সুদহার সিঙ্গেল ডিজিট

ব্যবসায়ীদের দাবির সঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রীর একাত্মতা

জাতীয় রফতানি পদক বিতরণ

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৬ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ

সুদহার সিঙ্গেল ডিজিটে কার্যকরে ব্যবসায়ীদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, বেসরকারি খাত দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিচ্ছে। ব্যবসায়ী-শিল্পোদ্যোক্তারা এর কাণ্ডারি।

তিনি বলেন, দেশকে আরও এগিয়ে নেয়ার স্বার্থেই ব্যাংক ঋণের সুদহার সিঙ্গেল ডিজিটে কার্যকরসহ ব্যবসায়ীদের সমস্যাগুলো সমাধানে নজর দিতে হবে। তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে।

রোববার ২০১৪-১৫ অর্থবছরের জন্য ‘জাতীয় রফতানি পদক বিতরণ’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার হচ্ছে ব্যবসাবান্ধব। অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যে এই সরকার ব্যবসায়ীদের পাশে দাঁড়িয়েছে। নীতিগত সহায়তাদানসহ পুঞ্জীভূত সমস্যার সমাধান করে যাচ্ছে, যা আগের কোনো সরকার করেনি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে পদক বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। বাণিজ্য সচিব শুভাশীষ বসুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সংসদ সদস্য মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী, সম্মানিত অতিথি হিসেবে এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বক্তব্য দেন। স্বাগত বক্তব্য দেন রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান বিজয় ভট্টাচার্য। রফতানিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ৬৩ প্রতিষ্ঠানকে স্বর্ণ, রৌপ্য ও ব্রোঞ্জপদক দেয়া হয়।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ আরও বলেন, দেশের রফতানি ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য জাতীয় রফতানি পদক প্রদান করা হয়। কিন্তু ইপিজেড থেকে রফতানিকারকরা এ সুযোগ থেকে বঞ্চিত ছিলেন। আগামী দিনে তাদেরও এ পদক দেয়া হবে। অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্স প্রসঙ্গে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের পর আর মেয়াদ বাড়ানো হবে না। সম্প্রতি সাসটেইনেবেলিটি কম্প্যাক্টের বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে অন্য পক্ষ (ইইউ, আইএলও) অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্সের মেয়াদ আরও বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছিল। তাদের পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দেয়া হয়েছে- মেয়াদ ছয় মাস বাড়ানো হয়েছে। আর বাড়ানো যাবে না।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল বলেন, বাংলাদেশের পোশাক খাতের রেমিডিয়েশন কো-অর্ডিনেশন সেল (আরসিসি) এখন যথেষ্ট শক্তিশালী। অনেক ইঞ্জিনিয়ার কাজ করছে। শ্রমিকদের নিরাপত্তা, ভবনের নিরাপত্তা অনেক বেড়েছে। আবার গ্রিন ফ্যাক্টরি বাড়ছে। তিনি বলেন, রানা প্লাজা ধসের পর কোনো পোশাক কারখানায় দুর্ঘটনা ঘটেনি। বাংলাদেশের পোশাক খাতের অগ্রগতিতে অনেকেই ঈর্ষান্বিত। কারণ অনেক ষড়যন্ত্র আছে।

রফতানি বাড়ানোর পদক্ষেপ সম্পর্কে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রফতানি বাণিজ্য বৃদ্ধির জন্য সরকার সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ট্রেডিশনাল রফতানি পণ্যের পাশাপাশি নন-ট্রেডিশনাল আইটেম রফতানির ওপর বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করা হচ্ছে। সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় দেশের আইটি, ওষুধ, ফার্নিচার, কৃষিপণ্য এবং চামড়াজাত পণ্য রফতানির ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষায় সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, সরকারের নির্দেশনায় ঋণের সুদহার সিঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনার ঘোষণা দিলেও এখন পর্যন্ত সেটি অনেক বাণিজ্যিক ব্যাংক কার্যকর করেনি। এটা কার্যকর করতে হবে। না পারলে অনিচ্ছাকৃত অনেক খেলাপি ঋণের জন্ম হবে।

আর খেলাপি ঋণ বেড়ে গেলে ব্যাংকিং খাতে আরও নতুন সংকট তৈরি হবে, যা অর্থনীতির সার্বিক অগ্রগতিকে বাধাগ্রস্ত করবে। সরকারি বিভিন্ন সংস্থার অহেতুক হয়রানি বন্ধের দাবি জানিয়ে শফিউল বলেন, বিমান ও নৌবন্দরে পণ্যে নমুনা যাচাইয়ের নামে বিভিন্নভাবে ব্যবসায়ীদের হয়রানি করা হচ্ছে।

কিছু লোক অবৈধভাবে পণ্য এনে বাইরে বিক্রি করছে। কিন্তু দুই-একজনের কারণে সব ব্যবসায়ীকে হয়রানি করা হচ্ছে। এটা হবে কেন? তিনি বলেন, যারা অবৈধভাবে ব্যবসা করছে, তাদের শাস্তি হোক।

সমস্যা নেই। দু-একজনের কারণে সবাইকে হয়রানি করা যাবে না। এটা বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি অর্থনৈতিক উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে অবকাঠামোগত সমস্যা সমাধান করতে হবে। একই সঙ্গে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম হঠাৎ করে না বাড়াতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে অসামান্য অবদানের জন্য রফতানি বাণিজ্য উন্নয়নে মুখ্য ভূমিকা পালনকারী ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও সংস্থাগুলোকে প্রতিবছর জাতীয় রফতানি পদক ও সনদপত্র দেয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরের জন্য রফতানি খাতে বিশেষ অবদান রাখার জন্য ২৯টি স্বর্ণ, ২০ রৌপ্য এবং ১৪টি ব্রোঞ্চপদক দেয়া হয়।

এর মধ্যে প্রক্রিয়াজাত কৃষিপণ্য রফতানিতে স্বর্ণ, রৌপ্য ও ব্রোঞ্জ- তিনটি পদক পেয়েছে দেশের শীর্ষস্থানীয় খাদ্যপণ্য প্রক্রিয়াজাত ও রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান প্রাণ। এ নিয়ে টানা ১৪ বার সেরা রফতানিকারকের পদক পেল দেশের অন্যতম এ শিল্পগোষ্ঠী।

এছাড়া প্লাস্টিক পণ্য রফতানির জন্য রৌপ্যপদক পেয়েছে আরএফএল গ্রুপের প্রতিষ্ঠান ডিউরেবল প্লাস্টিকস লিমিটেড। বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের কাছ থেকে রফতানি পদক গ্রহণ করেন আরএফএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরএন পাল।

এছাড়া সব খাতের মধ্যে সেরা রফতানিকারক হিসেবে স্বর্ণপদক পেয়েছে জাবের অ্যান্ড জোবায়ের ফেব্রিক্স। স্বর্ণপদক পাওয়া অন্য প্রতিষ্ঠানগুলো হল- একেএম নিটওয়্যার, ফকির নিটওয়্যারস, কামাল ইয়ার্ন, এনভয় টেক্সটাইল, নোমান টেরিটাওয়েল, জালালাবাদ ফ্রোজেন ফুডস, পপুলার জুট এক্সচেঞ্জ, আকিজ জুট মিলস, এসএএফ ইন্ডাস্ট্রিজ, পিকার্ড বাংলাদেশ, বে ফুটওয়্যার, নেসুর জেনারেল ট্রেডিং কোম্পানি, মেসার্স রাজধানী এন্টারপ্রাইজ, কারুপণ্য রংপুর, বেঙ্গল প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজ, শাইনপুকুর সিরামিকস, মেসার্স ইউনিগ্লোরি সাইকেল ইন্ডাস্ট্রিজ, বিআরবি ক্যাবল ইন্ডাস্ট্রিজ, বিসআরএম স্টিলস, স্কয়ার ফার্মা, সার্ভিস ইঞ্জিন, আরএম ইন্টারলাইনিংস, নে ট্রিমস, গাজী এন্টারপ্রাইজ ও ফেক্সিনকো

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×