১৫ হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন করল কেন্দ্রীয় ব্যাংক
jugantor
চলতি মূলধন খাতে ঋণের জোগান
১৫ হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন করল কেন্দ্রীয় ব্যাংক

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৪ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বড় শিল্প ও সেবা খাতে চলতি মূলধন খাতে ঋণের জোগান দিতে বাংলাদেশ ব্যাংক ১৫ হাজার কোটি টাকার একটি পুনঃঅর্থায়ন তহবিল গঠন করেছে।

ই তহবিল থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে সহায়তা করা হবে। এসব খাতে মোট ঋণের ৫০ শতাংশ দেবে বাণিজ্যিক ব্যাংক এবং বাকি ৫০ শতাংশ বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে জোগান দেবে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে একটি সার্কুলার জারি করে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়।

দেশের অর্থনীতিতে করোনাভাইরাসের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলায় ৫ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী ৫টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন।

এর মধ্যে একটি ছিল বড় শিল্প ও সেবা খাতে চলতি মূলধনের জোগান দিতে ৩০ হাজার কোটি টাকার তহবিল। এর আলোকে বাংলাদেশ ব্যাংক ১২ এপ্রিল তহবিল ব্যবহারের নীতিমালা জারি করে। ওই নীতিমালায় বলা হয়, তহবিল থেকে ৯ শতাংশ সুদে ঋণ দেয়া হবে উদ্যোক্তাদের।

এর মধ্যে সাড়ে ৪ শতাংশ দেবে গ্রাহক এবং বাকি সাড়ে ৪ শতাংশ ভর্তুকি হিসেবে দেবে সরকার। তিন বছর মেয়াদি এ ঋণের বিপরীতে সরকার ভর্তুকি দেবে এক বছর। ব্যাংকগুলো নিজস্ব তহবিল থেকে এ ঋণ দেবে।

এছাড়া কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে চলতি মূলধনের ঋণের জোগান দিতে আরও ২০ হাজার কোটি টাকার একটি তহবিল গঠন করা হয়েছে।

ব্যাংকগুলো নিজস্ব তহবিল থেকে এ ঋণ বিতরণ করবে। দুটি তহবিল মিলে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে নিজস্ব উৎস থেকে দিতে হবে ৫০ হাজার কোটি টাকা।

সূত্র জানায়, ব্যাংকগুলোর যেখানে তারল্য সংকট রয়েছে, সেখানে এত বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যাংকগুলোর পক্ষে নিজস্ব উদ্যোগে জোগান দেয়া কঠিন হবে।

এতে তারল্য সংকট আরও বাড়তে পারে। এ আশঙ্কা থেকেই কেন্দ্রীয় ব্যাংক তাদের নিজস্ব অর্থ থেকে ১৫ হাজার কোটি টাকার একটি পুনঃঅর্থায়ন স্কিম গঠন করেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এ তহবিল গঠনের ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে বাজারে আসবে ১৫ হাজার কোটি টাকা। এতে বাজারে টাকার প্রবাহ বাড়বে। একই সঙ্গে ব্যাংকগুলোও চাপমুক্ত থাকতে পারবে।

এতে আরও বলা হয়, এ তহবিলের আওতায় গ্রাহককে ব্যাংক ঋণ বিতরণ করবে। পরে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে অর্থ চাইলে ব্যাংককে মোট ঋণের ৫০ শতাংশ অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে জোগান দেয়া হবে। প্রতি মাসে ব্যাংকগুলোকে পুনঃঅর্থায়ন করবে বাংলাদেশ ব্যাংক।

তবে কোনোক্রমেই এ তহবিলের অর্থ বড় শিল্প ও সেবা খাতের চলতি মূলধনের বাইরে অন্য কোনো খাতে ব্যবহার করা যাবে না।

চলতি মূলধন খাতে ঋণের জোগান

১৫ হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন করল কেন্দ্রীয় ব্যাংক

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৪ এপ্রিল ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বড় শিল্প ও সেবা খাতে চলতি মূলধন খাতে ঋণের জোগান দিতে বাংলাদেশ ব্যাংক ১৫ হাজার কোটি টাকার একটি পুনঃঅর্থায়ন তহবিল গঠন করেছে।

ই তহবিল থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে সহায়তা করা হবে। এসব খাতে মোট ঋণের ৫০ শতাংশ দেবে বাণিজ্যিক ব্যাংক এবং বাকি ৫০ শতাংশ বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে জোগান দেবে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে একটি সার্কুলার জারি করে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়।

দেশের অর্থনীতিতে করোনাভাইরাসের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলায় ৫ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী ৫টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন।
 

এর মধ্যে একটি ছিল বড় শিল্প ও সেবা খাতে চলতি মূলধনের জোগান দিতে ৩০ হাজার কোটি টাকার তহবিল। এর আলোকে বাংলাদেশ ব্যাংক ১২ এপ্রিল তহবিল ব্যবহারের নীতিমালা জারি করে। ওই নীতিমালায় বলা হয়, তহবিল থেকে ৯ শতাংশ সুদে ঋণ দেয়া হবে উদ্যোক্তাদের।
 

এর মধ্যে সাড়ে ৪ শতাংশ দেবে গ্রাহক এবং বাকি সাড়ে ৪ শতাংশ ভর্তুকি হিসেবে দেবে সরকার। তিন বছর মেয়াদি এ ঋণের বিপরীতে সরকার ভর্তুকি দেবে এক বছর। ব্যাংকগুলো নিজস্ব তহবিল থেকে এ ঋণ দেবে।

এছাড়া কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে চলতি মূলধনের ঋণের জোগান দিতে আরও ২০ হাজার কোটি টাকার একটি তহবিল গঠন করা হয়েছে।
 

ব্যাংকগুলো নিজস্ব তহবিল থেকে এ ঋণ বিতরণ করবে। দুটি তহবিল মিলে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে নিজস্ব উৎস থেকে দিতে হবে ৫০ হাজার কোটি টাকা।

সূত্র জানায়, ব্যাংকগুলোর যেখানে তারল্য সংকট রয়েছে, সেখানে এত বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যাংকগুলোর পক্ষে নিজস্ব উদ্যোগে জোগান দেয়া কঠিন হবে।
 

এতে তারল্য সংকট আরও বাড়তে পারে। এ আশঙ্কা থেকেই কেন্দ্রীয় ব্যাংক তাদের নিজস্ব অর্থ থেকে ১৫ হাজার কোটি টাকার একটি পুনঃঅর্থায়ন স্কিম গঠন করেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এ তহবিল গঠনের ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে বাজারে আসবে ১৫ হাজার কোটি টাকা। এতে বাজারে টাকার প্রবাহ বাড়বে। একই সঙ্গে ব্যাংকগুলোও চাপমুক্ত থাকতে পারবে।

এতে আরও বলা হয়, এ তহবিলের আওতায় গ্রাহককে ব্যাংক ঋণ বিতরণ করবে। পরে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে অর্থ চাইলে ব্যাংককে মোট ঋণের ৫০ শতাংশ অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে জোগান দেয়া হবে। প্রতি মাসে ব্যাংকগুলোকে পুনঃঅর্থায়ন করবে বাংলাদেশ ব্যাংক।
 

তবে কোনোক্রমেই এ তহবিলের অর্থ বড় শিল্প ও সেবা খাতের চলতি মূলধনের বাইরে অন্য কোনো খাতে ব্যবহার করা যাবে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন