তৈমুর ও কামালকে দল থেকে বহিষ্কার
jugantor
শৃঙ্খলাবিরোধীদের বিরুদ্ধে কঠোর বিএনপি
তৈমুর ও কামালকে দল থেকে বহিষ্কার

  তারিকুল ইসলাম  

১৯ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দলের শৃঙ্খলা রক্ষায় কঠোর অবস্থানে বিএনপি। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গেলে কাউকে ছাড় না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাইকমান্ড। এর অংশ হিসাবে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারকে প্রাথমিক সদস্যসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করেছে বিএনপি। এর আগে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে অংশ নেওয়ায় চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা, জেলার আহ্বায়ক ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এ প্রসঙ্গে তৈমুর আলম খন্দকার যুগান্তরকে বলেন, বহিষ্কারের চিঠি এখনো পাইনি। বহিষ্কার করে থাকলে আলহামদুলিল্লাহ।

একই সঙ্গে তৈমুর আলমের নির্বাচনি প্রধান এজেন্ট নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামালকেও প্রাথমিক সদস্যসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তার স্থলে মহানগরের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে আব্দুস সবুর খান সেন্টুকে। সোমবার দলটির জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পরে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত বহিষ্কারের চিঠি মঙ্গলবার তাদের দুজনের কাছে পৌঁছানো হয়।

বহিষ্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী যুগান্তরকে বলেন, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার ও এটিএম কামালকে প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তিনি বলেন, দলে থেকে সিদ্ধান্ত অমান্য করলে তা শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ড বলে গণ্য হবে। গুরুত্বপূর্ণ পদধারী কেউ নির্বাচন করলে তাকে বহিষ্কার করা হবে।

মঙ্গলবার রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত চিঠিতে অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারকে বহিষ্কার প্রসঙ্গে বলা হয়, ‘দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির গঠনতন্ত্র মোতাবেক দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হলো।’ চিঠির অনুলিপি ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এবং জেলা বিএনপির সদস্য সচিবকেও দেওয়া হয়। বহিষ্কারের কারণ হিসাবে একই অভিযোগের কথা বলা হয়েছে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামালের চিঠিতেও।

এ প্রসঙ্গে মঙ্গলবার রাতে এটিএম কামাল যুগান্তরকে বলেন, বহিষ্কারের কথা শুনেছি, কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো চিঠি পাইনি। তবে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে আমি শৃঙ্খলাবিরোধী কাজ করেছি-এ কারণে হাইকমান্ড চাইলে আমাকে বহিষ্কার করতে পারেন। তবে জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের একজন কর্মী হিসাবে আমি রাজনীতি করতে চাই।

রোববার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সরকারদলীয় মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী নৌকা প্রতীকে ১ লাখ ৫৯ হাজার ৯৭ ভোট পান। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকার হাতি প্রতীকে পান ৯২ হাজার ৫৬২ ভোট। অর্থাৎ ৬৬ হাজার ৫৩৫ ভোট বেশি পেয়ে তৈমুর আলম খন্দকারকে পরাজিত করেন আইভী।

এছাড়াও দলীয় নির্দেশ অমান্য করে পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় নোয়াখালী ও নাটোরের আরও ৫ নেতাকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিএনপির দায়িত্বশীল এক নেতা জানান, পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় নোয়াখালী পৌরসভা বিএনপির সভাপতি ও জেলা বিএনপির কোষাধ্যক্ষ আবু নাছের, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম কিরণ, নাটোর পৌর বিএনপির আহ্বায়ক শেখ এমদাদুল হক মামুন (এমদাদ), নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক শরিফুল ইসলাম লেলিন (ভিপি লেলিন) ও বাগাতিপাড়া পৌর বিএনপির আহ্বায়ক আমিরুল ইসলাম জামালকেও বহিষ্কার করা হবে। ইতোমধ্যে তাদেরকে বিএনপির পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ ২০২০ সালের ১২ নভেম্বর জাতীয় সংসদের ঢাকা-১৮ ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনের উপনির্বাচনে অংশ নেয় বিএনপি। এরপর আর জাতীয় সংসদের কোনো উপনির্বাচন ও স্থানীয় সরকারের কোনো নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে তারা অংশ নেয়নি। গত বছর মার্চে সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বর্তমান সরকার ও নির্বাচন কমিশনের অধীনে আর কোনো নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় দলটি।

একাধিক নীতিনির্ধারক জানান, দলীয় প্রতীকে কোনো নির্বাচনে বিএনপি যাবে না-এমন সিদ্ধান্ত থাকলে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে পদধারী অনেকে স্বতন্ত্রভাবে

ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। ইউপি নির্বাচনের ক্ষেত্রে দলের যারা নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন তাদের বাধা দেওয়া হয়নি। বরং সেক্ষেত্রে কাউকে দল থেকে শোকজ বা বহিষ্কার করা হবে না-এমন নীতিগত সিদ্ধান্ত ছিল। যে কারণে গত বছর মার্চের পর থেকে অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলের অনেকেই স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে অংশ নিয়েছেন, কেউ কেউ জয়ীও হয়েছেন। কিন্তু এখন পদে থেকে আর কেউ নির্বাচন করতে পারবেন না-এটা দলীয় সিদ্ধান্ত।

নীতিনির্ধারকরা আরও জানান, দেশের নির্বাচনব্যবস্থা একেবারে ধ্বংসের পথে, যা নিয়ে বিভিন্ন সময় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে দেশের অধিকাংশ রাজনৈতিক দল, বিশিষ্ট নাগরিকসহ অনেকে। এমনকি বহির্বিশ্বও বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এর মধ্যে ‘মানবাধিকার লঙ্ঘনের’ অভিযোগে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও সংস্থাটির সাবেক-বর্তমান সাত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। সব মিলিয়ে সরকার চাপে রয়েছে। তাই এখন কিছুটা সুষ্ঠু নির্বাচন করে তারা দেশে-বিদেশে বার্তা দিতে চায় যে, দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়। তবে বিএনপি সে ফাঁদে পা দেবে না। জাতীয় নির্বাচনের আগে আরও সুষ্ঠু নির্বাচন করার চেষ্টা করবে সরকার। কিন্তু দলের সিদ্ধান্ত বর্তমান সরকার ও ইসির অধীনে আর কোনো নির্বাচনে বিএনপি যাবে না। পদে থেকে যারা অংশ নেবে, তাদেরকে বহিষ্কার করা হবে। আগামী দিনে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দাবিতেই বিএনপি অনড় থাকবে-এটিই হবে দলের একমাত্র দাবি।

শৃঙ্খলাবিরোধীদের বিরুদ্ধে কঠোর বিএনপি

তৈমুর ও কামালকে দল থেকে বহিষ্কার

 তারিকুল ইসলাম 
১৯ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দলের শৃঙ্খলা রক্ষায় কঠোর অবস্থানে বিএনপি। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গেলে কাউকে ছাড় না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাইকমান্ড। এর অংশ হিসাবে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারকে প্রাথমিক সদস্যসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করেছে বিএনপি। এর আগে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে অংশ নেওয়ায় চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা, জেলার আহ্বায়ক ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এ প্রসঙ্গে তৈমুর আলম খন্দকার যুগান্তরকে বলেন, বহিষ্কারের চিঠি এখনো পাইনি। বহিষ্কার করে থাকলে আলহামদুলিল্লাহ।

একই সঙ্গে তৈমুর আলমের নির্বাচনি প্রধান এজেন্ট নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামালকেও প্রাথমিক সদস্যসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তার স্থলে মহানগরের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে আব্দুস সবুর খান সেন্টুকে। সোমবার দলটির জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পরে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত বহিষ্কারের চিঠি মঙ্গলবার তাদের দুজনের কাছে পৌঁছানো হয়।

বহিষ্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী যুগান্তরকে বলেন, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার ও এটিএম কামালকে প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তিনি বলেন, দলে থেকে সিদ্ধান্ত অমান্য করলে তা শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ড বলে গণ্য হবে। গুরুত্বপূর্ণ পদধারী কেউ নির্বাচন করলে তাকে বহিষ্কার করা হবে।

মঙ্গলবার রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত চিঠিতে অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারকে বহিষ্কার প্রসঙ্গে বলা হয়, ‘দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির গঠনতন্ত্র মোতাবেক দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হলো।’ চিঠির অনুলিপি ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এবং জেলা বিএনপির সদস্য সচিবকেও দেওয়া হয়। বহিষ্কারের কারণ হিসাবে একই অভিযোগের কথা বলা হয়েছে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামালের চিঠিতেও।

এ প্রসঙ্গে মঙ্গলবার রাতে এটিএম কামাল যুগান্তরকে বলেন, বহিষ্কারের কথা শুনেছি, কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো চিঠি পাইনি। তবে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে আমি শৃঙ্খলাবিরোধী কাজ করেছি-এ কারণে হাইকমান্ড চাইলে আমাকে বহিষ্কার করতে পারেন। তবে জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের একজন কর্মী হিসাবে আমি রাজনীতি করতে চাই।

রোববার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সরকারদলীয় মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী নৌকা প্রতীকে ১ লাখ ৫৯ হাজার ৯৭ ভোট পান। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকার হাতি প্রতীকে পান ৯২ হাজার ৫৬২ ভোট। অর্থাৎ ৬৬ হাজার ৫৩৫ ভোট বেশি পেয়ে তৈমুর আলম খন্দকারকে পরাজিত করেন আইভী।

এছাড়াও দলীয় নির্দেশ অমান্য করে পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় নোয়াখালী ও নাটোরের আরও ৫ নেতাকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিএনপির দায়িত্বশীল এক নেতা জানান, পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় নোয়াখালী পৌরসভা বিএনপির সভাপতি ও জেলা বিএনপির কোষাধ্যক্ষ আবু নাছের, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম কিরণ, নাটোর পৌর বিএনপির আহ্বায়ক শেখ এমদাদুল হক মামুন (এমদাদ), নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক শরিফুল ইসলাম লেলিন (ভিপি লেলিন) ও বাগাতিপাড়া পৌর বিএনপির আহ্বায়ক আমিরুল ইসলাম জামালকেও বহিষ্কার করা হবে। ইতোমধ্যে তাদেরকে বিএনপির পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ ২০২০ সালের ১২ নভেম্বর জাতীয় সংসদের ঢাকা-১৮ ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনের উপনির্বাচনে অংশ নেয় বিএনপি। এরপর আর জাতীয় সংসদের কোনো উপনির্বাচন ও স্থানীয় সরকারের কোনো নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে তারা অংশ নেয়নি। গত বছর মার্চে সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বর্তমান সরকার ও নির্বাচন কমিশনের অধীনে আর কোনো নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় দলটি।

একাধিক নীতিনির্ধারক জানান, দলীয় প্রতীকে কোনো নির্বাচনে বিএনপি যাবে না-এমন সিদ্ধান্ত থাকলে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে পদধারী অনেকে স্বতন্ত্রভাবে

ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। ইউপি নির্বাচনের ক্ষেত্রে দলের যারা নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন তাদের বাধা দেওয়া হয়নি। বরং সেক্ষেত্রে কাউকে দল থেকে শোকজ বা বহিষ্কার করা হবে না-এমন নীতিগত সিদ্ধান্ত ছিল। যে কারণে গত বছর মার্চের পর থেকে অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলের অনেকেই স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে অংশ নিয়েছেন, কেউ কেউ জয়ীও হয়েছেন। কিন্তু এখন পদে থেকে আর কেউ নির্বাচন করতে পারবেন না-এটা দলীয় সিদ্ধান্ত।

নীতিনির্ধারকরা আরও জানান, দেশের নির্বাচনব্যবস্থা একেবারে ধ্বংসের পথে, যা নিয়ে বিভিন্ন সময় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে দেশের অধিকাংশ রাজনৈতিক দল, বিশিষ্ট নাগরিকসহ অনেকে। এমনকি বহির্বিশ্বও বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এর মধ্যে ‘মানবাধিকার লঙ্ঘনের’ অভিযোগে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও সংস্থাটির সাবেক-বর্তমান সাত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। সব মিলিয়ে সরকার চাপে রয়েছে। তাই এখন কিছুটা সুষ্ঠু নির্বাচন করে তারা দেশে-বিদেশে বার্তা দিতে চায় যে, দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়। তবে বিএনপি সে ফাঁদে পা দেবে না। জাতীয় নির্বাচনের আগে আরও সুষ্ঠু নির্বাচন করার চেষ্টা করবে সরকার। কিন্তু দলের সিদ্ধান্ত বর্তমান সরকার ও ইসির অধীনে আর কোনো নির্বাচনে বিএনপি যাবে না। পদে থেকে যারা অংশ নেবে, তাদেরকে বহিষ্কার করা হবে। আগামী দিনে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দাবিতেই বিএনপি অনড় থাকবে-এটিই হবে দলের একমাত্র দাবি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন