স্পিডগান ও সিসি ক্যামেরা বসানোর পর সিদ্ধান্ত
jugantor
পদ্মা সেতুতে বাইক চলাচল
স্পিডগান ও সিসি ক্যামেরা বসানোর পর সিদ্ধান্ত
রুট পারমিট ছাড়া সেতু দিয়ে বাস চলতে পারবে না-মালিক সমিতি * দ্বিতীয় দিনে টোল আদায় প্রায় ২ কোটি টাকা

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৯ জুন ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পদ্মা সেতুতে স্পিডগান ও ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা (সিসি ক্যামেরা) স্থাপনের পর মোটরসাইকেল চলাচলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নৌ পরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি জানান, মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য নয়। নৌপরিবহণ মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি সই অনুষ্ঠানের পর মঙ্গলবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

এদিকে পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজার বুথের ব্যারিয়ারে মঙ্গলবার সকালে একটি যাত্রীবাহী বাস ধাক্কা দিয়েছে। শরীয়তপুর পরিবহণের একটি বাস এই দুর্ঘটনা ঘটায়। এতে টোল প্লাজার তিন নম্বর বুথের ব্যারিয়ারটি বাঁকা হয়ে যায়। সেতু কর্তৃপক্ষ ওই বাসচালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স রেখে বাসটি ছেড়ে দিয়েছে। অন্যদিকে এক বিবৃতিতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ মালিক সমিতি জানিয়েছে, পদ্মা সেতু হয়ে দক্ষিণবঙ্গগামী কোনো বাস রুট পারমিট ছাড়া চলাচল করতে পারবে না। এছাড়া সেতুতে গাড়ি চালুর দ্বিতীয় দিনে সোমবার সকাল ৬টা থেকে মঙ্গলবার ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় টোল আদায় হয়েছে প্রায় দুই কোটি টাকা।

মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত সাময়িক-নৌ প্রতিমন্ত্রী : মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধের বিষয়ে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, এটা যে অনির্দিষ্টকালীন সিদ্ধান্ত তা নয়। এটা এখন বন্ধ আছে, মোটরবাইক সম্পর্কে যেটা বলা হয়েছে সেখানে এখন স্পিডগান, সিসি ক্যামেরা বসানো হবে। সেগুলো স্থাপনের পর হয়তো নতুন করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। পদ্মা সেতু চালুর পর লঞ্চে যাত্রী কমে যাওয়ায় মালিকদের হতাশা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তিন দিনেই হতাশা এলে হবে না। আমরা তো আশাবাদী। ১০ হাজার কিলোমিটার নৌপথ কেন তৈরি করছি? এটার চাহিদা আছে বলেই করছি। পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খোলার সঙ্গে রাজনীতি রয়েছে কিনা-এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আমরা দেখেছি যে একজন নেত্রী যিনি এতিমের টাকা আত্মসাতের জন্য কারাবরণ করে আছেন। তিনি নিজেই বলেছেন, পদ্মা সেতুতে কেউ যাবেন না ভেঙে পড়বে, এটার নাট-বল্টু জোড়াতালির। জোড়াতালির রাজনীতি তো সেরকমই। তাকে যারা অনুসরণ করেন তারা তো এটাকে সত্যই মনে করবেন। গলা থেকে একজন নারীর অলংকার ছিনতাই যেমন এটিও তেমন।

সেতুর টোল আদায় : সেতু কর্তৃপক্ষের হিসাব অনুযায়ী, মঙ্গলবার সকাল ৬টা পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় সেতু দিয়ে ১৫ হাজার ২৭৪টি যানবাহন পার হয়েছে। এখান থেকে টোল আদায় হয়েছে ১ কোটি ৯৭ লাখ ৫৬ হাজার ৬০০ টাকা। এ সময়ে মাওয়া প্রান্ত দিয়ে সেতুতে উঠেছে ৭ হাজার ৫৮৬টি যানবাহন। টোল আদায় হয়েছে ৯৮ লাখ ১৮ হাজার ৫০ টাকা। আর জাজিরা প্রান্ত দিয়ে উঠেছে ৭ হাজার ৬৮৮টি। টোল আদায় হয়েছে ৯৯ লাখ ৩৮ হাজার ৫৫০ টাকা। আগের দিনের চেয়ে আয় কমেছে ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৭০০ টাকা। মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্তে টোলের পরিমাণ কমেছে বলে জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় সেতুতে ৫১ হাজার ৩১৬টি যানবাহন চলাচল করে। ওই সময় টোল আদায় হয় দুই কোটি ৯ লাখ ৪০ হাজার ৩০০ টাকা।

মালিক সমিতির বিবৃতি : বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্যাহ এক বিবৃতিতে বলেন, ১১ জুনের সংগঠনের সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পদ্মা সেতু হয়ে দক্ষিণবঙ্গগামী কোনো বাস রুট পারমিট ছাড়া চলাচল করতে পারবে না। এ বিষয়টি নিজ নিজ জেলা মালিক সমিতি পর্যবেক্ষণ করবে। মালিক সমিতি ও শ্রমিক ফেডারেশন কর্তৃক নীতিমালার বাইরে কোনো প্রকার অর্থ আদায় করা যাবে না। এসব সিদ্ধান্ত না মানলে সাংগঠনিক ও আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার বলে বিৃতিতে জানানো হয়।

টোল প্লাজার ব্যারিয়ারে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কা : শরীয়তপুর প্রতিনিধি জানান, টোল প্লাজার কর্মকর্তারা জানান, সকাল ১০টার দিকে ঢাকাগামী শরীয়তপুর পরিবহণের একটি বাস নিয়ে পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজায় আসেন চালক রানা মিয়া। টোল দেওয়ার পর তিনি রসিদ না নিয়েই দ্রুত বাসটি নিয়ে বের হতে যান। তখন ৩ নম্বর বুথের ব্যারিয়ারটি বাসের ধাক্কায় বাঁকা হয়ে যায়। সেতুর জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজার ম্যানেজার কামাল আহম্মেদ বলেন, পদ্মা সেতুর সবকিছু স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়। টোলের স্লিপ প্রিন্ট না হওয়া পর্যন্ত ব্যারিয়ারটি খুলবে না। সকালের দিকে একটি বাস টোলের টাকা দিয়ে রসিদ প্রিন্ট না হতেই চালক গাড়িটি দ্রুতগতিতে চালিয়ে যান। তখনই ব্যারিয়ারে সজোরে ধাক্কা লাগে। পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি জানান, এদিনও পদ্মা সেতু দিয়ে মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন চালকরা। অনেককে ৭শ-৮শ টাকা করে দিয়ে পিকআপ বা ট্রাকে করে মোটরসাইকেল পার করতে দেখা যায়। এদিন সকাল থেকে টোল প্লাজা এলাকায় মোতায়েন ছিলেন সেনাবাহিনী, পুলিশসহ বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, পদ্মা সেতু টোল প্লাজায় যানবাহনের তেমন চাপ ছিল না। সকাল থেকে মোটরসাইকেল আরোহীরা আসতে থাকে পদ্মা সেতুর টোল প্লাজায়। সেখান থেকে বিকল্প পথ ফেরি দিয়ে পার হতে বললে ফেরিঘাটে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েন তারা। নাব্য সংকটের কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় বিকল্প ব্যবস্থা ট্রাক বা পিকআপে করে সেতু পারাপারের চেষ্টা করলে সেখানে বাদ সাধে পুলিশ। শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ও মাঝিকান্দি নৌরুটে চলছে না ফেরি। এমন পরিস্থিতিতে ট্রলারে পদ্মা নদী পারাপার হচ্ছেন মোটরসাইকেল চালকরা।

লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, পদ্মায় নাব্য সংকটে শিমুলিয়া-মাঝিরকান্দি নৌপথে অনির্দিষ্টকালের জন্য ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। লৌহজং টার্নিং পয়েন্ট ও পাইনপাড়া অংশের চ্যানেল মুখে নাব্য সংকট দেখা দেওয়ায় ফেরি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে বলে বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। পদ্মা সেতু যান চলাচলের জন্য রোববার খুলে দেওয়া হলে গাড়ির অভাবে ফেরি বন্ধ ঘোষণা করা হয়। কিন্তু সেতুতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুজনের প্রাণ গেলে সেতুতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করা হয়। এতে মোটরসাইকেল আরোহীরা বিপাকে পড়েন। তখন ফেরি চালুর ঘোষণা আসে। কিন্তু সোমবার রাতে নাব্য সংকটের কারণে আবারও ফেরি বন্ধ করে দেওয়া হয়। আর মঙ্গলবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে যায় ফেরি।

পদ্মা সেতুতে বাইক চলাচল

স্পিডগান ও সিসি ক্যামেরা বসানোর পর সিদ্ধান্ত

রুট পারমিট ছাড়া সেতু দিয়ে বাস চলতে পারবে না-মালিক সমিতি * দ্বিতীয় দিনে টোল আদায় প্রায় ২ কোটি টাকা
 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৯ জুন ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পদ্মা সেতুতে স্পিডগান ও ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা (সিসি ক্যামেরা) স্থাপনের পর মোটরসাইকেল চলাচলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নৌ পরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি জানান, মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য নয়। নৌপরিবহণ মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি সই অনুষ্ঠানের পর মঙ্গলবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

এদিকে পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজার বুথের ব্যারিয়ারে মঙ্গলবার সকালে একটি যাত্রীবাহী বাস ধাক্কা দিয়েছে। শরীয়তপুর পরিবহণের একটি বাস এই দুর্ঘটনা ঘটায়। এতে টোল প্লাজার তিন নম্বর বুথের ব্যারিয়ারটি বাঁকা হয়ে যায়। সেতু কর্তৃপক্ষ ওই বাসচালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স রেখে বাসটি ছেড়ে দিয়েছে। অন্যদিকে এক বিবৃতিতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ মালিক সমিতি জানিয়েছে, পদ্মা সেতু হয়ে দক্ষিণবঙ্গগামী কোনো বাস রুট পারমিট ছাড়া চলাচল করতে পারবে না। এছাড়া সেতুতে গাড়ি চালুর দ্বিতীয় দিনে সোমবার সকাল ৬টা থেকে মঙ্গলবার ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় টোল আদায় হয়েছে প্রায় দুই কোটি টাকা।

মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত সাময়িক-নৌ প্রতিমন্ত্রী : মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধের বিষয়ে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, এটা যে অনির্দিষ্টকালীন সিদ্ধান্ত তা নয়। এটা এখন বন্ধ আছে, মোটরবাইক সম্পর্কে যেটা বলা হয়েছে সেখানে এখন স্পিডগান, সিসি ক্যামেরা বসানো হবে। সেগুলো স্থাপনের পর হয়তো নতুন করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। পদ্মা সেতু চালুর পর লঞ্চে যাত্রী কমে যাওয়ায় মালিকদের হতাশা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তিন দিনেই হতাশা এলে হবে না। আমরা তো আশাবাদী। ১০ হাজার কিলোমিটার নৌপথ কেন তৈরি করছি? এটার চাহিদা আছে বলেই করছি। পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খোলার সঙ্গে রাজনীতি রয়েছে কিনা-এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আমরা দেখেছি যে একজন নেত্রী যিনি এতিমের টাকা আত্মসাতের জন্য কারাবরণ করে আছেন। তিনি নিজেই বলেছেন, পদ্মা সেতুতে কেউ যাবেন না ভেঙে পড়বে, এটার নাট-বল্টু জোড়াতালির। জোড়াতালির রাজনীতি তো সেরকমই। তাকে যারা অনুসরণ করেন তারা তো এটাকে সত্যই মনে করবেন। গলা থেকে একজন নারীর অলংকার ছিনতাই যেমন এটিও তেমন।

সেতুর টোল আদায় : সেতু কর্তৃপক্ষের হিসাব অনুযায়ী, মঙ্গলবার সকাল ৬টা পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় সেতু দিয়ে ১৫ হাজার ২৭৪টি যানবাহন পার হয়েছে। এখান থেকে টোল আদায় হয়েছে ১ কোটি ৯৭ লাখ ৫৬ হাজার ৬০০ টাকা। এ সময়ে মাওয়া প্রান্ত দিয়ে সেতুতে উঠেছে ৭ হাজার ৫৮৬টি যানবাহন। টোল আদায় হয়েছে ৯৮ লাখ ১৮ হাজার ৫০ টাকা। আর জাজিরা প্রান্ত দিয়ে উঠেছে ৭ হাজার ৬৮৮টি। টোল আদায় হয়েছে ৯৯ লাখ ৩৮ হাজার ৫৫০ টাকা। আগের দিনের চেয়ে আয় কমেছে ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৭০০ টাকা। মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্তে টোলের পরিমাণ কমেছে বলে জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় সেতুতে ৫১ হাজার ৩১৬টি যানবাহন চলাচল করে। ওই সময় টোল আদায় হয় দুই কোটি ৯ লাখ ৪০ হাজার ৩০০ টাকা।

মালিক সমিতির বিবৃতি : বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্যাহ এক বিবৃতিতে বলেন, ১১ জুনের সংগঠনের সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পদ্মা সেতু হয়ে দক্ষিণবঙ্গগামী কোনো বাস রুট পারমিট ছাড়া চলাচল করতে পারবে না। এ বিষয়টি নিজ নিজ জেলা মালিক সমিতি পর্যবেক্ষণ করবে। মালিক সমিতি ও শ্রমিক ফেডারেশন কর্তৃক নীতিমালার বাইরে কোনো প্রকার অর্থ আদায় করা যাবে না। এসব সিদ্ধান্ত না মানলে সাংগঠনিক ও আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার বলে বিৃতিতে জানানো হয়।

টোল প্লাজার ব্যারিয়ারে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কা : শরীয়তপুর প্রতিনিধি জানান, টোল প্লাজার কর্মকর্তারা জানান, সকাল ১০টার দিকে ঢাকাগামী শরীয়তপুর পরিবহণের একটি বাস নিয়ে পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজায় আসেন চালক রানা মিয়া। টোল দেওয়ার পর তিনি রসিদ না নিয়েই দ্রুত বাসটি নিয়ে বের হতে যান। তখন ৩ নম্বর বুথের ব্যারিয়ারটি বাসের ধাক্কায় বাঁকা হয়ে যায়। সেতুর জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজার ম্যানেজার কামাল আহম্মেদ বলেন, পদ্মা সেতুর সবকিছু স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়। টোলের স্লিপ প্রিন্ট না হওয়া পর্যন্ত ব্যারিয়ারটি খুলবে না। সকালের দিকে একটি বাস টোলের টাকা দিয়ে রসিদ প্রিন্ট না হতেই চালক গাড়িটি দ্রুতগতিতে চালিয়ে যান। তখনই ব্যারিয়ারে সজোরে ধাক্কা লাগে। পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি জানান, এদিনও পদ্মা সেতু দিয়ে মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন চালকরা। অনেককে ৭শ-৮শ টাকা করে দিয়ে পিকআপ বা ট্রাকে করে মোটরসাইকেল পার করতে দেখা যায়। এদিন সকাল থেকে টোল প্লাজা এলাকায় মোতায়েন ছিলেন সেনাবাহিনী, পুলিশসহ বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, পদ্মা সেতু টোল প্লাজায় যানবাহনের তেমন চাপ ছিল না। সকাল থেকে মোটরসাইকেল আরোহীরা আসতে থাকে পদ্মা সেতুর টোল প্লাজায়। সেখান থেকে বিকল্প পথ ফেরি দিয়ে পার হতে বললে ফেরিঘাটে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েন তারা। নাব্য সংকটের কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় বিকল্প ব্যবস্থা ট্রাক বা পিকআপে করে সেতু পারাপারের চেষ্টা করলে সেখানে বাদ সাধে পুলিশ। শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ও মাঝিকান্দি নৌরুটে চলছে না ফেরি। এমন পরিস্থিতিতে ট্রলারে পদ্মা নদী পারাপার হচ্ছেন মোটরসাইকেল চালকরা।

লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, পদ্মায় নাব্য সংকটে শিমুলিয়া-মাঝিরকান্দি নৌপথে অনির্দিষ্টকালের জন্য ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। লৌহজং টার্নিং পয়েন্ট ও পাইনপাড়া অংশের চ্যানেল মুখে নাব্য সংকট দেখা দেওয়ায় ফেরি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে বলে বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। পদ্মা সেতু যান চলাচলের জন্য রোববার খুলে দেওয়া হলে গাড়ির অভাবে ফেরি বন্ধ ঘোষণা করা হয়। কিন্তু সেতুতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুজনের প্রাণ গেলে সেতুতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করা হয়। এতে মোটরসাইকেল আরোহীরা বিপাকে পড়েন। তখন ফেরি চালুর ঘোষণা আসে। কিন্তু সোমবার রাতে নাব্য সংকটের কারণে আবারও ফেরি বন্ধ করে দেওয়া হয়। আর মঙ্গলবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে যায় ফেরি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন