যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কৌশলগত সম্পর্ক চায় বাংলাদেশ
jugantor
মোমেন-ব্লিঙ্কেন ফোনালাপ
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কৌশলগত সম্পর্ক চায় বাংলাদেশ

  কূটনৈতিক প্রতিবেদক  

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের বর্তমান অংশীদারির সম্পর্ককে কৌশলগত সম্পর্কে উন্নীত করতে চায় বাংলাদেশ। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি জে. ব্লিঙ্কেন বুধবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ কথা জানায়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন যুক্তরাষ্ট্র সফরে গেলেও তাদের মধ্যে মুখোমুখি বৈঠক হয়নি। কোভিড মহামারির কারণে তারা টেলিফোনে আলাপ করেন। দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের বিভিন্ন বিষয় আলোচনায় উঠে আসে। যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের বিবৃতিতে বলা হয়, ব্লিঙ্কেন

ও মোমেন অর্থনৈতিক সহযোগিতা, সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা ও প্রতিরক্ষা সহযোগিতা আরও জোরদার করার উপায় এবং জলবায়ু পরিবর্তনের মতো অভিন্ন চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করার বিষয়ে আলোচনা করেছেন। দুই নেতা মিয়ানমার, রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকটের একটি টেকসই সমাধান এবং শ্রম ও মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকার গুরুত্ব নিয়েও আলোচনা করেছেন।

ব্লিঙ্কেন ২০২১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পঞ্চাশতম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেনকে অভিনন্দন জানিয়েছেন এবং উভয় নেতা দক্ষিণ এশিয়া ও বৃহত্তর-ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। এদিকে ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, অভিন্ন লক্ষ্য অর্জন ও পারস্পরিক স্বার্থে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন ও মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্লিঙ্কেন বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও এগিয়ে নিতে একমত হয়েছেন।

তারা বৈশ্বিক বিভিন্ন ইস্যুতে একসঙ্গে কাজ করারও আগ্রহ ব্যক্ত করেছেন। আলোচনার শুরুতেই ব্লিঙ্কেন কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সরাসরি বৈঠক করতে না পারায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তিনি বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ককে বিকাশমান ও গভীর বলে উল্লেখ করেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রশাসনকে গণতান্ত্রিক ধারা এগিয়ে নেওয়ায় অভিনন্দন জানান এবং আমেরিকার পুনরায় বৈশ্বিক নেতৃত্বের ভূমিকায় ফিরে যাওয়ায় প্রশংসা করেন। তিনি নতুন প্রশাসন যেভাবে কোভিড-১৯ মহামারির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে তার প্রশংসা করেন।

তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ককে অংশীদারিত্ব থেকে কৌশলগত সম্পর্কে উন্নীত করার আগ্রহ ব্যক্ত করেন। তিনি সর্বোচ্চ রাজনৈতিক পর্যায়ে সফর প্রত্যাশা করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন আশা প্রকাশ করেন, প্রেসিডেন্ট বাইডেন বাংলাদেশ সফর করবেন। মোমেন এ সময় ব্লিঙ্কেনকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।

মোমেন-ব্লিঙ্কেন ফোনালাপ

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কৌশলগত সম্পর্ক চায় বাংলাদেশ

 কূটনৈতিক প্রতিবেদক 
২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের বর্তমান অংশীদারির সম্পর্ককে কৌশলগত সম্পর্কে উন্নীত করতে চায় বাংলাদেশ। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি জে. ব্লিঙ্কেন বুধবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ কথা জানায়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন যুক্তরাষ্ট্র সফরে গেলেও তাদের মধ্যে মুখোমুখি বৈঠক হয়নি। কোভিড মহামারির কারণে তারা টেলিফোনে আলাপ করেন। দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের বিভিন্ন বিষয় আলোচনায় উঠে আসে। যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের বিবৃতিতে বলা হয়, ব্লিঙ্কেন

ও মোমেন অর্থনৈতিক সহযোগিতা, সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা ও প্রতিরক্ষা সহযোগিতা আরও জোরদার করার উপায় এবং জলবায়ু পরিবর্তনের মতো অভিন্ন চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করার বিষয়ে আলোচনা করেছেন। দুই নেতা মিয়ানমার, রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকটের একটি টেকসই সমাধান এবং শ্রম ও মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকার গুরুত্ব নিয়েও আলোচনা করেছেন।

ব্লিঙ্কেন ২০২১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পঞ্চাশতম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেনকে অভিনন্দন জানিয়েছেন এবং উভয় নেতা দক্ষিণ এশিয়া ও বৃহত্তর-ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। এদিকে ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, অভিন্ন লক্ষ্য অর্জন ও পারস্পরিক স্বার্থে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন ও মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্লিঙ্কেন বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও এগিয়ে নিতে একমত হয়েছেন।

তারা বৈশ্বিক বিভিন্ন ইস্যুতে একসঙ্গে কাজ করারও আগ্রহ ব্যক্ত করেছেন। আলোচনার শুরুতেই ব্লিঙ্কেন কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সরাসরি বৈঠক করতে না পারায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তিনি বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ককে বিকাশমান ও গভীর বলে উল্লেখ করেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রশাসনকে গণতান্ত্রিক ধারা এগিয়ে নেওয়ায় অভিনন্দন জানান এবং আমেরিকার পুনরায় বৈশ্বিক নেতৃত্বের ভূমিকায় ফিরে যাওয়ায় প্রশংসা করেন। তিনি নতুন প্রশাসন যেভাবে কোভিড-১৯ মহামারির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে তার প্রশংসা করেন।

তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ককে অংশীদারিত্ব থেকে কৌশলগত সম্পর্কে উন্নীত করার আগ্রহ ব্যক্ত করেন। তিনি সর্বোচ্চ রাজনৈতিক পর্যায়ে সফর প্রত্যাশা করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন আশা প্রকাশ করেন, প্রেসিডেন্ট বাইডেন বাংলাদেশ সফর করবেন। মোমেন এ সময় ব্লিঙ্কেনকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন