ব্যাংক আমানতে সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর শুরু
jugantor
গভর্নরের সঙ্গে এবিবির সাক্ষাৎ
ব্যাংক আমানতে সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর শুরু

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ব্যাংক আমানতে সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর শুরু

ব্যাংক আমানতে সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর শুরু হয়েছে। রোববার থেকে বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো এ সুদহার বাস্তবায়ন করছে। বাংলাদেশ ব্যাংককে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের এমডিরা অবহিত করেছেন।

আগামী ১ এপ্রিল থেকে ব্যাংক ঋণের সুদহার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনতে আমানতে এ সুদহার কমানো হয়।

ব্যাংক নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) একটি প্রতিনিধি দল রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সংগঠনটির নতুন চেয়ারম্যান ও ইস্টার্ন ব্যাংকের এমডি আলী রেজা ইফতেখার প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন।

সূত্র জানায়, রোববার থেকে ব্যাংক আমানতের সুদহার ৬ শতাংশে নামিয়ে আনা হচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংককে এ বিষয়ে অবহিত করেছে এবিবির প্রতিনিধি দল। এটি বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় নীতি সহায়তা চেয়েছেন তারা। এ ছাড়া ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা (এসএমই) ঋণ সিঙ্গেল ডিজিটের বাইরে রাখার আবেদন করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে লিখিত সুপারিশ দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন গভর্নর।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, এবিবির নতুন কমিটি গভর্নরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছে। সাক্ষাতে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

এ সময় সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার বাস্তবায়নসহ বেশকিছু বিষয়ে মৌখিক দাবি করেন তারা। গভর্নর বিষয়গুলো লিখিত আকারে দিতে বলেছেন।

অনির্ধারিত সাক্ষাতের বিষয়ে এবিবি নেতা ও প্রাইম ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রাহেল আহমেদ গণমাধ্যমকে জানান, সৌজন্য সাক্ষাৎ ছিল মূল উদ্দেশ্য। ১ এপ্রিল থেকে ৯ শতাংশে ব্যাংক ঋণের সুদহার নামিয়ে আনার বিষয়ে গভর্নরকে আমরা অবহিত করেছি।

পাশাপাশি রোববার থেকে আমানতের সুদহার কমিয়ে আনার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মার্কেন্টাইল ব্যাংকের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, আমানতে সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর শুরু করেছে মার্কেন্টাইল ব্যাংক। এখন থেকে মেয়াদি স্কিম ছাড়া সব ধরনের আমানতে সুদ হবে ৬ শতাংশ।

সূত্র জানায়, ২৮ জানুয়ারি এবিবির বৈঠকে ব্যাংক আমানতে সুদ ৬ শতাংশে নামিয়ে আনার বিষয়ে এমডিরা একমত হন।

এদিকে সিঙ্গেল ডিজিটে ঋণের সুদহার নামাতে ব্যাংকারদের দাবি অনুযায়ী সরকারের আমানতের সুদহার নির্দিষ্ট করে সম্প্রতি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ। এতে সরকারের নিজস্ব অর্থের ৫০ শতাংশ বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকে রাখার বিধান রাখা হয়েছে।

ব্যাংকের সুদহার বেঁধে দেয়ার পর আমানতকারীদের সবাই যাতে সরকারি ব্যাংকের দিকে ঝুঁকে না পড়েন, তা ঠেকাতে বেসরকারি ব্যাংকে ডিপোজিটে মুনাফা আধা শতাংশ বেশি করা হয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) অর্থ বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকে আমানত হিসেবে রাখলে সর্বোচ্চ সুদ পাবে ৬ শতাংশ। আর এ অর্থ সরকারি ব্যাংকে আমানত হিসেবে রাখে তাহলে সর্বোচ্চ সুদ পাবে সাড়ে ৫ শতাংশ।

ব্যবসায়ীদের দাবি ও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী, ব্যাংক ঋণের সুদহার এক অঙ্কে নামিয়ে আনতে সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে ব্যাংক মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকস (বিএবি) এবং ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) বৈঠক হয়।

উভয় পক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এ বছরের এপ্রিল থেকে সব ধরনের ঋণের সুদহার সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ হবে। আর সাধারণ জনগণকে আমানতের বিপরীতে ৬ শতাংশের বেশি সুদ দেয়া হবে না। তবে ক্রেডিট কার্ড সিঙ্গেল ডিজিটের আওতার বাইরে থাকবে।

গভর্নরের সঙ্গে এবিবির সাক্ষাৎ

ব্যাংক আমানতে সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর শুরু

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
ব্যাংক আমানতে সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর শুরু
ছবি: সংগৃহীত

ব্যাংক আমানতে সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর শুরু হয়েছে। রোববার থেকে বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো এ সুদহার বাস্তবায়ন করছে। বাংলাদেশ ব্যাংককে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের এমডিরা অবহিত করেছেন।

আগামী ১ এপ্রিল থেকে ব্যাংক ঋণের সুদহার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনতে আমানতে এ সুদহার কমানো হয়।

ব্যাংক নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) একটি প্রতিনিধি দল রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সংগঠনটির নতুন চেয়ারম্যান ও ইস্টার্ন ব্যাংকের এমডি আলী রেজা ইফতেখার প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন।

সূত্র জানায়, রোববার থেকে ব্যাংক আমানতের সুদহার ৬ শতাংশে নামিয়ে আনা হচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংককে এ বিষয়ে অবহিত করেছে এবিবির প্রতিনিধি দল। এটি বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় নীতি সহায়তা চেয়েছেন তারা। এ ছাড়া ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা (এসএমই) ঋণ সিঙ্গেল ডিজিটের বাইরে রাখার আবেদন করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে লিখিত সুপারিশ দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন গভর্নর।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, এবিবির নতুন কমিটি গভর্নরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছে। সাক্ষাতে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

এ সময় সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার বাস্তবায়নসহ বেশকিছু বিষয়ে মৌখিক দাবি করেন তারা। গভর্নর বিষয়গুলো লিখিত আকারে দিতে বলেছেন।

অনির্ধারিত সাক্ষাতের বিষয়ে এবিবি নেতা ও প্রাইম ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রাহেল আহমেদ গণমাধ্যমকে জানান, সৌজন্য সাক্ষাৎ ছিল মূল উদ্দেশ্য। ১ এপ্রিল থেকে ৯ শতাংশে ব্যাংক ঋণের সুদহার নামিয়ে আনার বিষয়ে গভর্নরকে আমরা অবহিত করেছি।

পাশাপাশি রোববার থেকে আমানতের সুদহার কমিয়ে আনার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মার্কেন্টাইল ব্যাংকের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, আমানতে সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর শুরু করেছে মার্কেন্টাইল ব্যাংক। এখন থেকে মেয়াদি স্কিম ছাড়া সব ধরনের আমানতে সুদ হবে ৬ শতাংশ।

সূত্র জানায়, ২৮ জানুয়ারি এবিবির বৈঠকে ব্যাংক আমানতে সুদ ৬ শতাংশে নামিয়ে আনার বিষয়ে এমডিরা একমত হন।

এদিকে সিঙ্গেল ডিজিটে ঋণের সুদহার নামাতে ব্যাংকারদের দাবি অনুযায়ী সরকারের আমানতের সুদহার নির্দিষ্ট করে সম্প্রতি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ। এতে সরকারের নিজস্ব অর্থের ৫০ শতাংশ বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকে রাখার বিধান রাখা হয়েছে।

ব্যাংকের সুদহার বেঁধে দেয়ার পর আমানতকারীদের সবাই যাতে সরকারি ব্যাংকের দিকে ঝুঁকে না পড়েন, তা ঠেকাতে বেসরকারি ব্যাংকে ডিপোজিটে মুনাফা আধা শতাংশ বেশি করা হয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) অর্থ বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকে আমানত হিসেবে রাখলে সর্বোচ্চ সুদ পাবে ৬ শতাংশ। আর এ অর্থ সরকারি ব্যাংকে আমানত হিসেবে রাখে তাহলে সর্বোচ্চ সুদ পাবে সাড়ে ৫ শতাংশ।

ব্যবসায়ীদের দাবি ও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী, ব্যাংক ঋণের সুদহার এক অঙ্কে নামিয়ে আনতে সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে ব্যাংক মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকস (বিএবি) এবং ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) বৈঠক হয়।

উভয় পক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এ বছরের এপ্রিল থেকে সব ধরনের ঋণের সুদহার সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ হবে। আর সাধারণ জনগণকে আমানতের বিপরীতে ৬ শতাংশের বেশি সুদ দেয়া হবে না। তবে ক্রেডিট কার্ড সিঙ্গেল ডিজিটের আওতার বাইরে থাকবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন