বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ

ঘুরে দাঁড়ানোই চ্যালেঞ্জ

রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে আজ ব্যাপক শোডাউনের প্রস্তুতি

  তারিকুল ইসলাম ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিএনপি

দীর্ঘদিন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকলেও বর্তমানে চরম দুঃসময় পার করছে দেশের অন্যতম বড় দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। টানা দুই দফা ক্ষমতার বাইরে থাকা দলটি কাটাতে পারেনি সাংগঠনিক দুর্বলতা।

অন্যদিকে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাগারে থাকায় এখন আরও বেকায়দায় দলটি। দীর্ঘদিন ধরে রাজপথে জোরালো কোনো কর্মসূচি নেই। আগামী একাদশ নির্বাচনে অংশ নেবে কি না, তা এখনও অস্পষ্ট। তবে দল গুছিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন- এ দুই প্রধান ইস্যু সামনে রেখে কঠোর আন্দোলনের দিকেই নজর দিচ্ছে বিএনপি। এ মুহূর্তে বিপর্যস্ততা কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোই বিএনপির মূল চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ। ১৯৭৮ সালের এ দিনে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান দলটি প্রতিষ্ঠা করেন। দলীয় কার্যালয়ে আজ ভোরে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল ১০টায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে দলের নেতাকর্মীরা শেরেবাংলা নগরে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে পুষ্পমাল্য অর্পণ করবেন। দুপুর ২টায় নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জনসভার কর্মসূচি রয়েছে।

এছাড়াও রোববার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে আলোচনা সভা হবে। সারা দেশে সব ইউনিট বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করবে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আজ সারা দেশে ব্যাপক শোডাউনের প্রস্তুতিও নিয়েছে দলটি। এ উপলক্ষে এক বাণীতে দলের নেতাকর্মী, সমর্থক ও দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন লন্ডনে চিকিৎসাধীন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, বিএনপি ৪০ বছরের পুরনো একটি রাজনৈতিক দল। দলটির অতীত অনেক গৌরবের। দলটির সাংগঠনিক দুর্বলতা ছাড়াও বর্তমানে নতুন সংকট তাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাগারে। এখন তাকে মুক্ত করা এবং আগামী জাতীয় নির্বাচনে যাওয়ার প্রস্তুতিই এখন বিএনপির বড় চ্যালেঞ্জ। এজন্য তৃণমূল পর্যায়ের সঙ্গে কেন্দ্রের দূরত্ব কমাতে হবে। জনসম্পৃক্ততা বাড়াতে হবে। আর এসব করতে হবে দ্রুত সময়ের মধ্যে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, গণতন্ত্র, জনগণের ভোটের অধিকারের জন্য বিএনপির ভূমিকা দেখতে চায় জনগণ। এ বিষয়ে ভূমিকা রাখতে না পারলে বিএনপিকে দোষ দেবে জনগণ। এ কারণে দলের মহাসচিব দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন। জনগণের মৌলিক অধিকার ফেরাতে বিএনপি কাজ করছে।

তিনি বলেন, বিএনপি একা এ অবস্থা থেকে দেশকে বের করে আনতে পারবে না। সব রাজনৈতিক দলকে সঙ্গে নিয়ে একটি সর্বদলীয় ঐক্যের মাধ্যমে বর্তমান অবস্থার পরিবর্তন আনতে হবে।

এদিকে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সাত মাস ধরে কারাগারে রয়েছেন। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও সাজাপ্রাপ্ত। তিনি লন্ডনে চিকিৎসাধীন আছেন। নাশকতা ও দুর্নীতির মামলার জালে দলের অগণিত নেতাকর্মী। নির্বাচনের আগেই খালেদা জিয়া-তারেকসহ অনেক শীর্ষ নেতার সাজাপ্রাপ্ত হয়ে নির্বাচনে ‘অযোগ্য’ হওয়ারও শঙ্কা রয়েছে। বারবার উদ্যোগ নিয়ে তৃণমূল পর্যায়ে দল পুনর্গঠনের কাজ এখনও শেষ করতে পারেনি দলটি।

অন্যদিকে খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর তার মুক্তির দাবিতে বেশ কয়েকদিন কর্মসূচি দিয়ে মাঠে ছিল বিএনপি নেতাকর্মীরা। কিন্তু দুই মাস ধরে চার দেয়ালের ভেতরেই সভা-সমাবেশ ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ আছে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি। এমতাবস্থায় আবার সামনে জাতীয় নির্বাচন। এ অবস্থায় করণীয় কী, তার সমাধান বের করতে দলের নীতিনির্ধারকরা প্রতি সপ্তাহে তিন-চারবার করে বৈঠকে বসছেন।

সূত্র জানায়, দাবি আদায়ে আন্দোলন ছাড়া বিকল্প কিছু দেখছে না বিএনপি। এজন্য এখন দল গোছানোর পাশাপাশি ২০ দলীয় জোটের বাইরে থাকা দলগুলো নিয়ে ‘বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য’ গড়ে তোলার চেষ্টাও করছে তারা।

বিএনপির নীতিনির্ধারকদের মতে, দল সবচেয়ে খারাপ সময় পার করছে- এ বিষয়ে কোনো দ্বিমত নেই তাদের। একটি মিছিল করলে পুলিশ দিয়ে পেটানো হয়। মিছিল ভেঙে দেয়া হয়। নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হয়। সমাবেশ করতে দেয়া হয় না। সমাবেশের জন্য পুলিশের অনুমতি নিতে হয়। এভাবে কোনো গণতান্ত্রিক দেশে কোনো রাজনৈতিক দল চলতে পারে না।

এ কারণে দলের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর জনসভা থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন জোরদার করতে নেতাকর্মীদের আহ্বান জানানো হবে। এ আন্দোলনের সফলতার ওপর নির্ভর করবে বিএনপির আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয়া।

বিশিষ্ট রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ যুগান্তরকে বলেন, বিএনপি ৪০ বছরের পুরনো একটি রাজনৈতিক দল। দলটির অতীত অনেক গৌরবোজ্জ্বল। বর্তমানে নতুন সংকট তাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাগারে আছেন। এখন তাকে মুক্ত করা এবং নির্বাচনে যাওয়ার প্রস্তুতিই বিএনপির বড় চ্যালেঞ্জ। এজন্য কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত দলকে সুসংগঠিত হতে হবে। সারা দেশে জনসংযোগ বাড়াতে হবে। তাহলে ভালো ফল আসবে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, টানা দুই দফায় ক্ষমতার বাইরে বিএনপি। স্বাভাবিকভাবে কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হচ্ছে তাদের। বিএনপির কাছে মানুষের প্রত্যাশা অনেক; কিন্তু বিএনপি নেতাকর্মীরা জনগণের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারছে না। অবশ্য মামলা-হামলার কারণে নেতাকর্মীরা বেকায়দায় রয়েছে।

তিনি বলেন, ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য যা যা প্রয়োজন, তা চেষ্টা করছে বিএনপি। দ্রুত ঘুরে দাঁড়াতে পারলে দলটির জন্য ভালো তো বটেই, দেশের জন্যও ভালো। তবে এ সময়টা কবে আসবে, বলা কঠিন। আগামী এক-দেড় মাস সময়টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ সময়ে রাজনীতিতে পরিবর্তন আসার পাশাপাশি বিএনপির খারাপ অবস্থানেরও পরিবর্তন আসতে পারে।

বিএনপি মহাসচিবের বাণী : বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এক বাণীতে এদিনে দলকে আরও শক্তিশালী ও গতিশীল করতে মনেপ্রাণে কাজ করার জন্য দলের সব পর্যায়ের নেতাকর্মীদের আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বাণীতে তিনি বলেন, বর্তমান দুঃসময়ে জনগণকে সংগঠিত করার কোনো বিকল্প নেই। দেশ আজ দুঃশাসনকবলিত। মানুষ ভয়াবহ নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দিনাতিপাত করছে। গুম-খুনের আতঙ্কে মানুষ দিশেহারা। অসহায় মানুষের শেষ আশ্রয় আদালত, সেখানেও সরকার প্রভাব বিস্তার করতে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বেআইনি কাজ করতে বাধ্য করা হচ্ছে। খুন, নারী-শিশু নির্যাতন, অপহরণ, গুপ্তহত্যা ইত্যাদি অনাচারে অভিনব পন্থা অবলম্বন করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, জনগণের নিরাপত্তা বিধানের জন্যই গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে। বারবার অবরুদ্ধ গণতন্ত্রকে যিনি মুক্ত করেছেন, সেই অবিসংবাদিত দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে বানোয়াট মামলায় সাজা দিয়ে বন্দি করে রাখা হয়েছে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে সাজা দেয়া হয়েছে। এসব প্রতিহিংসামূলক জুলুমের বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে। মুক্ত করে আনতে হবে খালেদা জিয়াকে। বাণীতে বিএনপি মহাসচিব, দেশবাসীকে বিএনপির পতাকাতলে ঐক্যবদ্ধ থাকার জন্য উদাত্ত আহ্বানও জানান।

ঘটনাপ্রবাহ : কারাগারে খালেদা জিয়া

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter