পূজার দিনে ভোট, আপিল বিভাগে শুনানি রোববার

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৭ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

হাইকোর্ট। ফাইল ছবি
হাইকোর্ট। ফাইল ছবি

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের আবেদন খারিজ করে হাইকোর্টের দেয়া আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন হয়েছে।

আইনজীবী অশোক কুমার ঘোষ বৃহস্পতিবার ওই আদেশের বিরুদ্ধে আবেদন করেন। এতে ৩০ জানুয়ারির নির্বাচন স্থগিত চাওয়া হয়েছে। আগামী রোববার আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালতে ওই আবেদনের ওপর শুনানি হতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ৩০ জানুয়ারি ভোটের তারিখ রেখে প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন। সে অনুযায়ী প্রার্থীরা প্রচারও চালাচ্ছেন।

সরস্বতী পূজার কারণে ভোটের তারিখ পরিবর্তনের জন্য হাইকোর্টে রিট করেন আইনজীবী অশোক কুমার ঘোষ। তার যুক্তি, ইসির ঘোষিত নির্বাচনের তারিখ সংবিধানে বর্ণিত প্রত্যেক নাগরিকের ধর্ম পালনের মৌলিক অধিকারের সঙ্গে ‘সাংঘর্ষিক’।

গত মঙ্গলবার ওই আবেদন সরাসরি খারিজ করে দেন বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ। আদেশে আদালত বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২৯ জানুয়ারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করেছে। নির্বাচন কমিশন ৩০ তারিখ ভোটের তারিখ ঘোষণা করেছে। তার দু’দিন পর এসএসসি পরীক্ষা। এ পরিস্থিতিতে ভোটের তারিখ পেছানোর কোনো সুযোগ নেই।

অশোক কুমার আরও বলেন, মাঘের পঞ্চমী তিথি শেষ হওয়ার আগে প্রতিমা বিসর্জন দেয়া যায় না। পঞ্জিকা অনুযায়ী পঞ্চমী তিথি শুরু হবে ২৯ জানুয়ারি সকাল ৯টা ১০ মিনিট থেকে। শেষ হবে ৩০ জানুয়ারি বেলা ১১টায়। ৩০ তারিখ নির্বাচন হলে পূজাটা আমরা কীভাবে করব!

নির্বাচন পেছানোর দাবিতে এবার আমরণ অনশন : এদিকে ভোটের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে এবার আমরণ অনশন শুরু করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার দুপুরে টিএসসির রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে পঁচিশজন শিক্ষার্থী আমরণ অনশনে বসেন। এই অনশনে সংহতি জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের কয়েকজন শিক্ষকও বক্তব্য দেন।

এর আগে মঙ্গলবার ও বুধবার একই দাবিতে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিয়ে অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনের সমন্বয়ক জগন্নাথ হল সংসদের ভিপি উৎপল বিশ্বাস যুগান্তরকে বলেন, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরণ অনশন চলবে। নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে তিনি বলেন, পূজা ২৯ তারিখে শুরু হলেও এর মূল আনুষ্ঠানিকতা ৩০ তারিখ। পূজার দিনে যারা নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেছে তাদের পদে থাকার কোনো দরকার নেই। নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন করা না হলে ধরে নেব দেশে ধর্মীয় কোনো স্বাধীনতা নেই।

তারিখ পরিবর্তনে ইসিকে বাধ্য করবে ছাত্রদল : এদিকে পূজার দিন ভোট ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত বলে মন্তব্য করেছেন ছাত্রদল সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন। বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এক সমাবেশে তিনি বলেন, এর মধ্য দিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করা হয়েছে। এ ঘটনায় অবিলম্বে ক্ষমা চেয়ে নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন করতে হবে। অন্যথায় আরও কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনকে তারিখ পরিবর্তনে বাধ্য করবে ছাত্রদল।

এর আগে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে ছাত্রদল। বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ কর্মসূচিতে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতারা অংশ নেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

 
×