায়িত্ব আগামী সোমবারের মধ্যে প্রসিকিউশন টিমকে গ্রহণ করতে বলব।

এসব ফরমালিটিজ শিগগির শেষ করতে বলব। তিনি বলেন, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে মামলাটির বিচার করার জন্য আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে আবেদন করতে অনুরোধ করব। কারণ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকেই এ আবেদন আসতে হয়।

এ ক্ষেত্রে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে আবেদন পেলে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার কার্যক্রম শুরু হবে। তিনি বলেন, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার করা হলে এর প্রথম সময়টা হচ্ছে ৯০ দিন, তারপর সময় দেয়া হয় ৩০ দিন।

মোট ১২০ দিনের মধ্যে বিচার কাজ শেষ করতে না পারলে তৃতীয়বার ১৫ দিন সময় পাবে। অর্থাৎ মোট ১৩৫ দিনে বিচার কাজ শেষ করতে হবে।

ঘটনাপ্রবাহ : বুয়েট ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×