করোনায় একদিনে চিহ্নিত ২০২৯

শনাক্ত ৪০ হাজার ছাড়াল ৫৫৯ জনের মৃত্যু

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৯ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দেশে করোনা রোগী শনাক্তের সংখ্যা ও মৃত্যুর হার বেড়েই চলেছে। একদিনে সর্বোচ্চসংখ্যক দুই হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ২৯টি। এ নিয়ে দেশে করোনা রোগী ৪০ হাজার ছাড়াল। এর আগে একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের সংখ্যা ছিল এক হাজার ৯৭৫। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১৫ জন। সবমিলে এ রোগে দেশে ৫৫৯ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। সারা দেশে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের মধ্যে এ সময় সুস্থ হয়েছেন ৫০০ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত মোট ৮ হাজার ৪২৫ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। আর ঈদের ছুটিতে গত ছয় দিনে নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে ১০ হাজার ১১৬ জন। এ সময়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ১২৭ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত বুলেটিনে যুক্ত হয়ে অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা বৃহস্পতিবার দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির সবশেষ তথ্য তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৯টি ল্যাবে ৯ হাজার ২৬৭টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। আগের দিনের নমুনাসহ পরীক্ষা হয়েছে ৯ হাজার ৩১০টি। এ সময়ে রেকর্ড ২ হাজার ২৯ জনের দেহে সংক্রমণ ধরা পড়ায় দেশে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে ৪০ হাজার ৩২১ জন হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে দুই লাখ ৭৫ হাজার ৭৭৬টি নমুনা। শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বিবেচনায় সুস্থতার হার ২০ দশমিক ৮৯ শতাংশ, মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৯ শতাংশ।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণ করেছেন ১৫ জন। এর মধ্যে ১১ জন পুরুষ ও ৪ জন নারী। ঢাকা বিভাগে সাতজন ও চট্টগ্রাম বিভাগে আটজন। এলাকাভিত্তিক বিশ্লেষণে ঢাকা শহরে ছয়জন, নারায়ণগঞ্জে একজন, চট্টগ্রাম শহরে দু’জন, চট্টগ্রাম জেলায় দু’জন, কক্সবাজারে দু’জন ও কুমিল্লায় দু’জন। মৃতদের বয়স বিশ্লেষণ করে নাসিমা বলেন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দু’জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের পাঁচজন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের পাঁচজন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের দু’জন, ৯১ থেকে ১০০ বছর বয়সের মধ্যে একজন। ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে ২৪৮ জনকে, ছাড়া পেয়েছেন ১৩৮ জন। বর্তমানে চার হাজার ৯৮৪ জন আইসোলেশনে আছেন। মোট আইসোলেশন শয্যা ১৩ হাজার ২৮৪টি। ঢাকা মহানগরীতে সাত হাজার ২৫০টি এবং ঢাকা সিটির বাইরে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ছয় হাজার ৩৪টি শয্যা প্রস্তুত করা হচ্ছে। এসব হাসপাতালে আইসিইউর সংখ্যা ৩৯৯টি এবং ডায়ালাইসিস ইউনিট ১০৬টি। অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে চার হাজার একজন এবং ছাড়া পেয়েছেন দুই হাজার ৪০৪ জন। দুই লাখ ৭৫ হাজার ১০৫ জনকে এখন পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে এবং কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড়া পেয়েছেন দুই লাখ ১৬ হাজার ৮১২ জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫৮ হাজার ২৯৩ জন।

এদিকে ঈদের ছুটিতে করোনা শনাক্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ঊর্ধ্বমুখী। গত ২৭ মে বুধবার একদিনে ২২ জনের মৃত্যু হয়। এদিন ১ হাজার ৫৪১ জনের মধ্যে নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে। ২৬ মে মঙ্গলবার একদিনে মারা যায় ২১ জন, ১ হাজার ১৬৬ জনের মধ্যে নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে। ২৫ মে ঈদের দিন রেকর্ডসংখ্যক ১ হাজার ৯৭৫ জন শনাক্ত হয়। ওই দিন মারা গেছেন আরও ২১ জন। ২৪ মে রোববার করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন সর্বোচ্চ ২৮ জন। একই সময়ে শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৫৩২ জন।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত