কাসেমীসহ তিন নেতা রিমান্ডে
jugantor
কাসেমীসহ তিন নেতা রিমান্ডে
গ্রেফতার আরও তিন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২২ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হেফাজতে ইসলামের ঢাকা মহানগর শাখার সহসভাপতি মাওলানা কোরবান আলী কাসেমীসহ তিন নেতার বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রিমান্ডে যাওয়া অপর দুই আসামি হলেন- হেফাজতের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব মুফতি শাখাওয়াত হোসাইন রাজী ও মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দি। বুধবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত রিমান্ডের আদেশ দেন। বুধবার ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে হেফাজতের আরও তিন নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে ২১ কর্মী-সমর্থককে গ্রেফতার করা হয়েছে। আদালতে মাওলানা কোরবান আলীকে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে ডিবি পুলিশ। ২০১৩ সালে রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্বরে হেফাজতের তাণ্ডবের ঘটনায় পল্টন থানায় করা মামলায় তার রিমান্ড চাওয়া হয়। শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. মামুনুর রশিদ ৪ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন। মঙ্গলবার ডিবির গুলশান বিভাগ বাসাবো থেকে কোরবান আলীকে গ্রেফতার করে।
নাশকতার মামলায় হেফাজত নেতা মুফতি শাখাওয়াত হোসাইন রাজী ও মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দির ২১ দিন করে রিমান্ডের আদেশ দিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদ। রাজধানীর মতিঝিলের দুই মামলা ও পল্টন থানার এক মামলায় ৭ দিন করে ২১ দিনের রিমান্ডের এ আদেশ দেওয়া হয়।
এদিকে, ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেফতার হেফাজত নেতারা হলেন- হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের প্রচার সম্পাদক মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন, কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব আমির আল্লামা খুরশিদ আলম কাসেমী এবং হেফাজতের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুফতি শারাফত হোসাইন। ভোরে রাজধানীর মোহাম্মদপুর জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা থেকে আমিনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। র‌্যাব সদর দপ্তরের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, সম্প্রতি সহিংসতার ঘটনা এবং ২০১৩ সালের তাণ্ডবের ঘটনায় আমিনের বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে। এছাড়া তিনি উসকানিমূলক বক্তব্যও দিয়েছেন। তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে। বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে মোহাম্মদপুরের বাসা থেকে খুরশিদ আলম কাসেমীকে গ্রেফতার করে গুলশান গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল। একইদিন বিকাল ৫টার দিকে শারাফত হোসাইনকে গ্রেফতার করে ডিবি গুলশান বিভাগ। ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, ২০১৩ সালে করা মামলায় তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। ৭ দিন করে রিমান্ড চেয়ে বৃহস্পতিবার তাদের আদালতে তোলা হবে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১১ কর্মী-সমর্থক গ্রেফতার : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডবের ঘটনায় আরও ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার পুলিশের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, হেফাজতের তাণ্ডবের ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে আরও ১১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা সবাই হেফাজতের কর্মী-সমর্থক। এ নিয়ে ৫৫ মামলায় ৩১০ জনকে গ্রেফতার করা হলো।
ছাতকে ১০ জন গ্রেফতার : ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেফতারের প্রতিবাদে ছাতকে ডাকা বিক্ষোভ মিছিল থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপের দায়ে ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার উপজেলার কালারুকা ইউনিয়নের রাজাপুর থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। বুধবার তাদের সুনামগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়।

কাসেমীসহ তিন নেতা রিমান্ডে

গ্রেফতার আরও তিন
 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২২ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হেফাজতে ইসলামের ঢাকা মহানগর শাখার সহসভাপতি মাওলানা কোরবান আলী কাসেমীসহ তিন নেতার বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রিমান্ডে যাওয়া অপর দুই আসামি হলেন- হেফাজতের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব মুফতি শাখাওয়াত হোসাইন রাজী ও মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দি। বুধবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত রিমান্ডের আদেশ দেন। বুধবার ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে হেফাজতের আরও তিন নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে ২১ কর্মী-সমর্থককে গ্রেফতার করা হয়েছে। আদালতে মাওলানা কোরবান আলীকে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে ডিবি পুলিশ। ২০১৩ সালে রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্বরে হেফাজতের তাণ্ডবের ঘটনায় পল্টন থানায় করা মামলায় তার রিমান্ড চাওয়া হয়। শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. মামুনুর রশিদ ৪ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন। মঙ্গলবার ডিবির গুলশান বিভাগ বাসাবো থেকে কোরবান আলীকে গ্রেফতার করে।
নাশকতার মামলায় হেফাজত নেতা মুফতি শাখাওয়াত হোসাইন রাজী ও মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দির ২১ দিন করে রিমান্ডের আদেশ দিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদ। রাজধানীর মতিঝিলের দুই মামলা ও পল্টন থানার এক মামলায় ৭ দিন করে ২১ দিনের রিমান্ডের এ আদেশ দেওয়া হয়।
এদিকে, ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেফতার হেফাজত নেতারা হলেন- হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের প্রচার সম্পাদক মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন, কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব আমির আল্লামা খুরশিদ আলম কাসেমী এবং হেফাজতের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুফতি শারাফত হোসাইন। ভোরে রাজধানীর মোহাম্মদপুর জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা থেকে আমিনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। র‌্যাব সদর দপ্তরের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, সম্প্রতি সহিংসতার ঘটনা এবং ২০১৩ সালের তাণ্ডবের ঘটনায় আমিনের বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে। এছাড়া তিনি উসকানিমূলক বক্তব্যও দিয়েছেন। তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে। বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে মোহাম্মদপুরের বাসা থেকে খুরশিদ আলম কাসেমীকে গ্রেফতার করে গুলশান গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল। একইদিন বিকাল ৫টার দিকে শারাফত হোসাইনকে গ্রেফতার করে ডিবি গুলশান বিভাগ। ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, ২০১৩ সালে করা মামলায় তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। ৭ দিন করে রিমান্ড চেয়ে বৃহস্পতিবার তাদের আদালতে তোলা হবে। 
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১১ কর্মী-সমর্থক গ্রেফতার : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডবের ঘটনায় আরও ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার পুলিশের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, হেফাজতের তাণ্ডবের ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে আরও ১১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা সবাই হেফাজতের কর্মী-সমর্থক। এ নিয়ে ৫৫ মামলায় ৩১০ জনকে গ্রেফতার করা হলো। 
ছাতকে ১০ জন গ্রেফতার : ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেফতারের প্রতিবাদে ছাতকে ডাকা বিক্ষোভ মিছিল থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপের দায়ে ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার উপজেলার কালারুকা ইউনিয়নের রাজাপুর থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। বুধবার তাদের সুনামগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়।
 

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন