ভারতের সঙ্গে দর কষাকষির শক্তি সরকারের নেই: মির্জা ফখরুল

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মির্জা ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমরা ভারতের বিরুদ্ধে কখনও কথা বলি না। ভারতের সঙ্গে আমাদের তো বিরোধ নেই। সমস্যাটা হচ্ছে- আজকে এমন একটা সরকার তারা আমাদের সমস্যাগুলো নিয়ে ভারতের সঙ্গে কথা বলতে পারে না।

সেই শক্তি তার নেই, সেই বার্গেনিং ক্যাপাবিলিটি তার নেই। কারণ সে তাদের ওপর নির্ভর করে ক্ষমতায় টিকে আছে। এটা হচ্ছে মূল কথা, এটা বাস্তবতা। সরকার যতদিন থাকবে ততই বাংলাদেশের স্বার্থ ক্ষুণ্ণ হবে, একে একে নষ্ট হবে এবং বাংলাদেশ নিঃস্ব হয়ে যাবে। রাজধানীর হোটেল পূর্বাণীতে শনিবার দুপুরে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ‘ফেনী নদীর পানি প্রত্যাহার চুক্তি : বাংলাদেশের সম্ভাব্য বিপর্যয়’ শীর্ষক এ সভার আয়োজন করে অ্যাসোসিয়েশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (অ্যাব)।

ফেনী নদীর পানি ভারতকে দেয়া প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এটা অভিন্ন নদী নয়। ফেনী নদীর পানি নিয়ে যাচ্ছে অথচ আমাদের প্রধানমন্ত্রী বলছেন, খাওয়ার পানি চাইলে পানি দেব না? ভালো কথা পানি দেবেন। তা আমার যে লাখ লাখ মানুষ তিস্তার অববাহিকাতে আজকে পুরোপুরিভাবে নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে, তাদের ফসল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, জীবন-জীবিকা ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে- সে বিষয়ে আপনি (প্রধানমন্ত্রী) একটি কথাও বলবেন না? সীমান্তে আমার লোকদের গুলি করে মেরে ফেলে দিচ্ছে। আপনারা বলছেন যে, এটা কমে এসেছে। আমরা তো কমতে দেখছি না।

ভারতের সঙ্গে চুক্তিগুলো সম্পূর্ণ প্রকাশের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, এটা এমন একটা সংসদ যে, চুক্তিগুলো নিয়েও একটা আলোচনা হয়নি। আমাদের সংবিধানে বলা আছে, যে কোনো চুক্তি সংসদে উপস্থাপন করতে হবে। সেখানে আলোচনা করতে হবে এবং সেটাকে রেটিফাই করতে হবে সংসদে। সেটা কখনই করা হয় না।

বিদেশে নারী শ্রমিকদের নির্যাতন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, সৌদি আরব থেকে আমাদের মহিলা ও নারী শ্রমিকরা যারা ফিরে আসছেন তার মধ্যে ৫৩ জন নিহত হয়েছে। সবচেয়ে মারাত্মক হচ্ছে যে, আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, এটা স্বাভাবিক ব্যাপার, সংখ্যা কম। তার আগে ভারতের সঙ্গে সম্পর্কের ব্যাপারে উনি (পররাষ্ট্রমন্ত্রী) বলেছেন, আমাদের সম্পর্ক এমন সুন্দর জায়গায় গেছে আমি সেটা বলতে চাই না।

সরকারের সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশের অর্থনীতির অবস্থা একদম ভঙ্গুর হয়ে পড়েছে। খুব বড়াই করে তারা (সরকার) বলছে যে, বাংলাদেশ রোল মডেল। সেই রোল মডেল এমন হয়েছে যে, শুধু ঋণের ওপর তাদের টিকে থাকতে হচ্ছে। সব ব্যাংক ফোকলা হয়ে গেছে। অর্থনীতিবিদরা অনেকে বলেই ফেলছেন, অর্থনীতির ভবিষ্যৎ কিন্তু খারাপ। আজকের পত্রিকাতে দেখবেন, গার্মেন্টসের রফতানি অনেক কমে গেছে। বহু গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ম্যানুফ্যাকচারড ইন্ডাস্ট্রিজ বাংলাদেশে হচ্ছে না। কৃষকরা ধানের দাম পায় না। তাহলে স্বয়ংসম্পূর্ণতা থাকবে কী করে? এই অবস্থা থেকে উত্তরণে সরকার পরিবর্তনের কোনো বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, এই সরকারকে সরাতে হবে। তাদের সরাতে হলে একটা জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করতে হবে। সব দল-মত নির্বিশেষে সবাইকে এক করে এই যে দানবের মতো বসে আমাদের সবকিছু তছনছ করে দিয়েছে তাকে সরাতে হবে। তারা ডাকাতির নির্বাচন করেছে। এই নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে অবিলম্বে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় একটি নতুন নির্বাচন হবে। জনগণের সরকার হবে, জনগণের পার্লামেন্ট হবে।

খালেদা জিয়াকে কেন আটক করে রাখা হয়েছে তার ব্যাখ্যা দিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, তাকে আটক করে রাখার কোনো বৈধতা নেই। আইনগতভাবে তিনি আটক থাকতে পারেন না। একটা মিথ্যা মামলার ওপর সাজা দিয়ে তাকে আটক করে রাখা হয়েছে।

তাকে আটক রাখা হয়েছে এজন্য যে, তিনি হলেন- স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের প্রতীক। যখন টিপাইমুখ বাঁধ করার জন্য তোড়জোড় চলছিল তখন দেশনেত্রী খালেদা জিয়া সবচেয়ে বেশি সোচ্চার ছিলেন। তিনি প্রেস কনফারেন্স করেছেন। তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখেছিলেন। গণতন্ত্রের জন্য তিনি সারাজীবন লড়াই করেছেন। সেজন্যই আজকে তাকে আটক করে রাখা হয়েছে।

সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আখতার হোসেন। বিএনপি সমর্থক প্রকৌশলীদের সংগঠন অ্যাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রিয়াজুল ইসলাম রিজুর সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, সহ-প্রচার সম্পাদক কৃষিবিদ শামীমুর রহমান শামীম, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) মহাসচিব এম আবদুল্লাহ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, অধ্যাপক জি কে মোস্তাফিজুর রহমান, অ্যাব নেতা আবদুস সালাম, আশরাফ উদ্দিন বকুল, গোলাম মাওলা, একেএম জহিরুল ইসলাম, সাহাদাত হোসেন বিপ্লব প্রমুখ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×