করোনা মহামারীর নতুন কেন্দ্র ব্রাজিল রাশিয়া

সংক্রমিতের তালিকায় তৃতীয় স্থানে উঠে এলো পুতিনের দেশ * তুরস্ক ও জার্মানিকে ছাড়িয়ে গেল ব্রাজিল * মস্কোয় বাড়ানো হয়েছে লকডাউন * ভারতে আক্রান্ত ৭৫ হাজার ছাড়িয়েছে * লকডাউন প্রত্যাহার করল যুক্তরাজ্য * ঈদেও কারফিউ থাকছে সৌদিতে

  যুগান্তর ডেস্ক ১৪ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বজুড়ে করোনা সংক্রমণের তালিকায় ঝড়ের গতিতে উপরের দিকে এগোচ্ছে রাশিয়া ও ব্রাজিল। করোনার নতুন হটস্পট হতে যাচ্ছে দেশ দুটি। ইতোমধ্যে ইতালি ও যুক্তরাজ্যকে ছাড়িয়ে সংক্রমণের তালিকায় তৃতীয় স্থানে উঠে গেছে রাশিয়া। অন্যদিকে তুরস্ক ও জার্মানিকে পেছনে ফেলে ছুটছে ব্রাজিল।

এ দেশটিতে মৃত্যুও বাড়ছে আশঙ্কাজনক হারে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৭০০’র বেশি মৃত্যু হয়েছে ব্রাজিলে। মোট মৃত্যু ছাড়িয়েছে সাড়ে ১২ হাজার। রাশিয়ায় একদিনে আরও ১০ হাজারের বেশি আক্রান্ত হয়েছে। তবে সংক্রমিতের সংখ্যা বেশি হলেও দেশটিতে মৃত্যুহার তুলনামূলক কম।

এদিকে ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৭৮ হাজার ছাড়িয়েছে। পরীক্ষামূলকভাবে লকডাউন শিথিল করেছে যুক্তরাজ্য। ঈদুল ফিতরের ছুটিতেও ২৪ ঘণ্টার কারফিউ ও লকডাউন থাকছে সৌদি আরবে। খবর বিবিসি, এএফপি ও রয়টার্সসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের।

বাংলাদেশ সময় বুধবার রাত সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ওয়ার্ল্ডওমিটারসের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৩ লাখ ৯৬ হাজার ৯৭৩ জন। মারা গেছেন ২ লাখ ৯৫ হাজার ৮৭৫ জন। অবস্থা আশঙ্কাজনক ৪৬ হাজার ৩২৯ জনের। সুস্থ হয়েছেন ১৬ লাখ ৩৮ হাজার ৯১৬ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ৮৫ হাজার ৩১২ জন, মারা গেছে ৫ হাজার ৩২০, যা আগের ২৪ ঘণ্টায় ছিল ৩ হাজার ৪০৩। যুক্তরাষ্ট্রে মোট আক্রান্ত ১৪ লাখ ১৯ হাজার ০৪৮, মৃত্যু হয়েছে ৮৪ হাজার ২৪৩ জনের। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১ হাজার ৬৩০ জন।

স্পেনে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ৭১ হাজার ৯৫ জন, মারা গেছেন ২৭ হাজার ১০৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ১৭৬। যুক্তরাজ্যে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ২৯ হাজার ৭০৫ জন, মারা গেছেন ৩৩ হাজার ১৮৬ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৬২৭ জনের। ইতালিতে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ২২ হাজার ১০৪ জন, মারা গেছেন ৩১ হাজার ১০৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ১৯৫ জনের।

রাশিয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১০ হাজার ৮৯৯ জন। পরপর দশ দিন এই সংখ্যা ১০ হাজারের উপরে। সংক্রমিতের মধ্যে নাম রয়েছে প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভের। এর আগে প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিশুস্তিনও করোনায় আক্রান্ত হন।

রাশিয়ায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৪২ হাজার ২৭১ জন হলেও মৃত্যুহার অন্যান্য দেশের তুলনায় কম। বিশ্বের যে পাঁচটি দেশে ২ লাখের বেশি আক্রান্ত সেখানে মৃত্যু ২৫ হাজারের বেশি।

সেখানে রাশিয়ায় প্রাণহানি মাত্র ২ হাজার ২১২ জনের। রাশিয়ার রাজধানী মস্কো করোনার উৎসকেন্দ্র হিসেবে উঠে এসেছে।

দেশের অধিকাংশ করোনা আক্রান্তই এ শহরে। গত সপ্তাহে মেয়র রাজধানীর লকডাউন বাড়িয়ে ৩১ মে পর্যন্ত করেছিলেন। সবার মুখে মাস্ক ও গ্লাভস পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

তবে সোমবার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সারা দেশে লকডাউন শিথিলের ঘোষণা দিয়েছেন। এরপরই মঙ্গলবার থেকে কারখানা ও নির্মাণ কাজের সঙ্গে যুক্ত কর্মীরা কাজে ফিরেছেন।

এদিকে ব্রাজিলে ক্রমেই পরিস্থিতি জটিল হয়ে উঠছে। আক্রান্ত ও মৃত্যুহারে জার্মানিকেও ছাড়িয়ে গেছে দেশটি। গত ২৪ ঘণ্টায় ল্যাটিন আমেরিকার এই দেশে করোনা সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৭৭৯ জনের। আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮০ হাজার ৭৩৭। মৃত্যু হয়েছে ১২ হাজার ৬৩৫ জনের।

অপরদিকে জার্মানিতে আক্রান্ত ১ লাখ ৭৩ হাজার ৮২৪ জন এবং মৃত্যু ৭ হাজার ৭৯২। ব্রাজিলে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৭২ হাজার ৫৯৭ জন। দেশটিতে করোনা অ্যাকটিভ কেস ৯৩ হাজার ১৫৬টি।

এর মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন ৮ হাজার ৩১৮ জন। ব্রাজিলের চেয়ে জার্মানিতে সুস্থতার হারও বেশি।

দেশটিতে ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১ লাখ ৪৮ হাজার ৭০০ জন। বর্তমানে করোনা অ্যাকটিভ কেস ১৮ হাজার ২৩৩টি। আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন ১ হাজার ৫৩৯ জন।

আমেরিকান স্বাস্থ্য সংস্থার কমিউনিকেবল রোগ বিভাগের প্রধান মার্কোস এসপিনাল জানিয়েছেন, বেশ কয়েক দিন ধরেই ব্রাজিলের যে পরিস্থিতি তা উদ্বেগ তৈরি করছে। হাসপাতাল থেকে ছাড় পাওয়া মানুষের পরিসংখ্যান বলছে দেশে প্রকৃত সংক্রমণের সংখ্যা সরকারি হিসাবের চেয়ে ১৫ গুণ বেশি।

তবে এসব বিষয়ে একেবারেই মাথা ঘামাতে রাজি নন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারো। বরং দেশকে দ্রুত স্বাভাবিকের পথে ফেরাতে মরিয়া তিনি। এমনকি স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনা সংক্রমণ এড়াতে লকডাউনের প্রস্তাব দেয়ায় তাকেও সরিয়ে দেন বলসোনারো।

এবার অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে দেশের নানা প্রান্তে জিম ও বিউটিপার্লারগুলো খুলে দেয়া নিয়েও প্রাদেশিক সরকারগুলোর সঙ্গে বিতণ্ডায় জড়িয়েছেন তিনি।

ভারতে আক্রান্ত ৭৫ হাজার ছাড়িয়েছে : ভারতে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়া ব্যক্তির সংখ্যা ৭৫ হাজার ছাড়িয়েছে। মোট আক্রান্ত ৭৮ হাজার ৫৫ জন, মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৫৫১ জনের। বুধবার ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় নতুন করে ১২২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

একই সময়ে নতুন করে আরও ৩ হাজার ৫২৫ জনের শরীরে এ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। দেশটিতে এ পর্যন্ত ২৪ হাজার ৪২০ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মঙ্গলবার রাতে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ভাষণে বিদ্যমান লকডাউনের মেয়াদ আরও বাড়ানোর ব্যাপারে ইঙ্গিত দেন তিনি। করোনার জেরে সৃষ্ট অর্থনৈতিক দৈন্যদশা থেকে ঘুরে দাঁড়াতে ২০ লাখ কোটি টাকার একটি আর্থিক প্যাকেজও ঘোষণা করেন মোদি।

লকডাউন প্রত্যাহার করল যুক্তরাজ্য : করোনার বিস্তার রোধে জারি করা লকডাউন পরীক্ষামূলকভাবে বুধবার তুলে নিয়েছে ইংল্যান্ড। লকডাউনের কারণে অর্থনীতিতে বিরুপ প্রভাব পড়ায় দেশটি এ সিদ্ধান্ত নেয়।

ইউরোপে করোনায় সবচেয়ে ভয়াবহ আক্রান্ত দেশ ইংল্যান্ড। সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশটিতে ৩০ হাজারের বেশি মানুষ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে ২৩ মার্চ থেকে দেশটিতে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছিল।

ঈদেও কারফিউ থাকছে সৌদিতে : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে ঈদুল ফিতরের ছুটিতেও ২৪ ঘণ্টার কারফিউ ও লকডাউন থাকছে সৌদি আরবে। ২৩-২৭ মে পর্যন্ত এটি বলবৎ থাকছে বলে বুধবার দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে।

২ এপিল রাজধানী রিয়াদ, মক্কাসহ অন্য বড় শহরগুলোয় ২৪ ঘণ্টার কারফিউ জারি করা হয়। পবিত্র রমজান উপলক্ষে ২৬ এপ্রিল মক্কা ও এর আশপাশের এলাকা বাদে অন্যসব জায়গায় কারফিউ শিথিল করা হয়।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত