দশ মিনিটের ঝড়ে লন্ডভন্ড শত শত ঘরবাড়ি
jugantor
দশ মিনিটের ঝড়ে লন্ডভন্ড শত শত ঘরবাড়ি
বগুড়া ও দিনাজপুরে ৩ জনের মৃত্যু

  যুগান্তর ডেস্ক  

২২ মে ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের বিভিন্ন স্থানে শনিবার সকালে তাণ্ডব চালায় কালবৈশাখী। মাত্র ১০-১৫ মিনিট স্থায়ী এ ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে যায় গ্রামের পর গ্রাম। ভেঙে পড়ে শত শত গাছপালা। উড়ে যায় বহু ঘরের টিনের চাল। রাজশাহী, পিরোজপুর, বগুড়াসহ কয়েকটি স্থানে বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে ও তার ছিঁড়ে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কোথাও সড়কে গাছের ডাল ভেঙে পড়ায় বন্ধ হয়ে যায় যোগাযোগ। গাছ ভেঙে রেললাইনের ওপর পড়ায় পোড়াদহ-খুলনা রুটে প্রায় ৫ ঘণ্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। বগুড়ায় ঘর ও গাছচাপা পড়ে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া দিনাজপুরে বজ পাতে মারা গেছেন আরও একজন। ঝড়ের কবলে পড়ে ভোলা ও লৌহজংয়ে দুটি ট্রলার ডুবে গেছে। এতে দুই জেলে নিখোঁজ হয়েছেন। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

বগুড়া : ঝড়ে ঘর ও গাছচাপায় দিনমজুর শাহীন আলম (৪৫) ও মালি আবদুল হালিম (৫০) মারা গেছেন। কাহালু উপজেলার কালাই ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামে একটি ঝুপড়ি ঘরে ওই গ্রামের গোলজার হোসেনের ছেলে শাহীন আলম অবস্থান করছিলেন। পাশের একটি গাছ ভেঙে ঘরের ওপর পড়লে চাপা পড়ে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। শাজাহানপুর উপজেলার বৃকুষ্টিয়া গ্রামে আনসার আলীর ছেলে আবদুল হালিম সকালে ক্ষতিগ্রস্ত গাছের ডাল কাটছিলেন। এ সময় গাছের চাপায় গুরুতর আহত হন তিনি। দুপুরে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে তিনি মারা যান।

দিনাজপুর : আকাশে মেঘ দেখে মাঠ থেকে গরু আনতে গিয়ে বজ পাতে মারা যান আলতাফ হোসেন (৪৫) নামে এক কৃষক। শনিবার দুপুর ২টায় চিরিরবন্দর উপজেলার আতারবাজার কাকপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আলতাফ হোসেন চিরিরবন্দর উপজেলার ৭নং আউলিয়াপুকুর ইউনিয়নের আতারপাজার কাকপাড়া এলাকার খলিল উদ্দীনের ছেলে।

চুয়াডাঙ্গা : ঝড়ে কয়েকটি গ্রামে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। উপজেলার ওসমানপুর নিম্নমাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক চঞ্চল হোসেন বলেন, আমার বিদ্যালয়ের ছাউনি ঝড়ে উড়ে গেছে। আলমডাঙ্গা উপজেলা শহরের ব্যবসায়ী রোকন উদ্দিন বলেন, উপজেলার জগন্নাথপুর, শ্রীরামপুর, ডম্বলপুর ও ওসমানপুর এলাকায় প্রায় দেড়শ কাঁচা ও আধাপাকা ঘরবাড়ির ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া বেরো ধান, পানের বরজ নষ্ট হয়েছে।

কুষ্টিয়া : জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ঝড়ের তাণ্ডবে শত শত গাছপালা ভেঙে রাস্তায় পড়েছে। শত শত হেক্টর জমির আম, কাঁঠাল, লিচুসহ বিভিন্ন মৌসুমি ফল ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গাছ ভেঙে রেললাইনের ওপর পড়ায় পোড়াদহ-খুলনা রুটে প্রায় ৫ ঘণ্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। একই কারণে প্রায় ৭ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কে।

ভোলা : সকালে ঘণ্টাব্যাপী ঝড়ের কবলে পড়ে মনপুরা উপজেলার লতারচর এলাকায় ৮ জেলেসহ একটি মাছ ধরা ট্রলার ডুবে গেছে। পরে কোস্টগার্ডের মনপুরা ক্যাম্প অফিসার আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে একটি টিম অভিযান চালিয়ে জেলেদের উদ্ধার করে।

বাঘা (রাজশাহী) : বাঘা উপজেলার বাউসা ও আড়ানী এলাকা শনিবার ভোর ৪টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত বিদ্যুৎহীন ছিল। উপজেলার আড়ানী ও বাউসা ইউনিয়নে আম, লিচু, কলা, পেঁপেসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি হয়েছে।

নাজিরপুর (পিরোজপুর) : উপজেলার রুহিতলা বুনিয়া, শাঁখারিকাঠি, চিথলিয়া, ছোট বুইচাকাঠি, কাঁঠালিয়া, দীর্ঘাসহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অর্ধশত কাঁচা ঘর ভেঙে গেছে। কোথাও কোথাও ঘরের চালের টিন উড়ে গেছে।

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) : কালীগঞ্জে ১০-১৫ মিনিটের ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উপজেলার অন্তত ২০টি গ্রাম। এসব গ্রামে কাঁচা ঘর, গাছপালা ও বিদ্যুতের পোল ভেঙে পড়েছে। আম, কলাসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিদ্যুতের পোল ও বিভিন্ন গাছ ভেঙে গেছে।

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) : উপজেলার চারটি ইউনিয়নে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মসজিদসহ পাঁচ শতাধিক কাঁচা ও আধাপাকা ঘরবাড়ি লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। অনেক গাছপালা উপড়ে পড়েছে। গাছের চাপায় স্কুলছাত্রীসহ একই পরিবারের তিনজন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন-উত্তর খিলগাতি গ্রামের আতাউর রহমান খান, ছেলে মো. রফিকুল ইসলাম ও নাতনি ৭ম শ্রেণির ছাত্রী রিয়া।

যশোর : জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ঝড়ের তাণ্ডবে শত শত গাছপালা ভেঙে রাস্তায় পড়ে। বহু ঘরের টিনের চাল উড়ে গেছে। শত শত হেক্টর জমির আম, লিচুসহ বিভিন্ন মৌসুমি ফল ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

নওগাঁ : ঝড়ে জেলায় আমের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আমচাষি আমিনুল ইসলাম বলেন, ৮০ বিঘা জমিতে তার দুটি বাগান রয়েছে। রাতের ঝড়ে তার দুই বাগানের প্রায় ১০০ মন আম ঝরে পড়েছে। বাগানের চারভাগের একভাগ আমই ঝরে পড়েছে। ঝরে পড়া এসব আম বাজারে দুই টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

নাইক্ষ্যংছড়ি (বান্দরবান) : নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বসতঘর ও বিভিন্ন ফলের বাগানের ক্ষতি হয়েছে। গাছপালা উপড়ে পড়ে নারিচবুনিয়া-বাইশারী সড়ক বন্ধ হয়ে যায়।

লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) : লৌহজংয়ের শিমুলিয়া ঘাটে পদ্মা নদীতে সাড়ে তিনশ মন ধান নিয়ে একটি মালবাহী ট্রলার ডুবে গেছে। সকাল ৬টায় হঠাৎ ঝড়ের কবলে পড়ে মাওয়া থেকে শিবচরগামী ধানবোঝাই ট্রলারটি। ট্রলারে ১৫ জন শ্রমিক ছিল। ১৩ জনকে উদ্ধার করা হলেও ২ জন নিখোঁজ রয়েছে। তারা হলেন হেলাল (৩৮) ও কাজল (২৮)।

দশ মিনিটের ঝড়ে লন্ডভন্ড শত শত ঘরবাড়ি

বগুড়া ও দিনাজপুরে ৩ জনের মৃত্যু
 যুগান্তর ডেস্ক 
২২ মে ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশের বিভিন্ন স্থানে শনিবার সকালে তাণ্ডব চালায় কালবৈশাখী। মাত্র ১০-১৫ মিনিট স্থায়ী এ ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে যায় গ্রামের পর গ্রাম। ভেঙে পড়ে শত শত গাছপালা। উড়ে যায় বহু ঘরের টিনের চাল। রাজশাহী, পিরোজপুর, বগুড়াসহ কয়েকটি স্থানে বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে ও তার ছিঁড়ে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কোথাও সড়কে গাছের ডাল ভেঙে পড়ায় বন্ধ হয়ে যায় যোগাযোগ। গাছ ভেঙে রেললাইনের ওপর পড়ায় পোড়াদহ-খুলনা রুটে প্রায় ৫ ঘণ্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। বগুড়ায় ঘর ও গাছচাপা পড়ে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া দিনাজপুরে বজ পাতে মারা গেছেন আরও একজন। ঝড়ের কবলে পড়ে ভোলা ও লৌহজংয়ে দুটি ট্রলার ডুবে গেছে। এতে দুই জেলে নিখোঁজ হয়েছেন। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

বগুড়া : ঝড়ে ঘর ও গাছচাপায় দিনমজুর শাহীন আলম (৪৫) ও মালি আবদুল হালিম (৫০) মারা গেছেন। কাহালু উপজেলার কালাই ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামে একটি ঝুপড়ি ঘরে ওই গ্রামের গোলজার হোসেনের ছেলে শাহীন আলম অবস্থান করছিলেন। পাশের একটি গাছ ভেঙে ঘরের ওপর পড়লে চাপা পড়ে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। শাজাহানপুর উপজেলার বৃকুষ্টিয়া গ্রামে আনসার আলীর ছেলে আবদুল হালিম সকালে ক্ষতিগ্রস্ত গাছের ডাল কাটছিলেন। এ সময় গাছের চাপায় গুরুতর আহত হন তিনি। দুপুরে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে তিনি মারা যান।

দিনাজপুর : আকাশে মেঘ দেখে মাঠ থেকে গরু আনতে গিয়ে বজ পাতে মারা যান আলতাফ হোসেন (৪৫) নামে এক কৃষক। শনিবার দুপুর ২টায় চিরিরবন্দর উপজেলার আতারবাজার কাকপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আলতাফ হোসেন চিরিরবন্দর উপজেলার ৭নং আউলিয়াপুকুর ইউনিয়নের আতারপাজার কাকপাড়া এলাকার খলিল উদ্দীনের ছেলে।

চুয়াডাঙ্গা : ঝড়ে কয়েকটি গ্রামে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। উপজেলার ওসমানপুর নিম্নমাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক চঞ্চল হোসেন বলেন, আমার বিদ্যালয়ের ছাউনি ঝড়ে উড়ে গেছে। আলমডাঙ্গা উপজেলা শহরের ব্যবসায়ী রোকন উদ্দিন বলেন, উপজেলার জগন্নাথপুর, শ্রীরামপুর, ডম্বলপুর ও ওসমানপুর এলাকায় প্রায় দেড়শ কাঁচা ও আধাপাকা ঘরবাড়ির ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া বেরো ধান, পানের বরজ নষ্ট হয়েছে।

কুষ্টিয়া : জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ঝড়ের তাণ্ডবে শত শত গাছপালা ভেঙে রাস্তায় পড়েছে। শত শত হেক্টর জমির আম, কাঁঠাল, লিচুসহ বিভিন্ন মৌসুমি ফল ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গাছ ভেঙে রেললাইনের ওপর পড়ায় পোড়াদহ-খুলনা রুটে প্রায় ৫ ঘণ্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। একই কারণে প্রায় ৭ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কে।

ভোলা : সকালে ঘণ্টাব্যাপী ঝড়ের কবলে পড়ে মনপুরা উপজেলার লতারচর এলাকায় ৮ জেলেসহ একটি মাছ ধরা ট্রলার ডুবে গেছে। পরে কোস্টগার্ডের মনপুরা ক্যাম্প অফিসার আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে একটি টিম অভিযান চালিয়ে জেলেদের উদ্ধার করে।

বাঘা (রাজশাহী) : বাঘা উপজেলার বাউসা ও আড়ানী এলাকা শনিবার ভোর ৪টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত বিদ্যুৎহীন ছিল। উপজেলার আড়ানী ও বাউসা ইউনিয়নে আম, লিচু, কলা, পেঁপেসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি হয়েছে।

নাজিরপুর (পিরোজপুর) : উপজেলার রুহিতলা বুনিয়া, শাঁখারিকাঠি, চিথলিয়া, ছোট বুইচাকাঠি, কাঁঠালিয়া, দীর্ঘাসহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অর্ধশত কাঁচা ঘর ভেঙে গেছে। কোথাও কোথাও ঘরের চালের টিন উড়ে গেছে।

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) : কালীগঞ্জে ১০-১৫ মিনিটের ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উপজেলার অন্তত ২০টি গ্রাম। এসব গ্রামে কাঁচা ঘর, গাছপালা ও বিদ্যুতের পোল ভেঙে পড়েছে। আম, কলাসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিদ্যুতের পোল ও বিভিন্ন গাছ ভেঙে গেছে।

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) : উপজেলার চারটি ইউনিয়নে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মসজিদসহ পাঁচ শতাধিক কাঁচা ও আধাপাকা ঘরবাড়ি লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। অনেক গাছপালা উপড়ে পড়েছে। গাছের চাপায় স্কুলছাত্রীসহ একই পরিবারের তিনজন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন-উত্তর খিলগাতি গ্রামের আতাউর রহমান খান, ছেলে মো. রফিকুল ইসলাম ও নাতনি ৭ম শ্রেণির ছাত্রী রিয়া।

যশোর : জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ঝড়ের তাণ্ডবে শত শত গাছপালা ভেঙে রাস্তায় পড়ে। বহু ঘরের টিনের চাল উড়ে গেছে। শত শত হেক্টর জমির আম, লিচুসহ বিভিন্ন মৌসুমি ফল ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

নওগাঁ : ঝড়ে জেলায় আমের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আমচাষি আমিনুল ইসলাম বলেন, ৮০ বিঘা জমিতে তার দুটি বাগান রয়েছে। রাতের ঝড়ে তার দুই বাগানের প্রায় ১০০ মন আম ঝরে পড়েছে। বাগানের চারভাগের একভাগ আমই ঝরে পড়েছে। ঝরে পড়া এসব আম বাজারে দুই টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

নাইক্ষ্যংছড়ি (বান্দরবান) : নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বসতঘর ও বিভিন্ন ফলের বাগানের ক্ষতি হয়েছে। গাছপালা উপড়ে পড়ে নারিচবুনিয়া-বাইশারী সড়ক বন্ধ হয়ে যায়।

লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) : লৌহজংয়ের শিমুলিয়া ঘাটে পদ্মা নদীতে সাড়ে তিনশ মন ধান নিয়ে একটি মালবাহী ট্রলার ডুবে গেছে। সকাল ৬টায় হঠাৎ ঝড়ের কবলে পড়ে মাওয়া থেকে শিবচরগামী ধানবোঝাই ট্রলারটি। ট্রলারে ১৫ জন শ্রমিক ছিল। ১৩ জনকে উদ্ধার করা হলেও ২ জন নিখোঁজ রয়েছে। তারা হলেন হেলাল (৩৮) ও কাজল (২৮)।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন