নির্যাতিতরা আতঙ্কে ধরাছোঁয়ার বাইরে আসামিরা
jugantor
ফরিদপুরে গাছে বেঁধে নির্যাতন
নির্যাতিতরা আতঙ্কে ধরাছোঁয়ার বাইরে আসামিরা

  ফরিদপুর ব্যুরো  

০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সদরপুর উপজেলায় জমি নিয়ে বিরোধে পরিবারের সদস্যদের গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন ও বাড়িঘরে লুটপাটের ঘটনায় অভিযুক্তরা (আসামিরা) ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে। অপরদিকে, মামলা করায় আসামিদের হুমকির মুখে নির্যাতিত পরিবারের সদস্যরা অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

জানা গেছে, ২৩ জানুয়ারি ভোরে উপজেলার ঢেউখালী ইউনিয়নের ডাঙ্গী গ্রামের আব্দুস সামাদ বেপারির পরিবারের সদস্যদের গাছে বেঁধে নির্যাতন করা হয়। এ সময় তাদের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। এ ঘটনায় প্রতিপক্ষ শেখ মনোয়ারসহ ১৫ জনকে আসামি করে মামলা করেন সামাদ বেপারি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মামলা তুলে নিতে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে আসামিরা। আবারও সন্ত্রাসী হামলার ভয়ে সামাদের পরিবারের সদস্যরা এলাকা ছেড়ে অন্যত্র থাকতে বাধ্য হচ্ছে। সামাদ বেপারি জানান, তার জায়গা-জমি দখল করতে শেখ মনোয়ার দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা চালিয়ে আসছেন।

সর্বশেষ তাদের ওপর নির্যাতন চালানো হয়। নারীসহ কয়েকজনকে গাছের সঙ্গে বেঁধে বেধড়ক পেটানো হয়। পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। তিনি আরও জানান, মামলা তুলে না নিলে আমাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। হুমকির কারণে পরিবার নিয়ে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। গ্রাম থেকে পালিয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। আহত চারজনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সদরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সামাদের পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলাকারীরা গ্রামে প্রকাশ্যে চলাফেরা করলেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না। অভিযুক্ত শেখ মনোয়ারের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ বিষয়ে সদরপুর থানার এসআই ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান জানান, আসামিরা সবাই জামিনে রয়েছেন।

জানা গেছে, ঢেউখালী ইউনিয়নের ছাহের আলী বক্স ডাঙ্গী গ্রামের আবদুস সামাদ বেপারির সঙ্গে স্থানীয় প্রভাবশালী শেখ মনোয়ার হোসেনের জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এর জেরে ২৩ জানুয়ারি সামাদ বেপারির বাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে। নারীসহ কয়েকজনকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন চালানো হয়। হামলাকারীরা সামাদের বাড়িঘরে ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। এ ঘটনায় সামাদ বাদী হয়ে শেখ মনোয়ার, কুদ্দুস ওরফে কুদু ফকির, শেখ আলহাজ শেখ আদেল উদ্দিন, শেখ ইলিয়াস, শেখ ইব্রাহিমসহ ১৫ জনকে আসামি করে সদরপুর থানায় মামলা করেন। মামলা তুলে না নিলে পরিণত ভয়াবহ হবে বলে হুমকি দিচ্ছে আসামিরা। এ কারণে প্রাণভয়ে সামাদ বেপারি ও তার পরিবারের সদস্যরা গ্রাম থেকে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হয়েছে।

ফরিদপুরে গাছে বেঁধে নির্যাতন

নির্যাতিতরা আতঙ্কে ধরাছোঁয়ার বাইরে আসামিরা

 ফরিদপুর ব্যুরো 
০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সদরপুর উপজেলায় জমি নিয়ে বিরোধে পরিবারের সদস্যদের গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন ও বাড়িঘরে লুটপাটের ঘটনায় অভিযুক্তরা (আসামিরা) ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে। অপরদিকে, মামলা করায় আসামিদের হুমকির মুখে নির্যাতিত পরিবারের সদস্যরা অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

জানা গেছে, ২৩ জানুয়ারি ভোরে উপজেলার ঢেউখালী ইউনিয়নের ডাঙ্গী গ্রামের আব্দুস সামাদ বেপারির পরিবারের সদস্যদের গাছে বেঁধে নির্যাতন করা হয়। এ সময় তাদের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। এ ঘটনায় প্রতিপক্ষ শেখ মনোয়ারসহ ১৫ জনকে আসামি করে মামলা করেন সামাদ বেপারি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মামলা তুলে নিতে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে আসামিরা। আবারও সন্ত্রাসী হামলার ভয়ে সামাদের পরিবারের সদস্যরা এলাকা ছেড়ে অন্যত্র থাকতে বাধ্য হচ্ছে। সামাদ বেপারি জানান, তার জায়গা-জমি দখল করতে শেখ মনোয়ার দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা চালিয়ে আসছেন।

সর্বশেষ তাদের ওপর নির্যাতন চালানো হয়। নারীসহ কয়েকজনকে গাছের সঙ্গে বেঁধে বেধড়ক পেটানো হয়। পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। তিনি আরও জানান, মামলা তুলে না নিলে আমাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। হুমকির কারণে পরিবার নিয়ে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। গ্রাম থেকে পালিয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। আহত চারজনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সদরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সামাদের পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলাকারীরা গ্রামে প্রকাশ্যে চলাফেরা করলেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না। অভিযুক্ত শেখ মনোয়ারের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ বিষয়ে সদরপুর থানার এসআই ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান জানান, আসামিরা সবাই জামিনে রয়েছেন।

জানা গেছে, ঢেউখালী ইউনিয়নের ছাহের আলী বক্স ডাঙ্গী গ্রামের আবদুস সামাদ বেপারির সঙ্গে স্থানীয় প্রভাবশালী শেখ মনোয়ার হোসেনের জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এর জেরে ২৩ জানুয়ারি সামাদ বেপারির বাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে। নারীসহ কয়েকজনকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন চালানো হয়। হামলাকারীরা সামাদের বাড়িঘরে ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। এ ঘটনায় সামাদ বাদী হয়ে শেখ মনোয়ার, কুদ্দুস ওরফে কুদু ফকির, শেখ আলহাজ শেখ আদেল উদ্দিন, শেখ ইলিয়াস, শেখ ইব্রাহিমসহ ১৫ জনকে আসামি করে সদরপুর থানায় মামলা করেন। মামলা তুলে না নিলে পরিণত ভয়াবহ হবে বলে হুমকি দিচ্ছে আসামিরা। এ কারণে প্রাণভয়ে সামাদ বেপারি ও তার পরিবারের সদস্যরা গ্রাম থেকে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন