লাদাখে ভারত চীন উত্তেজনা বাড়ছে

  যুগান্তর ডেস্ক ২৯ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ভারতের লাদাখ সীমান্তে প্রতিনিয়ত উত্তেজনা বাড়ছে। পূর্ব লাদাখ সীমান্তের বেশকিছু অঞ্চলে ভারত ও চীনের সেনা সদস্যরা মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছেন।

এক মাসের মধ্যে লাদাখের কাছে চীনের বিমানঘাঁটি স্থাপন ও যুদ্ধবিমান মোতায়েনের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে ভারত। এছাড়া ভারতের জলসীমা ও আকাশসীমা লঙ্ঘনেরও অভিযোগ উঠছে।

এদিকে এ উত্তেজনাকর পরিস্থিতির মধ্যেই যুদ্ধের জন্য সেনা সদস্যদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন চীনা প্রেসিডেন্ট।

এমন পরিস্থিতি নিরসনে ভারত-চীনকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিয়েছেন। খবর বিবিসি, আনন্দবাজার পত্রিকা, এনডিটিভি ও রয়টার্সের।

পূর্ব লাদাখের নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর প্যাংগং ও গালোয়ান উপত্যকা সীমান্তে বাংকারসহ অস্থায়ী পরিকাঠামো তৈরি করে চীন দুই থেকে আড়াই হাজার সেনা মোতায়েন করেছে। একইভাবে সীমান্তে ভারতও সেনার সংখ্যা বাড়িয়েছে।

মাসখানেক চলা এ উত্তেজনার মধ্যেই লাদাখের কাছে চীন বিমানঘাঁটি স্থাপন করেছে। সেখানে যুদ্ধবিমানের উপস্থিতিও দেখা গেছে।

উপগ্রহ থেকে পাওয়া ছবিতে দেখা গেছে, প্যাংগং লেক থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরে চীনা বিমানঘাঁটিতে ব্যাপক হারে নির্মাণকাজ চলছে। উল্লেখ্য, লাদাখ থেকে অরুণাচল প্রদেশ পর্যন্ত তিন হাজার ৪৮৮ কিলোমিটারজুড়ে ভারত-চীন সীমান্ত।

ভারত-চীনকে মধ্যস্থতার প্রস্তাব ট্রাম্পের : সীমান্ত ইস্যুতে ভারত ও চীনের মধ্যকার চরম উত্তেজনা পরিস্থিতি নিরসনে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

তিনি বলেন, দুই প্রতিবেশীর সামরিক বাহিনীর মধ্যকার উত্তেজনা নিরসনে তিনি ‘মধ্যস্থতা’ করতে চান। এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ভারত ও চীন উভয়কে জানিয়েছি সীমান্ত বিরোধ নিরসনে যুক্তরাষ্ট্র মধ্যস্থতা বা সালিশি করতে প্রস্তুত, ইচ্ছুক ও সক্ষম।

এর আগে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে তিনি মধ্যস্থতা করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। তবে নয়াদিল্লি ওই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিল।

চীনা সেনাবাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ : সেনা সদস্যদের যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং।

তিনি বলেন, দেশের মানুষকে সবচেয়ে খারাপ পরিস্থতির জন্য তৈরি থাকতে হবে। এ পরিস্থিতিতে তিনি দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানান।

এদিকে নয়াদিল্লিতে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত সান ওয়েইডং বলেছেন, বিক্ষিপ্তভাবে যে মতবিরোধ তৈরি হয়েছে তা যেন দুই দেশের মধ্যে সার্বিক দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে প্রভাব না ফেলে। এটা সবার জন্যই মঙ্গলজনক হবে। দুটি দেশ পরস্পরের জন্য বিপজ্জনক নয় বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

ভারতের দাবি, কড়া অবস্থান নিতেই চীন সুর নরম করেছে : লাদাখ সীমান্তে ভারত সেনা সমাবেশ বাড়ানোর পরপরই সুর নরম করে চীন শান্তির পতাকা ওড়াতে চাচ্ছে বলে দাবি করেছে ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যম।

তবে ভারত এখনও শক্ত অবস্থানে রয়েছে। দেশটির সেনাপ্রধান মনোজ মুকুন্দ নারাভানে সেনাবাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেছেন।

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নির্দেশেই ভারতের সেনারা কড়া অবস্থানে রয়েছে বলে জানানো হয়েছে। ভারতের অবসরপ্রাপ্ত নর্দান সেনা কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল ডিএস হুডা বলেন, বিষয়টি গুরুতর।

এটা কোনো সাধারণ সীমা লঙ্ঘন নয়। তার মতে, গালোওয়ানের মতো এলাকায় সীমান্ত অতিক্রম উদ্বেগের বিষয়। তার দাবি, ওই সীমান্তরেখায় কোনো সমস্যা নেই।

কৌশলগত বিষয়ের বিশেষজ্ঞ অশোক কে কাণ্ঠা বলেন, পরিস্থিতি যথেষ্ট অস্বস্তির। তার দাবি, বেশকিছু জায়গায় চীনের সেনাসদস্যরা সীমান্তরেখা লঙ্ঘন করেছেন, যা উদ্বেগ বাড়াচ্ছে।

৫ মে চীন ও ভারতের সীমান্তে সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষের পর থেকে পূর্ব লাদাখের পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপ হয়েছে। ওইদিন ভারতীয় ও চীনা সেনা সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছিলেন রড, লাঠি নিয়ে।

পাথর ছোড়াও হয়েছিল। ২০১৭ সালে দোকলামে এ ধরনের পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। ভারতের দাবি, ২০১৫ সাল থেকে চীনা সেনারা দফায় দফায় ভারতীয় ভূখণ্ডে প্রবেশ করেছে।

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত