পরামর্শ নিয়ে কাজ করবেন লিটন নানা অভিযোগ বুলবুলের

  রাজশাহী ব্যুরো ১৩ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) নির্বাচনে বিজয়ী হলে সবার পরামর্শ নিয়ে কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

বৃহস্পতিবার তৃতীয় দিনের গণসংযোগে তিনি এমন মন্তব্য করেন। অন্যদিকে বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে না যেতে ভয় দেখাচ্ছে।

দুপুরে আরডিএ মার্কেট সাধারণ ব্যবসায়ী সমিতির কার্যালয়ে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এ সময় তিনি বলেন, রাজশাহীর অনেক উন্নয়ন এখনও বাকি আছে। নির্বাচিত হলে সবার পরামর্শ নিয়ে কাজ করব। নগরীতে শিল্প-কারখানা গড়ে লক্ষাধিক ছেলেমেয়ের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করব। এসিবি ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে রাজশাহীর সব ব্যবসায়ীদের স্বল্প সুদে ঋণের ব্যবস্থা করব।

তিনি আরও বলেন, নৌকা হচ্ছে স্বাধীনতার প্রতীক। নৌকা উন্নয়নের প্রতীক। রাজশাহীর উন্নয়নের জন্য নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে আমাকে নির্বাচিত করুন। নগরবাসীর কাক্সিক্ষত সব উন্নয়নে সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করব।

মতবিনিময় সভায় ব্যবসায়ী নেতারা বলেন, আরডিএ মার্কেটের সব ব্যবসায়ী খায়রুজ্জামান লিটনকে সমর্থন দিয়েছেন। কারণ একটাই রাজশাহীর উন্নয়ন। আর লিটন ছাড়া রাজশাহীর উন্নয়ন সম্ভব নয়। তাই দলমত নির্বিশেষে আমরা সবাই লিটনকে ভোট দেব।

সভায় উপস্থিত ছিলেন- আরডিএ মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির উপদেষ্টা সেকেন্দার আলী, সভাপতি ফরিদ মামুদ হাসান, সহ-সভাপতি জাহিদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ফরাদ মামুদ হাসান, বোয়ালিয়া থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি আতিকুর রহমান কালু প্রমুখ।

এর আগে সকালে নগরীর আরডিএ মার্কেট, কাপড়পট্টি ও স্বর্ণপট্টি এলাকায় গণসংযোগ করেন লিটন। বেলা ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলে। এরপর বিকাল সাড়ে ৫টায় নগরীর শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান চত্বরসংলগ্ন মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে নিয়ে গণসংযোগ শুরু করেন লিটন।

এদিকে বৃহস্পতিবার নগরীর ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে গণসংযোগকালে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বলেন, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ভোটারদের কেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য ভয় দেখাচ্ছে। কিন্তু শত বাধা উপেক্ষা করে ভোট কেন্দ্রে যেতে হবে। এছাড়া বিভিন্ন ওয়ার্ডে আমাদের পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন সন্ত্রাসীরা টাঙাতে বাধা দিচ্ছে। এ ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আমাদের বিজয় ঠেকানো যাবে না। আমরা আবারও বিজয়ী হব ইনশাআল্লাহ।

এ সময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন, শাহ্ মখ্দুম থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মতিন, ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বেলাল আহম্মেদ, মহানগর যুবদল সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সুইট, জেলা যুবদল সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন, মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান রিটন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবেদুর রেজা রিপন প্রমুখ।

শত নির্যাতন হলেও নির্বাচনে থাকবে বিএনপি -মিনু : এদিকে দুপুরে রাজশাহী মহানগর বিএনপি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু বলেছেন, শত নির্যাতন হলেও শেষ পর্যন্ত মেয়র পদে নির্বাচনে থাকবে বিএনপি। কারণ, আমাদের প্রধান লক্ষ্য দলের প্রধান সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি। মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে বিজয়ী করে আমরা প্রমাণ করতে চাই দল হিসেবে বিএনপির জনপ্রিয়তা অক্ষুণ্ণ। আর খালেদা জিয়ার প্রতি জনগণের আস্থা এখনও অটুট।

নগরীর মালোপাড়ায় নগর বিএনপি কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনে রাজশাহীর সাবেক মেয়র মিনু আরও বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার সরকারের এজেন্ট। আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থীর নির্বাচন আচরণবিধি লঙ্ঘনের ব্যাপারে অভিযোগ করার পরও নির্বাচন কমিশন তা আমলে নিচ্ছে না। নির্বাচন কমিশন রাজশাহী কার্যালয় সরকারের নির্দেশে চলছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের আয়োজন করতে নির্বাচন কমিশন একশ’ ভাগ ব্যর্থ।

তিনি বলেন, নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই। পুলিশ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সহায়তায় বিএনপির সমর্থকদের নির্যাতন করছে। ইতিমধ্যে ২৯ জন বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ অবস্থা থাকবে না। নভেম্বরের পর এ পরিস্থিতির পরিবর্তন হবে। তখন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা কী করেন- সেটা দেখার অপেক্ষায় আছি বলেও মন্তব্য করেন এ বিএনপি নেতা।

সংবাদ সম্মেলনে মোসাদেক হোসেন বুলবুল বলেন, নগর গোয়েন্দা পুলিশ এবং কাশিয়াডাঙা থানার দুই ওসি আওয়ামী লীগের পক্ষে কাজ করছে। এ দুই পুলিশ কর্মকর্তা বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে। অবিলম্বে এ দুই পুলিশ কর্মকর্তার অপসারণ দাবি করছি। পাশাপাশি বিএনপির পক্ষ থেকে যে অভিযোগগুলো করা হয়েছে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে দিয়ে তা তদন্ত করতে হবে।

রাজশাহী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলনের সঞ্চালনায় এ সময় বিএনপির কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ঘটনাপ্রবাহ : রাজশাহী-বরিশাল-সিলেট সিটি নির্বাচন ২০১৮

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter