মীরসরাইয়ে একই পরিবারের তিন জনকে হত্যা
jugantor
বড় ছেলে আটক
মীরসরাইয়ে একই পরিবারের তিন জনকে হত্যা

  মীরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি  

১৫ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে একই পরিবারের তিনজনকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার জোরারগঞ্জ ইউনিয়নের নতুনবাজার এলাকার এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন নতুনবাজারের ব্যবসায়ী মোস্তফা সওদাগর (৫৮), স্ত্রী জোসনা আক্তার (৫০) ও তাদের ছেলে আহমদ হোসেন (২৬)।

জমি নিয়ে পারিবারিক কলহের জেরে এই হত্যাকণ্ড ঘটে থাকতে পারে-এমনটাই ধারণা করছে পুলিশ। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহত মোস্তফার বড় ছেলে সাদেককে আটক করেছে পুলিশ।

মোস্তফার ছোট ছেলে আলতাফ হোসেন (২৪) জানান, তিনি স্থানীয় বারইয়াহাটে একটি মাছের আড়তে চাকরি করেন। রাত ৩টার দিকে প্রথমে এক মহিলা তাকে ফোনে জানান, ঘরে ডাকাত ঢুকে তোমার বাবা, মা আর মেজো ভাইকে কারা যেন কুপিয়েছে।

তাড়াতাড়ি এসে হাসপাতালে নিয়ে যাও। এ খবর শুনে তিনি কর্মস্থল থেকে রওয়ানা দিয়ে ৪টা নাগাদ বাড়ি পৌঁছে দেখেন বাবা-মা-ভাই ঘরের মেঝেতে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। আর বড় ভাই সাদেক ও তার স্ত্রী অক্ষত। ঘরের আসবাবপত্র কেউ নেয়নি। দরজা-জানালা ঠিক আছে। তিনি আরও জানান, জমি লিখে দেওয়া নিয়ে বড় ভাই ও মেজো ভাইয়ের মধ্যে ঝগড়া হয়েছিল।

খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার ভোরে পুলিশ এসে নিহত মোস্তফার বড় ছেলে সাদেককে আটক করে। আর তার স্ত্রী আইনুর নাহারকে বাড়িতে নজরদারিতে রেখেছে।

এই রিপোর্ট লেখার সময় চট্টগ্রাম থেকে আসা সিআইডি টিম ও পিবিআই-এর কর্মকর্তার সুরতহাল রিপোর্ট করছিলেন। চট্টগ্রাম থেকে আসা পিবিআই-এর পরিদর্শক মনির হোসেন জানান, নিহতের ছোট ছেলের বক্তব্য থেকে আমরা অনেক কিছু বুঝতে পারছি। বাকিটুকু সাক্ষ্যপ্রমাণের ওপর নির্ভর করছে।

জোরারগঞ্জ থানার ওসি নুর হোসেন মামুন বলেন, পরিবারের সদস্যরা সত্যি কথা বললেই বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে যাবে। এ ঘটনায় মামলা দয়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

একই থানার ওসি (তদন্ত) হেলাল উদ্দিন ফারুকী বলেন, সম্পত্তি নিয়ে এই পরিবারে কলহ ছিল বলে জানতে পেরেছি। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, এর জেরেই ঘটনা ঘটেছে।

বাড়ির গেট, দরজা, জানালা অক্ষত। ভেতরের কিছুই খোয়া যায়নি। এমনকি ব্যবসার টাকাও কেউ নিয়ে যায়নি। খুনের আগে ভেতর থেকেই সব বন্ধ ছিল। তদন্ত শেষে সবকিছুই স্পষ্ট হয়ে যাবে।

বড় ছেলে আটক

মীরসরাইয়ে একই পরিবারের তিন জনকে হত্যা

 মীরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 
১৫ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে একই পরিবারের তিনজনকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার জোরারগঞ্জ ইউনিয়নের নতুনবাজার এলাকার এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন নতুনবাজারের ব্যবসায়ী মোস্তফা সওদাগর (৫৮), স্ত্রী জোসনা আক্তার (৫০) ও তাদের ছেলে আহমদ হোসেন (২৬)।

জমি নিয়ে পারিবারিক কলহের জেরে এই হত্যাকণ্ড ঘটে থাকতে পারে-এমনটাই ধারণা করছে পুলিশ। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহত মোস্তফার বড় ছেলে সাদেককে আটক করেছে পুলিশ।

মোস্তফার ছোট ছেলে আলতাফ হোসেন (২৪) জানান, তিনি স্থানীয় বারইয়াহাটে একটি মাছের আড়তে চাকরি করেন। রাত ৩টার দিকে প্রথমে এক মহিলা তাকে ফোনে জানান, ঘরে ডাকাত ঢুকে তোমার বাবা, মা আর মেজো ভাইকে কারা যেন কুপিয়েছে।

তাড়াতাড়ি এসে হাসপাতালে নিয়ে যাও। এ খবর শুনে তিনি কর্মস্থল থেকে রওয়ানা দিয়ে ৪টা নাগাদ বাড়ি পৌঁছে দেখেন বাবা-মা-ভাই ঘরের মেঝেতে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। আর বড় ভাই সাদেক ও তার স্ত্রী অক্ষত। ঘরের আসবাবপত্র কেউ নেয়নি। দরজা-জানালা ঠিক আছে। তিনি আরও জানান, জমি লিখে দেওয়া নিয়ে বড় ভাই ও মেজো ভাইয়ের মধ্যে ঝগড়া হয়েছিল।

খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার ভোরে পুলিশ এসে নিহত মোস্তফার বড় ছেলে সাদেককে আটক করে। আর তার স্ত্রী আইনুর নাহারকে বাড়িতে নজরদারিতে রেখেছে।

এই রিপোর্ট লেখার সময় চট্টগ্রাম থেকে আসা সিআইডি টিম ও পিবিআই-এর কর্মকর্তার সুরতহাল রিপোর্ট করছিলেন। চট্টগ্রাম থেকে আসা পিবিআই-এর পরিদর্শক মনির হোসেন জানান, নিহতের ছোট ছেলের বক্তব্য থেকে আমরা অনেক কিছু বুঝতে পারছি। বাকিটুকু সাক্ষ্যপ্রমাণের ওপর নির্ভর করছে।

জোরারগঞ্জ থানার ওসি নুর হোসেন মামুন বলেন, পরিবারের সদস্যরা সত্যি কথা বললেই বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে যাবে। এ ঘটনায় মামলা দয়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

একই থানার ওসি (তদন্ত) হেলাল উদ্দিন ফারুকী বলেন, সম্পত্তি নিয়ে এই পরিবারে কলহ ছিল বলে জানতে পেরেছি। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, এর জেরেই ঘটনা ঘটেছে।

বাড়ির গেট, দরজা, জানালা অক্ষত। ভেতরের কিছুই খোয়া যায়নি। এমনকি ব্যবসার টাকাও কেউ নিয়ে যায়নি। খুনের আগে ভেতর থেকেই সব বন্ধ ছিল। তদন্ত শেষে সবকিছুই স্পষ্ট হয়ে যাবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন