আরও বেশি সতর্ক থাকা উচিত ছিল
jugantor
মণ্ডপে হামলা নিয়ে সেতুমন্ত্রী
আরও বেশি সতর্ক থাকা উচিত ছিল

  ঢাবি প্রতিনিধি  

১৮ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কাদের

সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, শেখ হাসিনা সরকারের আমলে গত বারো বছরে ১২টি দুর্গাপূজা হয়েছে। দেশের কোনো মণ্ডপে কোনো ধরনের অর্থাৎ ছোটখাটো সহিংস ঘটনাও ঘটেনি দাবি করে তিনি বলেন, ৩০-৩৫ হাজার মণ্ডপে এসব পূজা হয়েছে। তবে সম্প্র্রতি যা ঘটেছে তা নিয়ে আমাদের আরও বেশি সতর্ক থাকা উচিত ছিল। এখন আমরা সতর্ক। এখন থেকে কোথাও এ অপশক্তিকে মাথা তুলতে দেওয়া হবে না। আমরা প্রস্তুত, আমাদের তরুণ সমাজও প্রস্তুত। বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে রোববার দুপুরে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ উপকমিটি এ সভার আয়োজন করে। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। সংগঠনের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দীর সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ। অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির সিনিয়র সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোজাফফর হোসেন, ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়, সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনসহ বিভিন্ন হল শাখা ছাত্রলীগের শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। সভায় ‘স্বপ্ন ও সম্ভাবনার স্ফুলিঙ্গ-শেখ রাসেল’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ড. মো. আবদুল হালিম। সভা শেষে শিক্ষার্থীদের মাঝে মেধাবৃত্তি, দরিদ্র তহবিলে বিশেষ অনুদান এবং শিক্ষা উপকরণ প্রদান করা হয়।

সেতুমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে এই মুহূর্তে ভোট হলে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন। সাম্প্রদায়িক শক্তি বুঝে ফেলেছে শেখ হাসিনাকে ভোটে হারানো যাবে না। তারা বুঝেছে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আন্দোলনে জনগণ সাড়া দেবে না। কারণ দেশের মানুষ শেখ হাসিনার ওপর খুশি। অনুষ্ঠানে জামায়াত-বিএনপির প্রসঙ্গ টেনে ওবায়দুল কাদের বলেন, অনেকে বলেন, জামায়াত-বিএনপি বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। এসব আসলে গুজব। জামায়াত আর বিএনপির ভেতরে ভেতরে মধুর পিরিত রয়েছে। তাদের মাঝে যে বন্ধন তা কোনোদিনও ছিন্ন হওয়ার নয়। জামায়াত ছাড়া বিএনপি অচল। এটা প্রমাণ হয়ে গেছে। কাজেই জামায়াতকে নিয়েই তারা অগ্রসর হবে। আর জামায়াতেরও বিএনপি ছাড়া কোনো নির্ভরযোগ্য ছাতা নেই।

ওবায়দুল কাদের বলেন, চোর অপবাদ দিয়ে বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতুর ফান্ডিং বন্ধ করে দিয়েছে। বিশ্বব্যাংকের চোখে আঙুল দিয়ে বাংলাদেশের টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণ করে শেখ হাসিনা দেখিয়ে দিয়েছেন আমরা চোর নয়, বীরের জাতি। তার প্রজ্ঞা, মেধা ও সাহসিকতাকে সারাবিশ্ব শেখ হাসিনাকে সম্মান করে।

১৯৭৫ সালের পরে শেখ হাসিনার চেয়ে মাইনরটিবান্ধব আর কোনো সরকার এ দেশে আসেনি বলেও দাবি করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আগামী বছর চারটি মেগা প্রকল্পের উদ্বোধন হবে। এটাই বিএনপি ও সাম্প্রদায়িক শক্তির গাত্রদাহের কারণ। এ দেশের সব সংখ্যালঘুকে শেখ হাসিনা নিরাপত্তা দিয়েছেন। অপকর্ম করে কেউ রেহাই পায়নি। যারা অপকর্ম করে তারা কোনো দলের নয়, এরা দুর্বৃত্ত। এই দুর্বৃত্তদের ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ করা হবে।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বলেন, আজকে যারা বারবার দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে চাচ্ছে এসব চক্রান্তকারীর বিষয়ে সচেতন হতে হবে, তাদের মোকাবিলা করতে হবে। আমাদের আরও ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আমাদের সবাইকে এক হয়ে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ, এই সম্প্রীতিকে যারা নষ্ট করতে চায় তাদের আমরা আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করব। আমাদের চেতনাকে শানিত করতে হবে।

মণ্ডপে হামলা নিয়ে সেতুমন্ত্রী

আরও বেশি সতর্ক থাকা উচিত ছিল

 ঢাবি প্রতিনিধি 
১৮ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
কাদের
সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, শেখ হাসিনা সরকারের আমলে গত বারো বছরে ১২টি দুর্গাপূজা হয়েছে। দেশের কোনো মণ্ডপে কোনো ধরনের অর্থাৎ ছোটখাটো সহিংস ঘটনাও ঘটেনি দাবি করে তিনি বলেন, ৩০-৩৫ হাজার মণ্ডপে এসব পূজা হয়েছে। তবে সম্প্র্রতি যা ঘটেছে তা নিয়ে আমাদের আরও বেশি সতর্ক থাকা উচিত ছিল। এখন আমরা সতর্ক। এখন থেকে কোথাও এ অপশক্তিকে মাথা তুলতে দেওয়া হবে না। আমরা প্রস্তুত, আমাদের তরুণ সমাজও প্রস্তুত। বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে রোববার দুপুরে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ উপকমিটি এ সভার আয়োজন করে। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। সংগঠনের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দীর সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ। অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির সিনিয়র সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোজাফফর হোসেন, ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়, সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনসহ বিভিন্ন হল শাখা ছাত্রলীগের শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। সভায় ‘স্বপ্ন ও সম্ভাবনার স্ফুলিঙ্গ-শেখ রাসেল’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ড. মো. আবদুল হালিম। সভা শেষে শিক্ষার্থীদের মাঝে মেধাবৃত্তি, দরিদ্র তহবিলে বিশেষ অনুদান এবং শিক্ষা উপকরণ প্রদান করা হয়।

সেতুমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে এই মুহূর্তে ভোট হলে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন। সাম্প্রদায়িক শক্তি বুঝে ফেলেছে শেখ হাসিনাকে ভোটে হারানো যাবে না। তারা বুঝেছে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আন্দোলনে জনগণ সাড়া দেবে না। কারণ দেশের মানুষ শেখ হাসিনার ওপর খুশি। অনুষ্ঠানে জামায়াত-বিএনপির প্রসঙ্গ টেনে ওবায়দুল কাদের বলেন, অনেকে বলেন, জামায়াত-বিএনপি বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। এসব আসলে গুজব। জামায়াত আর বিএনপির ভেতরে ভেতরে মধুর পিরিত রয়েছে। তাদের মাঝে যে বন্ধন তা কোনোদিনও ছিন্ন হওয়ার নয়। জামায়াত ছাড়া বিএনপি অচল। এটা প্রমাণ হয়ে গেছে। কাজেই জামায়াতকে নিয়েই তারা অগ্রসর হবে। আর জামায়াতেরও বিএনপি ছাড়া কোনো নির্ভরযোগ্য ছাতা নেই।

ওবায়দুল কাদের বলেন, চোর অপবাদ দিয়ে বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতুর ফান্ডিং বন্ধ করে দিয়েছে। বিশ্বব্যাংকের চোখে আঙুল দিয়ে বাংলাদেশের টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণ করে শেখ হাসিনা দেখিয়ে দিয়েছেন আমরা চোর নয়, বীরের জাতি। তার প্রজ্ঞা, মেধা ও সাহসিকতাকে সারাবিশ্ব শেখ হাসিনাকে সম্মান করে।

১৯৭৫ সালের পরে শেখ হাসিনার চেয়ে মাইনরটিবান্ধব আর কোনো সরকার এ দেশে আসেনি বলেও দাবি করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আগামী বছর চারটি মেগা প্রকল্পের উদ্বোধন হবে। এটাই বিএনপি ও সাম্প্রদায়িক শক্তির গাত্রদাহের কারণ। এ দেশের সব সংখ্যালঘুকে শেখ হাসিনা নিরাপত্তা দিয়েছেন। অপকর্ম করে কেউ রেহাই পায়নি। যারা অপকর্ম করে তারা কোনো দলের নয়, এরা দুর্বৃত্ত। এই দুর্বৃত্তদের ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ করা হবে।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বলেন, আজকে যারা বারবার দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে চাচ্ছে এসব চক্রান্তকারীর বিষয়ে সচেতন হতে হবে, তাদের মোকাবিলা করতে হবে। আমাদের আরও ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আমাদের সবাইকে এক হয়ে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ, এই সম্প্রীতিকে যারা নষ্ট করতে চায় তাদের আমরা আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করব। আমাদের চেতনাকে শানিত করতে হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন