আমদানির পথেই সরকার
jugantor
চাল নিয়ে চালাকি : সংকট নিরসনে বসছে দুই বৈঠক
আমদানির পথেই সরকার
মিল মালিকদের বাজারে চাল না ছাড়ার বিষয়টি সরকার কেন আগে বুঝতে পারল না-সাবেক খাদ্য সচিব আবদুল লতিফ মণ্ডল

  বাহরাম খান  

০৫ জুন ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশব্যাপী অভিযান চালালেও চালের বাজারে সুখবর পাচ্ছেন না ক্রেতারা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চালের বাজার ঠিক রাখতে খাদ্য মন্ত্রণালয় সঠিক সময়ে পদক্ষেপ নেয়নি। হঠাৎ করে অভিযান চালালেও প্রত্যাশিত সুফল মিলছে না।

অভিযানের কারণে বাজারে সাময়িক প্রভাব পড়লেও দীর্ঘমেয়াদে সুফল দেবে না। বর্তমান পরিস্থিতিতে চাল আমদানির প্রক্রিয়া শুরু করলে চালের বাজার প্রত্যাশিত অবস্থানে যাবে বলে মনে করছেন মন্ত্রণালয়ের নীতিনির্ধারক, বিশেষজ্ঞ ও মাঠপর্যায়ের পর্যবেক্ষকরা।

তারা বলছেন, করপোরেট ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা পরিকল্পিতভাবে চালের বাজার উত্তপ্ত করেছে। সেটা বুঝতে ব্যর্থ হয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

খাদ্য সচিব ড. নাজমানারা খানুম শনিবার রাতে যুগান্তরকে বলেন, ‘চালের বাজার যে পর্যায়ে চলে গেছে সেখান থেকে আমাদের (অর্থাৎ সরকার) প্রত্যাশিত পর্যায়ে আনতে বেসরকারিভাবে চাল আমদানি প্রয়োজন বলে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি।’

তিনি বলেন, ‘চাল আমদানির বিষয়টা আমরা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এককভাবে নিতে পারি না। সোমবার ফুড প্ল্যানিং অ্যান্ড মনিটরিং কমিটির বৈঠক ডাকা হয়েছে। সেই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হলে চাল আমদানির বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

খাদ্য সচিব যুক্তি দিয়ে বলেন, ‘প্রান্তিক পর্যায়ের অনেক কৃষক তাদের ধান বিক্রি করে ফেলেছেন। এখন বড় কৃষকদের মধ্যে যাদের হাতে ধান আছে তারাও বিক্রি করে দিচ্ছেন। সরকার চাল আমদানি করার প্রক্রিয়া শুরু করতে করতে কৃষকের হাতে কোনো ধান থাকবে না। তাই তখন চাল আমদানিতে কোনো সমস্যা আছে বলে আমার মনে হয় না।’

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তারা বলছেন, যেভাবে হুট করে অভিযানে নামা হয়েছে তাতে ভালো ফল আসার সম্ভাবনা কম। একাধিক কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, দেশের মিল মালিক, করপোরেট ব্যবসায়ী, মধ্যম মানের ব্যবসায়ী এবং কৃষকদের কার কাছে কত শতাংশ ধান-চাল মজুত আছে তার সঠিক পরিসংখ্যান সরকারের হাতে নেই।

অন্যদিকে করপোরেট ব্যবসায়ীরা চাল ব্যবসায় আসার পর থেকে অনেক মিল মালিক তাদের বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে অনুরোধ জানিয়েছিলেন। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে তাদের সঙ্গে আলোচনা বা নীতিমালা করার কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

এখন অভিযান চালানোর মধ্যেই তাদের সঙ্গে আলোচনার উদ্যোগ নিয়েছে ভোক্তা অধিদপ্তর। জেলা পর্যায়ের একাধিক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেছেন, অভিযান আর আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সাময়িক ফল পাওয়া গেলেও দীর্ঘমেয়াদি ফল পেতে গেলে চাল আমদানির বিকল্প নেই।

তাদের মতে, অনেক করপোরেট ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা প্রতিযোগিতা করে ধান কিনেছেন। তারা সাময়িক চাপে অল্প দাম কমালেও কয়েকদিন পরই আবার আগের রূপে ফিরে যাবেন।

তাই এখন আন্তর্জাতিক বাজার ইতিবাচক আছে, কিছু আমদানির অনুমতি দিলেই চালের বাজার শান্ত হয়ে যেতে বাধ্য। উদাহরণ দিয়ে একজন কর্মকর্তা বলেন, সাধারণ কৃষকদের মধ্যে যারা ধান বিক্রি করার তারা করে ফেলেছেন।

তাই এখন চাল আমদানি করলেও কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না। সংশ্লিষ্টরা আরও বলেছেন, ধানের আগামী মৌসুমের উৎপাদন প্রায় ৬ মাস সময় লাগবে। এর মাঝে চালের বাজার স্থিতিশীল রাখতে আমদানির পথেই হাঁটতে হবে সরকারকে।

এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব আবদুল লতিফ মণ্ডল যুগান্তরকে বলেন, ‘পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে সরকারকে চাল আমদানি করতে হবে, এটা ঠিক। কিন্তু বোরোর ভরা মৌসুমে এমন সিদ্ধান্তের দিকে যাওয়া খুবই দুঃখজনক বিষয়।’

তিনি বলেন, ‘মিল মালিকরা ধান কিনে প্রয়োজনীয় চাল উৎপাদন করছে না। যতটুকু চাল উৎপাদন হচ্ছে তাও করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোকে দিচ্ছে। ফলে বাজারে নতুন চাল না আসায় চালের দাম কমছে না।’

তিনি বলেন, ‘মিল মালিকরা যে বাজারে চাল ছাড়ছে না সেটা মন্ত্রী নিজেই বলেছেন। এই বিষয়টা মন্ত্রণালয় বাজার তদারকির মাধ্যমে কেন আগে বুঝতে পারল না। চালের দাম বৃদ্ধির পর সেটা বুঝলে তো হবে না।’

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার যুগান্তরকে বলেন, চালের মজুত পরিস্থিতি জানতে সব পর্যায়ের ব্যবসায়ীদের ৬ জুন অধিদপ্তরে ডাকা হয়েছে।

সেখানে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সরবরাহ পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পাশাপাশি মজুত নিয়ে কারসাজি করা হলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সেখানে করপোরেট প্রতিষ্ঠান, বড় মিল মালিক তারা মুখোমুখি বসে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করবে। অধিদপ্তরের সংগৃহীত তথ্যের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের সরবরাহ করা তথ্যে অসঙ্গতি পেলে বড় ধরনের পদক্ষেপ নেবে।

ঢাকার বাদামতলী ও বাবুবাজার চাল আড়তদার মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজি মো. নিজামউদ্দিন ৪০ বছরের বেশি সময় চালের ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত। তিনি যুগান্তরকে বলেন, বোরোর এমন সময় চালের দামের চিত্র খুবই বিস্ময়কর।

এটা কোনোভাবেই মানা যায় না। অভিজ্ঞতা থেকে তিনি বলেন, ব্যবসায় এক টাকা-পঞ্চাশ পয়সা ব্যবসা হলেই আমরা অনেক খুশি হয়ে যেতাম।

কিন্তু এখন বড় বড় ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা শুধু চালটা প্যাকেটে ভরেই কয়েক টাকা দাম বাড়িয়ে দেন। এমন পরিস্থিতির সঙ্গে আমরা পরিচিত নই। এ অবস্থাটা সরকারকেই সামাল দিতে হবে।

রাজধানীর কাওরান বাজারের আল্লাহর দান রাইস এজেন্সির কর্ণধার সিদ্দিকুর রহমান শনিবার বিকালে যুগান্তরকে বলেন, অভিযান চললেও খুচরা বাজারে চালের দামে এখনো প্রভাব পড়েনি। তিনি বলেন, মোটা চাল আর চিকন চাল যাই বলেন, আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে।

ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) এএইচএম সফিকুজ্জামানের কাছে দেশে ধান-চালের বর্তমান মজুত পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে কোনো পরিসংখ্যান জানাতে পারেননি। তিনি যুগান্তরকে বলেন, এটা সাধারণত খাদ্য মন্ত্রণালয় করে থাকে। আমরা সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের ডেকেছি। তাদের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী করণীয় ঠিক করব।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ফুড প্ল্যানিং অ্যান্ড মনিটরিং ইউনিট (এফপিএমইউ) সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে প্রতিবছর পৌনে ৪ কোটি টন চালের চাহিদা আছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে ৩ কোটি ৭৬ লাখ টন চাল উৎপাদন হয়েছে।

খাদ্য মন্ত্রণালয় সূত্রগুলো বলছে, বাংলাদেশে চাল উৎপাদন ও চাহিদার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই। উল্লিখিত পরিসংখ্যান ধরে হিসাব করা হলেও প্রতিবছরই কিছু না কিছু চাল আমদানি হয়। এই বিষয় নিয়ে খোদ সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মধ্যে মতপার্থক্য আছে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশে চালের চাহিদার তুলনায় উদ্বৃত্ত আছে। অভিযোগ উঠেছে, মিল মালিক ও করপোরেট ব্যবসায়ীরা ধান মজুত রাখার কারণে বাজারে চালের দাম বেড়ে গেছে।

মূলত ধান নিয়ন্ত্রণকারী বড় বড় মিলার সিন্ডিকেটরা তাদের হাতে থাকা আগের চাল বেশি দামে বিক্রি করার জন্য এই কারসাজির আশ্রয় নিয়েছে। যে কারণে বোরোর ভরা মৌসুমে চালের দরে ঊর্ধ্বগতি।

এ অবস্থায় সরকার চাল আমদানির কথা চিন্তা করছে। খাদ্যমন্ত্রী সম্প্রতি বোরো সংগ্রহের তদারকিসংক্রান্ত মাঠপর্যায়ের একাধিক বৈঠকেও প্রয়োজনে চাল আমদানি করা হবে বলে জানিয়েছেন।

চাল নিয়ে চালাকি : সংকট নিরসনে বসছে দুই বৈঠক

আমদানির পথেই সরকার

মিল মালিকদের বাজারে চাল না ছাড়ার বিষয়টি সরকার কেন আগে বুঝতে পারল না-সাবেক খাদ্য সচিব আবদুল লতিফ মণ্ডল
 বাহরাম খান 
০৫ জুন ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দেশব্যাপী অভিযান চালালেও চালের বাজারে সুখবর পাচ্ছেন না ক্রেতারা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চালের বাজার ঠিক রাখতে খাদ্য মন্ত্রণালয় সঠিক সময়ে পদক্ষেপ নেয়নি। হঠাৎ করে অভিযান চালালেও প্রত্যাশিত সুফল মিলছে না।

অভিযানের কারণে বাজারে সাময়িক প্রভাব পড়লেও দীর্ঘমেয়াদে সুফল দেবে না। বর্তমান পরিস্থিতিতে চাল আমদানির প্রক্রিয়া শুরু করলে চালের বাজার প্রত্যাশিত অবস্থানে যাবে বলে মনে করছেন মন্ত্রণালয়ের নীতিনির্ধারক, বিশেষজ্ঞ ও মাঠপর্যায়ের পর্যবেক্ষকরা।

তারা বলছেন, করপোরেট ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা পরিকল্পিতভাবে চালের বাজার উত্তপ্ত করেছে। সেটা বুঝতে ব্যর্থ হয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

খাদ্য সচিব ড. নাজমানারা খানুম শনিবার রাতে যুগান্তরকে বলেন, ‘চালের বাজার যে পর্যায়ে চলে গেছে সেখান থেকে আমাদের (অর্থাৎ সরকার) প্রত্যাশিত পর্যায়ে আনতে বেসরকারিভাবে চাল আমদানি প্রয়োজন বলে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি।’

তিনি বলেন, ‘চাল আমদানির বিষয়টা আমরা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এককভাবে নিতে পারি না। সোমবার ফুড প্ল্যানিং অ্যান্ড মনিটরিং কমিটির বৈঠক ডাকা হয়েছে। সেই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হলে চাল আমদানির বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

খাদ্য সচিব যুক্তি দিয়ে বলেন, ‘প্রান্তিক পর্যায়ের অনেক কৃষক তাদের ধান বিক্রি করে ফেলেছেন। এখন বড় কৃষকদের মধ্যে যাদের হাতে ধান আছে তারাও বিক্রি করে দিচ্ছেন। সরকার চাল আমদানি করার প্রক্রিয়া শুরু করতে করতে কৃষকের হাতে কোনো ধান থাকবে না। তাই তখন চাল আমদানিতে কোনো সমস্যা আছে বলে আমার মনে হয় না।’

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তারা বলছেন, যেভাবে হুট করে অভিযানে নামা হয়েছে তাতে ভালো ফল আসার সম্ভাবনা কম। একাধিক কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, দেশের মিল মালিক, করপোরেট ব্যবসায়ী, মধ্যম মানের ব্যবসায়ী এবং কৃষকদের কার কাছে কত শতাংশ ধান-চাল মজুত আছে তার সঠিক পরিসংখ্যান সরকারের হাতে নেই।

অন্যদিকে করপোরেট ব্যবসায়ীরা চাল ব্যবসায় আসার পর থেকে অনেক মিল মালিক তাদের বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে অনুরোধ জানিয়েছিলেন। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে তাদের সঙ্গে আলোচনা বা নীতিমালা করার কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

এখন অভিযান চালানোর মধ্যেই তাদের সঙ্গে আলোচনার উদ্যোগ নিয়েছে ভোক্তা অধিদপ্তর। জেলা পর্যায়ের একাধিক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেছেন, অভিযান আর আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সাময়িক ফল পাওয়া গেলেও দীর্ঘমেয়াদি ফল পেতে গেলে চাল আমদানির বিকল্প নেই।

তাদের মতে, অনেক করপোরেট ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা প্রতিযোগিতা করে ধান কিনেছেন। তারা সাময়িক চাপে অল্প দাম কমালেও কয়েকদিন পরই আবার আগের রূপে ফিরে যাবেন।

তাই এখন আন্তর্জাতিক বাজার ইতিবাচক আছে, কিছু আমদানির অনুমতি দিলেই চালের বাজার শান্ত হয়ে যেতে বাধ্য। উদাহরণ দিয়ে একজন কর্মকর্তা বলেন, সাধারণ কৃষকদের মধ্যে যারা ধান বিক্রি করার তারা করে ফেলেছেন।

তাই এখন চাল আমদানি করলেও কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না। সংশ্লিষ্টরা আরও বলেছেন, ধানের আগামী মৌসুমের উৎপাদন প্রায় ৬ মাস সময় লাগবে। এর মাঝে চালের বাজার স্থিতিশীল রাখতে আমদানির পথেই হাঁটতে হবে সরকারকে।

এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব আবদুল লতিফ মণ্ডল যুগান্তরকে বলেন, ‘পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে সরকারকে চাল আমদানি করতে হবে, এটা ঠিক। কিন্তু বোরোর ভরা মৌসুমে এমন সিদ্ধান্তের দিকে যাওয়া খুবই দুঃখজনক বিষয়।’

তিনি বলেন, ‘মিল মালিকরা ধান কিনে প্রয়োজনীয় চাল উৎপাদন করছে না। যতটুকু চাল উৎপাদন হচ্ছে তাও করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোকে দিচ্ছে। ফলে বাজারে নতুন চাল না আসায় চালের দাম কমছে না।’

তিনি বলেন, ‘মিল মালিকরা যে বাজারে চাল ছাড়ছে না সেটা মন্ত্রী নিজেই বলেছেন। এই বিষয়টা মন্ত্রণালয় বাজার তদারকির মাধ্যমে কেন আগে বুঝতে পারল না। চালের দাম বৃদ্ধির পর সেটা বুঝলে তো হবে না।’

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার যুগান্তরকে বলেন, চালের মজুত পরিস্থিতি জানতে সব পর্যায়ের ব্যবসায়ীদের ৬ জুন অধিদপ্তরে ডাকা হয়েছে।

সেখানে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সরবরাহ পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পাশাপাশি মজুত নিয়ে কারসাজি করা হলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সেখানে করপোরেট প্রতিষ্ঠান, বড় মিল মালিক তারা মুখোমুখি বসে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করবে। অধিদপ্তরের সংগৃহীত তথ্যের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের সরবরাহ করা তথ্যে অসঙ্গতি পেলে বড় ধরনের পদক্ষেপ নেবে।

ঢাকার বাদামতলী ও বাবুবাজার চাল আড়তদার মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজি মো. নিজামউদ্দিন ৪০ বছরের বেশি সময় চালের ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত। তিনি যুগান্তরকে বলেন, বোরোর এমন সময় চালের দামের চিত্র খুবই বিস্ময়কর।

এটা কোনোভাবেই মানা যায় না। অভিজ্ঞতা থেকে তিনি বলেন, ব্যবসায় এক টাকা-পঞ্চাশ পয়সা ব্যবসা হলেই আমরা অনেক খুশি হয়ে যেতাম।

কিন্তু এখন বড় বড় ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা শুধু চালটা প্যাকেটে ভরেই কয়েক টাকা দাম বাড়িয়ে দেন। এমন পরিস্থিতির সঙ্গে আমরা পরিচিত নই। এ অবস্থাটা সরকারকেই সামাল দিতে হবে।

রাজধানীর কাওরান বাজারের আল্লাহর দান রাইস এজেন্সির কর্ণধার সিদ্দিকুর রহমান শনিবার বিকালে যুগান্তরকে বলেন, অভিযান চললেও খুচরা বাজারে চালের দামে এখনো প্রভাব পড়েনি। তিনি বলেন, মোটা চাল আর চিকন চাল যাই বলেন, আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে।

ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) এএইচএম সফিকুজ্জামানের কাছে দেশে ধান-চালের বর্তমান মজুত পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে কোনো পরিসংখ্যান জানাতে পারেননি। তিনি যুগান্তরকে বলেন, এটা সাধারণত খাদ্য মন্ত্রণালয় করে থাকে। আমরা সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের ডেকেছি। তাদের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী করণীয় ঠিক করব।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ফুড প্ল্যানিং অ্যান্ড মনিটরিং ইউনিট (এফপিএমইউ) সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে প্রতিবছর পৌনে ৪ কোটি টন চালের চাহিদা আছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে ৩ কোটি ৭৬ লাখ টন চাল উৎপাদন হয়েছে।

খাদ্য মন্ত্রণালয় সূত্রগুলো বলছে, বাংলাদেশে চাল উৎপাদন ও চাহিদার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই। উল্লিখিত পরিসংখ্যান ধরে হিসাব করা হলেও প্রতিবছরই কিছু না কিছু চাল আমদানি হয়। এই বিষয় নিয়ে খোদ সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মধ্যে মতপার্থক্য আছে। 

বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশে চালের চাহিদার তুলনায় উদ্বৃত্ত আছে। অভিযোগ উঠেছে, মিল মালিক ও করপোরেট ব্যবসায়ীরা ধান মজুত রাখার কারণে বাজারে চালের দাম বেড়ে গেছে।

মূলত ধান নিয়ন্ত্রণকারী বড় বড় মিলার সিন্ডিকেটরা তাদের হাতে থাকা আগের চাল বেশি দামে বিক্রি করার জন্য এই কারসাজির আশ্রয় নিয়েছে। যে কারণে বোরোর ভরা মৌসুমে চালের দরে ঊর্ধ্বগতি।

এ অবস্থায় সরকার চাল আমদানির কথা চিন্তা করছে। খাদ্যমন্ত্রী সম্প্রতি বোরো সংগ্রহের তদারকিসংক্রান্ত মাঠপর্যায়ের একাধিক বৈঠকেও প্রয়োজনে চাল আমদানি করা হবে বলে জানিয়েছেন।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন