সংকট সমাধান ছাড়া নির্বাচন জনগণ মেনে নেবে না

মির্জা ফখরুল

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৪ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজনৈতিক সংকটের সমাধান ছাড়া কোনো নির্বাচন জনগণ মেনে নেবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, নির্বাচনকালীন একটা নিরপেক্ষ সরকার থাকতে হবে। সংসদ ভেঙে দিতে হবে। কিছুই না করে যদি নির্বাচনে যান তাহলে সে নির্বাচন যা হওয়ার তাই হবে। যেটা করেছেন ২০১৪ সালে, তাই হবে। বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। মুক্ত গণমাধ্যম দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে-একাংশ) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে-একাংশ) যৌথ উদ্যোগে এ সভার আয়োজন করা হয়। বিএফইউজের একাংশের সভাপতি রুহুল আমিন গাজীর সভাপতিত্বে এতে উপস্থিত ছিলেন আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমান, বিএফইউজের সাবেক সভাপতি ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, বিএফইউজের মহাসচিব এম আবদুল্লাহ, প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, ডিইউজের একাংশের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, সহসভাপতি শাহীন হাসনাত প্রমুখ।

সরকারকে উদ্দেশ করে মির্জা ফখরুল আরও বলেন, যে সমস্যা আছে তা আগে সমাধান করুন। তারপর নির্বাচনে যান। নইলে নির্বাচন হবে না। এবার এ দেশের মানুষ এ ধরনের নির্বাচন মেনে নেবে না- এটা পরিষ্কার। কতবার জেলে দেবেন, কতজনকে মারবেন, কতজনকে গুম করবেন? করতে পারেন, এবার এ ধরনের নির্বাচন এ দেশের মানুষ মেনে নেবে না। তিনি বলেন, জাতীয় নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে নির্বাচন দেখাশোনার জন্য। আর সব দলকে সমান সুযোগ দিতে হবে। একই সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন কারাবন্দি খালেদা জিয়াকেও মুক্তি দিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে মির্জা ফখরুল বলেন, এই আওয়ামী লীগ ১/১১’র প্রতিনিধিত্ব করে চলছে। তারা আপনাকে (প্রধানমন্ত্রী) জেলে নিল। কত কিছু করল। তাদের তো কিছু করলেন না। বরং তাদের সবকিছুকে ঘোষণা দিয়ে বৈধ ঘোষণা করেছেন। সম্পূর্ণ মিথ্যা অপরাধে খালেদা জিয়াকে জেলে আটক রাখা হয়েছে। লুট করে খালি করে ফেলেছেন ব্যাংকগুলো। সব টাকা বিদেশে পাচার করা হয়েছে। কিন্তু অর্থমন্ত্রী বলছেন, ব্যাংকিং খাত নাকি এখনও ততটা খারাপ হয়নি। তাহলে কি বাংলাদেশ ব্যাংক তুলে নিয়ে গেলে খারাপ হয়েছে বলবেন।

গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে জাতীয় ঐক্যের বিকল্প নেই উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, একটা জাতীয় ঐক্য তৈরি করতে হবে। এই ফ্যাসিস্টদের হাত থেকে কোনোমতেই মুক্তি পাবেন না, যদি আমরা সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে না পারি, সব শক্তিকে একত্রিত করতে না পারি যারা গণতন্ত্রের পক্ষে। তিনি বলেন, গণতন্ত্রের পক্ষের সব শক্তিকে একত্রিত করতে হবে- এটাই বাংলাদেশের ইতিহাস। এটা যদি করতে পারি তাহলে নিশ্চিত থাকতে পারেন আমরা বিজয় লাভ করব। সেজন্য আবারও আহ্বান করছি, সব গণতান্ত্রিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়া উচিত। চলমান আন্দোলন-সংগ্রামকে জয়ের দিকে নিয়ে যেতে হবে। এটা হচ্ছে গণতন্ত্রকে মুক্ত করার সংগ্রাম।

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা তথা মুক্ত গণমাধ্যম নিশ্চিত করতে হলে দেশে গণতন্ত্র ফিরে আনতে হবে বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, সরকার মুখে বলছে মুক্ত গণমাধ্যম। কিন্তু পত্রিকায় কোন নিউজ যাবে আর কোন নিউজ যাবে না তা সরকারের লোকজন নির্ধারণ করে দিচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে। এই হল আমাদের মুক্ত গণমাধ্যম। বর্তমান অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে হলে যারা গণতন্ত্রের পক্ষে আছেন তাদের জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। বিএনপি মহাসচিব আরও বলেন, সরকার গত ১০ বছরে গণমাধ্যমে একটি ভয়ঙ্কর ভীতির পরিবেশ তৈরি করেছে। এখানে লিখলে গুম হতে হয়। দেশ ছাড়তে হয়েছে সাংবাদিকদের। আসলে দেশে ফ্যাসিবাদ যখন প্রতিষ্ঠিত হয় তখন সর্বত্র ভয় তৈরি হয়।

আরও পড়ুন
pran
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

mans-world

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.