টি ২০-র দুঃখ ভুলতে চায় বাংলাদেশ
jugantor
টি ২০-র দুঃখ ভুলতে চায় বাংলাদেশ
বাংলাদেশ পাকিস্তান প্রথম টেস্ট আজ শুরু চট্টগ্রামে

  ক্রীড়া প্রতিবেদক  

২৬ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সাদা বলের ক্রিকেটে হতাশা ছায়া হয়ে পাশে আছে টি ২০ বিশ্বকাপ থেকে। পাকিস্তান সিরিজেও দুঃখ পিছু ছাড়েনি। এবার লাল বলের ক্রিকেটে কি ঘুচবে হাহাকার, হতাশা? চট্টগ্রামে আজ শুরু প্রথম টেস্টে কি দেখা দেবে আশার সূর্য?

কায়মনোবাক্যে এই প্রার্থনাই করবেন টাইগারপ্রেমীরা। কিন্তু আশার আকাশেই যে উড়ছে শঙ্কার মেঘ। ঢাকায় তিন ম্যাচের টি ২০ সিরিজ জিতে নির্ভার পাকিস্তান। আর টি ২০-র দুঃখ ভুলতে বাংলাদেশ প্রথম টেস্ট খেলতে নামছে সাকিব, তামিম ও মাহমুদউল্লাহকে ছাড়া।

প্রথম দুজন ইনজুরি থেকে সেরে উঠতে পারেননি। শেষের জন আগের দিন আনুষ্ঠানিকভাবে টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন। এজন্য ১৬ জনের টেস্ট দল ঘোষণা করা হয় এই তিনজনকে ছাড়া।

টি ২০-র দুঃখ টেস্টেও যাতে সংক্রমিত না হয়, সেজন্য অধিনায়ক মুমিনুল হক মাঠে নামার আগে সতীর্থদের প্রতি আর্জি জানিয়েছেন ‘পরস্পরের পাশে দাঁড়ানোর’। আর মানুষের মন্দ কথা কানে না তোলারও পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

তার হিতোপদেশ সহযোদ্ধারা যদি মেনে চলেন, তাতে কী উপকার পাওয়া যাবে, জানা যাবে পরে। কিন্তু খেলাটা যে খেলতে হবে মাঠে। টি ২০ বিশ্বকাপ থেকে হারের মিছিলের সঙ্গে সমালোচনার স্লোগানে সাজঘরের পরিবেশ যে গুমোট হয়ে উঠেছে, সেটি অন্দরমহলে প্রবেশ না করেও অনুমান করে নিতে কষ্ট হয় না। গত দুই মাসে এ নিয়ে বাহাস কম হয়নি।

তাই প্রাক-টেস্ট সিরিজের কথোপকথনে মুমিনুল তার সতীর্থদের যথার্থই বলেছেন, ‘এতদিন যেসব কথা বাতাসে ভেসেছে, সেসব নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে মাঠে তা-ই করো, যা করা উচিত।

ফোকাসটা ফিরিয়ে আনো ক্রিকেটে।’ বাংলাদেশ অধিনায়কের সরল স্বীকারোক্তি, ‘এমন নয় যে, এই পর্ব প্রথম দেখা যাচ্ছে আমাদের ক্রিকেটে। এর আগেও এমন অভিজ্ঞতা আমাদের হয়েছে। আমরা সেই অধ্যায় পেরিয়েও এসেছি। মূল কথা হলো, ফোকাসটা ঠিক রাখা চাই।’

ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের ভরসার দুটি নাম অধিনায়ক মুমিনুল হক এবং অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহিম। তামিম, সাকিব ও মাহমুদউল্লাহর অনুপস্থিতিতে বাইশ গজে দুই ‘ম’-কে মূল দায়িত্ব নিতে হবে। টপঅর্ডারে সাদমান ইসলাম ও নাজমুল হোসেন শান্তর ওপর দায়িত্ব থাকবে পাকিস্তানের নতুন বলের আক্রমণ সামলানোর।

এই ম্যাচে টেস্ট ডেব্যু হতে পারে ইয়াসির আলী ও মাহমুদুল হাসানের। বাংলাদেশ একাদশ সাজাতে পারে সাতজন ব্যাটার নিয়ে। বোলিং আক্রমণে স্পিনই যথারীতি প্রাধান্য পাবে। তাইজুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান মিরাজ হবেন প্রধান স্পিন-অস্ত্র।

সাকিবের অভাব মেটানোর দায়িত্ব বর্তাবে এ দুজনের ওপর। টেস্ট দলে সুযোগ পাওয়া দুই তরুণের অন্যতম রেজাউর রহমান রাজারও টেস্ট অভিষেক হতে পারে আজ। সেক্ষেত্রে নতুন বলে আবু জায়েদের সঙ্গে দেখা যেতে পারে রেজাউরের জুটি।

এদিকে প্রথম টেস্ট শুরুর আগের দিন বাংলাদেশ দলে হঠাৎ ডাক পেলেন দুই পেসার খালেদ আহমেদ ও শহীদুল ইসলাম। তাসকিন আহমেদ ও শরীফুল ইসলামের ইনজুরির দরুন এই দুজনকে টেস্ট দলে নেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম টেস্টে শেষবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ চতুর্থ ইনিংসে ৩৯৫ রান তাড়া করে জিতেছিল। সেকথা মাথায় রেখে ধারণা করা যায়, জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উইকেট ব্যাটারদের নিরাশ করবে না।

তবে পেসারদের তুলানায় স্পিনাররা এই উইকেট থেকে সহায়তা পাবেন বেশি। বাংলাদেশ ও পাকিস্তান এ পর্যন্ত ১১টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে। বাংলাদেশের কোনো জয় নেই। দশটি ম্যাচ জিতেছে পাকিস্তান। বাকি একটি টেস্ট ড্র হয়।

টি ২০-র দুঃখ ভুলতে চায় বাংলাদেশ

বাংলাদেশ পাকিস্তান প্রথম টেস্ট আজ শুরু চট্টগ্রামে
 ক্রীড়া প্রতিবেদক 
২৬ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সাদা বলের ক্রিকেটে হতাশা ছায়া হয়ে পাশে আছে টি ২০ বিশ্বকাপ থেকে। পাকিস্তান সিরিজেও দুঃখ পিছু ছাড়েনি। এবার লাল বলের ক্রিকেটে কি ঘুচবে হাহাকার, হতাশা? চট্টগ্রামে আজ শুরু প্রথম টেস্টে কি দেখা দেবে আশার সূর্য?

কায়মনোবাক্যে এই প্রার্থনাই করবেন টাইগারপ্রেমীরা। কিন্তু আশার আকাশেই যে উড়ছে শঙ্কার মেঘ। ঢাকায় তিন ম্যাচের টি ২০ সিরিজ জিতে নির্ভার পাকিস্তান। আর টি ২০-র দুঃখ ভুলতে বাংলাদেশ প্রথম টেস্ট খেলতে নামছে সাকিব, তামিম ও মাহমুদউল্লাহকে ছাড়া।

প্রথম দুজন ইনজুরি থেকে সেরে উঠতে পারেননি। শেষের জন আগের দিন আনুষ্ঠানিকভাবে টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন। এজন্য ১৬ জনের টেস্ট দল ঘোষণা করা হয় এই তিনজনকে ছাড়া।

টি ২০-র দুঃখ টেস্টেও যাতে সংক্রমিত না হয়, সেজন্য অধিনায়ক মুমিনুল হক মাঠে নামার আগে সতীর্থদের প্রতি আর্জি জানিয়েছেন ‘পরস্পরের পাশে দাঁড়ানোর’। আর মানুষের মন্দ কথা কানে না তোলারও পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

তার হিতোপদেশ সহযোদ্ধারা যদি মেনে চলেন, তাতে কী উপকার পাওয়া যাবে, জানা যাবে পরে। কিন্তু খেলাটা যে খেলতে হবে মাঠে। টি ২০ বিশ্বকাপ থেকে হারের মিছিলের সঙ্গে সমালোচনার স্লোগানে সাজঘরের পরিবেশ যে গুমোট হয়ে উঠেছে, সেটি অন্দরমহলে প্রবেশ না করেও অনুমান করে নিতে কষ্ট হয় না। গত দুই মাসে এ নিয়ে বাহাস কম হয়নি।

তাই প্রাক-টেস্ট সিরিজের কথোপকথনে মুমিনুল তার সতীর্থদের যথার্থই বলেছেন, ‘এতদিন যেসব কথা বাতাসে ভেসেছে, সেসব নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে মাঠে তা-ই করো, যা করা উচিত।

ফোকাসটা ফিরিয়ে আনো ক্রিকেটে।’ বাংলাদেশ অধিনায়কের সরল স্বীকারোক্তি, ‘এমন নয় যে, এই পর্ব প্রথম দেখা যাচ্ছে আমাদের ক্রিকেটে। এর আগেও এমন অভিজ্ঞতা আমাদের হয়েছে। আমরা সেই অধ্যায় পেরিয়েও এসেছি। মূল কথা হলো, ফোকাসটা ঠিক রাখা চাই।’

ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের ভরসার দুটি নাম অধিনায়ক মুমিনুল হক এবং অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহিম। তামিম, সাকিব ও মাহমুদউল্লাহর অনুপস্থিতিতে বাইশ গজে দুই ‘ম’-কে মূল দায়িত্ব নিতে হবে। টপঅর্ডারে সাদমান ইসলাম ও নাজমুল হোসেন শান্তর ওপর দায়িত্ব থাকবে পাকিস্তানের নতুন বলের আক্রমণ সামলানোর।

এই ম্যাচে টেস্ট ডেব্যু হতে পারে ইয়াসির আলী ও মাহমুদুল হাসানের। বাংলাদেশ একাদশ সাজাতে পারে সাতজন ব্যাটার নিয়ে। বোলিং আক্রমণে স্পিনই যথারীতি প্রাধান্য পাবে। তাইজুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান মিরাজ হবেন প্রধান স্পিন-অস্ত্র।

সাকিবের অভাব মেটানোর দায়িত্ব বর্তাবে এ দুজনের ওপর। টেস্ট দলে সুযোগ পাওয়া দুই তরুণের অন্যতম রেজাউর রহমান রাজারও টেস্ট অভিষেক হতে পারে আজ। সেক্ষেত্রে নতুন বলে আবু জায়েদের সঙ্গে দেখা যেতে পারে রেজাউরের জুটি।

এদিকে প্রথম টেস্ট শুরুর আগের দিন বাংলাদেশ দলে হঠাৎ ডাক পেলেন দুই পেসার খালেদ আহমেদ ও শহীদুল ইসলাম। তাসকিন আহমেদ ও শরীফুল ইসলামের ইনজুরির দরুন এই দুজনকে টেস্ট দলে নেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম টেস্টে শেষবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ চতুর্থ ইনিংসে ৩৯৫ রান তাড়া করে জিতেছিল। সেকথা মাথায় রেখে ধারণা করা যায়, জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উইকেট ব্যাটারদের নিরাশ করবে না।

তবে পেসারদের তুলানায় স্পিনাররা এই উইকেট থেকে সহায়তা পাবেন বেশি। বাংলাদেশ ও পাকিস্তান এ পর্যন্ত ১১টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে। বাংলাদেশের কোনো জয় নেই। দশটি ম্যাচ জিতেছে পাকিস্তান। বাকি একটি টেস্ট ড্র হয়।
 

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন