বড়পুকুরিয়ার জন্য কয়লা আমদানি হচ্ছে

  বিশেষ সংবাদদাতা ২৯ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কয়লা
ফাইল ছবি

বড়পুকুরিয়া কয়লা কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি পেতেই হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বীরবিক্রম।

শনিবার রাজধানীর বিদ্যুৎ ভবনে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে উপদেষ্টা এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন। তদন্তে যাদেরই দোষ প্রমাণিত হবে তাদের শাস্তির আওতায় আনা হবে।

এ সময় বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউস, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী খালেদ মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে বিদ্যুৎ সচিব আহমদ কায়কাউস বলেন, খনি থেকে সরবরাহ বন্ধ হওয়ায় বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি সচল করতে কয়লা আমদানি করতে যাচ্ছে সরকার।

তিনি বলেন, প্রয়োজনবোধে বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে আমরা কয়লা আমদানি করে রাখার পরিকল্পনা করছি। আমদানির বিষয়টি পর্যালোচনা করতে উচ্চপর্যায়ের একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

বিদ্যুৎ সচিব বলেন, জমে থাকা ৩৭০ টন কয়লা দিয়ে ঈদের ছুটিতে সীমিত পরিসরে বড়পুকুরিয়া বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালানো হবে। ঈদের সময় রংপুর বিভাগের বিদ্যুৎ দিতে এ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জমানো কয়লা শেষ হওয়ার আগেই কয়লা আমদানির উদ্যোগ নেয়া হবে। তিনি বলেন, খনি থেকে কয়লা সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির সব কটি ইউনিটের উৎপাদন বর্তমানে বন্ধ রয়েছে।

এ কারণে বিদ্যুৎ সংকট চলছে উত্তরাঞ্চলে। সিরাজগঞ্জের বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো থেকে সেখানে সরবরাহ বাড়ালেও সমস্যা কাটেনি। সচিব বলেন, আমাদের অন্য কেন্দ্রের জন্যও কয়লা প্রয়োজন হবে। একই সঙ্গে এ কেন্দ্রটির জন্যও সংকট দূর করার চিন্তা করা হচ্ছে।

বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর রংপুরে প্রতিদিন ১৫০ মেগাওয়াট লোডশেডিং করতে হচ্ছে। পিডিবি বলছে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি পূর্ণ মাত্রায় চালাতে প্রতিদিন ৫ হাজার টন কয়লার দরকার হয়।

কিন্তু এখন একটি ইউনিট সংস্কারের জন্য বন্ধ থাকায় দৈনিক চার হাজার টন কয়লা প্রয়োজন হচ্ছে। এর বিপরীতে ৩৭০ টন কয়লা দিয়ে কতটা সময় কেন্দ্রটি চালানো সম্ভব হবে তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বিদ্যুৎ সচিব বলেন, ভারত থেকে এর আগে একবার কয়লা আমদানি করা হয়েছিল। কিন্তু ওই কয়লা দিয়ে কেন্দ্রটি চালানো যায়নি। সঙ্গত কারণে এমন খনি থেকে কয়লা আমদানি করা হবে যার সঙ্গে বড়পুকুরিয়া খনির কয়লার সাদৃশ্য রয়েছে।

তিনি বলেন, সরকার গঠিত কমিটি অস্ট্রেলিয়া থেকে কয়লা আমদানি করা যায় কিনা তা খতিয়ে দেখবে। কয়লার পরিবহন এবং জোগানের বিষয়েও তারা সরকারের কাছে সুপারিশ করবে।

চীনা ঠিকাদার কোম্পানির সঙ্গেও বিদ্যুৎ বিভাগের আলোচনা হয়েছে জানিয়ে বিদ্যুৎ সচিব বলেন, আমরা আশা করছি, আগামী মাসের মাঝামাঝি থেকে বড়পুকুরিয়া থেকে কয়লা উত্তোলন শুরু হবে।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ জানান, শুক্রবার থেকে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ১০০ টন করে কয়লা সরবরাহ শুরু করেছে খনি কর্তৃপক্ষ। বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি চালাতে প্রতিদিন প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার টন কয়লা দরকার।

খনির নতুন ফেজ থেকে পুরোদমে কয়লা উত্তোলন শুরু হতে এক থেকে দেড় মাস লেগে যাবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। তখন থেকে কয়লা পাওয়া যাবে।

আমদানির পরিকল্পনা করলেও বড়পুকুরিয়ার মতো মানের কয়লা স্বল্পসময়ের মধ্যে জোগাড় করাও চ্যালেঞ্জে হিসেবে দেখা দিয়েছে। বিদ্যুৎ সচিব বলেন, বড়পুকুরিয়ার বিদ্যুৎ কেন্দ্রের স্পেসিফিকেশন অনুযায়ীই আমরা কয়লা আনব।

প্রাথমিকভাবে ভারত, ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়ার মতো দেশগুলোকে লক্ষ্য রেখে সেখানে যোগাযোগ করা হয়েছে। তবে কতদিনের মধ্যে কয়লা আনা যাবে, তা জানাতে পারেননি তিনি।

বিশ্বের যেসব খনিতে উন্নতমানের কয়লা পাওয়া যায় তার মধ্যে দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া অন্যতম। এই কয়লায় সালফার রয়েছে দশমিক ৫৩ শতাংশ এবং ছাইয়ের পরিমাণ ১২ দশমিক ৪০ শতাংশ। এ ছাড়া ক্যালোরিফিক ভ্যালু (কতটা তাপ তৈরি করে) ছয় হাজারের বেশি।

কয়লা চুরির তদন্ত করবে ক্যাব : বড়পুকুরিয়ার কয়লা উধাওয়ের ঘটনায় নিজেরা তদন্ত করবে বলে জানিয়েছে কনজুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব)।

ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা অধ্যাপক শামসুল আলম জানিয়েছেন, পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে বড়পুকুরিয়ার বিষয়ে সবার কাছে তথ্য চাওয়া হবে। এসব তথ্যের ভিত্তিতেই তদন্ত করবে কমিশন।

প্রসঙ্গত, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখতে আগে থেকেই ক্যাবের এ তদন্ত কমিশন কাজ করছে। ছয় সদস্যের এ কমিশনে রয়েছেন কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন, অধ্যাপক বদরুল ইমাম, অধ্যাপক এমএম আকাশ, অধ্যাপক শামসুল আলম ও অধ্যাপক সুশান্ত কুমার দাস।

jugantor-event-বড়পুকুরিয়ায়-কয়লা-গায়েব-75040--1

ঘটনাপ্রবাহ : বড়পুকুরিয়ায় কয়লা গায়েব

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter