প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে দেওয়া হবে ৮০ লাখ টিকা
jugantor
প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে দেওয়া হবে ৮০ লাখ টিকা

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে দেওয়া হবে ৮০ লাখ টিকা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে প্রায় ৮০ লাখ মানুষকে করোনার টিকা দেওয়া হবে। কাল বিশেষ ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে সারা দেশের সব ইউনিয়ন, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভা এলাকায় দেওয়া হবে এই টিকা। যারা ইতোমধ্যে টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন তাদের প্রাধান্য দেওয়া হবে। রোববার দুপুরে অনলাইনে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে এই বিশেষ টিকা কার্যক্রম নেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আপাতত একদিনের জন্য চলবে এ ক্যাম্পেইন। তবে এর পাশাপাশি নিয়মিত টিকাদানও চলবে। বর্তমানে দৈনিক ৬ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়া হচ্ছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনটি স্মরণীয় রাখতে ২৮ সেপ্টেম্বর সকাল নয়টা থেকে বিশেষ টিকা কার্যক্রম শুরু হবে। যারা গ্রামে থাকে, দরিদ্র জনগোষ্ঠী, বয়স্ক তারা এই কার্যক্রমে টিকা নিতে পারবে। যারা নিবন্ধন করে এসএমএস পাননি, তারা এই কার্যক্রমে অগ্রাধিকার পাবেন। এই কার্যক্রমে শুধু প্রথম ডোজের টিকা দেওয়া হবে। কার্যক্রমে অধিকাংশ টিকা দেওয়া হবে সিনোফার্মের।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত সাড়ে ৫ কোটি ডোজ টিকা হাতে পাওয়া গেছে। এর মধ্যে দেওয়া হয়েছে ৪ কোটি ডোজ। হাতে রয়েছে দেড় কোটি ডোজ টিকা। গর্ভবতী নারী ও দুগ্ধ দানকারী মায়েরা এই কার্যক্রমে টিকা পাবেন না। ইউনিয়ন, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভা এলাকায় ৬ হাজারের বেশি কেন্দ্রে টিকা দেওয়া হবে। টিকা নিবন্ধন কার্ড বা জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে এলে টিকা নেওয়া যাবে।

এক প্রশ্নের জবাবে জাহিদ মালেক বলেন, টিকা পেতে যে কেন্দ্রে নিবন্ধন করেছেন, সে কেন্দ্রেই টিকা নিতে হবে। ২৮ সেপ্টেম্বরের আগেই টিকার জন্য মোবাইলে এসএমএস চলে যাবে। এর আগে গণটিকায় ৪৫ লাখ টিকা দেওয়া হয়েছিল, এবার আরও বড় পরিসরে টিকা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আপনারা জানেন, প্রথমদিকে নিবন্ধন একবারে অনেক হয়ে গিয়েছিল। যে কারণে আমাদের একটি জট তৈরি হয়েছিল। কোনো কোনোদিন ২০ থেকে ২৫ লাখ লোকের নিবন্ধন হয়েছিল। এখন আমাদের হাতে পর্যাপ্ত টিকা আছে, এখন আর জট থাকবে না।

মন্ত্রী বলেন, দেশে টিকা উৎপাদনের বিষয়টি চলমান আছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ইনসেপ্টা ফার্মা এ নিয়ে চীনের সঙ্গে কাজ করছে। আমি যতটুকু জানি, তাদের কাজকর্ম চলমান। তারা যেভাবে প্রতিশ্র“তি দিয়েছে, আশা করি তারা সেভাবেই বাস্তবায়ন করবে। আমাদের টিকার কোনো ঘাটতি হবে না। ডিসেম্বরের মধ্যে নিজেদের কেনা এবং কোভ্যাক্স সহায়তা মিলে ২৪ কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার নিশ্চয়তা রয়েছে। এর মধ্যে চীন থেকে সাত কোটি ডোজ ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে ১০ কোটি ৫০ লাখ ডোজ টিকা কেনার চুক্তি হয়েছে। এছাড়া কোভ্যাক্সের আওতায় আরও ৬ কোটি ৮০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়া যাবে।

এদিকে রোববার পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. খুরশীদ আলম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার থেকে আবারও শুরু হচ্ছে এলাকাভিত্তিক গণটিকা কার্যক্রম। টিকা ক্যাম্পেইনে একদিনেই ৮০ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হবে। টিকার মজুত প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য মহাপরিচালক বলেন, আমাদের হাতে পর্যাপ্ত পরিমাণ টিকা মজুদ আছে এবং আমরা সামনের দিনগুলোতে প্রয়োজনীয় টিকা পাওয়ার উৎস নিশ্চিত করেছি। স্পট রেজিস্ট্রেশনে ষাটোর্ধ্বদের টিকা প্রয়োগের কথা জানিয়ে ডা. খুরশীদ আলম বলেন, সপ্তাহের নির্দিষ্ট একদিন নিবন্ধিত বা অনিবন্ধিত ৬০ বছরের বেশি বয়সিদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে দেওয়া হবে ৮০ লাখ টিকা

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে দেওয়া হবে ৮০ লাখ টিকা
ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে প্রায় ৮০ লাখ মানুষকে করোনার টিকা দেওয়া হবে। কাল বিশেষ ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে সারা দেশের সব ইউনিয়ন, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভা এলাকায় দেওয়া হবে এই টিকা। যারা ইতোমধ্যে টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন তাদের প্রাধান্য দেওয়া হবে। রোববার দুপুরে অনলাইনে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে এই বিশেষ টিকা কার্যক্রম নেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আপাতত একদিনের জন্য চলবে এ ক্যাম্পেইন। তবে এর পাশাপাশি নিয়মিত টিকাদানও চলবে। বর্তমানে দৈনিক ৬ লাখ মানুষকে টিকা দেওয়া হচ্ছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনটি স্মরণীয় রাখতে ২৮ সেপ্টেম্বর সকাল নয়টা থেকে বিশেষ টিকা কার্যক্রম শুরু হবে। যারা গ্রামে থাকে, দরিদ্র জনগোষ্ঠী, বয়স্ক তারা এই কার্যক্রমে টিকা নিতে পারবে। যারা নিবন্ধন করে এসএমএস পাননি, তারা এই কার্যক্রমে অগ্রাধিকার পাবেন। এই কার্যক্রমে শুধু প্রথম ডোজের টিকা দেওয়া হবে। কার্যক্রমে অধিকাংশ টিকা দেওয়া হবে সিনোফার্মের।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত সাড়ে ৫ কোটি ডোজ টিকা হাতে পাওয়া গেছে। এর মধ্যে দেওয়া হয়েছে ৪ কোটি ডোজ। হাতে রয়েছে দেড় কোটি ডোজ টিকা। গর্ভবতী নারী ও দুগ্ধ দানকারী মায়েরা এই কার্যক্রমে টিকা পাবেন না। ইউনিয়ন, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভা এলাকায় ৬ হাজারের বেশি কেন্দ্রে টিকা দেওয়া হবে। টিকা নিবন্ধন কার্ড বা জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে এলে টিকা নেওয়া যাবে।

এক প্রশ্নের জবাবে জাহিদ মালেক বলেন, টিকা পেতে যে কেন্দ্রে নিবন্ধন করেছেন, সে কেন্দ্রেই টিকা নিতে হবে। ২৮ সেপ্টেম্বরের আগেই টিকার জন্য মোবাইলে এসএমএস চলে যাবে। এর আগে গণটিকায় ৪৫ লাখ টিকা দেওয়া হয়েছিল, এবার আরও বড় পরিসরে টিকা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আপনারা জানেন, প্রথমদিকে নিবন্ধন একবারে অনেক হয়ে গিয়েছিল। যে কারণে আমাদের একটি জট তৈরি হয়েছিল। কোনো কোনোদিন ২০ থেকে ২৫ লাখ লোকের নিবন্ধন হয়েছিল। এখন আমাদের হাতে পর্যাপ্ত টিকা আছে, এখন আর জট থাকবে না।

মন্ত্রী বলেন, দেশে টিকা উৎপাদনের বিষয়টি চলমান আছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ইনসেপ্টা ফার্মা এ নিয়ে চীনের সঙ্গে কাজ করছে। আমি যতটুকু জানি, তাদের কাজকর্ম চলমান। তারা যেভাবে প্রতিশ্র“তি দিয়েছে, আশা করি তারা সেভাবেই বাস্তবায়ন করবে। আমাদের টিকার কোনো ঘাটতি হবে না। ডিসেম্বরের মধ্যে নিজেদের কেনা এবং কোভ্যাক্স সহায়তা মিলে ২৪ কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার নিশ্চয়তা রয়েছে। এর মধ্যে চীন থেকে সাত কোটি ডোজ ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে ১০ কোটি ৫০ লাখ ডোজ টিকা কেনার চুক্তি হয়েছে। এছাড়া কোভ্যাক্সের আওতায় আরও ৬ কোটি ৮০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়া যাবে।

এদিকে রোববার পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. খুরশীদ আলম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার থেকে আবারও শুরু হচ্ছে এলাকাভিত্তিক গণটিকা কার্যক্রম। টিকা ক্যাম্পেইনে একদিনেই ৮০ লাখ ডোজ টিকা দেওয়া হবে। টিকার মজুত প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য মহাপরিচালক বলেন, আমাদের হাতে পর্যাপ্ত পরিমাণ টিকা মজুদ আছে এবং আমরা সামনের দিনগুলোতে প্রয়োজনীয় টিকা পাওয়ার উৎস নিশ্চিত করেছি। স্পট রেজিস্ট্রেশনে ষাটোর্ধ্বদের টিকা প্রয়োগের কথা জানিয়ে ডা. খুরশীদ আলম বলেন, সপ্তাহের নির্দিষ্ট একদিন নিবন্ধিত বা অনিবন্ধিত ৬০ বছরের বেশি বয়সিদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন