‘লকডাউনের’ আওতামুক্ত সংবাদপত্র
jugantor
‘লকডাউনের’ আওতামুক্ত সংবাদপত্র

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৪ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আজ (বুধবার) ভোর ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ১৩ দফা কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এ ৮ দিন গণপরিবহণ-বাস, ট্রেন, লঞ্চ, অফিসসহ শপিংমল ও দোকানপাট বন্ধ থাকবে।

তবে এ বিধিনিষেধের আওতামুক্ত থাকবে কৃষিশ্রমিক পরিবহণ ও গণমাধ্যমসহ সব ধরনের জরুরি পরিষেবা। অর্থাৎ, সংবাদপত্র ও এর সংশ্লিষ্টরা ‘লকডাউন’র আওতামুক্ত। করোনা মহামারি প্রতিরোধে ১৩ দফা বিধিনিষেধ আরোপ করে সোমবার আদেশ জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

এর ৫ নম্বর নির্দেশনায় বলা হয়েছে, আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিষেবা, যেমন : কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহণ, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস ও জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাকসেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসগুলো, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতাবহির্ভূত থাকবে।

এর আগে ৫ এপ্রিল শুরু হওয়া নিষেধাজ্ঞার সময় জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছিলেন, জরুরি সেবার প্রতিষ্ঠান, কাঁচাবাজার, ওষুধ ও খাবারের দোকানের পাশাপাশি পোশাক এবং অন্যান্য শিল্পকারখানা খোলা থাকবে ‘লকডাউনে’।

এ ছাড়া জরুরি সেবা দেওয়া প্রতিষ্ঠান, ডিসি অফিস, ইউএনও অফিস, ফায়ার সার্ভিস অফিস, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অফিস, সংবাদপত্র অফিস খোলা থাকবে।

এ প্রসঙ্গে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান- সাংবাদিক, সংবাদপত্রের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও হকাররা এর আওতামুক্ত থাকবেন। তারা এসব কাজ না-করলে জাতি তথ্য জানা থেকে বঞ্চিত হবেন।

‘লকডাউনের’ আওতামুক্ত সংবাদপত্র

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৪ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আজ (বুধবার) ভোর ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ১৩ দফা কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এ ৮ দিন গণপরিবহণ-বাস, ট্রেন, লঞ্চ, অফিসসহ শপিংমল ও দোকানপাট বন্ধ থাকবে।

তবে এ বিধিনিষেধের আওতামুক্ত থাকবে কৃষিশ্রমিক পরিবহণ ও গণমাধ্যমসহ সব ধরনের জরুরি পরিষেবা। অর্থাৎ, সংবাদপত্র ও এর সংশ্লিষ্টরা ‘লকডাউন’র আওতামুক্ত। করোনা মহামারি প্রতিরোধে ১৩ দফা বিধিনিষেধ আরোপ করে সোমবার আদেশ জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

এর ৫ নম্বর নির্দেশনায় বলা হয়েছে, আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিষেবা, যেমন : কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহণ, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস ও জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাকসেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসগুলো, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতাবহির্ভূত থাকবে।

এর আগে ৫ এপ্রিল শুরু হওয়া নিষেধাজ্ঞার সময় জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছিলেন, জরুরি সেবার প্রতিষ্ঠান, কাঁচাবাজার, ওষুধ ও খাবারের দোকানের পাশাপাশি পোশাক এবং অন্যান্য শিল্পকারখানা খোলা থাকবে ‘লকডাউনে’।

এ ছাড়া জরুরি সেবা দেওয়া প্রতিষ্ঠান, ডিসি অফিস, ইউএনও অফিস, ফায়ার সার্ভিস অফিস, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অফিস, সংবাদপত্র অফিস খোলা থাকবে।

এ প্রসঙ্গে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান- সাংবাদিক, সংবাদপত্রের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও হকাররা এর আওতামুক্ত থাকবেন। তারা এসব কাজ না-করলে জাতি তথ্য জানা থেকে বঞ্চিত হবেন।
 

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন