উন্নয়নের জন্যই মানুষ নৌকায় ভোট দেবে

জাহাঙ্গীর আলম

  ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি, গাজীপুর থেকে ২৫ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গাজীপুর
ছবি: যুগান্তর

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনভুক্ত এলাকার উন্নয়নের জন্যই মানুষ নৌকায় ভোট দেবেন বলে আশা প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী মো. জাহাঙ্গীর আলম। তিনি বলেন, সরকার ও নির্বাচন কমিশন বিতর্কিত করতে বিএনপি নানা অভিযোগ করছে। নির্বাচন নিয়ে তাদের অভিযোগ সত্য নয় বলেও দাবি করেন তিনি। নিয়ম মেনে তিনি প্রচার চালিয়েছেন বলেও দাবি করেন জাহাঙ্গীর। রোববার নগরীর ছয়দানায় নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির অভিযোগ প্রসঙ্গে জাহাঙ্গীর আলম বলেন, গাজীপুরে সব জেলার মানুষ বসবাস করেন। গত সিটি নির্বাচনে বিএনপিকে ভোট দিলেও মানুষ কোনো উন্নয়ন পায়নি। রাস্তাঘাটের কোনো উন্নয়ন হয়নি। মহানগরের অভ্যন্তরে এমন কোনো ভালো রাস্তা নেই যে, মানুষ স্বাভাবিকভাবে চলাচল করতে পারে।

ভোট দিয়ে মানুষ বঞ্চিত হয়েছে। অথচ বিএনপির নেতারা শুধু সরকারের সমালোচনা করছেন। তিনি আরও বলেন, বিএনপি নেতাদের নিজেদের দ্বন্দ্বের কারণে মামলা হয়েছে। দলের দ্বন্দ্বের কারণে এবার মান্নান (বর্তমান মেয়র) দলীয় মনোনয়ন পাননি। তবুও আমাদের বিরুদ্ধে কেন তারা বাজে কথা বলছেন? তারা (বিএনপির মেয়র প্রার্থীর পরিবার) আহসান উল্লাহ মাস্টারের মতো মানুষকে হত্যা করেছে। তারা খুনি পরিবার। তাদের থেকে আমার মা আমাকে সাবধানে চলার কথা বলেছেন। আমি মানুষের অধিকারের কথা বলছি।

জনগণকে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়ে জাহাঙ্গীর বলেন, সবার জানমাল রক্ষার স্বার্থে গাজীপুরবাসী আমাকে ভোট দিন। প্রধানমন্ত্রীকে সম্মানিত করুন। একটি আধুনিক পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সবার কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চাই, দোয়া চাই।

মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর বলেন, শুরুতেই নির্বাচন কমিশনের নিয়মকানুন মেনে প্রচার শুরু করেছি। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, বিএনপি ও ২০ দলীয় জোট এবং তাদের প্রার্থী কবর জিয়ারতের ঘটনাকেও কমিশনের কাছে নালিশ করেছেন। ২০ দলীয় জোটের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মতে বিএনপি নেতারা প্রতিদিন নানা ধরনের নালিশ করে গাজীপুরবাসীকে, আমাকে, নির্বাচন কমিশন ও সরকারকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করেছেন।

জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বিএনপির প্রার্থী হাসান সরকার এখন ভোট না চেয়ে অভিযোগ করে বেড়াচ্ছেন। গাজীপুরে হাসান সরকার একাধিক ভোট ডাকাতির নির্বাচন করেছেন। ভোটের জন্য রক্তাক্ত করেছেন মানুষকে। আমি চাই না এখানে কোনো রক্ত ঝরুক।

বিএনপির সমালোচনা করে তিনি বলেন, তারা কখনও ভোট চাইছে না। সব সময় তারা মিডিয়ায় বলছে, তারা এই না হলে এই করবে, সেই করবে ইত্যাদি। তিনি বলেন, গাজীপুরের এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আমরা বিএনপি বা ২০ দলীয় জোটের কারও নামে মামলা, কারও ওপর হামলা বা তাদের নির্বাচনী প্রচার কাজ ব্যাহত করিনি। এমনকি বিএনপি প্রার্থীর সঙ্গে একাধিকবার তার বাসায় গিয়ে সাক্ষাৎ করেছি। প্রচারণায় তার কোনো সমস্যা হচ্ছে কি না খোঁজখবর নিয়েছি এবং সহযোদ্ধা হিসেবে এখনও নিচ্ছি। তারপরও তিনি অওয়ামী লীগকে, নৌকা প্রতীককে, বিশেষ করে নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য মিডিয়ার সামনে নানা কথা বলছেন।

তিনি (হাসান) বলছেন, আমরা নাকি তাদের পোলিং এজেন্টদের বাধাগ্রস্ত করছি। আমি বলতে পারি, সিটি কর্পোরেশনের ৪২৫টি ভোট কেন্দ্রের তাদের এজেন্টকে আমরা চিনি না। বাধা দেয়ার তো প্রশ্নই আসে না। আমরা তাদের সব কাজে সহযোগিতা করেছি।

নির্বাচনী এলাকার বাসিন্দা নন- ক্ষমতাসীন দলের এমন কয়েক নেতার গাজীপুরে অবস্থান প্রসঙ্গে জাহাঙ্গীর বলেন, শনিবার রাত ১২টার পর বহিরাগতদের অবস্থান নিষেধ। নির্বাচন কমিশন একটা গণবিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। এ বিষয়ে কমিশন থেকে চিঠি দিলে আমরা প্রার্থীরা আগেই এটা মেনে চলতাম। কারণ আমি প্রচারণায় ছিলাম। আমি এখনও এ রকম কোনো চিঠি পাইনি। চিঠি পেলে অবশ্যই আমি তা মেনে চলব।

সংবাদ সম্মেলনে জাহাঙ্গীর আলমের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান বলেন, রাত ১২টার পর থেকে বাইরের কোনো লোক যেন গাজীপুরে না থাকে, সে বিষয়টির প্রতি আমাদের নজর ছিল না। আমরা প্রচারণায় ছিলাম। এখন জেনেছি, মেনে চলব। সংবাদ সম্মেলনে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট ওয়াজউদ্দিন মিয়া, গাজীপুর চেম্বার অ্যান্ড কমার্সের সভাপতি আনোয়ার সাদত প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ঘটনাপ্রবাহ : গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ২০১৮

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter