খালেদা জিয়ার অসুস্থতার জন্য বিএনপিই দায়ী: সেতুমন্ত্রী
jugantor
খালেদা জিয়ার অসুস্থতার জন্য বিএনপিই দায়ী: সেতুমন্ত্রী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

৩০ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, খালেদা জিয়ার অসুস্থতার জন্য বিএনপি দায়ী, কারণ দলটির নেতারা তার (খালেদা জিয়া) চিকিৎসা নিয়ে রাজনীতি করেছেন। তারপরও খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়টি সরকার পর্যবেক্ষণ করছে।

সোমবার রাজধানীর নবাবগঞ্জ পার্কে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউনিট সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়াকে নিয়ে মায়াকান্না করছেন বিএনপি নেতারা। সরকার খালেদা জিয়ার মৃত্যু কামনা করে না। তার স্বাস্থ্য নিয়ে ভাবতে হবে, তাকে নিয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়।

তিনি বলেন, সারা দেশে উৎসবমুখর পরিবেশে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হচ্ছে। ভোটারের উপস্থিতি সর্বকালের রেকর্ড ভেঙেছে। আন্দোলনের ডাক দিয়ে বিএনপি নেতারা মাঠে থাকে না। জনগণ এতে সাড়া দেয় না।

দুই সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়িতে চাপ পড়ে দুইজন নিহত হওয়া প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, আজকে ২ সিটির ময়লার গাড়িতে ২টি মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে, একজন ছাত্র, একজন ব্যবসায়ী।

সরকার হিসাবে এর দায় এড়াতে পারি না। যদিও এটা সিটি করপোরেশনের বিষয়। রাস্তাও সিটি করপোরেশনের; গাড়িও সিটি করপোরেশনের, আমার কোনো মালিকানা নেই। তারপরও আমি দায় অস্বীকার করি না।

হাফ ভাড়া নিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীরা হাফ ভাড়া দাবি করেছে, সরকারি গাড়িতে আমরা হাফ ভাড়া মওকুফ করেছি। সিটিতে কনসেশন দেওয়ার কথা, নেত্রী বললেন- না সারা দেশেই দাও এবং নেত্রী নিজে অনুরোধ করেছে বেসরকারি বাস মালিকদের।

বাস মালিকদের আমি বলেছি সবারই সামাজিক দায়বদ্ধতা রয়েছে। ছাত্ররা কনসেশন বহু আগ থেকেই পেত। মাঝখানে কিছু দিন বন্ধ ছিল। বাস মালিকরা আজকেও আলোচনায় বসেছেন, আমরা আশা করব আপনারা ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেবেন সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে।

আমরা ছাত্রদের রাজপথে দেখতে চাই না, তারা ক্যাম্পাসে ফিরে যাক। ফখরুল সাহেবরা সাপোর্ট করার নামে উসকানি দিচ্ছে। এর আগেও উসকানি দিয়েছিল, এখনো দিচ্ছে।

দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, মানুষের সঙ্গে খারাপ আচরণ করবেন না। একটি খারাপ আচরণ ১০টি ভালো উন্নয়ন ঢেকে দিতে পারে। মানুষকে অখুশি করবেন, ক্ষমতার দাপট দেখাবেন; মানুষ হয়তো এখন আপনাদের ভয় করবে।

কিন্তু নির্বাচন যখন হবে ব্যালটের মধ্যে শাস্তি দিয়ে দেবে। নির্বাচনে খারাপ ব্যবহারের শাস্তি পেতে হবে। কাজেই যতই উন্নয়ন হোক, ভালো ব্যবহার করবেন। জনগণকে খুশি রাখবেন।

মাঝেমধ্যে এখানে-ওখানে চাঁদাবাজির অভিযোগ আসে, সন্ত্রাসের অভিযোগ আসে, জমি দখলের অভিযোগ আসে। বাড়ি দখলের অভিযোগ আসে, মাদক ব্যবসার অভিযোগ আসে। এসব অপকর্ম উন্নয়নকে ম্লান করে দিচ্ছে।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি বলেন, ওমিক্রন নামক ভ্যারিয়েন্টের কারণে এইচএসসি পরীক্ষা বন্ধ হবে না, স্বাস্থ্যবিধি মেনে যথাসময়ে পরীক্ষা নেওয়া হবে। এই ভ্যারিয়েন্ট অত্যন্ত বিধ্বংসী।

সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। তিনি বলেন, অপকর্মকারীরা যাতে সংগঠনে প্রবেশ করতে না পারে সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে। সংগঠনের কার্যক্রম নিয়ে কেউ যাতে প্রশ্ন তুলতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, আওয়ামী লীগকে দুর্বল সংগঠন মনে করে সারাদিন গলাবাজি করেন বিএনপি নেতারা। আওয়ামী লীগকে পরিচর্যার মাধ্যমে আরও শক্তিশালী করতে হবে। কোনো বিতর্কিত ব্যক্তি যাতে সংগঠনে ঢুকতে না পারে সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ। ঘরে ঘরে নেতৃত্ব সৃষ্টি করতে হবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনিবাহী সদস্য মোফাজ্জল হোসেন মায়া বীরবিক্রম, অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজি সেলিম, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহম্মদ মন্নাফি, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ইয়ার মোহাম্মদ।

খালেদা জিয়ার অসুস্থতার জন্য বিএনপিই দায়ী: সেতুমন্ত্রী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, খালেদা জিয়ার অসুস্থতার জন্য বিএনপি দায়ী, কারণ দলটির নেতারা তার (খালেদা জিয়া) চিকিৎসা নিয়ে রাজনীতি করেছেন। তারপরও খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়টি সরকার পর্যবেক্ষণ করছে। 

সোমবার রাজধানীর নবাবগঞ্জ পার্কে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউনিট সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়াকে নিয়ে মায়াকান্না করছেন বিএনপি নেতারা। সরকার খালেদা জিয়ার মৃত্যু কামনা করে না। তার স্বাস্থ্য নিয়ে ভাবতে হবে, তাকে নিয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়। 

তিনি বলেন, সারা দেশে উৎসবমুখর পরিবেশে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হচ্ছে। ভোটারের উপস্থিতি সর্বকালের রেকর্ড ভেঙেছে। আন্দোলনের ডাক দিয়ে বিএনপি নেতারা মাঠে থাকে না। জনগণ এতে সাড়া দেয় না।

দুই সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়িতে চাপ পড়ে দুইজন নিহত হওয়া প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, আজকে ২ সিটির ময়লার গাড়িতে ২টি মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে, একজন ছাত্র, একজন ব্যবসায়ী।

সরকার হিসাবে এর দায় এড়াতে পারি না। যদিও এটা সিটি করপোরেশনের বিষয়। রাস্তাও সিটি করপোরেশনের; গাড়িও সিটি করপোরেশনের, আমার কোনো মালিকানা নেই। তারপরও আমি দায় অস্বীকার করি না। 

হাফ ভাড়া নিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীরা হাফ ভাড়া দাবি করেছে, সরকারি গাড়িতে আমরা হাফ ভাড়া মওকুফ করেছি। সিটিতে কনসেশন দেওয়ার কথা, নেত্রী বললেন- না সারা দেশেই দাও এবং নেত্রী নিজে অনুরোধ করেছে বেসরকারি বাস মালিকদের।

বাস মালিকদের আমি বলেছি সবারই সামাজিক দায়বদ্ধতা রয়েছে। ছাত্ররা কনসেশন বহু আগ থেকেই পেত। মাঝখানে কিছু দিন বন্ধ ছিল। বাস মালিকরা আজকেও আলোচনায় বসেছেন, আমরা আশা করব আপনারা ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেবেন সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে।

আমরা ছাত্রদের রাজপথে দেখতে চাই না, তারা ক্যাম্পাসে ফিরে যাক। ফখরুল সাহেবরা সাপোর্ট করার নামে উসকানি দিচ্ছে। এর আগেও উসকানি দিয়েছিল, এখনো দিচ্ছে। 

দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, মানুষের সঙ্গে খারাপ আচরণ করবেন না। একটি খারাপ আচরণ ১০টি ভালো উন্নয়ন ঢেকে দিতে পারে। মানুষকে অখুশি করবেন, ক্ষমতার দাপট দেখাবেন; মানুষ হয়তো এখন আপনাদের ভয় করবে।

কিন্তু নির্বাচন যখন হবে ব্যালটের মধ্যে শাস্তি দিয়ে দেবে। নির্বাচনে খারাপ ব্যবহারের শাস্তি পেতে হবে। কাজেই যতই উন্নয়ন হোক, ভালো ব্যবহার করবেন। জনগণকে খুশি রাখবেন।

মাঝেমধ্যে এখানে-ওখানে চাঁদাবাজির অভিযোগ আসে, সন্ত্রাসের অভিযোগ আসে, জমি দখলের অভিযোগ আসে। বাড়ি দখলের অভিযোগ আসে, মাদক ব্যবসার অভিযোগ আসে। এসব অপকর্ম উন্নয়নকে ম্লান করে দিচ্ছে।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি বলেন, ওমিক্রন নামক ভ্যারিয়েন্টের কারণে এইচএসসি পরীক্ষা বন্ধ হবে না, স্বাস্থ্যবিধি মেনে যথাসময়ে পরীক্ষা নেওয়া হবে। এই ভ্যারিয়েন্ট অত্যন্ত বিধ্বংসী।

সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। তিনি বলেন, অপকর্মকারীরা যাতে সংগঠনে প্রবেশ করতে না পারে সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে। সংগঠনের কার্যক্রম নিয়ে কেউ যাতে প্রশ্ন তুলতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। 

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, আওয়ামী লীগকে দুর্বল সংগঠন মনে করে সারাদিন গলাবাজি করেন বিএনপি নেতারা। আওয়ামী লীগকে পরিচর্যার মাধ্যমে আরও শক্তিশালী করতে হবে। কোনো বিতর্কিত ব্যক্তি যাতে সংগঠনে ঢুকতে না পারে সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ। ঘরে ঘরে নেতৃত্ব সৃষ্টি করতে হবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনিবাহী সদস্য মোফাজ্জল হোসেন মায়া বীরবিক্রম, অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজি সেলিম, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহম্মদ মন্নাফি, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ইয়ার মোহাম্মদ।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন