৪ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশু আশামণি
jugantor
৪ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশু আশামণি
দ্রুত উদ্ধারের দাবিতে এলাকায় মানববন্ধন

  দনিয়া প্রতিনিধি  

০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

খালে নিখোঁজ শিশুর সন্ধান দাবিতে রাজধানীর কদমতলীতে মানববন্ধন

রাজধানীর কদমতলী ডিএনডির খালে নিখোঁজ ৫ বছরের শিশু আশামণিকে (তোহা) খাল থেকে দ্রুত উদ্ধারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে ফারহা মডেল স্কুল, এইচ ইউসুফ মেমোরিয়াল স্কুলের শিক্ষার্থীসহ এলাকার ছোট শিশুরা।

রায়েরবাগ-কদমতলী সড়কের মেরাজনগর-মোহাম্মদবাগ ডিএনডি খালের কালভার্ট ব্রিজের পাশে মঙ্গলবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মানববন্ধন হয়। এতে শিশু আশামণির বাবা এরশাদ, মা তানিয়া, চাচা বিল্লাল হোসেনসহ স্থানীয় কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির লোকজনও অংশ নেন।

এরশাদ ও তানিয়া কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমাদের আশামণিকে কি শেষ দেখা দেখতে পাব না? আমরা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে দ্রুত আমাদের আশামণিকে উদ্ধার চাই।

আশামণির চাচা বিল্লাল হোসেন বলেন, ৪ দিন হল ভাতিজি আশামণি নিখোঁজ। ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারে তেমন তৎপরতা দেখছি না। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) ৫৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আকাশ কুমার ভৌমিক ও সাবেক মেম্বার লুৎফর রহমানের উদ্যোগে শ্রমিক দিয়ে খাল পরিষ্কার ও শিশু উদ্ধার কাজ চলছে।

আধুনিক প্রযুক্তির যুগে ফায়ার সার্ভিস ফুলবাড়িয়া সদর দফতর ৪ দিনেও শিশুটিকে উদ্ধার করতে পারেনি- এটা হাস্যকর মনে হচ্ছে। আমরা দ্রুত আশামণিকে উদ্ধার চাই।

মেরাজনগর এলাকার এক বাসিন্দা বলেন, উদ্ধার কাজে আমরা অসন্তুষ্ট। উদ্ধার কাজে আরও তৎপরতা দেখতে চাই।

কমিউনিটি পুলিশের সেক্রেটারি ফারুক আহমেদ বলেন, ফায়ার সার্ভিস সনাতন পদ্ধতিতে উদ্ধার কাজ করছে। এতে শিশুটিকে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। উদ্ধারে আধুনিক পদ্ধতি প্রয়োগ করা উচিত।

শিক্ষার্থীরা বলেন, ৪ দিনেও আশামণির সন্ধান মেলেনি। এ আধুনিক যুগে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন একটি শিশুকে উদ্ধার করতে পারছে না, বিষয়টি মর্মান্তিক।

জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৫৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আকাশ কুমার ভৌমিক বলেন, খালে প্রচুর ময়লা থাকার কারণে উদ্ধার কাজ ব্যাহত হচ্ছে।

রোববার থেকে ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে নিজস্ব অর্থায়নে শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে খালের ময়লা পরিষ্কার ও শিশু উদ্ধার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। ডিএনডির দায়িত্বে নিয়োজিত সেনাবাহিনীর লোকজন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের লোকজনের সঙ্গে শিশুটি উদ্ধারের বিষয় নিয়ে কথা বলেছি।

শনিবার বিকালে অন্য শিশুদের সঙ্গে বল খেলছিল আশামণি। একপর্যায়ে ডিএনডির খালে বলটি পড়ে যায়। বলটি উঠাতে গিয়ে খালের পানিতে ডুবে যায় সে। চার দিন হলেও শিশুটিকে উদ্ধার করা যায়নি।

৪ দিনেও উদ্ধার হয়নি শিশু আশামণি

দ্রুত উদ্ধারের দাবিতে এলাকায় মানববন্ধন
 দনিয়া প্রতিনিধি 
০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
খালে নিখোঁজ শিশুর সন্ধান দাবিতে রাজধানীর কদমতলীতে মানববন্ধন
খালে নিখোঁজ শিশুর সন্ধান দাবিতে রাজধানীর কদমতলীতে মানববন্ধন

রাজধানীর কদমতলী ডিএনডির খালে নিখোঁজ ৫ বছরের শিশু আশামণিকে (তোহা) খাল থেকে দ্রুত উদ্ধারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে ফারহা মডেল স্কুল, এইচ ইউসুফ মেমোরিয়াল স্কুলের শিক্ষার্থীসহ এলাকার ছোট শিশুরা।

রায়েরবাগ-কদমতলী সড়কের মেরাজনগর-মোহাম্মদবাগ ডিএনডি খালের কালভার্ট ব্রিজের পাশে মঙ্গলবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মানববন্ধন হয়। এতে শিশু আশামণির বাবা এরশাদ, মা তানিয়া, চাচা বিল্লাল হোসেনসহ স্থানীয় কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির লোকজনও অংশ নেন।

এরশাদ ও তানিয়া কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমাদের আশামণিকে কি শেষ দেখা দেখতে পাব না? আমরা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে দ্রুত আমাদের আশামণিকে উদ্ধার চাই।

আশামণির চাচা বিল্লাল হোসেন বলেন, ৪ দিন হল ভাতিজি আশামণি নিখোঁজ। ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারে তেমন তৎপরতা দেখছি না। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) ৫৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আকাশ কুমার ভৌমিক ও সাবেক মেম্বার লুৎফর রহমানের উদ্যোগে শ্রমিক দিয়ে খাল পরিষ্কার ও শিশু উদ্ধার কাজ চলছে।

আধুনিক প্রযুক্তির যুগে ফায়ার সার্ভিস ফুলবাড়িয়া সদর দফতর ৪ দিনেও শিশুটিকে উদ্ধার করতে পারেনি- এটা হাস্যকর মনে হচ্ছে। আমরা দ্রুত আশামণিকে উদ্ধার চাই।

মেরাজনগর এলাকার এক বাসিন্দা বলেন, উদ্ধার কাজে আমরা অসন্তুষ্ট। উদ্ধার কাজে আরও তৎপরতা দেখতে চাই।

কমিউনিটি পুলিশের সেক্রেটারি ফারুক আহমেদ বলেন, ফায়ার সার্ভিস সনাতন পদ্ধতিতে উদ্ধার কাজ করছে। এতে শিশুটিকে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। উদ্ধারে আধুনিক পদ্ধতি প্রয়োগ করা উচিত।

শিক্ষার্থীরা বলেন, ৪ দিনেও আশামণির সন্ধান মেলেনি। এ আধুনিক যুগে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন একটি শিশুকে উদ্ধার করতে পারছে না, বিষয়টি মর্মান্তিক।

জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৫৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আকাশ কুমার ভৌমিক বলেন, খালে প্রচুর ময়লা থাকার কারণে উদ্ধার কাজ ব্যাহত হচ্ছে।

রোববার থেকে ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে নিজস্ব অর্থায়নে শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে খালের ময়লা পরিষ্কার ও শিশু উদ্ধার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। ডিএনডির দায়িত্বে নিয়োজিত সেনাবাহিনীর লোকজন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের লোকজনের সঙ্গে শিশুটি উদ্ধারের বিষয় নিয়ে কথা বলেছি।

শনিবার বিকালে অন্য শিশুদের সঙ্গে বল খেলছিল আশামণি। একপর্যায়ে ডিএনডির খালে বলটি পড়ে যায়। বলটি উঠাতে গিয়ে খালের পানিতে ডুবে যায় সে। চার দিন হলেও শিশুটিকে উদ্ধার করা যায়নি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন