টানা দ্বিতীয় দিন সাত হাজারের বেশি শনাক্ত
jugantor
টানা দ্বিতীয় দিন সাত হাজারের বেশি শনাক্ত
মৃত্যু ৫২

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৬ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশে করোনার ভয়াবহ ঊর্ধ্বগতি অব্যাহত রয়েছে। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে শনাক্ত ও মৃত্যু। টানা দ্বিতীয় দিনের মতো দেশে করোনায় শনাক্ত রোগী সাত হাজারের বেশি। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হয়েছে আরও সাত হাজার ৭৫ জন। আগের দিন রোববার দেশে সাত হাজার ৮৭ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে, যা ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যায় এ যাবৎকালের রেকর্ড। এখন পর্যন্ত দেশে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ছয় লাখ ৪৪ হাজার ৪৩৯ জনে। একদিনে আরও ৫২ জনের মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে দেশে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল নয় হাজার ৩১৮ জনে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবে একদিনে বাসা ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও দুই হাজার ৯৩২ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ পর্যন্ত সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে পাঁচ লাখ ৫৫ হাজার ৪১৪ জন হয়েছে। সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে মোট ২২৭টি ল্যাবে ৩০ হাজার ২৩৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৪৮ লাখ ১৩ হাজার ৬২৪টি নমুনা। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৩৬ লাখ ২৪ হাজার ১১৭টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১১ লাখ ৮৯ হাজার ৫০৭টি। একদিনে নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৩ দশমিক ৪০ শতাংশ, এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৬ দশমিক ১৯ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৪৫ শতাংশ। এক দিনে যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ৩৪ জন পুরুষ আর নারী ১৮ জন। তাদের মধ্যে দুজন বাড়িতে এবং বাকিরা হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। মৃতদের মধ্যে ৩২ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি, নয়জনের বয়স ৫১-৬০ বছর, ছয়জনের ৪১-৫০ বছর, তিনজনের ৩১-৪০ বছর, একজনের ১১-২০ বছর এবং একজনের বয়স শূন্য থেকে দশ বছরের মধ্যে ছিল। মৃতদের ৪০ জন ঢাকা বিভাগের, সাতজন চট্টগ্রাম বিভাগের এবং একজন করে রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট ও রংপুর বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন। দেশে এ পর্যন্ত মারা যাওয়া নয় হাজার ৩১৮ জনের মধ্যে সাত হাজার চারজন পুরুষ এবং দুই হাজার ৩১৪ জন নারী।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ৫৯০ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ২৬১ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন এক লাখ সাত হাজার ২২৬ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ৯৪ হাজার ২৭ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৩ হাজার ১৯৯ জন।

টানা দ্বিতীয় দিন সাত হাজারের বেশি শনাক্ত

মৃত্যু ৫২
 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৬ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশে করোনার ভয়াবহ ঊর্ধ্বগতি অব্যাহত রয়েছে। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে শনাক্ত ও মৃত্যু। টানা দ্বিতীয় দিনের মতো দেশে করোনায় শনাক্ত রোগী সাত হাজারের বেশি। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হয়েছে আরও সাত হাজার ৭৫ জন। আগের দিন রোববার দেশে সাত হাজার ৮৭ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে, যা ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যায় এ যাবৎকালের রেকর্ড। এখন পর্যন্ত দেশে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ছয় লাখ ৪৪ হাজার ৪৩৯ জনে। একদিনে আরও ৫২ জনের মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে দেশে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল নয় হাজার ৩১৮ জনে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবে একদিনে বাসা ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও দুই হাজার ৯৩২ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ পর্যন্ত সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে পাঁচ লাখ ৫৫ হাজার ৪১৪ জন হয়েছে। সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে মোট ২২৭টি ল্যাবে ৩০ হাজার ২৩৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৪৮ লাখ ১৩ হাজার ৬২৪টি নমুনা। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৩৬ লাখ ২৪ হাজার ১১৭টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১১ লাখ ৮৯ হাজার ৫০৭টি। একদিনে নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৩ দশমিক ৪০ শতাংশ, এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৬ দশমিক ১৯ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৪৫ শতাংশ। এক দিনে যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ৩৪ জন পুরুষ আর নারী ১৮ জন। তাদের মধ্যে দুজন বাড়িতে এবং বাকিরা হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। মৃতদের মধ্যে ৩২ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি, নয়জনের বয়স ৫১-৬০ বছর, ছয়জনের ৪১-৫০ বছর, তিনজনের ৩১-৪০ বছর, একজনের ১১-২০ বছর এবং একজনের বয়স শূন্য থেকে দশ বছরের মধ্যে ছিল। মৃতদের ৪০ জন ঢাকা বিভাগের, সাতজন চট্টগ্রাম বিভাগের এবং একজন করে রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট ও রংপুর বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন। দেশে এ পর্যন্ত মারা যাওয়া নয় হাজার ৩১৮ জনের মধ্যে সাত হাজার চারজন পুরুষ এবং দুই হাজার ৩১৪ জন নারী।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ৫৯০ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ২৬১ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন এক লাখ সাত হাজার ২২৬ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ৯৪ হাজার ২৭ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৩ হাজার ১৯৯ জন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন