অঘটনপ্রসবা বিশ্বকাপ পেছন ফিরে দেখা

  স্পোর্টস ডেস্ক ১৬ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বকাপের ফাইনালে বিশেষ মুহূর্ত
ছবি: সিএনএন

সব শুরুর শেষ আছে। বিশ্বকাপও শেষ হল। চরম নাটকীয়তা ও শ্বাসরুদ্ধকর, ধুন্ধুমার ফুটবলযুদ্ধ শেষ হল রোববার ফ্রান্স-ক্রোয়েশিয়া ফাইনালের মধ্যদিয়ে। ৩২ দিন ৩২ দেশ তুমুল লড়াই করার পথে একে একে ঝরে গেল ৩০ দেশ। মস্কোয় ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের শেষ মহারণে অবতীর্ণ হল ফ্রান্স ও ক্রোয়েশিয়া।

ফাইনালের পথে ফ্রান্স একে একে হারিয়েছে আর্জেন্টিনা, উরুগুয়ে ও বেলজিয়ামের মতো ফুটবল পরাশক্তিদের। আর ক্রোয়েশিয়া ডেনমার্ক ও রাশিয়াকে টাইব্রেকারে বধ করার পর অতিরিক্ত সময়ে হারায় ইংল্যান্ডকে।

অঘটনের মেঘ সারাক্ষণ আনাগোনা করেছে এবারের বিশ্বকাপের আকাশে। গেলবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি, ২০১০-এর শিরোপাজয়ী স্পেন, দু’বারের শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী আর্জেন্টিনা এবং ধারে-ভারে এগিয়ে থাকা পাঁচবারের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল আগেভাগেই বিদায় নিয়েছে।

টুর্নামেন্ট শুরুর আগে কেউ ভাবেনি যে, মাত্র ৪১ লাখ জনসংখ্যার পূর্ব ইউরোপের ছোট্ট একটি দেশ ক্রোয়েশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলবে। রাশিয়া বিশ্বকাপ শুরুর আগে আলোচনা তুঙ্গে ছিল মেসি, নেইমার, রোনাল্ডোকে নিয়ে। তারা ছিটকে গেলেন আগেই। আর শেষ মহারণে স্পটলাইট থাকল ফ্রান্সের এনগোলো কান্তে, আঁতোয়া গ্রিজমান এবং ১৯ বছরের টগবগে তরুণ কিলিয়ান এমবাপ্পের ওপর। ওদিকে আলো ছড়ালেন ক্রোয়েশিয়ার লুকা মডরিচ, ইভান রাকিতিচ, মারিও মানজুকিচরা। সেমিফাইনাল লাইনআপ চূড়ান্ত হওয়ার পর নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল যে, এবার ট্রফি ইউরোপে যাচ্ছে।

বিশ্বকাপের শেষদিন নির্ধারিত হল ক্রোয়েশিয়া ও ফ্রান্সের ভাগ্য। ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনো সোল্লাসে বলেছেন যে, ‘ইতিহাসের সেরা বিশ্বকাপ হল এবার রাশিয়ায়। স্বাগতিক দেশ হিসেবে রাশিয়া দারুণ করেছে। অবিস্মরণীয় সব ফুটবল দেখতে পেয়েছি আমরা।’

এবার ফাইনালের আগে ১৬৩ গোল হয়েছে রাশিয়ায়, যা ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপের তুলনায় আটটি কম। একটি মাত্র ম্যাচ গোলশূন্য ড্র হয়েছে। ফ্রান্স ও ডেনমার্ক সেই ম্যাচ খেলেছিল। আলোচনা-সমালোচনা সবচেয়ে বেশি হয়েছে ভিডিও অ্যাসিস্টেন্ট রেফারি (ভিএআর) প্রযুক্তি নিয়ে। গ্রুপপর্বে বেশ কয়েকটি ম্যাচে এই প্রযুক্তির প্রয়োগ নিয়ে বিতর্ক দেখা দিয়েছে। ফুটবলবোদ্ধারা মনে করেন, ভিএআর খেলাটার অন্তর্নিহিত সৌন্দর্য নষ্ট করবে।

এবারের বিশ্বকাপ চোখে আঙুল দিয়ে সবাইকে দেখিয়ে দিয়েছে যে, ব্যক্তিনির্ভর খেলার দিন ফুরিয়েছে। শুধু দু’একজনের ওপর নির্ভর করে বিশ্বকাপে বেশিদূর এগোনো যায় না। তার প্রমাণ, নেইমারের ব্রাজিল কোয়ার্টার ফাইনাল এবং মেসির আর্জেন্টিনা ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর পর্তুগাল শেষ ষোলো থেকেই বিদায় নিয়েছে। রোনাল্ডো ও মেসি দু’জনই ৩০ পেরিয়েছেন। তাই তাদের পক্ষে আর বিশ্বকাপ জেতা সম্ভব নয়, একথা বলাই যায়।

বিশ্বকাপ এমন একটি মহাযজ্ঞ, যেখানে পরাশক্তিদের পক্ষেও বলা সম্ভব নয় যে, শেষ হাসি তারাই হাসবে। বৈশ্বিক ফুটবলের সর্ববৃহৎ আসর বসার আগেই এই বার্তা বিশ্ব পেয়ে গিয়েছিল ইতালি ও নেদারল্যান্ডস মূলপর্বে উঠতে ব্যর্থ হওয়ায়। খেলা মাঠে গড়ানোর পর দুঁদে দলগুলোর একে একে প্রস্থানে এই সত্য আরও প্রকট হয়ে ওঠে। বিপরীতে হাজারও সমস্যায় জর্জরিত বলকান যুদ্ধের ফসল ক্রোয়েশিয়া সব বাধা দূরে ঠেলে একটি সংঘবদ্ধ দল হিসেবে খেলে উঠে আসে ফাইনালে।

ঘটনাপ্রবাহ : বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.