বিশৃঙ্খলা করে সরকার হটানো যাবে না
jugantor
গোপালগঞ্জে ওবায়দুল কাদের
বিশৃঙ্খলা করে সরকার হটানো যাবে না

  গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি  

০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিএনপিকে উদ্দেশ করে বলেছেন, আন্দোলনের নামে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে সরকার হটানো যাবে না। সরকার পরিবর্তনের একমাত্র পথ নির্বাচন। জনগণের ভোটে যারা বিজয়ী হবে, তারাই সরকার গঠন করবে। নির্বাচন ছাড়া সরকার বদলে তাদের স্বপ্ন কখনো পূরণ হবে না।

বৃহস্পতিবার গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন উদ্বোধনের পর দেওয়া বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুলের মুখে মধু আর অন্তরে বিষ। তারা ১০ ডিসেম্বর সমাবেশের অনুমতি চেয়েছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এতে তারা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন না। নতুন নতুন নাটক করে যাচ্ছেন। আমরা কাউকে সমাবেশ করতে বাধা দেব না। প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন, ঢাকায় বিএনপির সমাবেশে কোনো পরিবহণ ধর্মঘট থাকবে না। এরপরও যদি লাঠি ও আগুন নিয়ে মাঠে নামেন তাহলে খবর আছে।

তিনি বলেন, তারেক রহমান কোনোদিন রাজনীতি করবেন না বলে মুচলেকা দিয়ে লন্ডনে গিয়ে বাংলাদেশ ও স্বাধীনতার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছেন। দেশ থেকে অর্থ পাচার করে বিভিন্ন দেশে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। কত টাকা পাচার করেছেন তা উদ্ধার করা হবে।

সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, সব মতভেদ ভুলে আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। কারণ স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিরা আজ ঐক্যবদ্ধ। আমরা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকি, আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে-তাহলে এমন কোনো শক্তি নেই যে, আওয়ামী লীগকে পরাজিত করতে পারে।

তিনি বলেন, বিএনপি কোনো রাজনৈতিক দল নয়। এটা একটা খুনির দল। বিএনপির জন্ম ক্যান্টনমেন্টে। ক্যান্টনমেন্টে সৃষ্ট কোনো দল কখনো গণতান্ত্রিক হতে পারে না। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর তাদের ষড়যন্ত্র থেমে ছিল না। তারা শেখ হাসিনাকে ১৯ বার হত্যার চেষ্টা করেছে। কিন্তু আল্লাহর অশেষ রহমতে তিনি বেঁচে যান।

শেখ সেলিম বলেন, শেখ হাসিনা বেঁচে ছিলেন বলে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে। চার জাতীয় নেতা হত্যার বিচার হয়েছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে। শেখ হাসিনা বেঁচে ছিলেন বলেই আমরা আজ সম্ভাবনাময় দেশ হয়েছি। শেখ হাসিনা বেঁচে থাকলে ২০৪১ সালে বাংলাদেশ বিশ্বের উন্নত দেশ হিসেবে পরিণত হবে।

গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী এমদাদুল হকের সভাপতিত্বে পৌরপার্কে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুহাম্মদ ফারুক খান এমপি, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি ও এসএম কামাল হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নার্গিস রহমান এমপি, আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ। সঞ্চালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলী খান।

সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে শেখ ফজলুল করিম সেলিম জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে মাহবুব আলী খান ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জিএম সাহাব উদ্দিন আজম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে কাজী লিয়াকত আলী লেকু ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মো. আবু সিদ্দিক সিকদার এবং গোপালগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে মো. গোলাম কবির ও সাধারণ সম্পাদক হিসাবে আলীমুজ্জামান বিটুর নাম ঘোষণা করেন।

গোপালগঞ্জে ওবায়দুল কাদের

বিশৃঙ্খলা করে সরকার হটানো যাবে না

 গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি 
০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিএনপিকে উদ্দেশ করে বলেছেন, আন্দোলনের নামে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে সরকার হটানো যাবে না। সরকার পরিবর্তনের একমাত্র পথ নির্বাচন। জনগণের ভোটে যারা বিজয়ী হবে, তারাই সরকার গঠন করবে। নির্বাচন ছাড়া সরকার বদলে তাদের স্বপ্ন কখনো পূরণ হবে না।

বৃহস্পতিবার গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন উদ্বোধনের পর দেওয়া বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুলের মুখে মধু আর অন্তরে বিষ। তারা ১০ ডিসেম্বর সমাবেশের অনুমতি চেয়েছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এতে তারা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন না। নতুন নতুন নাটক করে যাচ্ছেন। আমরা কাউকে সমাবেশ করতে বাধা দেব না। প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন, ঢাকায় বিএনপির সমাবেশে কোনো পরিবহণ ধর্মঘট থাকবে না। এরপরও যদি লাঠি ও আগুন নিয়ে মাঠে নামেন তাহলে খবর আছে।

তিনি বলেন, তারেক রহমান কোনোদিন রাজনীতি করবেন না বলে মুচলেকা দিয়ে লন্ডনে গিয়ে বাংলাদেশ ও স্বাধীনতার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছেন। দেশ থেকে অর্থ পাচার করে বিভিন্ন দেশে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। কত টাকা পাচার করেছেন তা উদ্ধার করা হবে।

সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, সব মতভেদ ভুলে আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। কারণ স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিরা আজ ঐক্যবদ্ধ। আমরা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকি, আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে-তাহলে এমন কোনো শক্তি নেই যে, আওয়ামী লীগকে পরাজিত করতে পারে।

তিনি বলেন, বিএনপি কোনো রাজনৈতিক দল নয়। এটা একটা খুনির দল। বিএনপির জন্ম ক্যান্টনমেন্টে। ক্যান্টনমেন্টে সৃষ্ট কোনো দল কখনো গণতান্ত্রিক হতে পারে না। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর তাদের ষড়যন্ত্র থেমে ছিল না। তারা শেখ হাসিনাকে ১৯ বার হত্যার চেষ্টা করেছে। কিন্তু আল্লাহর অশেষ রহমতে তিনি বেঁচে যান।

শেখ সেলিম বলেন, শেখ হাসিনা বেঁচে ছিলেন বলে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে। চার জাতীয় নেতা হত্যার বিচার হয়েছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে। শেখ হাসিনা বেঁচে ছিলেন বলেই আমরা আজ সম্ভাবনাময় দেশ হয়েছি। শেখ হাসিনা বেঁচে থাকলে ২০৪১ সালে বাংলাদেশ বিশ্বের উন্নত দেশ হিসেবে পরিণত হবে।

গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী এমদাদুল হকের সভাপতিত্বে পৌরপার্কে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুহাম্মদ ফারুক খান এমপি, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি ও এসএম কামাল হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নার্গিস রহমান এমপি, আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ। সঞ্চালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলী খান।

সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে শেখ ফজলুল করিম সেলিম জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে মাহবুব আলী খান ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জিএম সাহাব উদ্দিন আজম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে কাজী লিয়াকত আলী লেকু ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মো. আবু সিদ্দিক সিকদার এবং গোপালগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে মো. গোলাম কবির ও সাধারণ সম্পাদক হিসাবে আলীমুজ্জামান বিটুর নাম ঘোষণা করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন