আল্লাহর ঘরের মেহমানদের হয়রানি করলে কঠোর শাস্তি
jugantor
হজ ও ওমরাহ মেলার উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রী
আল্লাহর ঘরের মেহমানদের হয়রানি করলে কঠোর শাস্তি

  বাসস  

১৮ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রী

শান্তির ধর্ম ইসলামের মর্মবাণীতে উদ্বুদ্ধ হয়ে সমাজ থেকে অন্ধকার, অশিক্ষা, বিভেদ, সহিংসতা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলের পাশাপাশি ইসলামের অপব্যাখ্যাকারী অপশক্তিকে প্রতিহত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার তিন দিনব্যাপী হজ ও ওমরাহ মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি বলেন, আল্লাহর ঘরের মেহমানদের যারা হয়রানি করবে তাদের কঠোর শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে।

গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে শেখ হাসিনা আরও বলেন, আসুন আমরা সবাই ইসলামের বাণীকে হৃদয়ে ধারণ করি এবং সমাজ থেকে অন্ধকার, অশিক্ষা, বিভেদ দূর করি। যে অপশক্তি ইসলামের অপব্যাখ্যা করছে তাদের প্রতিহত করি।

সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম। এ শান্তির ধর্ম পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ধর্ম। অথচ কিছু সন্ত্রাসীর কারণে এ পবিত্র ধর্ম সমালোচনার সম্মুখীন এবং জঙ্গিবাদের কারণে অপমানজনক কথা শুনতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইসলামের খেদমতের জন্য অনেক কাজ করেছেন। আমরা তার উত্তরসূরি হিসাবে ইসলাম ও জনগণের উন্নয়নে নিরলস কাজ করে যাচ্ছি।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশকে জঙ্গিবাদমুক্ত রেখে পবিত্র ইসলামের শান্তিপূর্ণ গৌরব সমুন্নত রাখতে আমরা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ এবং আলেম-ওলামাদের সম্পৃক্ত করেছি। মানবসম্পদ উন্নয়নে ধর্মীয় নেতাকে সম্পৃক্ত করে মসজিদের ইমামদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে আমরা মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় লাখ লাখ শিশুকে কুরআন শিক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করেছি।

তিনি বলেন, আমরা দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে মোট ৫৬৪টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা আইন-২০২১ এবং হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা বিধিমালা-২০২২ প্রণয়ন করেছি। এর ফলে হজ কার্যক্রমে অব্যবস্থাপনা, অনিয়ম ও অসদাচরণের অভিযোগের প্রতিকার হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, হজযাত্রীদের সঙ্গে কোনো এজেন্সি প্রতারণা বা হয়রানি করলে সেই এজেন্সির বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। আগামী দিনগুলোতেও আল্লাহর ঘরের মেহমানদের যারা হয়রানি করবে তাদের কঠোর শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে। আগামীতে যারা হজে যাবেন তাদের হজের পাশাপাশি সৌদি আরবের সব নিয়মকানুন ও আইন সম্পর্কে জানা এবং মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।

অতীতে হজযাত্রীদের নিয়ে কিছু স্বার্থন্বেষী মহল, দালাল-প্রতারকদের প্রতারণা, হজযাত্রী পরিবহণে চরম বিশৃঙ্খলা ও অনিয়মের ঘটনার স্মরণ করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা সরকারের দায়িত্ব গ্রহণের পরপরই হজ ব্যবস্থাপনাকে অগ্রাধিকার দিয়ে বিশ্বমানে উন্নীত করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি।

এরগুলোর মধ্যে রয়েছে-ই-হজ ব্যবস্থাপনা, হজযাত্রীর প্রাক-নিবন্ধন, নিবন্ধন, ই-হেলথ প্রোফাইল তৈরি, ই-টিকিট, হজযাত্রী পরিবহণ, মক্কা-মদিনায় আবাসন ব্যবস্থা, চিকিৎসা সেবা প্রদানসহ সব ক্ষেত্রে ই-হজ ব্যবস্থাপনা। পাশাপাশি জেদ্দায় পৃথক হজ অফিস স্থাপন এবং সেখানে একজন কাউন্সিলর (হজ) ও একজন কনসাল জেনারেল (হজ) নিয়োগ দেওয়ার কথাও তিনি উল্লেখ করেন।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) জাতীয় পর্যায়ের হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা সম্মেলন এবং হজ ও ওমরাহ মেলার আয়োজন করে। হজ-সম্পর্কিত যথাযথ তথ্য সরবরাহ, বর্তমান প্রযুক্তি-ভিত্তিক হজ ব্যবস্থাপনা, হজ এজেন্সির সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ এবং মধ্যস্বত্বভোগী ও প্রতারকদের প্রভাব হ্রাস করতে এ আয়োজন।

‘হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা : অর্জন ও কর্মকাণ্ড’ এবং ‘ই-হজ ব্যবস্থাপনা এবং মক্কা উদ্যোগের রুট’ বিষয়ে দুটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। বিভিন্ন হজ ও আর্থিক সংস্থা এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ মেলায় প্রায় ১৫০টি স্টল এবং প্যাভিলিয়ন স্থাপন করেছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত হজযাত্রীদের জন্য মেলা উন্মুক্ত থাকবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী এনামুল হাসান, বাংলাদেশে সৌদি রাষ্ট্রদূত ইসা বিন ইউসুফ আল-দাহিলান এবং হাব সভাপতি শাহাদাত হোসেন তসলিম বক্তব্য দেন।

পেট্রোলিয়াম শোধনাগার নির্মাণে কুয়েতের প্রস্তাব বাস্তবায়নের নির্দেশ : বাংলাদেশে পেট্রোলিয়াম শোধনাগার স্থাপনে কুয়েতের প্রস্তাব অনুযায়ী কাজ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দ্রুততম সময়ে বাংলাদেশ-কুয়েত জয়েন্ট কমিশন গঠনেরও তিনি নির্দেশ দেন। বৃহস্পতিবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন কুয়েতের রাষ্ট্রদূত ফয়সাল মুতলাক আলাদওয়ানি। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, গত বছর কুয়েত সফরের সময় সে দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ সাবাহ খালেদ আল-হামাদ আল-সাবাহ বাংলাদেশে পেট্রোলিয়াম শোধনাগার নির্মাণে আগ্রহ প্রকাশ করেন। শোধনাগার স্থাপনে তার সরকার ইতোমধ্যে জমি বরাদ্দ করেছে।

দুদেশের মধ্যে বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, কুয়েতের জনগণ বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়ে রয়েছে। বাংলাদেশের সামরিক বাহিনী ও প্রবাসী বাংলাদেশি শ্রমিকদের প্রতি বিশেষ যত্ন নেওয়ায় তিনি কুয়েত সরকারকে ধন্যবাদ জানান। কুয়েতের রাষ্ট্রদূত বলেন, তার দেশ বাংলাদেশকে উন্নয়ন প্রকল্পে সহায়তা করবে।

সিঙ্গাপুরের উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলে বৃহত্তর বিনিয়োগে সিঙ্গাপুরের উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, সারা দেশে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে সরকার। সিঙ্গাপুরের উদ্যোক্তাদের এসব অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের জন্য আমি আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। বৃহস্পতিবার সিঙ্গাপুরের পরিবহণ মন্ত্রী এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত বাণিজ্য সম্পর্কমন্ত্রী এস ঈশ্বরান গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।

অর্থনৈতিক অঞ্চলে কৃষি প্রক্রিয়াকরণ শিল্প স্থাপনের ওপর শেখ হাসিনা গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত রয়েছে এবং রিফুয়েলিং সুবিধাসহ কক্সবাজারে একটি নতুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ করা হচ্ছে। বৈঠকে দুদেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ৫০ বছরপূর্তির বিষয়ও দুই নেতা আলোচনা করেন।

এস ঈশ্বরান বলেন, উভয় দেশেরই পর্যটন খাতে সহযোগিতার সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি বলেন, সিঙ্গাপুর ও বাংলাদেশ সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্র অন্বেষণ এবং সম্ভাবনাময় খাত অনুসন্ধানে একটি যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনে একসঙ্গে কাজ করতে পারে। বাংলাদেশের উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ শক্তিশালী হয়েছে।

হজ ও ওমরাহ মেলার উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রী

আল্লাহর ঘরের মেহমানদের হয়রানি করলে কঠোর শাস্তি

 বাসস 
১৮ নভেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
প্রধানমন্ত্রী
ভিডিও কনফারেন্সে হজ ও ওমরাহ মেলার উদ্বোধন করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা -পিএমও

শান্তির ধর্ম ইসলামের মর্মবাণীতে উদ্বুদ্ধ হয়ে সমাজ থেকে অন্ধকার, অশিক্ষা, বিভেদ, সহিংসতা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলের পাশাপাশি ইসলামের অপব্যাখ্যাকারী অপশক্তিকে প্রতিহত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার তিন দিনব্যাপী হজ ও ওমরাহ মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি বলেন, আল্লাহর ঘরের মেহমানদের যারা হয়রানি করবে তাদের কঠোর শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে।

গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে শেখ হাসিনা আরও বলেন, আসুন আমরা সবাই ইসলামের বাণীকে হৃদয়ে ধারণ করি এবং সমাজ থেকে অন্ধকার, অশিক্ষা, বিভেদ দূর করি। যে অপশক্তি ইসলামের অপব্যাখ্যা করছে তাদের প্রতিহত করি।

সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম। এ শান্তির ধর্ম পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ধর্ম। অথচ কিছু সন্ত্রাসীর কারণে এ পবিত্র ধর্ম সমালোচনার সম্মুখীন এবং জঙ্গিবাদের কারণে অপমানজনক কথা শুনতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইসলামের খেদমতের জন্য অনেক কাজ করেছেন। আমরা তার উত্তরসূরি হিসাবে ইসলাম ও জনগণের উন্নয়নে নিরলস কাজ করে যাচ্ছি।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশকে জঙ্গিবাদমুক্ত রেখে পবিত্র ইসলামের শান্তিপূর্ণ গৌরব সমুন্নত রাখতে আমরা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ এবং আলেম-ওলামাদের সম্পৃক্ত করেছি। মানবসম্পদ উন্নয়নে ধর্মীয় নেতাকে সম্পৃক্ত করে মসজিদের ইমামদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে আমরা মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় লাখ লাখ শিশুকে কুরআন শিক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করেছি।

তিনি বলেন, আমরা দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে মোট ৫৬৪টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা আইন-২০২১ এবং হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা বিধিমালা-২০২২ প্রণয়ন করেছি। এর ফলে হজ কার্যক্রমে অব্যবস্থাপনা, অনিয়ম ও অসদাচরণের অভিযোগের প্রতিকার হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, হজযাত্রীদের সঙ্গে কোনো এজেন্সি প্রতারণা বা হয়রানি করলে সেই এজেন্সির বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। আগামী দিনগুলোতেও আল্লাহর ঘরের মেহমানদের যারা হয়রানি করবে তাদের কঠোর শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে। আগামীতে যারা হজে যাবেন তাদের হজের পাশাপাশি সৌদি আরবের সব নিয়মকানুন ও আইন সম্পর্কে জানা এবং মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।

অতীতে হজযাত্রীদের নিয়ে কিছু স্বার্থন্বেষী মহল, দালাল-প্রতারকদের প্রতারণা, হজযাত্রী পরিবহণে চরম বিশৃঙ্খলা ও অনিয়মের ঘটনার স্মরণ করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা সরকারের দায়িত্ব গ্রহণের পরপরই হজ ব্যবস্থাপনাকে অগ্রাধিকার দিয়ে বিশ্বমানে উন্নীত করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি।

এরগুলোর মধ্যে রয়েছে-ই-হজ ব্যবস্থাপনা, হজযাত্রীর প্রাক-নিবন্ধন, নিবন্ধন, ই-হেলথ প্রোফাইল তৈরি, ই-টিকিট, হজযাত্রী পরিবহণ, মক্কা-মদিনায় আবাসন ব্যবস্থা, চিকিৎসা সেবা প্রদানসহ সব ক্ষেত্রে ই-হজ ব্যবস্থাপনা। পাশাপাশি জেদ্দায় পৃথক হজ অফিস স্থাপন এবং সেখানে একজন কাউন্সিলর (হজ) ও একজন কনসাল জেনারেল (হজ) নিয়োগ দেওয়ার কথাও তিনি উল্লেখ করেন।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) জাতীয় পর্যায়ের হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা সম্মেলন এবং হজ ও ওমরাহ মেলার আয়োজন করে। হজ-সম্পর্কিত যথাযথ তথ্য সরবরাহ, বর্তমান প্রযুক্তি-ভিত্তিক হজ ব্যবস্থাপনা, হজ এজেন্সির সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ এবং মধ্যস্বত্বভোগী ও প্রতারকদের প্রভাব হ্রাস করতে এ আয়োজন।

‘হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা : অর্জন ও কর্মকাণ্ড’ এবং ‘ই-হজ ব্যবস্থাপনা এবং মক্কা উদ্যোগের রুট’ বিষয়ে দুটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। বিভিন্ন হজ ও আর্থিক সংস্থা এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ মেলায় প্রায় ১৫০টি স্টল এবং প্যাভিলিয়ন স্থাপন করেছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত হজযাত্রীদের জন্য মেলা উন্মুক্ত থাকবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী এনামুল হাসান, বাংলাদেশে সৌদি রাষ্ট্রদূত ইসা বিন ইউসুফ আল-দাহিলান এবং হাব সভাপতি শাহাদাত হোসেন তসলিম বক্তব্য দেন।

পেট্রোলিয়াম শোধনাগার নির্মাণে কুয়েতের প্রস্তাব বাস্তবায়নের নির্দেশ : বাংলাদেশে পেট্রোলিয়াম শোধনাগার স্থাপনে কুয়েতের প্রস্তাব অনুযায়ী কাজ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দ্রুততম সময়ে বাংলাদেশ-কুয়েত জয়েন্ট কমিশন গঠনেরও তিনি নির্দেশ দেন। বৃহস্পতিবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন কুয়েতের রাষ্ট্রদূত ফয়সাল মুতলাক আলাদওয়ানি। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, গত বছর কুয়েত সফরের সময় সে দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ সাবাহ খালেদ আল-হামাদ আল-সাবাহ বাংলাদেশে পেট্রোলিয়াম শোধনাগার নির্মাণে আগ্রহ প্রকাশ করেন। শোধনাগার স্থাপনে তার সরকার ইতোমধ্যে জমি বরাদ্দ করেছে।

দুদেশের মধ্যে বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, কুয়েতের জনগণ বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়ে রয়েছে। বাংলাদেশের সামরিক বাহিনী ও প্রবাসী বাংলাদেশি শ্রমিকদের প্রতি বিশেষ যত্ন নেওয়ায় তিনি কুয়েত সরকারকে ধন্যবাদ জানান। কুয়েতের রাষ্ট্রদূত বলেন, তার দেশ বাংলাদেশকে উন্নয়ন প্রকল্পে সহায়তা করবে।

সিঙ্গাপুরের উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলে বৃহত্তর বিনিয়োগে সিঙ্গাপুরের উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, সারা দেশে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে সরকার। সিঙ্গাপুরের উদ্যোক্তাদের এসব অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের জন্য আমি আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। বৃহস্পতিবার সিঙ্গাপুরের পরিবহণ মন্ত্রী এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত বাণিজ্য সম্পর্কমন্ত্রী এস ঈশ্বরান গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।

অর্থনৈতিক অঞ্চলে কৃষি প্রক্রিয়াকরণ শিল্প স্থাপনের ওপর শেখ হাসিনা গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত রয়েছে এবং রিফুয়েলিং সুবিধাসহ কক্সবাজারে একটি নতুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ করা হচ্ছে। বৈঠকে দুদেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ৫০ বছরপূর্তির বিষয়ও দুই নেতা আলোচনা করেন।

এস ঈশ্বরান বলেন, উভয় দেশেরই পর্যটন খাতে সহযোগিতার সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি বলেন, সিঙ্গাপুর ও বাংলাদেশ সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্র অন্বেষণ এবং সম্ভাবনাময় খাত অনুসন্ধানে একটি যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনে একসঙ্গে কাজ করতে পারে। বাংলাদেশের উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ শক্তিশালী হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন