পিবিআইয়ের ঘটনাস্থল পরিদর্শন আলামত সংগ্রহ
jugantor
সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা
পিবিআইয়ের ঘটনাস্থল পরিদর্শন আলামত সংগ্রহ

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের গোলাগুলিতে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির নিহতের ঘটনায় দায়ের করা মামলার দায়িত্ব পেয়ে বুধবার দুপুরে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

তারা বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেছেন। মুজাক্কির হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ করে ও পরবর্তী উদ্ভূত পরিস্থিতিতে এ পর্যন্ত চারটি মামলা করা হয়েছে।

এর মধ্যে দুটি মামলা ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়েছে। নোয়াখালীর ডিবি পুলিশ উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে চারজনকে গ্রেফতার করেছে। এদিকে, কোম্পানীগঞ্জ আওয়ামী লীগের সব কর্মকাণ্ড বুধবার রাতে স্থগিত করা হয়েছে। যুগান্তর ব্যুরো, স্টাফ রিপোর্টার ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর -

নোয়াখালী ও কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) : পিবিআই নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান মুন্সীর নেতৃত্বে তদন্ত দল ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে আরেকটি দল উপস্থিত ছিল। পিবিআইয়ের তদন্ত দলটি সাংবাদিক মুজাক্কিরের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন। এ ছাড়াও স্থানীয় লোকজন ও সংঘর্ষের সময় কর্মরত পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছে পিবিআই তদন্ত দল।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহিদুল হক রনি বলেন, ঘটনার পর উদ্ধার মুজাক্কিরের ব্যবহৃত একটি মোবাইল ফোন, একটি ভিডিও ক্যামেরা (মেমোরি কার্ড ছাড়া), একটি মানিব্যাগ, একটি ওটিজি কর্ড, চাপরাশিরহাটি পূর্ব বাজারের ৬টি সিসিটিভি ক্যামরার ফুটেজসহ সব আলামত পিবিআইকে দেওয়া হয়েছে।

পিবিআই নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান মুন্সী বলেন, আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার চেষ্টা করব। ডিবি পুলিশের হাতে গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলো-চাপরাশিরহাট পাটোয়ারী বাড়ির রুহুল আমিন, বসুরহাট পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ডের রাইসুল ইসলাম তপন, ২নং ওয়ার্ডের মো. শাহদাত হোসেন শুভ ও চরকাঁকড়া ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ডের আবদুর রহমান কচি।

যে চারটি মামলা হয়েছে তার মধ্যে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল বাদী হয়ে ৪৪ জনকে আসামি করে একটি মামলা। কোম্পানীগঞ্জ থানার এসআই মো. শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৭-৮ জনকে আসামি করে পুলিশের কাজে বাধা দেয়ায় একটি মামলা করা হয়। এসআই মাহফুল রহমান বাদী হয়ে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে ৫৯ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ২৫০-৩০০ জনকে আসামি করে ও সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা ঘটনায় তার বাবা মাওলানা নুরুল হুদা মো. নোয়াব আলী বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন।

নোয়াখালীর ডিবি পুলিশ পরিদর্শক মো. হুসাইন খান বলেন, আটক চারজনকে দায়ের করা বিস্ফোরক দ্রব্য আইন ও মিজানুর রহমান বাদলের দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এ দুটি মামলায় অপর আসামিদের দ্রুত গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

বরিশাল : ‘বরিশালের প্রতিবাদী সাংবাদিকবৃন্দ’ ব্যানারে বেলা সাড়ে ১১টায় নগরীর অশ্বিনী কুমার টাউন হলসংলগ্ন সদর রোডে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : নবীনগর ডাকবাংলো সড়কে বেলা ১১টায় ‘বিক্ষুব্ধ সাংবাদিক সমাজ’র ব্যানারে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের পাশাপাশি রাজনৈতিক দলের নেতারা ও বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের প্রতিনিধিরাও অংশ নিয়ে আয়োজকদের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেন।

খাগড়াছড়ি : খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবের সামনে বেলা ১১টায় খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাব, সাংবাদিক ইউনিয়ন ও টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের ব্যানারে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। এ ছাড়া, লক্ষ্মীপুরের রায়পুর প্রতিনিধি, নাটোরের সিংড়া প্রতিনিধি, রাঙামাটি প্রতিনিধি ও বরগুনার বেতাগী প্রতিনিধি প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার উপজেলার চাপরাশিরহাট পূর্ব বাজারে সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোটভাই বসুরহাট পৌরমেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলের বিবদমান সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশও কয়েক রাউন্ড শর্টগানের গুলি ও টিয়ার শেল ছোড়ে। ঘটনার ছবি ও ভিডিও ধারণ করতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হন সাংবাদিক মুজাক্কিরসহ ৭-৮ জন। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান সাংবাদিক মুজাক্কির।

সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা

পিবিআইয়ের ঘটনাস্থল পরিদর্শন আলামত সংগ্রহ

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের গোলাগুলিতে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির নিহতের ঘটনায় দায়ের করা মামলার দায়িত্ব পেয়ে বুধবার দুপুরে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

তারা বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেছেন। মুজাক্কির হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ করে ও পরবর্তী উদ্ভূত পরিস্থিতিতে এ পর্যন্ত চারটি মামলা করা হয়েছে।

এর মধ্যে দুটি মামলা ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়েছে। নোয়াখালীর ডিবি পুলিশ উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে চারজনকে গ্রেফতার করেছে। এদিকে, কোম্পানীগঞ্জ আওয়ামী লীগের সব কর্মকাণ্ড বুধবার রাতে স্থগিত করা হয়েছে। যুগান্তর ব্যুরো, স্টাফ রিপোর্টার ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর -

নোয়াখালী ও কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) : পিবিআই নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান মুন্সীর নেতৃত্বে তদন্ত দল ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে আরেকটি দল উপস্থিত ছিল। পিবিআইয়ের তদন্ত দলটি সাংবাদিক মুজাক্কিরের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন। এ ছাড়াও স্থানীয় লোকজন ও সংঘর্ষের সময় কর্মরত পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছে পিবিআই তদন্ত দল।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহিদুল হক রনি বলেন, ঘটনার পর উদ্ধার মুজাক্কিরের ব্যবহৃত একটি মোবাইল ফোন, একটি ভিডিও ক্যামেরা (মেমোরি কার্ড ছাড়া), একটি মানিব্যাগ, একটি ওটিজি কর্ড, চাপরাশিরহাটি পূর্ব বাজারের ৬টি সিসিটিভি ক্যামরার ফুটেজসহ সব আলামত পিবিআইকে দেওয়া হয়েছে।

পিবিআই নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান মুন্সী বলেন, আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার চেষ্টা করব। ডিবি পুলিশের হাতে গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলো-চাপরাশিরহাট পাটোয়ারী বাড়ির রুহুল আমিন, বসুরহাট পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ডের রাইসুল ইসলাম তপন, ২নং ওয়ার্ডের মো. শাহদাত হোসেন শুভ ও চরকাঁকড়া ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ডের আবদুর রহমান কচি।

যে চারটি মামলা হয়েছে তার মধ্যে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল বাদী হয়ে ৪৪ জনকে আসামি করে একটি মামলা। কোম্পানীগঞ্জ থানার এসআই মো. শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৭-৮ জনকে আসামি করে পুলিশের কাজে বাধা দেয়ায় একটি মামলা করা হয়। এসআই মাহফুল রহমান বাদী হয়ে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে ৫৯ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ২৫০-৩০০ জনকে আসামি করে ও সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা ঘটনায় তার বাবা মাওলানা নুরুল হুদা মো. নোয়াব আলী বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন।

নোয়াখালীর ডিবি পুলিশ পরিদর্শক মো. হুসাইন খান বলেন, আটক চারজনকে দায়ের করা বিস্ফোরক দ্রব্য আইন ও মিজানুর রহমান বাদলের দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এ দুটি মামলায় অপর আসামিদের দ্রুত গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

বরিশাল : ‘বরিশালের প্রতিবাদী সাংবাদিকবৃন্দ’ ব্যানারে বেলা সাড়ে ১১টায় নগরীর অশ্বিনী কুমার টাউন হলসংলগ্ন সদর রোডে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : নবীনগর ডাকবাংলো সড়কে বেলা ১১টায় ‘বিক্ষুব্ধ সাংবাদিক সমাজ’র ব্যানারে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের পাশাপাশি রাজনৈতিক দলের নেতারা ও বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের প্রতিনিধিরাও অংশ নিয়ে আয়োজকদের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেন।

খাগড়াছড়ি : খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবের সামনে বেলা ১১টায় খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাব, সাংবাদিক ইউনিয়ন ও টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের ব্যানারে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। এ ছাড়া, লক্ষ্মীপুরের রায়পুর প্রতিনিধি, নাটোরের সিংড়া প্রতিনিধি, রাঙামাটি প্রতিনিধি ও বরগুনার বেতাগী প্রতিনিধি প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার উপজেলার চাপরাশিরহাট পূর্ব বাজারে সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোটভাই বসুরহাট পৌরমেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলের বিবদমান সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশও কয়েক রাউন্ড শর্টগানের গুলি ও টিয়ার শেল ছোড়ে। ঘটনার ছবি ও ভিডিও ধারণ করতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হন সাংবাদিক মুজাক্কিরসহ ৭-৮ জন। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান সাংবাদিক মুজাক্কির।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন