একদিনে শনাক্ত ১ লাখ ৭ হাজার

বিশ্বে ৫২ লাখ ছাড়াল করোনা আক্রান্ত

  যুগান্তর ডেস্ক ২৩ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের লাগাম টানা যাচ্ছে না কিছুতেই। প্রতিদিন লাখো নতুন রোগী আর হাজার হাজার লাশ যুক্ত হচ্ছে আক্রান্ত ও মৃত্যু তালিকায়। গেল পাঁচ মাসে ২১৩টি দেশে ছড়িয়ে পড়া এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫২ লাখের বেশি মানুষ। প্রাণ হারিয়েছেন তিন লাখ ৩৭ হাজার। গত ২৪ ঘণ্টায় রাশিয়া ও ব্রাজিলে রেকর্ডসংখ্যক মানুষ কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। রাশিয়ায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় ৫০টি ভেন্টিলেটরসহ চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। রোগী ও প্রাণহানি শূন্যে নেমেছে থাইল্যান্ডে। স্পেনে লকডাউন ঘোষণার পর এই প্রথম মৃতের সংখ্যা ৫০-এর নিচে নামল। খবর বিবিসি, এএফপি ও রয়টার্সসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের।

বাংলাদেশ সময় শুক্রবার রাত ১২টা পর্যন্ত ওয়ার্ল্ডওমিটারসের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫২ লাখ ৫৮ হাজার ৯৫২ জন। মারা গেছেন ৩ লাখ ৩৭ হাজার ১১৩ জন। অবস্থা আশঙ্কাজনক ৪৫ হাজার ৫০০ জনের। সুস্থ হয়েছেন ২১ লাখ ২ হাজার ৪১১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৪ হাজার ৬৮৫।

বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ও প্রাণহানিতে শীর্ষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৪১৮ জন। এ নিয়ে দেশটিতে মৃতের সংখ্যা ৯৭ হাজার ১০২ জন। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ১৬ লাখ ৩২ হাজার ৬২৯ জন। স্পেনে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ৮০ হাজার ১১৭ জন, মারা গেছেন ২৭ হাজার ৯৪০ জন। যুক্তরাজ্যে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ৫৪ হাজার ১৯৫ জন, মারা গেছেন ৩৬ হাজার ৩৯৩ জন। ইতালিতে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ২৮ হাজার ৬৫৮ জন, মারা গেছেন ৩২ হাজার ৬১৬ জন।

ব্রাজিল-রাশিয়ায় একদিনে রেকর্ড মৃত্যু : রাশিয়ায় করোনাভাইরাসে দৈনিক মৃত্যুর রেকর্ড হল শুক্রবার। ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মারা গেছেন ১৫০ জনের। এতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় ৩ হাজার ২৪৯ জনে। এদিন রাশিয়ায় নতুন করে ৮ হাজার ৮৯৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ৩ লাখ ২৬ হাজার ৪৪৮ জন। তবে টানা সপ্তম দিন আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজারের নিচে থাকল। আক্রান্তের সংখ্যায় বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্রের ঠিক পরেই রাশিয়ার অবস্থান। তবে দেশটিতে আনুপাতিক হারে প্রাণহানি অনেক কম। রাশিয়ায় এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৯৯ হাজার ৮২৫ জন।

ব্রাজিলে ২৪ ঘণ্টায় ১ হাজার ১৮৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা দেশটিতে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর সর্বোচ্চ। এর ফলে লাতিন আমেরিকার দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২০ হাজার ২৬৭। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেয়া তথ্যমতে দেশটিতে গেল ২৪ ঘণ্টায় ১৬ হাজার ৭৩০ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। তাতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ছাড়িয়েছে। বর্তমানে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ১৪ হাজার ৭৪৯ জন। বিশ্বের মধ্যে যা তৃতীয় সর্বোচ্চ।

দৈনিক মৃত্যু ৫০-এর নিচে নামল স্পেনে : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে মার্চের মাঝামাঝিতে লকডাউন ঘোষণা করে স্পেন। এরপর থেকে দেশটিতে বেড়েই চলেছিল মৃতের সংখ্যা। লকডাউন ঘোষণার পর এই প্রথম দেশটিতে মৃতের সংখ্যা ৫০-এর নিচে নামল। বৃহস্পতিবার দেশটিতে ৪৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। অবশ্য এই তালিকায় কাতালোনিয়ার মৃতের সংখ্যা অন্তর্ভূক্ত করা হয়নি। কারণ, তারা এদিন আক্রান্ত ও মৃতের আপডেট জানায়নি কেন্দ্রকে।

সিঙ্গাপুরে আক্রান্ত ৩০ হাজার ছাড়াল : সিঙ্গাপুরে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যে অধিকাংশই অভিবাসী। সেখানে প্রতিদিনই শত শত অভিবাসী করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৬১৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ৪২৬ জনে। এর মধ্যে মারা গেছেন ২৩ জন। দেশটিতে আক্রান্তদের অধিকাংশই সেখানকার ডরমিটরিতে বসবাসরত অভিবাসী শ্রমিক। করোনায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে ডরমিটরিগুলো। কারণ সেখানে একসঙ্গে অনেক মানুষ গাদাগাদি করে বসবাস করেন।

রাশিয়াকে ৫০টি ভেন্টিলেটর দিল যুক্তরাষ্ট্র : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় রাশিয়ায় ৫০টি ভেন্টিলেটরসহ চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বৃহস্পতিবার মার্কিন বিমানবাহিনীর একটি বিমানে তা পৌঁছে দেয়া হয়। করোনা সংকটে রাশিয়াকে দেয়া যুক্তরাষ্ট্রে এটি প্রথম ধাপের সহযোগিতা। আক্রান্তের হিসাবে বিশ্বের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের পরই রাশিয়ার অবস্থান। রাশিয়ায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত জন সালিভান বলেছেন, রাশিয়াকে দেয়া ৫০টি ভেন্টিলেটর ৫৬ লাখ ডলারের মানবিক সহযোগিতা প্রতিশ্রুতির প্রথম কিস্তি। আগামী সপ্তাহে আরও ১৫০টি ভেন্টিলেটর দেয়া হবে। এর আগে গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রকে চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠিয়েছিল রাশিয়া।

থাইল্যান্ডে নতুন আক্রান্ত নেই : থাইল্যান্ডে আক্রান্ত আর মৃত্যুহীন আরেকটা দিন কাটল। মহামারী শুরুর পর এ নিয়ে তৃতীয়বার এমন সাফল্যের মুখ দেখল দেশটি। জানুয়ারিতে মহামারী শুরুর পর থাইল্যান্ডে মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৩৭ জন এবং মারা গেছেন ৫৬ জন। এর আগে বুধবার ও শনিবার দেশটিতে নতুন করে কেউ আক্রান্ত হয়নি কিংবা কেউ মারাও যায়নি। শুক্রবার আবারও আক্রান্ত আর মৃত্যুর হার শূন্য ছিল। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় বিধিনিষেধ শিথিল করে রোববার থেকে শপিংমল, রেস্তোরাঁ, পার্ক, জাদুঘর, পাঠাগার ও শিক্ষা কেন্দ্র খুলে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

জাপানে আরও তিন জেলায় জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার : জাপান সরকার দেশের আরও তিন জেলা থেকে জরুরি অবস্থা তুলে নিল। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসায় বৃহস্পতিবার ওসাকা, কিয়োটো ও হিওগো জরুরি অবস্থামুক্ত হল। করোনায় মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত টোকিও ও হোক্কাইডোসহ পাঁচ জেলায় এখনও জরুরি অবস্থা থাকছে। এসব এলাকা থেকেও জরুরি অবস্থা তুলে নেয়া যায় কিনা সেই সিদ্ধান্ত সোমবার নেবে সরকার। দেশটিতে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ হাজার ৫১ জন এবং প্রাণহানি ৮০৯ জনের।

ভারতে ফের রেকর্ড সংক্রমণ : ভারতে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি দিনকে দিন জটিল হচ্ছে। প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা আগের দিনকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজারের বেশি মানুষের শরীরে করোনাভাইরাস মিলেছে। তাতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১ লাখ ২৪ হাজার ৪৬২ জন। শুক্রবার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ৮৮ জন নতুন কোভিড-১৯ রোগী পাওয়া গেছে দেশে। এ সময়ে মৃত্যু হয়েছে আরও ১৪৮ জনের। তাতে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় ৩ হাজার ৭১২ জনে।

মেক্সিকোতে একদিনে তিন হাজার আক্রান্ত : মেক্সিকোতে একদিনে প্রায় ৩ হাজার মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মহামারী শুরুর পর একদিনে এটাই সর্বোচ্চসংখ্যক আক্রান্তের রেকর্ড। গত ২৪ ঘণ্টায় মেক্সিকোতে নতুন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৯৭৩ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫৬ হাজার ৫৯৪ জন, ব্রাজিল ও পেরুর পর লাতিন আমেরিকায় তৃতীয় সর্বোচ্চ।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত