মেট্রোরেলের প্রথম ট্রেন ঢাকায়
jugantor
মেট্রোরেলের প্রথম ট্রেন ঢাকায়

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২২ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশের উড়াল মেট্রোরেলের (এমআরটি-৬) প্রথম ট্রেনসেট বুধবার ঢাকায় পৌঁছেছে। প্রথম সেটে ৬টি কোচ ও শিফটিং জিক নিয়ে দু’টি বার্জ গতকাল ঢাকায় পৌঁছেছে। ১৬ এপ্রিল মংলা বন্দর থেকে রওনা হয়ে উত্তরা দিয়াবাড়ী সংলগ্ন মেট্রোরেলের অস্থায়ী ঘাটে ভিড়েছে বার্জ দু’টি। একটি বার্জ ঘাটে নোঙ্গর করে বিকাল পৌনে ৫টায় এবং অন্যটি সন্ধ্যার পর। আজ ভোরে কোচ খালাস কাজ শুরু করবে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ।

দেশের প্রথম এই মেট্রোরেলে থাকবে ২৪টি ট্রেনসেট। প্রতিটি ট্রেনসেটে ৬টি করে মোট ১৪৪টি কোচ থাকবে। প্রতিটি মেট্রোরেলের যাত্রী পরিবহণ ক্ষমতা ২ হাজার ৩০৮ জন। আগামী সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবরের মধ্যে ধাপে ধাপে সকল ট্রেনসেটের কোচ ঢাকায় পৌঁছাবে। জানা যায়, করোনা পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে আগামী ডিসেম্বরে মেট্রোরেল চালু হবে কি না। কেননা, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে প্রকল্পের কার্যক্রম চলমান থাকায় ইতোমধ্যেই ৬৫২ জন আক্রান্ত হয়েছেন, যদিও কেউ মারা যাননি। মহামারি এ ভাইরাস মেট্রোরেল কাজের গতি খামছে ধরছে। সবকিছু মিলিয়ে এ সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করতে না পারলে আগামী বছরের প্রথম দিকে চালু হতে পারে দেশের প্রথম এ উড়াল মেট্রোরেল।

জানতে চাইলে মেট্রোরেলের প্যাকেজ-৮ এর ব্যবস্থাপক এবিএম আরিফুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, ‘এখন পর্যন্ত যে সিদ্ধান্ত আছে, সে অনুযায়ী প্রতি সাড়ে ৪ মিনিটে ট্রেন স্টেশন ছেড়ে যাবে। এমআরটি-৬ এ ২৪টি ট্রেনসেটে ১৪৪টি কোচ চলাচল করবে। আর ট্রাফিক পরিস্থিতি অনুযায়ী এ সিডিউল পরবর্তীতে পরিবর্তন হতে পারে।’

মেট্রোরেলের প্রথম ‘ট্রেনসেট’ দিয়াবাড়ী ঘাটে পৌঁছার খবর পেয়ে সেখানে উপস্থিত হন মেট্রোরেলের কর্মকর্তারা। বিকাল ৩টায় মেট্রোরেলের ‘ট্রেনসেট’ উত্তরা দিয়াবাড়ী ঘাটে ভিড়ার কথা ছিল। কিন্তু তুরাগ নদের বাঁকের কারণে পৌঁছাতে সময় বেশি লাগে। বিকাল পৌনে ৫টায় ট্রেনসেট ও লিফটিং জিক বহনকারী প্রথম বার্জ ঘাটে ভিড়লে উপস্থিত লোকজন করতালি দিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা ম্যাস-ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএএন ছিদ্দিকসহ সংশ্লিষ্টরা। পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, মেট্রোরেলের ট্রেনসেট কবে ঢাকায় এসে পৌঁছাবে, সে বিষয়ে আপনাদের একটি ধারণা দিয়েছিলাম। আল্লাহতায়ালার অশেষ শুকরিয়া যে, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই মেট্রোরেলের প্রথম ট্রেনসেট ঢাকায় পৌঁছেছে। তিনি বলেন, আজকে (গতকাল) জিকগুলো নামাবো এবং আগামীকাল (আজ) সকাল থেকে ৪টি কোচ আনলোড করে ডিপোতে নিয়ে যাবো। বাকি দুটো কোচ ২৩ তারিখে নিয়ে যাওয়া হবে। তারপরে এ ট্রেনগুলো ইতালি থেকে আমদানিকৃত ইলেকট্রিক ট্রাক্টরের মাধ্যমে কোচগুলোকে রেললাইনের ওপর স্থাপন করব। একটির সঙ্গে অন্যটির সংযোগ স্থাপন করব। পরবর্তীতে আমাদের কর্মপরিকল্পনা আপনাদের জানাব, তখন মন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত থাকবেন।

এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, আগামী দুই মাসের মধ্যে মেট্রোরেলের ইন্টিগ্রেটেড টেস্ট করা সম্ভব হবে। কেননা এসব যন্ত্রসামগ্রীর ১৯টি পরীক্ষা করার দরকার। এগুলো জাপান থেকে করিয়ে আনতে পারলে ভালো হতো। কিন্তু আমরা সেটা করতে পারিনি। এ কারণে এখানে সেগুলো করতে হবে।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, এমআরটি-৬ সার্বিক কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৬১.৪৯ শতাংশ। প্রথম পর্যায়ের নির্মাণের জন্য নির্ধারিত উত্তরা তৃতীয় পর্ব হতে আগারগাঁও অংশের পূর্ত কাজ শেষ হয়েছে ৮৩.৫২ শতাংশ। দ্বিতীয় পর্যায়ের নির্মাণের জন্য নির্ধারিত আগারগাঁও থেকে মতিঝিল অংশের পূর্ত কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৫৭.৬৮ শতাংশ। ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল সিস্টেম এবং রোলিং স্টক ও ডিপো ইকুপমেন্ট সংগ্রহ কাজের সমন্বিত অগ্রগতি হয়েছে ৫২.২২ শতাংশ।

তারা জানান, ডিপো এলাকার ভূমি উন্নয়ন কাজ নির্ধারিত সময়ের ৯ মাস পূর্বে গত ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে শেষ হয়েছে। এতে সরকারের ৭০ কোটি ৫৮ লাখ টাকা সাশ্রয় হয়েছে। ডিপোর অভ্যন্তরের ৫২টি অবকাঠামোর মধ্যে ১৩টি অবকাঠামোর নির্মাণ কাজ পরিপূর্ণভাবে শেষ হয়েছে। এর সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৮৫ শতাংশ। দ্রুতগতিতে চলছে ১৬টি মেট্রোস্টেশন নির্মাণের কার্যক্রম।

১৬ মেট্রো স্টেশন : এমআরটি-৬ এর স্টেশনগুলো হলো, উত্তরা (উত্তর), উত্তরা (কেন্দ্র), উত্তরা (দক্ষিণ), পল্লবী, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজিপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ সচিবালয় এবং মতিঝিল।

মেট্রোরেলের প্রথম ট্রেন ঢাকায়

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২২ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশের উড়াল মেট্রোরেলের (এমআরটি-৬) প্রথম ট্রেনসেট বুধবার ঢাকায় পৌঁছেছে। প্রথম সেটে ৬টি কোচ ও শিফটিং জিক নিয়ে দু’টি বার্জ গতকাল ঢাকায় পৌঁছেছে। ১৬ এপ্রিল মংলা বন্দর থেকে রওনা হয়ে উত্তরা দিয়াবাড়ী সংলগ্ন মেট্রোরেলের অস্থায়ী ঘাটে ভিড়েছে বার্জ দু’টি। একটি বার্জ ঘাটে নোঙ্গর করে বিকাল পৌনে ৫টায় এবং অন্যটি সন্ধ্যার পর। আজ ভোরে কোচ খালাস কাজ শুরু করবে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ।

দেশের প্রথম এই মেট্রোরেলে থাকবে ২৪টি ট্রেনসেট। প্রতিটি ট্রেনসেটে ৬টি করে মোট ১৪৪টি কোচ থাকবে। প্রতিটি মেট্রোরেলের যাত্রী পরিবহণ ক্ষমতা ২ হাজার ৩০৮ জন। আগামী সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবরের মধ্যে ধাপে ধাপে সকল ট্রেনসেটের কোচ ঢাকায় পৌঁছাবে। জানা যায়, করোনা পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে আগামী ডিসেম্বরে মেট্রোরেল চালু হবে কি না। কেননা, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে প্রকল্পের কার্যক্রম চলমান থাকায় ইতোমধ্যেই ৬৫২ জন আক্রান্ত হয়েছেন, যদিও কেউ মারা যাননি। মহামারি এ ভাইরাস মেট্রোরেল কাজের গতি খামছে ধরছে। সবকিছু মিলিয়ে এ সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করতে না পারলে আগামী বছরের প্রথম দিকে চালু হতে পারে দেশের প্রথম এ উড়াল মেট্রোরেল।

জানতে চাইলে মেট্রোরেলের প্যাকেজ-৮ এর ব্যবস্থাপক এবিএম আরিফুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, ‘এখন পর্যন্ত যে সিদ্ধান্ত আছে, সে অনুযায়ী প্রতি সাড়ে ৪ মিনিটে ট্রেন স্টেশন ছেড়ে যাবে। এমআরটি-৬ এ ২৪টি ট্রেনসেটে ১৪৪টি কোচ চলাচল করবে। আর ট্রাফিক পরিস্থিতি অনুযায়ী এ সিডিউল পরবর্তীতে পরিবর্তন হতে পারে।’

মেট্রোরেলের প্রথম ‘ট্রেনসেট’ দিয়াবাড়ী ঘাটে পৌঁছার খবর পেয়ে সেখানে উপস্থিত হন মেট্রোরেলের কর্মকর্তারা। বিকাল ৩টায় মেট্রোরেলের ‘ট্রেনসেট’ উত্তরা দিয়াবাড়ী ঘাটে ভিড়ার কথা ছিল। কিন্তু তুরাগ নদের বাঁকের কারণে পৌঁছাতে সময় বেশি লাগে। বিকাল পৌনে ৫টায় ট্রেনসেট ও লিফটিং জিক বহনকারী প্রথম বার্জ ঘাটে ভিড়লে উপস্থিত লোকজন করতালি দিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা ম্যাস-ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএএন ছিদ্দিকসহ সংশ্লিষ্টরা। পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, মেট্রোরেলের ট্রেনসেট কবে ঢাকায় এসে পৌঁছাবে, সে বিষয়ে আপনাদের একটি ধারণা দিয়েছিলাম। আল্লাহতায়ালার অশেষ শুকরিয়া যে, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই মেট্রোরেলের প্রথম ট্রেনসেট ঢাকায় পৌঁছেছে। তিনি বলেন, আজকে (গতকাল) জিকগুলো নামাবো এবং আগামীকাল (আজ) সকাল থেকে ৪টি কোচ আনলোড করে ডিপোতে নিয়ে যাবো। বাকি দুটো কোচ ২৩ তারিখে নিয়ে যাওয়া হবে। তারপরে এ ট্রেনগুলো ইতালি থেকে আমদানিকৃত ইলেকট্রিক ট্রাক্টরের মাধ্যমে কোচগুলোকে রেললাইনের ওপর স্থাপন করব। একটির সঙ্গে অন্যটির সংযোগ স্থাপন করব। পরবর্তীতে আমাদের কর্মপরিকল্পনা আপনাদের জানাব, তখন মন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত থাকবেন।

এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, আগামী দুই মাসের মধ্যে মেট্রোরেলের ইন্টিগ্রেটেড টেস্ট করা সম্ভব হবে। কেননা এসব যন্ত্রসামগ্রীর ১৯টি পরীক্ষা করার দরকার। এগুলো জাপান থেকে করিয়ে আনতে পারলে ভালো হতো। কিন্তু আমরা সেটা করতে পারিনি। এ কারণে এখানে সেগুলো করতে হবে।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, এমআরটি-৬ সার্বিক কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৬১.৪৯ শতাংশ। প্রথম পর্যায়ের নির্মাণের জন্য নির্ধারিত উত্তরা তৃতীয় পর্ব হতে আগারগাঁও অংশের পূর্ত কাজ শেষ হয়েছে ৮৩.৫২ শতাংশ। দ্বিতীয় পর্যায়ের নির্মাণের জন্য নির্ধারিত আগারগাঁও থেকে মতিঝিল অংশের পূর্ত কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৫৭.৬৮ শতাংশ। ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল সিস্টেম এবং রোলিং স্টক ও ডিপো ইকুপমেন্ট সংগ্রহ কাজের সমন্বিত অগ্রগতি হয়েছে ৫২.২২ শতাংশ।

তারা জানান, ডিপো এলাকার ভূমি উন্নয়ন কাজ নির্ধারিত সময়ের ৯ মাস পূর্বে গত ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে শেষ হয়েছে। এতে সরকারের ৭০ কোটি ৫৮ লাখ টাকা সাশ্রয় হয়েছে। ডিপোর অভ্যন্তরের ৫২টি অবকাঠামোর মধ্যে ১৩টি অবকাঠামোর নির্মাণ কাজ পরিপূর্ণভাবে শেষ হয়েছে। এর সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৮৫ শতাংশ। দ্রুতগতিতে চলছে ১৬টি মেট্রোস্টেশন নির্মাণের কার্যক্রম।

১৬ মেট্রো স্টেশন : এমআরটি-৬ এর স্টেশনগুলো হলো, উত্তরা (উত্তর), উত্তরা (কেন্দ্র), উত্তরা (দক্ষিণ), পল্লবী, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজিপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ সচিবালয় এবং মতিঝিল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন