ইউপি নির্বাচনে চরফ্যাশন ও গৌরনদীতে সংঘর্ষে নিহত ৩
jugantor
ইউপি নির্বাচনে চরফ্যাশন ও গৌরনদীতে সংঘর্ষে নিহত ৩
দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে -ইসি * আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের জয়জয়কার

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২২ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সংঘর্ষ

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে তিনজন মারা গেছেন। বরিশালের গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নে দুই সাধারণ সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে মৌজে আলী মৃধা (৬৫) ও আবু বক্কর ফকির নামের দুই ব্যক্তি মারা গেছেন। অপরদিকে ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার হাজারীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে মনির হোসেন নামের এক ব্যক্তি নিহত হন।

এছাড়া বরিশাল, বরগুনার বেতাগী, বামনা ও আমতলী, পটুয়াখালীর বাউফল, ঝালকাঠি এবং পিরোজপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। এতে শতাধিক মানুষ আহত হন। নির্বাচনের অনিয়মের ঘটনায় বিভিন্ন ইউপিতে অন্তত ১০-১৫ জন প্রার্থী নির্বাচন বর্জন করেছেন। তবে কোনো কেন্দ্রে ভোট বন্ধ হয়নি। এছাড়া ঝালকাঠি পৌরসভা নির্বাচনেও সহিংসতায় অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন। তবে দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে হয়েছে। এসব নির্বাচনে দুই পৌরসভা ও বেশিরভাগ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন।

তবে নির্বাচন কমিশন দাবি করেছে, ইউনিয়ন পরিষদে দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার এক ব্রিফিংয়ে বলেন, কয়েকটি জায়গায় বিচ্ছিন্ন ঘটনায় দুজন নিহত হয়েছেন। কোনো মৃত্যুই আমাদের কাম্য নয়। এছাড়া সমস্ত নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার দেড় ঘণ্টা পর বিকাল সাড়ে ৫টায় নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে এ ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঊর্ধ্বগতি ও থেমে থেমে বর্ষার মধ্যে রোববার লক্ষ্মীপুর-২, প্রথম ধাপের ২০৪টি ইউনিয়ন পরিষদ ও দুটি পৌরসভায় সোমবার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। বৃষ্টিতে অনেক ভোটকেন্দ্রে পানি জমে যায়। এসব উপেক্ষা করে নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। ১৩টি জেলার ৪১টি উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হলেও বরিশাল অঞ্চলে সহিংসতার মাত্রা বেশি ছিল।

নির্বাচন প্রসঙ্গে সচিব আরও বলেন, লক্ষ্মীপুর-২ আসনের উপনির্বাচন এবং ঝালকাঠি ও দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচন কমিশন থেকে সারা দেশে অনুষ্ঠিত নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন গণমাধ্যমে যেসব খবর প্রচারিত হয়েছে তার ওপর ভিত্তি করেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। দুই জন নিহতের ঘটনায় ইসি আইনি ব্যবস্থা নেবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, প্রার্থী নিজেদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় নিহতের ঘটনা ঘটেছে। কাজেই তারা এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেবে। তাছাড়া ঘটনার তদন্ত হলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে। নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দেওয়ার পরও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি-এমন অভিযোগের জবাবে ইসি সচিব বলেন, যেসব জায়গার অভিযোগ আমাদের কাছে এসেছে, আমরা তার বিষয়ে ব্যবস্থা নিয়েছি। স্থগিত ইউপিতে ভোট কবে অনুষ্ঠিত হতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই মুহূর্তে এটা বলা যাবে না। কমিশন সভা হলে তখন জানা যাবে। কমিশন বিষয়টি পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে। ব্যুরো, স্টাফ রিপোর্টার ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ভোলা ও চরফ্যাশন (দক্ষিণ) : চরফ্যাশনের হাজারীগঞ্জ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের চরফকিরা কো-ইড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে দুপক্ষের সংঘর্ষে গুলিতে এক যুবক নিহত হয়েছেন। তার নাম মনির হোসেন (২৩)। এতে ১২ জন আহত হয়েছেন। কেন্দ্রের বাইরে সোমবার বেলা ১১টায় ভোট চাওয়া নিয়ে ফুটবল প্রতীকের সদস্য প্রার্থী ইয়াছিন মাঝি ও টিউবওয়েল প্রতীকের সদস্যপ্রার্থী ইউসুফ সিকদারের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ও বিজিবি ছররা গুলি চালায়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে মনির হোসেন নিহত হন। আহতদের মধ্যে ৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। মনির হোসেন ফুটবল প্রতীকের সমর্থক। গুলিবর্ষণ ও টানটান উত্তেজনার মধ্যেও ভোটগ্রহণ বন্ধ হয়নি। আহত আলাউদ্দিনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার বলেন, এক সদস্য প্রার্থীর ছেলের পিস্তলের ছোড়া গুলিতেই মনির মারা যায়। তাকে গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

বরিশাল ও গৌরনদী : বরিশালে ইউপি নির্বাচনে সহিংসতায় দুইজন নিহত ও অর্ধশত আহত হয়েছে। ঢাকা থেকে ছেলের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে এসে লাশ হয়েছেন মৌজে আলী মৃধা (৬৫) নামের এক বৃদ্ধ। ঘটনাটি ঘটেছে গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের কমলাপুর কেন্দ্রে। এতে কমপক্ষে ১০ জন গুরুতর আহত হয়। ঘটনার পরপরই ভোট গ্রহণ বন্ধ থাকলেও প্রশাসনের ব্যাপক উপস্থিতিতে পুনরায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। একই ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ফল ঘোষণার পর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় আবু বক্কর ফকির (২৭) নামে একজন মারা যান। জানা যায়, ওই ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী মো. আরজ আলী সরদার ১২৪ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হলে তার সমর্থকদের সঙ্গে জয়ী প্রার্থী খাঞ্জাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. গিয়াস মৃধার সমর্থকদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় বোমা হামলায় বিজয়ী প্রার্থীর সমর্থক ভ্যানচালক আবু বক্কর ফকির ও বাস শ্রমিক রকি হাওলাদারসহ পাঁচজন আহত হন। আহতদের হাসপাতালে নেওয়া হলে আবু বক্কর ফকিরকে মৃত ঘোষণা করা হয়। এদিকে হিজলার মেমানিয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের খগেরচর কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের কর্মীদের সঙ্গে ঘোড়া প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসির উদ্দিনের কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। পুলিশ ৮ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মুলাদী উপজেলার কাজীরচর ইউনিয়নের ওয়াহেদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী কাঞ্চন প্যাদার ও মাসুম সিকদারের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পালটা ধাওয়ায় আহত হয়েছে ১০ জন।

বরিশাল, বেতাগী ও বামনা (বরগুনা) : বরগুনার ২৯ ইউনিয়ন পরিষদের ভোট গ্রহণ চলাকালে পৃথক সহিংসতায় কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। বরগুনার বেতাগী উপজেলার সরিষামুড়ি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. ইউসুফ শরীফের বাড়িতে রোববার রাতে ঢুকে তার স্ত্রীসহ ১২ জনকে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ উঠেছে। এ সময় বসতঘরে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়।

বাউফল (পটুয়াখালী) : বাউফলে কেন্দ্র দখলের চেষ্টার সময় নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী সালেহ উদ্দিন পিকুর কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে চশমা মার্কার স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিউদ্দিন লাবলুর কর্মী-সমর্থকদের সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় সেখানে কয়েক রাউন্ড গুলি ও কয়েকটি বোমা বিস্ফোরণ করা হয়।

পিরোজপুর ও মঠবাড়িয়া : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে তিন ইউনিয়নে নির্বাচন বয়কটসহ ভোট বর্জন করেছেন সাত চেয়ারম্যান প্রার্থী। এদিকে জেলার ইন্দুরকানীতে জাল ভোট দেওয়ার অভিযোগে হৃদয় শেখ (৩০) নামে এক যুবককে ৮ মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।
ফলাফল :

দিনাজপুর ও বিরল : দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে নৌকা মার্কা নিয়ে মেয়র পদে জয়ী হয়েছেন মো. আসলাম। দীর্ঘ ১০ বছর পর সোমবার এ পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই প্রথম ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) অনুষ্ঠিত হয় এই ভোটগ্রহণ। নৌকা মার্কা নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. আসলাম ১০ হাজার ৯২৭ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নাহিদ বাশার চৌধুরী জগ মার্কা নিয়ে পান ২ হাজার ৮৫০ ভোট। ইভিএমে ভোট দিয়েছেন নৌ পরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি। নিজ নির্বাচনী এলাকা সেতাবগঞ্জ পৌরসভায় সাধারণ মানুষের মতো দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেই তিনি ভোট দেন।

ঝালকাঠি : ঝালকাঠি পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. লিয়াকত আলী তালুকদার পুনরায় নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন সতের হাজার নয়শত চুয়াত্তর ভোট । তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী স্বতন্ত্র আফজাল হোসেন রানা পেয়েছেন ৫৯৪ ভোট। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থী মো. হাবিবুর রহমান পেয়েছেন ৪১৫ ভোট। ঝালকাঠি পৌর নির্বাচনে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চললেও শেষ মুহূর্তে উত্তেজনা ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে প্রার্থী ও সমর্থকরা। এতে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিলসহ ৫ জন আহত হয়।

নলছিটি (ঝালকাঠি) : ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ১০ ইউনিয়নেই নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছেন। এরা হলেন ভৈরবপাশা ইউনিয়নে মো. আবদুল হক, মগড় ইউনিয়নে মো. এনামুল হক শাহিন, কুলকাঠি ইউনিয়নে এইচএম, আখতারুজ্জামান বাচ্চু, রানাপাশা ইউনিয়নে মো. শাহজাহান হাওলাদার, সুবিদপুর ইউনিয়নে মো. আব্দুল গফ্ফার খান,কুশংঙ্গল ইউনিয়নে মো. আলমগীর হোসেন সিকদার, সিদ্ধকাঠি ইউনিয়নে কাজী জেসমিন ওবায়েদ, দপদপিয়া ইউনিয়নে মো. সোহরাব হোসেন বাবুল মৃধা, নাচনমহল ইউনিয়নে মো. সিরাজুল ইসলাম সেলিম ও মোল্লারহাট ইউনিয়নে অ্যাডভোকেট মো. মাহবুবুর রহমান সেন্টু বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এদের মধ্যে নাচনমহল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোহাম্মদ হোসেন আকন খোকন প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিলে নৌকা মার্কার একক প্রার্থী মো. সিরাজুল ইসলাম সেলিম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

সুনামগঞ্জ : ছাতক উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান দেওয়ান পীর আব্দুল খালিক রাজা নির্বাচিত হয়েছেন। সিংচাপইড় ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে ৫ হাজার ১২১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন সাহাব উদ্দিন মো. সাহেল।
দশমিনা (পটুয়াখালী) : পটুয়াখালীর দশমিনায় বহরমপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকের মো. আসাদুজ্জামান সোহাগ, বাঁশবাড়িয়া ইউপিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কাজী আবুল কালাম, আলীপুর ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আতিকুর রহমান সাগর বিজয়ী হয়েছেন।
বামনা (বরগুনা) : বরগুনার বামনা সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান অ্যাড. চৌধুরী কামরুজ্জামান সগির, বুকাবুনিয়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মো. সাইদুর রহমান সবুজ (চশমা), রামনা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী নজরুল ইসলাম জমাদ্দার (নৌকা), ডৌয়াতলা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান মিজান (আনারস) বিজয়ী হয়েছেন।

উজিরপুর (বরিশাল) : বরিশালের উজিরপুরে সাতলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. শাহীন হাওলাদার, জল্লা ইউপিতে বেবী রানী দাস, ওটরায় এমএ খালেক রাঢ়ী, বড়াকোঠায় অ্যাড. শহীদুল ইসলাম মৃধা বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়াও শোলক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় ডা. হালিম নির্বাচিত হয়েছেন।

বানারীপাড়া (বরিশাল) : বরিশালের বানারীপাড়ায় বাইশারী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্যামল কুমার চক্রবর্তী, চাখার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সৈয়দ মজিবুল ইসলাম টুকু নির্বাচিত হয়েছেন। উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ দলীয় নৌকা প্রতীকের ৫ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

বাকেরগঞ্জ (বরিশাল) : বাকেরগঞ্জের ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০টিতে আওয়ামী লীগ এবং একটিতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। প্রাদ্রীশিবপুর ইউনিয়নে জাহিদুল হাসান বাবু, রঙ্গশ্রী ইউনিয়নে বশির উদ্দিন সিকদার, ভরপাশা ইউনিয়নে আশ্রারুফুজ্জামান খোকন, কলসাকাঠী ইউনিয়নে ফয়সাল ওয়াহিদ মুন্না, দাড়িয়াল ইউনিয়নে শহিদুল ইসলাম হাওলাদার, ফরিদপুর ইউনিয়নে এসএম শফিকুল ইসলাম, কবাই ইউনিয়নে জহিরুল হক তালুকদার, নলুয়া ইউনিয়নে ফিরোজ আলম খান নৌকা নির্বাচিত হয়েছেন। গারুড়িয়া ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির প্রার্থী এসএম কাইয়ুম খান বিজয়ী হয়েছেন।

মুলাদী (বরিশাল) : মুলাদীর পাঁচটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও একটিতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। সফিপুর ইউনিয়নে আবু মুছা হিমু মুন্সী, নাজিপুর ইউনিয়নে মোস্তাফিজুর রহমান বাদল খান, গাছুয়া ইউনিয়নে জসিম উদ্দীন বেপারী, কাজিরচর ইউনিয়নে আলহাজ মন্টু বিশ্বাস নৌকা প্রতীক নিয়ে এবং চরকালেখান ইউনিয়নে মিরাজুল ইসলাম সরদার লাঙ্গল নিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া মুলাদী সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের কামরুল আহসান বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

রংপুর : রংপুরের পীরগাছা উপজেলার কল্যাণী ইউপি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী নূর আলম মিয়া বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

বগুড়া : বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মেহেরুল ইসলাম (অটোরিকশা) পুনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

পাথরঘাটা : পাথরঘাটার কালমেঘা ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী গোলাম নাসর, কাকচিড়া ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী আলাউদ্দিন পল্টু, কাঁঠালতলী ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী সহিদুল ইসলাম বিজয়ী হয়েছেন।

নাজিরপুর (পিরোজপুর) : পিরোজপুরের নাজিরপুরে প্রথম ধাপের নির্বাচনে উপজেলার মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. জাহিদুল ইসলাম বিলু, মালিখালী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রুহুল আমীন বাবলু দাঁড়িয়া, নাজিরপুর সদর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. মোশারেফ হোসেন খান ও শেখমাটিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মো. আতিয়ার রহমান চৌধুরী নান্নু নির্বাচিত হয়েছেন।

মনপুরা (ভোলা) : ভোলার মনপুরায় হাজীরহাট ইউনিয়নে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (আনারস প্রতীক) মো. নিজাম উদ্দিন ও দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়নে জয়ী হয়েছেন আ.লীগের প্রার্থী (নৌকা প্রতীক) অলি উল্লা কাজল বিজয়ী হয়েছেন।

আমতলী (বরগুনা) : আমতলীর ছয়টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চারজন আওয়ামী লীগ ও দুজন স্বতন্ত্র প্রার্থী বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তারা হলেন নৌকা নিয়ে গুলিশাখালী অ্যাডভোকেট মো. মনিরুল ইসলাম মনি, কুকুয়া মো. বোরহান উদ্দিন মাসুম তালুকদার, চাওড়া মো. আখতারুজ্জামান বাদল খান, আড়পাঙ্গাশিয়ার নারী প্রার্থী মোসা. সোহেলী পারভীন মালা এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে আঠারোগাছিয়া মো. রফিকুল ইসলাম রিপন ও হলদিয়া ইউনিয়নে মো. আসাদুজ্জামান মিন্টু মল্লিক।

লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুরের কমলনগর ও রামগতির ৬টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে সব কটিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা বিপুল ভোটে জয় পেয়েছেন। বিজয়ীরা হলেন কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ ইউনিয়নে মির্জা আশরাফুর জামান রাসেল, হাজীরহাটে নিজাম উদ্দিন, চরফলকনে মোশারফ হোসেন বাঘা, রামগতি উপজেলার চরবাদামে শাখাওয়াত হোসেন জসিম, চরপোড়াগাছায় নুরুল আমিন ও চররমিজে মুজাহিদুল ইসলাম শিপন বিজয়ী হয়েছেন।

ইন্দুরকানী (পিরোজপুর) : পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে বালিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মো. কবির হোসেন বয়াতি নির্বাচিত হয়েছেন।
গলাচিপার ৪ ইউপি নির্বাচনে

গলাচিপা ও দক্ষিণ (পটুয়াখালী) : পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার ৪ ইউপির মধ্যে আমখোলা ইউপিতে কামরুজ্জামান মনির, গোলখালী ইউপিতে নৌকা প্রতীকে মো. নাসির উদ্দিন, রতনদি তালতলী ইউপিতে নৌকা প্রতীকে গোলাম মোস্তফা, চিকনিকান্দি ইউপিতে সাজ্জাদ হোসেন রিয়াদ বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

নরসিংদী : পলাশের ডাঙ্গা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাবেরুল হাই এবং গজারিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির হোসেন চৌধুরী চশমা প্রতীকে নির্বাচিত হয়েছেন।

ইউপি নির্বাচনে চরফ্যাশন ও গৌরনদীতে সংঘর্ষে নিহত ৩

দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে -ইসি * আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের জয়জয়কার
 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২২ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
সংঘর্ষ
চরফ্যাশন উপজেলার হাজারীগঞ্জ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের চরফকিরা কো-ইড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে সোমবার দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ -যুগান্তর

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে তিনজন মারা গেছেন। বরিশালের গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নে দুই সাধারণ সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে মৌজে আলী মৃধা (৬৫) ও আবু বক্কর ফকির নামের দুই ব্যক্তি মারা গেছেন। অপরদিকে ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার হাজারীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে মনির হোসেন নামের এক ব্যক্তি নিহত হন।

এছাড়া বরিশাল, বরগুনার বেতাগী, বামনা ও আমতলী, পটুয়াখালীর বাউফল, ঝালকাঠি এবং পিরোজপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। এতে শতাধিক মানুষ আহত হন। নির্বাচনের অনিয়মের ঘটনায় বিভিন্ন ইউপিতে অন্তত ১০-১৫ জন প্রার্থী নির্বাচন বর্জন করেছেন। তবে কোনো কেন্দ্রে ভোট বন্ধ হয়নি। এছাড়া ঝালকাঠি পৌরসভা নির্বাচনেও সহিংসতায় অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন। তবে দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে হয়েছে। এসব নির্বাচনে দুই পৌরসভা ও বেশিরভাগ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন।

তবে নির্বাচন কমিশন দাবি করেছে, ইউনিয়ন পরিষদে দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার এক ব্রিফিংয়ে বলেন, কয়েকটি জায়গায় বিচ্ছিন্ন ঘটনায় দুজন নিহত হয়েছেন। কোনো মৃত্যুই আমাদের কাম্য নয়। এছাড়া সমস্ত নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার দেড় ঘণ্টা পর বিকাল সাড়ে ৫টায় নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে এ ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়। 

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঊর্ধ্বগতি ও থেমে থেমে বর্ষার মধ্যে রোববার লক্ষ্মীপুর-২, প্রথম ধাপের ২০৪টি ইউনিয়ন পরিষদ ও দুটি পৌরসভায় সোমবার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। বৃষ্টিতে অনেক ভোটকেন্দ্রে পানি জমে যায়। এসব উপেক্ষা করে নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। ১৩টি জেলার ৪১টি উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হলেও বরিশাল অঞ্চলে সহিংসতার মাত্রা বেশি ছিল। 

নির্বাচন প্রসঙ্গে সচিব আরও বলেন, লক্ষ্মীপুর-২ আসনের উপনির্বাচন এবং ঝালকাঠি ও দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচন কমিশন থেকে সারা দেশে অনুষ্ঠিত নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন গণমাধ্যমে যেসব খবর প্রচারিত হয়েছে তার ওপর ভিত্তি করেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। দুই জন নিহতের ঘটনায় ইসি আইনি ব্যবস্থা নেবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, প্রার্থী নিজেদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় নিহতের ঘটনা ঘটেছে। কাজেই তারা এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেবে। তাছাড়া ঘটনার তদন্ত হলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে। নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দেওয়ার পরও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি-এমন অভিযোগের জবাবে ইসি সচিব বলেন, যেসব জায়গার অভিযোগ আমাদের কাছে এসেছে, আমরা তার বিষয়ে ব্যবস্থা নিয়েছি। স্থগিত ইউপিতে ভোট কবে অনুষ্ঠিত হতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই মুহূর্তে এটা বলা যাবে না। কমিশন সভা হলে তখন জানা যাবে। কমিশন বিষয়টি পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে। ব্যুরো, স্টাফ রিপোর্টার ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ভোলা ও চরফ্যাশন (দক্ষিণ) : চরফ্যাশনের হাজারীগঞ্জ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের চরফকিরা কো-ইড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে দুপক্ষের সংঘর্ষে গুলিতে এক যুবক নিহত হয়েছেন। তার নাম মনির হোসেন (২৩)। এতে ১২ জন আহত হয়েছেন। কেন্দ্রের বাইরে সোমবার বেলা ১১টায় ভোট চাওয়া নিয়ে ফুটবল প্রতীকের সদস্য প্রার্থী ইয়াছিন মাঝি ও টিউবওয়েল প্রতীকের সদস্যপ্রার্থী ইউসুফ সিকদারের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ও বিজিবি ছররা গুলি চালায়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে মনির হোসেন নিহত হন। আহতদের মধ্যে ৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। মনির হোসেন ফুটবল প্রতীকের সমর্থক। গুলিবর্ষণ ও টানটান উত্তেজনার মধ্যেও ভোটগ্রহণ বন্ধ হয়নি। আহত আলাউদ্দিনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার বলেন, এক সদস্য প্রার্থীর ছেলের পিস্তলের ছোড়া গুলিতেই মনির মারা যায়। তাকে গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। 

বরিশাল ও গৌরনদী : বরিশালে ইউপি নির্বাচনে সহিংসতায় দুইজন নিহত ও অর্ধশত আহত হয়েছে। ঢাকা থেকে ছেলের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে এসে লাশ হয়েছেন মৌজে আলী মৃধা (৬৫) নামের এক বৃদ্ধ। ঘটনাটি ঘটেছে গৌরনদী উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের কমলাপুর কেন্দ্রে। এতে কমপক্ষে ১০ জন গুরুতর আহত হয়। ঘটনার পরপরই ভোট গ্রহণ বন্ধ থাকলেও প্রশাসনের ব্যাপক উপস্থিতিতে পুনরায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। একই ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ফল ঘোষণার পর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় আবু বক্কর ফকির (২৭) নামে একজন মারা যান। জানা যায়, ওই ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী মো. আরজ আলী সরদার ১২৪ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হলে তার সমর্থকদের সঙ্গে জয়ী প্রার্থী খাঞ্জাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. গিয়াস মৃধার সমর্থকদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় বোমা হামলায় বিজয়ী প্রার্থীর সমর্থক ভ্যানচালক আবু বক্কর ফকির ও বাস শ্রমিক রকি হাওলাদারসহ পাঁচজন আহত হন। আহতদের হাসপাতালে নেওয়া হলে আবু বক্কর ফকিরকে মৃত ঘোষণা করা হয়। এদিকে হিজলার মেমানিয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের খগেরচর কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের কর্মীদের সঙ্গে ঘোড়া প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসির উদ্দিনের কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। পুলিশ ৮ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মুলাদী উপজেলার কাজীরচর ইউনিয়নের ওয়াহেদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী কাঞ্চন প্যাদার ও মাসুম সিকদারের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পালটা ধাওয়ায় আহত হয়েছে ১০ জন। 

বরিশাল, বেতাগী ও বামনা (বরগুনা) : বরগুনার ২৯ ইউনিয়ন পরিষদের ভোট গ্রহণ চলাকালে পৃথক সহিংসতায় কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। বরগুনার বেতাগী উপজেলার সরিষামুড়ি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. ইউসুফ শরীফের বাড়িতে রোববার রাতে ঢুকে তার স্ত্রীসহ ১২ জনকে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ উঠেছে। এ সময় বসতঘরে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। 

বাউফল (পটুয়াখালী) : বাউফলে কেন্দ্র দখলের চেষ্টার সময় নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী সালেহ উদ্দিন পিকুর কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে চশমা মার্কার স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিউদ্দিন লাবলুর কর্মী-সমর্থকদের সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় সেখানে কয়েক রাউন্ড গুলি ও কয়েকটি বোমা বিস্ফোরণ করা হয়। 

পিরোজপুর ও মঠবাড়িয়া : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে তিন ইউনিয়নে নির্বাচন বয়কটসহ ভোট বর্জন করেছেন সাত চেয়ারম্যান প্রার্থী। এদিকে জেলার ইন্দুরকানীতে জাল ভোট দেওয়ার অভিযোগে হৃদয় শেখ (৩০) নামে এক যুবককে ৮ মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। 
ফলাফল : 

দিনাজপুর ও বিরল : দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে নৌকা মার্কা নিয়ে মেয়র পদে জয়ী হয়েছেন মো. আসলাম। দীর্ঘ ১০ বছর পর সোমবার এ পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই প্রথম ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) অনুষ্ঠিত হয় এই ভোটগ্রহণ। নৌকা মার্কা নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. আসলাম ১০ হাজার ৯২৭ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নাহিদ বাশার চৌধুরী জগ মার্কা নিয়ে পান ২ হাজার ৮৫০ ভোট। ইভিএমে ভোট দিয়েছেন নৌ পরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি। নিজ নির্বাচনী এলাকা সেতাবগঞ্জ পৌরসভায় সাধারণ মানুষের মতো দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেই তিনি ভোট দেন। 

ঝালকাঠি : ঝালকাঠি পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. লিয়াকত আলী তালুকদার পুনরায় নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন সতের হাজার নয়শত চুয়াত্তর ভোট । তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী স্বতন্ত্র আফজাল হোসেন রানা পেয়েছেন ৫৯৪ ভোট। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থী মো. হাবিবুর রহমান পেয়েছেন ৪১৫ ভোট। ঝালকাঠি পৌর নির্বাচনে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চললেও শেষ মুহূর্তে উত্তেজনা ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে প্রার্থী ও সমর্থকরা। এতে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিলসহ ৫ জন আহত হয়। 

নলছিটি (ঝালকাঠি) : ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ১০ ইউনিয়নেই নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছেন। এরা হলেন ভৈরবপাশা ইউনিয়নে মো. আবদুল হক, মগড় ইউনিয়নে মো. এনামুল হক শাহিন, কুলকাঠি ইউনিয়নে এইচএম, আখতারুজ্জামান বাচ্চু, রানাপাশা ইউনিয়নে মো. শাহজাহান হাওলাদার, সুবিদপুর ইউনিয়নে মো. আব্দুল গফ্ফার খান,কুশংঙ্গল ইউনিয়নে মো. আলমগীর হোসেন সিকদার, সিদ্ধকাঠি ইউনিয়নে কাজী জেসমিন ওবায়েদ, দপদপিয়া ইউনিয়নে মো. সোহরাব হোসেন বাবুল মৃধা, নাচনমহল ইউনিয়নে মো. সিরাজুল ইসলাম সেলিম ও মোল্লারহাট ইউনিয়নে অ্যাডভোকেট মো. মাহবুবুর রহমান সেন্টু বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এদের মধ্যে নাচনমহল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোহাম্মদ হোসেন আকন খোকন প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিলে নৌকা মার্কার একক প্রার্থী মো. সিরাজুল ইসলাম সেলিম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। 

সুনামগঞ্জ : ছাতক উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান দেওয়ান পীর আব্দুল খালিক রাজা নির্বাচিত হয়েছেন। সিংচাপইড় ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে ৫ হাজার ১২১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন সাহাব উদ্দিন মো. সাহেল। 
দশমিনা (পটুয়াখালী) : পটুয়াখালীর দশমিনায় বহরমপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকের মো. আসাদুজ্জামান সোহাগ, বাঁশবাড়িয়া ইউপিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কাজী আবুল কালাম, আলীপুর ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আতিকুর রহমান সাগর বিজয়ী হয়েছেন। 
বামনা (বরগুনা) : বরগুনার বামনা সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান অ্যাড. চৌধুরী কামরুজ্জামান সগির, বুকাবুনিয়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মো. সাইদুর রহমান সবুজ (চশমা), রামনা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী নজরুল ইসলাম জমাদ্দার (নৌকা), ডৌয়াতলা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান মিজান (আনারস) বিজয়ী হয়েছেন। 

উজিরপুর (বরিশাল) : বরিশালের উজিরপুরে সাতলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. শাহীন হাওলাদার, জল্লা ইউপিতে বেবী রানী দাস, ওটরায় এমএ খালেক রাঢ়ী, বড়াকোঠায় অ্যাড. শহীদুল ইসলাম মৃধা বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়াও শোলক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় ডা. হালিম নির্বাচিত হয়েছেন। 

বানারীপাড়া (বরিশাল) : বরিশালের বানারীপাড়ায় বাইশারী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্যামল কুমার চক্রবর্তী, চাখার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সৈয়দ মজিবুল ইসলাম টুকু নির্বাচিত হয়েছেন। উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ দলীয় নৌকা প্রতীকের ৫ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। 

বাকেরগঞ্জ (বরিশাল) : বাকেরগঞ্জের ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০টিতে আওয়ামী লীগ এবং একটিতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। প্রাদ্রীশিবপুর ইউনিয়নে জাহিদুল হাসান বাবু, রঙ্গশ্রী ইউনিয়নে বশির উদ্দিন সিকদার, ভরপাশা ইউনিয়নে আশ্রারুফুজ্জামান খোকন, কলসাকাঠী ইউনিয়নে ফয়সাল ওয়াহিদ মুন্না, দাড়িয়াল ইউনিয়নে শহিদুল ইসলাম হাওলাদার, ফরিদপুর ইউনিয়নে এসএম শফিকুল ইসলাম, কবাই ইউনিয়নে জহিরুল হক তালুকদার, নলুয়া ইউনিয়নে ফিরোজ আলম খান নৌকা নির্বাচিত হয়েছেন। গারুড়িয়া ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির প্রার্থী এসএম কাইয়ুম খান বিজয়ী হয়েছেন। 

মুলাদী (বরিশাল) : মুলাদীর পাঁচটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও একটিতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। সফিপুর ইউনিয়নে আবু মুছা হিমু মুন্সী, নাজিপুর ইউনিয়নে মোস্তাফিজুর রহমান বাদল খান, গাছুয়া ইউনিয়নে জসিম উদ্দীন বেপারী, কাজিরচর ইউনিয়নে আলহাজ মন্টু বিশ্বাস নৌকা প্রতীক নিয়ে এবং চরকালেখান ইউনিয়নে মিরাজুল ইসলাম সরদার লাঙ্গল নিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া মুলাদী সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের কামরুল আহসান বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। 

রংপুর : রংপুরের পীরগাছা উপজেলার কল্যাণী ইউপি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী নূর আলম মিয়া বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। 

বগুড়া : বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মেহেরুল ইসলাম (অটোরিকশা) পুনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। 

পাথরঘাটা : পাথরঘাটার কালমেঘা ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী গোলাম নাসর, কাকচিড়া ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী আলাউদ্দিন পল্টু, কাঁঠালতলী ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী সহিদুল ইসলাম বিজয়ী হয়েছেন। 

নাজিরপুর (পিরোজপুর) : পিরোজপুরের নাজিরপুরে প্রথম ধাপের নির্বাচনে উপজেলার মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. জাহিদুল ইসলাম বিলু, মালিখালী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রুহুল আমীন বাবলু দাঁড়িয়া, নাজিরপুর সদর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. মোশারেফ হোসেন খান ও শেখমাটিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মো. আতিয়ার রহমান চৌধুরী নান্নু নির্বাচিত হয়েছেন। 

মনপুরা (ভোলা) : ভোলার মনপুরায় হাজীরহাট ইউনিয়নে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (আনারস প্রতীক) মো. নিজাম উদ্দিন ও দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়নে জয়ী হয়েছেন আ.লীগের প্রার্থী (নৌকা প্রতীক) অলি উল্লা কাজল বিজয়ী হয়েছেন।

আমতলী (বরগুনা) : আমতলীর ছয়টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চারজন আওয়ামী লীগ ও দুজন স্বতন্ত্র প্রার্থী বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তারা হলেন নৌকা নিয়ে গুলিশাখালী অ্যাডভোকেট মো. মনিরুল ইসলাম মনি, কুকুয়া মো. বোরহান উদ্দিন মাসুম তালুকদার, চাওড়া মো. আখতারুজ্জামান বাদল খান, আড়পাঙ্গাশিয়ার নারী প্রার্থী মোসা. সোহেলী পারভীন মালা এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে আঠারোগাছিয়া মো. রফিকুল ইসলাম রিপন ও হলদিয়া ইউনিয়নে মো. আসাদুজ্জামান মিন্টু মল্লিক।

লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুরের কমলনগর ও রামগতির ৬টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে সব কটিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা বিপুল ভোটে জয় পেয়েছেন। বিজয়ীরা হলেন কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ ইউনিয়নে মির্জা আশরাফুর জামান রাসেল, হাজীরহাটে নিজাম উদ্দিন, চরফলকনে মোশারফ হোসেন বাঘা, রামগতি উপজেলার চরবাদামে শাখাওয়াত হোসেন জসিম, চরপোড়াগাছায় নুরুল আমিন ও চররমিজে মুজাহিদুল ইসলাম শিপন বিজয়ী হয়েছেন।

ইন্দুরকানী (পিরোজপুর) : পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে বালিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মো. কবির হোসেন বয়াতি নির্বাচিত হয়েছেন। 
গলাচিপার ৪ ইউপি নির্বাচনে

গলাচিপা ও দক্ষিণ (পটুয়াখালী) : পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার ৪ ইউপির মধ্যে আমখোলা ইউপিতে কামরুজ্জামান মনির, গোলখালী ইউপিতে নৌকা প্রতীকে মো. নাসির উদ্দিন, রতনদি তালতলী ইউপিতে নৌকা প্রতীকে গোলাম মোস্তফা, চিকনিকান্দি ইউপিতে সাজ্জাদ হোসেন রিয়াদ বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

নরসিংদী : পলাশের ডাঙ্গা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাবেরুল হাই এবং গজারিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির হোসেন চৌধুরী চশমা প্রতীকে নির্বাচিত হয়েছেন।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন