ভাইয়ের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে হত্যা
jugantor
প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান
ভাইয়ের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে হত্যা

  সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার সাভারে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় স্কুলছাত্রী নিলা রায়কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। নিলার ভাই অলক রায়ের দাবি, মিজানুর রহমান চৌধুরী নামে এক ব্যক্তি দুই হাতে ছুরি নিয়ে নিলাকে কুপিয়ে হত্যা করে। হত্যাকাণ্ডে পর থেকে অভিযুক্ত ওই যুবক পলাতক রয়েছে। রোববার রাতে সাভার পৌর এলাকার কাজী মোকমা পাড়ায় পরিত্যক্ত বাড়ির ভেতরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে।

নিলা মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার বালিরটেক গ্রামের নারায়ণ রায়ের মেয়ে। সে পরিবারের সঙ্গে পৌর এলাকার কাজী মোকমাপাড়ায় শীতল ভিলায় ভাড়া থেকে স্থানীয় অ্যাসেড স্কুলের দশম শ্রেণিতে লেখাপড়া করত। হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত মিজান পরিত্যক্ত ওই বাড়ির মালিক আবদুর রহমানের ছেলে। মিজান তার পরিবারের সঙ্গে একই এলাকার টগর ভিলায় ভাড়া থাকে ও স্থানীয় এক কলেজের ছাত্র।

পুলিশ জানায়, দীর্ঘদিন ধরে মিজান নিলাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। কিন্তু তা প্রত্যাখ্যান করে নিলা। রোববার রাত ৯টার দিকে সাভার গার্লস স্কুলের পাশের গলিতে মিজান রিকশা গতিরোধ করে জোর করে নিলা ও তার ভাইকে রিকশা থেকে নামিয়ে এ-৬১/৪ নম্বর নিজেদের পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে নিলাকে গালাগাল করে ছুরিকাঘাত ও কুপিয়ে পালিয়ে যায় মিজান। পরে স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় নিলাকে উদ্ধার করে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

অলক রায় বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই মিজান আমার বোনকে নানাভাবে উত্যক্ত করে আসছিল। রোববার রাতে নিলার শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। এজন্য তাকে চিকিৎসককে দেখিয়ে আসার সময় মিজান জোর করে রিকশা থেকে নামিয়ে পরিত্যক্ত একটি বাড়িতে নিয়ে যায় এবং আমাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়।

এর কিছুক্ষণ পর চিৎকার শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি কিছু যুবক দৌড়ে পালিয়ে যাচ্ছে। পরে আহত অবস্থায় আমার বোনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা জানান, মিজান প্রতিদিনই পরিত্যক্ত ওই বাড়িতে বন্ধুদের নিয়ে মাদকসেবন করত। সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে তার প্রমাণও মিলেছে। পাশের এক ভাড়াটিয়া বলেন, প্রতিদিনই ওই বাড়িতে মাদকের আসর বসে। বিষয়টি থানা পুলিশসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জানানো হলেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। শনিবার বিকালেও ওই জায়গায় আওয়ামী লীগ নেতা শিরুর ছেলে শাকিল ও সাকিব মিলে এক স্কুলছাত্রীকে গালাগাল ও মারধর করে।

সাভার থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম বলেন, নিলার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত মিজানকে গ্রেফতারে অভিযান চালানো হবে বলে জানান তিনি।

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান

ভাইয়ের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে হত্যা

 সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার সাভারে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় স্কুলছাত্রী নিলা রায়কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। নিলার ভাই অলক রায়ের দাবি, মিজানুর রহমান চৌধুরী নামে এক ব্যক্তি দুই হাতে ছুরি নিয়ে নিলাকে কুপিয়ে হত্যা করে। হত্যাকাণ্ডে পর থেকে অভিযুক্ত ওই যুবক পলাতক রয়েছে। রোববার রাতে সাভার পৌর এলাকার কাজী মোকমা পাড়ায় পরিত্যক্ত বাড়ির ভেতরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে।

নিলা মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার বালিরটেক গ্রামের নারায়ণ রায়ের মেয়ে। সে পরিবারের সঙ্গে পৌর এলাকার কাজী মোকমাপাড়ায় শীতল ভিলায় ভাড়া থেকে স্থানীয় অ্যাসেড স্কুলের দশম শ্রেণিতে লেখাপড়া করত। হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত মিজান পরিত্যক্ত ওই বাড়ির মালিক আবদুর রহমানের ছেলে। মিজান তার পরিবারের সঙ্গে একই এলাকার টগর ভিলায় ভাড়া থাকে ও স্থানীয় এক কলেজের ছাত্র।

পুলিশ জানায়, দীর্ঘদিন ধরে মিজান নিলাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। কিন্তু তা প্রত্যাখ্যান করে নিলা। রোববার রাত ৯টার দিকে সাভার গার্লস স্কুলের পাশের গলিতে মিজান রিকশা গতিরোধ করে জোর করে নিলা ও তার ভাইকে রিকশা থেকে নামিয়ে এ-৬১/৪ নম্বর নিজেদের পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে নিলাকে গালাগাল করে ছুরিকাঘাত ও কুপিয়ে পালিয়ে যায় মিজান। পরে স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় নিলাকে উদ্ধার করে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

অলক রায় বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই মিজান আমার বোনকে নানাভাবে উত্যক্ত করে আসছিল। রোববার রাতে নিলার শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। এজন্য তাকে চিকিৎসককে দেখিয়ে আসার সময় মিজান জোর করে রিকশা থেকে নামিয়ে পরিত্যক্ত একটি বাড়িতে নিয়ে যায় এবং আমাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়।

এর কিছুক্ষণ পর চিৎকার শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি কিছু যুবক দৌড়ে পালিয়ে যাচ্ছে। পরে আহত অবস্থায় আমার বোনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা জানান, মিজান প্রতিদিনই পরিত্যক্ত ওই বাড়িতে বন্ধুদের নিয়ে মাদকসেবন করত। সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে তার প্রমাণও মিলেছে। পাশের এক ভাড়াটিয়া বলেন, প্রতিদিনই ওই বাড়িতে মাদকের আসর বসে। বিষয়টি থানা পুলিশসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জানানো হলেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। শনিবার বিকালেও ওই জায়গায় আওয়ামী লীগ নেতা শিরুর ছেলে শাকিল ও সাকিব মিলে এক স্কুলছাত্রীকে গালাগাল ও মারধর করে।

সাভার থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম বলেন, নিলার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত মিজানকে গ্রেফতারে অভিযান চালানো হবে বলে জানান তিনি।