শিক্ষার্থীদের আস্থার প্রতিদান দেওয়া হবে
jugantor
শাবিপ্রবি সম্পর্কে শিক্ষামন্ত্রী
শিক্ষার্থীদের আস্থার প্রতিদান দেওয়া হবে

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৭ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অনশন ভাঙায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাধুবাদ জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বুধবার সন্ধ্যায় নিজের সরকারি বাসভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, তারা আমাদের ওপর আস্থা রেখেছেন। আমরাও তাদের আস্থার প্রতিদান দেব।

ছাত্রী হলের এক ঘটনায় ১২ জানুয়ারি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামেন। ওই আন্দোলন অনশনে গড়ালে দেশব্যাপী তা আলোচনায় পরিণত হয়।

শেষপর্যন্ত কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবালের অনুরোধে বুধবার অনশন ভাঙেন। তবে তারা আন্দোলনে থাকার ঘোষণা দিয়ে রেখেছেন।

এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন যৌক্তিক। তাদের সব দাবি-দাওয়া বাস্তবায়ন করব।

এ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু সমস্যা উঠে এসেছে। সেগুলো খুঁজে বের করে সমাধানের সুযোগ পাওয়া গেল। এটা শুধু শাবিপ্রবিতে নয়, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়েও এ ধরনের সংকটের সমাধান করা হবে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণ ও সমস্যা সব বিষয় খতিয়ে দেখা হবে। অপরাধী যেই হোক, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অধ্যাপক ফরীদ আহমেদের পদত্যাগ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, একজন উপাচার্য থাকলেন কি থাকলেন না সেটি শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধানে প্রভাব থাকছে না।

উপাচার্যের পদত্যাগ বা সরিয়ে দেওয়ার বিষয়টি ভিন্ন প্রক্রিয়া। একজন উপাচার্য চলে গেলেন, আরেকজন উপাচার্য আসবেন। কিন্তু শিক্ষার্থীদের সমস্যা যদি থেকে যায়, তাহলে তাদের কোনো লাভ হবে না।

তাই সমস্যার সমাধান করা হবে। তবে এ প্রসঙ্গে (উপাচার্যের পদত্যাগ বা সরিয়ে দেওয়া) মন্ত্রী এটাও বলেন যে, ‘আমরা দেখব, আমাদের পক্ষে কি করা সম্ভব।’

দীপু মনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধানের জন্য তাদের সঙ্গে বসে সমস্যাগুলো শুনে সমাধান করতে চান। এ জন্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বসতেও তিনি প্রস্তুত আছেন। আন্দোলনে থাকা শিক্ষার্থীরা মানসিকভাবে কিছুটা ভেঙে পড়েছেন। তারা একটু গুছিয়ে উঠুক। তারা চাইলে কিছুদিন পর সেখানে (শাবিপ্রবিতে) যেতে পারি। শিক্ষার্থীরা চাইলে যে কোনো সময় তাদের সঙ্গে বসব।

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, আন্দোলনের সময় যে মামলাগুলো হয়েছে তাতে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতের ওপর কোনো প্রভাব থাকবে না। একাডেমিক দিকে যাতে হয়রানি না হয় সেটা দেখা হবে।

মামলাগুলো তুলে নেওয়ার বিষয়েও কথা বলব। আন্দোলনে অর্থায়নের অভিযোগে গ্রেফতার পাঁচ শিক্ষার্থীকে জেলে পাঠানো হয়নি জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, কয়েকজন শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল, তাদের জামিন হয়েছে। তারা যাতে হয়রানির শিকার না হন, সে বিষয়টা দেখা হবে।

শাবিপ্রবি সম্পর্কে শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষার্থীদের আস্থার প্রতিদান দেওয়া হবে

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অনশন ভাঙায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাধুবাদ জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বুধবার সন্ধ্যায় নিজের সরকারি বাসভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, তারা আমাদের ওপর আস্থা রেখেছেন। আমরাও তাদের আস্থার প্রতিদান দেব।

ছাত্রী হলের এক ঘটনায় ১২ জানুয়ারি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামেন। ওই আন্দোলন অনশনে গড়ালে দেশব্যাপী তা আলোচনায় পরিণত হয়।

শেষপর্যন্ত কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবালের অনুরোধে বুধবার অনশন ভাঙেন। তবে তারা আন্দোলনে থাকার ঘোষণা দিয়ে রেখেছেন।

এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন যৌক্তিক। তাদের সব দাবি-দাওয়া বাস্তবায়ন করব।

এ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু সমস্যা উঠে এসেছে। সেগুলো খুঁজে বের করে সমাধানের সুযোগ পাওয়া গেল। এটা শুধু শাবিপ্রবিতে নয়, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়েও এ ধরনের সংকটের সমাধান করা হবে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণ ও সমস্যা সব বিষয় খতিয়ে দেখা হবে। অপরাধী যেই হোক, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অধ্যাপক ফরীদ আহমেদের পদত্যাগ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, একজন উপাচার্য থাকলেন কি থাকলেন না সেটি শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধানে প্রভাব থাকছে না।

উপাচার্যের পদত্যাগ বা সরিয়ে দেওয়ার বিষয়টি ভিন্ন প্রক্রিয়া। একজন উপাচার্য চলে গেলেন, আরেকজন উপাচার্য আসবেন। কিন্তু শিক্ষার্থীদের সমস্যা যদি থেকে যায়, তাহলে তাদের কোনো লাভ হবে না।

তাই সমস্যার সমাধান করা হবে। তবে এ প্রসঙ্গে (উপাচার্যের পদত্যাগ বা সরিয়ে দেওয়া) মন্ত্রী এটাও বলেন যে, ‘আমরা দেখব, আমাদের পক্ষে কি করা সম্ভব।’

দীপু মনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধানের জন্য তাদের সঙ্গে বসে সমস্যাগুলো শুনে সমাধান করতে চান। এ জন্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বসতেও তিনি প্রস্তুত আছেন। আন্দোলনে থাকা শিক্ষার্থীরা মানসিকভাবে কিছুটা ভেঙে পড়েছেন। তারা একটু গুছিয়ে উঠুক। তারা চাইলে কিছুদিন পর সেখানে (শাবিপ্রবিতে) যেতে পারি। শিক্ষার্থীরা চাইলে যে কোনো সময় তাদের সঙ্গে বসব।

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, আন্দোলনের সময় যে মামলাগুলো হয়েছে তাতে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতের ওপর কোনো প্রভাব থাকবে না। একাডেমিক দিকে যাতে হয়রানি না হয় সেটা দেখা হবে।

মামলাগুলো তুলে নেওয়ার বিষয়েও কথা বলব। আন্দোলনে অর্থায়নের অভিযোগে গ্রেফতার পাঁচ শিক্ষার্থীকে জেলে পাঠানো হয়নি জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, কয়েকজন শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল, তাদের জামিন হয়েছে। তারা যাতে হয়রানির শিকার না হন, সে বিষয়টা দেখা হবে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন