একদিনে মৃত্যু ২৮, শনাক্ত ১৭৬৪

মৃত্যু ছয়শ’ ছাড়াল শনাক্ত ৪৪৬০৮

২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত কমলেও বেড়েছে মৃত্যু * হাসপাতালের বহিঃবিভাগ খোলা থাকবে ২টা পর্যন্ত

  যুগান্তর রিপোর্ট ৩১ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দেশে নতুন করোনাভাইরাসে গত এক দিনে শনাক্ত রোগী কমলেও মৃত্যু বেড়েছে। দ্বিতীয় দিনের মতো সর্বোচ্চ ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ৬১০ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৭৬৪ জন। সবমিলে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৪ হাজার ৬০৮ জনে। সারা দেশে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের মধ্যে গত এক দিনে সুস্থ হয়েছেন ৩৬০ জন। এ পর্যন্ত মোট ৯ হাজার ৩৭৫ জন সুস্থ হয়ে উঠলেন। শনিবার করোনা শনাক্তের ১২তম সপ্তাহ শেষে নিয়মিত বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা এ তথ্য তুলে ধরেন। ৮ মার্চ দেশে সর্বপ্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। আর প্রথম মারা যায় ১৮ মার্চ।

শুক্রবার একদিনে রেকর্ড সংখ্যক ২৫২৩ রোগী শনাক্ত হয়। সেই হিসাবে গত এক দিনে নতুন রোগী বৃদ্ধির গতি কমেছে। তবে এ সময় নমুনা পরীক্ষাও আগের দিনের চেয়ে কম ছিল। আগের দিন মারা যান ২৩ জন। কিন্তু গত ২৪ ঘণ্টায় ২৮ জনের মৃত্যু হয়। এর আগে একদিনে ২৮ জন কোভিড-১৯ রোগী মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটেছিল। অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা বুলেটিনে জানান, গত এক দিনে দেশের ৫০টি ল্যাবে ১১ হাজার ৪৪৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এর মধ্যে ৯ হাজার ৯৮৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আগের দিন ৪৯টি ল্যাবে ১১ হাজার ৩০১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। অর্থাৎ শনিবার নমুনা পরীক্ষা দেড় হাজারের মতো কম হয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২ লাখ ৯৭ হাজার ৫৪টি। গত ২৪ ঘণ্টায় যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ২৫ জন পুরুষ এবং তিনজন নারী। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১৭ দশমিক ৬৬ শতাংশ। শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ দশমিক ০২ শতাংশ, মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, এদের মধ্যে দু’জনের বয়স ছিল ৮০ বছরের বেশি। এছাড়া ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৩ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের ৬ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের ৯ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের ৪ জন এবং ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৪ জন মারা যান।

এলাকাভিত্তিক বিশ্লেষণে নাসিমা সুলতানা জানান, মৃতদের মধ্যে ঢাকা মহানগরীর ১০ জন, ঢাকা জেলার বিভিন্ন এলাকার ১ জন, নারায়ণগঞ্জের ১ জন, মুন্সিগঞ্জের ১ জন, গাজীপুরের ১ জন, ফরিদপুরের ২ জন, নরসিংদীর ২ জন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এলাকার ২ জন, সিটি কর্পোরেশনের বাইরে চট্টগ্রাম জেলায় ১ জন, কক্সবাজারের ২ জন, কুমিল্লার ২ জন, রংপুরের ১ জন, পঞ্চগড়ের ১ জন ও সিলেটের ১ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ৪৬৯ জনকে। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন পাঁচ হাজার ৫২৯ জন। ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৮০ জন, এখন পর্যন্ত মোট ছাড় পেয়েছেন ২ হাজার ৮৯০ জন। তিনি আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টিন মিলে কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে ২ হাজার ২২০ জনকে। এখন পর্যন্ত দুই লাখ ৮২ হাজার ২২৫ জনকে কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে। কোয়ারেন্টিন থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় ছাড়া পেয়েছেন ২ হাজার ২১৯ জন, এখন পর্যন্ত মোট ছাড়া পেয়েছেন ২ লাখ ২১ হাজার ৯৪৯ জন। বর্তমানে মোট কোয়ারেন্টিনে আছেন ৬০ হাজার ২৭৬ জন।

করোনার ঝুঁকি এড়াতে সামাজিক দূরত্ব রক্ষা ও স্বাস্থ্যবিধি মানায় জোর দিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা বলেন, করোনা প্রতিরোধে স্থাপনা ও প্রতিষ্ঠানের নিয়ন্ত্রকদের বাধ্যতামূলকভাবে নীতিমালায় উল্লিখিত নির্দেশনা মেনে চলতে হবে।

হাসপাতালের বহিঃবিভাগ খোলা থাকবে ২টা পর্যন্ত : দেশের সরকারি সব হাসপাতাল ও কমিউনিটি ক্লিনিকের বহিঃবিভাগ আগের মতো যথানিয়মে পরিচালিত হবে। অর্থাৎ সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত চিকিৎসাসেবা প্রদান করবে। শনিবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. বেলাল হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের কারণে দেশের সব সরকারি হাসপাতালের বহিঃবিভাগ সীমিত পরিসরে চিকিৎসাসেবা প্রদানের জন্য (সকাল ৮-১২টা) যে আদেশ জারি করা হয়েছিল, তা বাতিল করা হয়েছে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত