ঈদ রাজনীতি জমজমাট

আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের পদচারণায় মুখরিত তৃণমূল * নির্বাচনী উৎসবে রূপ নিচ্ছে ঈদ * ভোটারদের মন জয়ে ব্যস্ত মন্ত্রী এমপিরা

  যুগান্তর রিপোর্ট ২১ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন
ছবি: সংগৃহীত

জমে উঠেছে ঈদ রাজনীতি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঢেউ লাগায় এবার ঈদ অনেকটা রূপ নিয়েছে নির্বাচনী উৎসবে। ভোটের আগে এটাই শেষ ঈদ। কাজেই ধর্মীয় এই উৎসবকে কাজে লাগাতে ব্যস্ত রাজনৈতিক দলের নেতারা।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, মাঠের বিরোধী দল বিএনপি ও সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন দলের অধিকাংশ নেতা নিজের এলাকায় ঈদ করতে যাচ্ছেন।

সব দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা গণসংযোগের কাজটাও চালাচ্ছেন সমানতালে। তাদের পদচারণায় মুখর তৃণমূলের ঈদ রাজনীতি। শুধু তৃণমূল নয়, ঈদঘিরে রাজনীতি জমে উঠেছে রাজধানীসহ বিভাগীয় শহরেও।

ঈদ সামনে রেখে বর্তমান মন্ত্রী-এমপি এবং আগামী নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীরা কয়েক দফা এলাকায় ঘুরে এসেছেন। নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন স্থানে পশু কোরবানির ব্যবস্থা করছেন। নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে করছেন শুভেচ্ছা বিনিময়।

সামাজিক-রাজনৈতিক-ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে, ঈদ কার্ড, এসএমএস পাঠিয়ে এবং সোশ্যাল মিডিয়া, ব্যানার-পোস্টারের মাধ্যমের নিজেদের উপস্থিতি জানান দিচ্ছেন। অন্য বারের চেয়ে এবার কয়েকগুণ বেশি নগদ টাকা নিয়ে এলাকায় যাচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।

ঈদ বকশিশের নামে অনেককেই দিচ্ছেন নগদ টাকা। এলাকায় প্রভাব রয়েছে, এমন নেতাদের কাছে টানতে তাদের বকশিশের পরিমাণ একটু বেশি দিচ্ছেন। নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ ভোটারদের জন্য ঈদের দিন ভোজের আয়োজনও করছেন অনেকে। সব মিলে নির্বাচনী আমেজে গ্রামীণ অর্থনীতিও চাঙ্গা হয়ে উঠেছে।

আওয়ামী লীগ : আওয়ামী লীগ সরকারের বর্তমান মেয়াদে এটাই শেষ ঈদ। কয়েক মাস পরেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন। ধর্মীয় এ উৎসব কেন্দ্র করে জনগণের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়ে তোলার সুযোগ নিচ্ছেন ক্ষমতাসীন দলটির নেতাকর্মীরা। বেশির ভাগ কেন্দ্রীয় নেতা ঈদুল আজহা উদযাপন করতে নিজ নিজ এলাকায় যাচ্ছেন। নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করছেন এমপিরাও।

তাদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে নেতাকর্মী ও জনগণের কাছে যাচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও। এবার নির্বাচনী আমেজে ঈদ করবেন আওয়ামী লীগের নেতারা। দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজধানী ঢাকায় ঈদ করলেও অধিকাংশ নেতা ঈদ করবেন নিজ নিজ এলাকায়। ঈদ উৎসবের আনন্দ তারা দলের নেতাকর্মী এবং জনগণের সঙ্গে ভাগ করে নিতে ছুটছেন এলাকায়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঈদুল আজহা পালন করবেন গণভবনে তার সরকারি বাসভবনে। এদিন সকালে তিনি রাজনীতিবিদ, কূটনীতিক, পেশাজীবীসহ সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বরাবরের মতো এবারও ভোলায় তার গ্রামের বাড়িতে ঈদ করবেন। প্রতিবারের মতো জনগণের সঙ্গে মিলেমিশে ঈদ করতে গত রোববার তিনি ভোলা চলে গেছেন। নেতাকর্মীদের পাশাপাশি অসহায়, দুস্থ এবং গরিবদের সাহায্য করায় তিনি সিদ্ধহস্ত। এই ঈদেও তার দৃষ্টি থাকবে যাতে সবাই আনন্দের সঙ্গে উৎসব পালন করতে পারেন।

তোফায়েল আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, তিনি জেলে থাকার সময় ছাড়া প্রতিটা ঈদ ভোলায় করেন। এবারও সেখানকার মাটি ও মানুষের সঙ্গেই ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করবেন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী ইতিমধ্যে এলাকা ঘুরে এসেছেন।

তার নির্বাচনী এলাকার মানুষ এবং নেতাকর্মীদের সঙ্গে দেখা করেছেন। প্রায় প্রতিটি জনপদে গিয়েছেন। এলাকার এতিমখানায় কোরবানির জন্য পশু কিনে দিয়েছেন।

আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরুল্লাহ সপ্তাহে অন্তত তিন দিন ফরিদপুরের তার নির্বাচনী এলাকা ভাঙ্গার মানুষদের সঙ্গে কাটান। আসছে ঈদে তিনি এলাকাতেই থাকবেন। বেশ কিছু দিন ধরেই তিনি এলাকার বিভিন্ন ইউনিয়নে কর্মসূচি পালনের পাশাপাশি গণসংযোগও করছেন। এতিমখানা, মাদ্রাসাতে কোরবানির ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন। গরু-খাসি কেনার জন্য সাহায্য করছেন নেতাকর্মী এবং জনগণকেও।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নসিম প্রতি বছর কোরবানির ঈদ করেন তার গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জের কাজীপুরে। ইতিমধ্যে তিনি এলাকায় চলে গেছেন। গ্রামেই কোরবানি দেবেন। ঈদের দিন নেতাকর্মী এবং জনগণকে সঙ্গে নিয়ে খাবেন।

ঈদ উপলক্ষে বিভিন্ন স্থানে কোরবানির আয়োজনে তিনি শরিকও হবেন। মোহাম্মদ নাসিম যুগান্তরকে বলেন, প্রতিবছর কোরবানির ঈদ বাড়িতে করি। এবারও করব। সেখানেই কোরবানি দেব।

দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক এবার ঈদ নিজ এলাকাতেই কাটাবেন। এ লক্ষ্যে গত বুধবার তিনি টাঙ্গাইলের নিজ এলাকা গেছেন। যাচ্ছেন প্রতিটি ইউনিয়নে। ভিজিএফ কার্ড বিতরণ করছেন। সভা-সমাবেশের পাশাপাশি মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়েও দেখা করছেন তিনি।

ঈদ উপলক্ষে নেতাকর্মীদের পাশাপাশি গরিব-দুখীদের সাধ্যমতো সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন এ নেতা। একইসঙ্গে মসজিদ-মন্দির ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে থাকছে তার সহযোগিতার হাত।

ক্ষমতাসীন দলের প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ পবিত্র হজ পালনে সস্ত্রীক সৌদি আরব অবস্থান করছেন। তবে যাওয়ার আগে টানা এলাকায় কাটিয়ে গেছেন। নেতাকর্মী এবং গরিব-দুখীদের অনেকের কোরবানির ব্যবস্থা করে দিয়ে গেছেন। কুষ্টিয়ায় তার নির্বাচনী এলাকার মানুষের সঙ্গে দেখা করে দোয়া নিয়েই তিনি হজব্রত পালনের জন্য গেছেন।

শাসক দলের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ঈদ করবেন তার গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায়। ঈদের আনন্দ নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে ভাগাভাগি করে পরদিন চট্টগ্রাম শহরে আসবেন তিনি।

বিএনপি : বিএনপির সিনিয়র নেতা ও সম্ভাব্য প্রার্থীরা ইতিমধ্যে নিজে অথবা প্রতিনিধির মাধ্যমে নির্বাচনী এলাকার গরিব ও দুস্থদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ করছেন। নেতাকর্মীসহ সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন।

যেসব নেতাকর্মী মামলার কারণে ঘরছাড়া তাদের পরিবারের খোঁজখবর নিচ্ছেন তারা। দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাগারেই পবিত্র ঈদুল আজহা পালন করবেন। ঈদের দিন কারাগারে পরিবারের সদস্য ও নেতারা তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। তবে দলটির নেতারা কেন্দ্রীয়ভাবে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন না।

জানতে চাইলে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী যুগান্তরকে বলেন, ‘ঈদের দিন বেলা সাড়ে ১১টায় দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে সিনিয়র নেতারা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন।’

এছাড়া ঈদের দিন বিকালে সিনিয়র নেতারা কারাবন্দি দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে যেতে পারেন বলে জানা গেছে।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার নিজ এলাকা ঠাকুরগাঁওয়ে ঈদ করবেন। তিনি মঙ্গলবার ঠাকুরগাঁওয়ে যাবেন এবং ঢাকায় ফিরবেন শুক্রবার।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ নেয়াখালীতে, ড. খোন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান ঢাকায় ঈদ উদযাপন করবেন বলে জানা গেছে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু নিজ এলাকা নোয়াখালীতে অবস্থান করছেন। সেখানেই ঈদ করবেন তিনি। বরকতউল্লাহ বুলু যুগান্তরকে বলেন, নিজের এলাকাতেই সব সময় ঈদ উদযাপন করি। সবাই যেন স্বচ্ছন্দ্যে ঈদ পালন করতে পারে।

ঈদের সময় নেতাকর্মীদের গ্রেফতার হয়রানি থেকে যেন প্রশাসন বিরত থাকে। কারণ ঈদ হল ধর্মীয় অনুষ্ঠান। এখানে সরকারবিরোধী সব দলের নেতাকর্মীরা ভালোভাবে ঈদ করবে, এটাই প্রত্যাশা। সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এবারের ঈদও নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পালন করবেন।

এছাড়া বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ কুমিল্লায়, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বরিশালে, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবীর খোকন নরসিংদীতে, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী লক্ষ্মীপুরে ঈদ করবেন।

জানতে চাইলে ফরিদপুর সদর থেকে বিএনপির সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশী মাহবুবুল হাসান ভুইয়া পিংকু যুগান্তরকে বলেন, ঈদ কেন্দ্র করে এলাকায় একটা উৎসবের আমেজ তৈরি হয়েছে। অনেকেই দীর্ঘদিন পর এলাকায় আসেন। রাজনীতিবিদ হিসেবে সেটা কাজে লাগানোর চেষ্টা করি।

জানতে চাইলে ঢাকা ১৭ থেকে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী জামান কামাল যুগান্তরকে বলেন, নির্বাচন সামনে রেখে এবারের ঈদ একটা ভিন্ন আঙ্গিকে উদযাপন করতে হচ্ছে। অন্যান্য বারের চেয়ে এবার সব ধরনের প্রস্তুতিই একটু বেশি।

এছাড়া ২০ দলীয় জোটের শরিক লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি সভাপতি কর্নেল (অব.) ড. অলি আহমদ ঢাকায়, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম চট্টগ্রামে, ন্যাপের চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গাণি ঢাকায়, মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া নরসিংদী, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি-এনপিপির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ নড়াইলে ঈদ উদযাপন করবেন বলে জানা গেছে।

জনগণের সান্নিধ্যে জাতীয় পার্টি : ঈদ উপলক্ষে জনগণের কাছে গেছেন প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির নেতারাও। দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ইতিমধ্যে ছয় দিনের জন্য রংপুরে গেছেন। মাটি মানুষের টানেই তার রংপুরের সফর।

সেখানের মানুষদের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করে রাজধানীতে ফিরবেন তিনি। রংপুর কালেক্টরেট ঈদগাহ মাঠে পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করবেন রংপুরের মাটি ও মানুষের এ নেতা। পার্টির কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের ঈদের নামাজ পড়বেন লালমনিরহাট কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে। মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার পটুয়াখালীর দুমকী উপজেলার আঙ্গারিয়া ইউনিয়নের আবদুল করিম জামে মসজিদ ঈদগাহে নামাজ পড়বেন।

এলাকায় ঈদ করবেন দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম এমপি। তিনি ঈদের খুশি দোহার-নবাবগঞ্জের মানুষের সঙ্গে ভাগ করে নেবেন। তিনি নিয়মিতই এলাকার নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটারদের খোঁজখবর রাখেন।

এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা ঈদের নামাজ পড়বেন রংপুরের আলমদীঘির চর ঈদগাহ মাঠে। ঈদ উপলক্ষে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ আরও বাড়িয়ে দিয়েছেন।

জাতীয় পার্টির অন্য প্রেসিডিয়াম সদস্যদের মধ্যে কাজী ফিরোজ রশীদ পুরান ঢাকার ধূপখোলা মাঠ ঈদগাহে ঈদের জামাতে অংশ নেবেন। জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু ঈদ করবেন চট্টগ্রামে। সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, এসএম ফয়সল চিশতী, আবদুস সবুর আসুদ, সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন ঢাকায় ঈদ করবেন।

ঘটনাপ্রবাহ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter