বিশ্বে করোনা সংক্রমণ ৩৩ কোটি ছাড়াল
jugantor
বিশ্বে করোনা সংক্রমণ ৩৩ কোটি ছাড়াল

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বব্যাপী করোনা শনাক্তের সংখ্যা ৩৩ কোটি ছাড়াল। ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে ভাইরাসটি সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন প্রায় ৫ হাজার মানুষ। এ পর্যন্ত মৃত্যু ৫৫ লাখ অতিক্রম করেছে। এদিকে একদল গবেষক জানিয়েছে, ফাইজার ও মডার্নার টিকার চতুর্থ ডোজ করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের বিরুদ্ধে ‘আংশিক’ কার্যকর। এছাড়া মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি মডার্না বলেছে, ২০২৩ সালে কোভিড-ফ্লু প্রতিরোধী যৌথ বুস্টার ডোজ উৎপাদন করতে পারবে।

করোনায় আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে ২৪ ঘণ্টায় আগের দিনের চেয়ে কিছুটা কমেছে নতুন শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা। এ সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৯ লাখ ২৯ হাজার ১২২ জন, যা আগের দিনের চেয়ে প্রায় ২ হাজার কম। গত এক দিনে সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪ হাজার ৯৩২ জন। আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় এক হাজার। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৫৫ লাখ ৬৫ হাজার ৮১৯ জনে। এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৩ কোটি ১৮ লাখ ৪৬ হাজার ৮৩০ জনে। ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে রয়েছে রাশিয়া। এ সময় যুক্তরাষ্ট্রে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৩৯ হাজার ৫৫৮ জন এবং মারা গেছেন ৪২৪ জন। রাশিয়ায় মারা গেছেন ৬৭০ জন

ফাইজার ও মডার্নার চতুর্থ ডোজ ওমিক্রনে ‘আংশিক’ কার্যকর : ইসরাইলে চতুর্থ ডোজ নিয়ে একটি ট্রায়াল শেষে সোমবার একদল গবেষক জানিয়েছে, ফাইজার ও মডার্নার টিকার চতুর্থ ডোজ করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ ঠেকাতে আংশিক কার্যকর। তেল আবিবের কাছেই সেবা মেডিকেল সেন্টারের একদল গবেষক ওমিক্রন প্রতিরোধে মানবদেহে টিকার চতুর্থ ডোজের কার্যকারিতা নিয়ে গত বছরের ডিসেম্বরে পরীক্ষা শুরু করে। সেখানে হাসপাতালে কাজ করেন, এমন ১৫৪ স্বাস্থ্যকর্মীকে ফাইজার ও ১২০ স্বাস্থ্যকর্মীকে মডার্নার টিকার ডোজ দেওয়া হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি বিবৃতিতে জানিয়েছে, ট্রায়ালের প্রাথমিক ফলাফলে দেখা যায়, টিকা নিরাপদ ও যথেষ্ট মাত্রায় অ্যান্টিবডি তৈরি করছে। কিন্তু ওমিক্রন ধরনের সংক্রমণ ঠেকাতে এটি আংশিক কার্যকর। এ গবেষণায় নেতৃত্ব দিয়েছেন অধ্যাপক গিলি রেগেভ।

কোভিড-ফ্লু প্রতিরোধী যৌথ বুস্টার ডোজ ২০২৩ সালে : মডার্না বলেছে, ২০২৩ সালের শেষের দিকে একটি কোভিড-ফ্লু-আরএসভির যৌথ বুস্টার ডোজ টিকা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে তারা।

এই টিকা বার্ষিক ভিত্তিতে জনগণকে নিতে উৎসাহিত করা হবে। এই একক টিকাটি হবে কোভিড-১৯, ইনফ্লুয়েঞ্জা এবং রেসপিরেটরি সিনসাইটিয়াল ভাইরাস (একটি সাধারণ ভাইরাস, যা সর্দির জন্য দায়ী, তবে শিশু এবং বয়স্ক ব্যক্তিদের জন্য আরও গুরুতর হতে পারে) প্রতিরোধী। এটি ২০২৪ সালের আগেই বাজারে পাওয়া যেতে পারে। মডার্নার প্রধান নির্বাহী স্টিফেন ব্যানসেল ভার্চুয়াল ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের গোলটেবিল অধিবেশনে এসব তথ্য জানান।

বিশ্বে করোনা সংক্রমণ ৩৩ কোটি ছাড়াল

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বব্যাপী করোনা শনাক্তের সংখ্যা ৩৩ কোটি ছাড়াল। ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে ভাইরাসটি সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন প্রায় ৫ হাজার মানুষ। এ পর্যন্ত মৃত্যু ৫৫ লাখ অতিক্রম করেছে। এদিকে একদল গবেষক জানিয়েছে, ফাইজার ও মডার্নার টিকার চতুর্থ ডোজ করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের বিরুদ্ধে ‘আংশিক’ কার্যকর। এছাড়া মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি মডার্না বলেছে, ২০২৩ সালে কোভিড-ফ্লু প্রতিরোধী যৌথ বুস্টার ডোজ উৎপাদন করতে পারবে।

করোনায় আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে ২৪ ঘণ্টায় আগের দিনের চেয়ে কিছুটা কমেছে নতুন শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা। এ সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৯ লাখ ২৯ হাজার ১২২ জন, যা আগের দিনের চেয়ে প্রায় ২ হাজার কম। গত এক দিনে সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪ হাজার ৯৩২ জন। আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় এক হাজার। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৫৫ লাখ ৬৫ হাজার ৮১৯ জনে। এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৩ কোটি ১৮ লাখ ৪৬ হাজার ৮৩০ জনে। ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে রয়েছে রাশিয়া। এ সময় যুক্তরাষ্ট্রে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৩৯ হাজার ৫৫৮ জন এবং মারা গেছেন ৪২৪ জন। রাশিয়ায় মারা গেছেন ৬৭০ জন

ফাইজার ও মডার্নার চতুর্থ ডোজ ওমিক্রনে ‘আংশিক’ কার্যকর : ইসরাইলে চতুর্থ ডোজ নিয়ে একটি ট্রায়াল শেষে সোমবার একদল গবেষক জানিয়েছে, ফাইজার ও মডার্নার টিকার চতুর্থ ডোজ করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ ঠেকাতে আংশিক কার্যকর। তেল আবিবের কাছেই সেবা মেডিকেল সেন্টারের একদল গবেষক ওমিক্রন প্রতিরোধে মানবদেহে টিকার চতুর্থ ডোজের কার্যকারিতা নিয়ে গত বছরের ডিসেম্বরে পরীক্ষা শুরু করে। সেখানে হাসপাতালে কাজ করেন, এমন ১৫৪ স্বাস্থ্যকর্মীকে ফাইজার ও ১২০ স্বাস্থ্যকর্মীকে মডার্নার টিকার ডোজ দেওয়া হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি বিবৃতিতে জানিয়েছে, ট্রায়ালের প্রাথমিক ফলাফলে দেখা যায়, টিকা নিরাপদ ও যথেষ্ট মাত্রায় অ্যান্টিবডি তৈরি করছে। কিন্তু ওমিক্রন ধরনের সংক্রমণ ঠেকাতে এটি আংশিক কার্যকর। এ গবেষণায় নেতৃত্ব দিয়েছেন অধ্যাপক গিলি রেগেভ।

কোভিড-ফ্লু প্রতিরোধী যৌথ বুস্টার ডোজ ২০২৩ সালে : মডার্না বলেছে, ২০২৩ সালের শেষের দিকে একটি কোভিড-ফ্লু-আরএসভির যৌথ বুস্টার ডোজ টিকা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে তারা।

এই টিকা বার্ষিক ভিত্তিতে জনগণকে নিতে উৎসাহিত করা হবে। এই একক টিকাটি হবে কোভিড-১৯, ইনফ্লুয়েঞ্জা এবং রেসপিরেটরি সিনসাইটিয়াল ভাইরাস (একটি সাধারণ ভাইরাস, যা সর্দির জন্য দায়ী, তবে শিশু এবং বয়স্ক ব্যক্তিদের জন্য আরও গুরুতর হতে পারে) প্রতিরোধী। এটি ২০২৪ সালের আগেই বাজারে পাওয়া যেতে পারে। মডার্নার প্রধান নির্বাহী স্টিফেন ব্যানসেল ভার্চুয়াল ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের গোলটেবিল অধিবেশনে এসব তথ্য জানান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন