ইভ্যালির রাসেল কারাগারে
jugantor
ইভ্যালির রাসেল কারাগারে

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ই-কমার্স প্ল্যাটফরম ইভ্যালির প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. রাসেলকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার শুনানি শেষে ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট হাসিবুল হক এ আদেশ দেন। ধানমন্ডি থানার প্রতারণা মামলায় একদিনের রিমান্ড শেষে রাসেলকে এদিন আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করা হয়।

একই সঙ্গে ধানমন্ডি থানায় করা প্রতারণার আরেক মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়। অপরদিকে আসামিপক্ষে রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করা হয়। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত আসামির রিমান্ড ও জামিন আবেদন নাকচ করে একদিন জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন।

প্রতারণা ও অর্থ আÍসাতের অভিযোগে গত ১৬ সেপ্টেম্বর গ্রাহক আরিফ বাকের ইভ্যালির মো. রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে রাজধানীর গুলশান থানায় মামলা করেন। ওইদিন বিকালেই রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বাসায় অভিযান চালিয়ে রাসেল দম্পতিকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

১৭ সেপ্টেম্বর এ মামলায় প্রথম দফায় রাসেল দম্পতির তিন দিন করে রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত। এরপর গত ১৯ সেপ্টেম্বর ইভ্যালির রাসেল-শামীমাসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন কামরুল ইসলাম।

তিনি ইভ্যালির পণ্য সরবরাহকারী ছিলেন। দ্বিতীয় দফায় গত ২১ সেপ্টেম্বর ধানমন্ডি থানার মামলায় রাসেলের একদিনের রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত। একইদিন প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ও রাসেলের স্ত্রী শামীমা নাসরিনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

রাসেল-শামীমার মুক্তি চেয়ে মানববন্ধন : এদিকে রাসেল ও শামীমার মুক্তির দাবিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালত চত্বরে মানববন্ধন করেন কিছু গ্রাহক।

তারা বলছেন, ইভ্যালির রাসলে ও শামীমাকে মুক্তি দিয়ে ব্যবসা করার সুযোগ দেওয়া হোক। তারা ব্যবসা করতে পারলেই গ্রাহকরা টাকা ফেরত পাবেন।

ইভ্যালির রাসেল কারাগারে

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ই-কমার্স প্ল্যাটফরম ইভ্যালির প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. রাসেলকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার শুনানি শেষে ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট হাসিবুল হক এ আদেশ দেন। ধানমন্ডি থানার প্রতারণা মামলায় একদিনের রিমান্ড শেষে রাসেলকে এদিন আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করা হয়।

একই সঙ্গে ধানমন্ডি থানায় করা প্রতারণার আরেক মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়। অপরদিকে আসামিপক্ষে রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করা হয়। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত আসামির রিমান্ড ও জামিন আবেদন নাকচ করে একদিন জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন।

প্রতারণা ও অর্থ আÍসাতের অভিযোগে গত ১৬ সেপ্টেম্বর গ্রাহক আরিফ বাকের ইভ্যালির মো. রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে রাজধানীর গুলশান থানায় মামলা করেন। ওইদিন বিকালেই রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বাসায় অভিযান চালিয়ে রাসেল দম্পতিকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

১৭ সেপ্টেম্বর এ মামলায় প্রথম দফায় রাসেল দম্পতির তিন দিন করে রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত। এরপর গত ১৯ সেপ্টেম্বর ইভ্যালির রাসেল-শামীমাসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন কামরুল ইসলাম।

তিনি ইভ্যালির পণ্য সরবরাহকারী ছিলেন। দ্বিতীয় দফায় গত ২১ সেপ্টেম্বর ধানমন্ডি থানার মামলায় রাসেলের একদিনের রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত। একইদিন প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ও রাসেলের স্ত্রী শামীমা নাসরিনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

রাসেল-শামীমার মুক্তি চেয়ে মানববন্ধন : এদিকে রাসেল ও শামীমার মুক্তির দাবিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালত চত্বরে মানববন্ধন করেন কিছু গ্রাহক।

তারা বলছেন, ইভ্যালির রাসলে ও শামীমাকে মুক্তি দিয়ে ব্যবসা করার সুযোগ দেওয়া হোক। তারা ব্যবসা করতে পারলেই গ্রাহকরা টাকা ফেরত পাবেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন