কারও জন্য কোনো কিছু থেমে থাকে না

দেশে ফিরে বললেন তামিম

  স্পোর্টস রিপোর্টার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কারও জন্য কোনো কিছু থেমে থাকে না
দেশে ফেরার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছেন তামিম ইকবাল

এশিয়া কাপে বাংলাদেশের লক্ষ্য চ্যাম্পিয়ন হওয়া। বড় লক্ষ্য নিয়ে দুবাই গিয়েছিলেন দুর্দান্ত ফর্মে থাকা তামিম ইকবাল। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচেই তামিমের সেই স্বপ্নের সমাধি হয়েছে। বড় ধরনের চোট নিয়ে মঙ্গলবার বিকেলে দেশে ফিরেছেন। বিমান থেকে নেমেই দেশসেরা এই ব্যাটসম্যান জানালেন, খুবই হতাশ তিনি। এভাবে দেশে ফিরতে চাননি-

প্রশ্ন : বাইরে খেলতে গিয়ে অনেকবারই দেশে ফিরেছেন। এবারের ফেরাটা কীভাবে দেখছেন?

তামিম : সত্যি কথা বলতে এশিয়া কাপ নিয়ে এবার আমার অনেক বড় প্রত্যাশা ছিল। দলগতভাবে, ব্যক্তিগতভাবেও। কিন্তু প্রথম ম্যাচেই চোট পেয়ে ছিটকে যাওয়ার পর এভাবে ফিরে আসা ভালো লাগার কথা নয়। অবশ্যই অনেক, অনেক হতাশ আমি। এটি এমন ইনজুরি যা অনেক সময় নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থাকে না। এখন আমার লক্ষ্য হবে যত দ্রুত সম্ভব সুস্থ হয়ে মাঠে ফেরা।

প্রশ্ন : নতুন করে যদি আরও একবার বলতেন, হাসপাতাল থেকে ফেরার পর আবার যখন ভাঙা হাতে ব্যাটিংয়ে নামলেন তখন কী ভাবছিলেন?

তামিম : প্রথমে আমার নামার কথা ছিল না। যখন ওই ওভারে আর একটি বল ছিল, তখন মনে হল আমি হয়তো সেটা খেলতে পারি। ওই চিন্তা নিয়েই একটা বল খেলার চেষ্টা করেছি।

প্রশ্ন : দলে ভালো একজন ওপেনারের ঘাটতি ছিল আগেই। এখন আপনিও নেই। ওপেনিংয়ের ঘাটতি কীভাবে পূরণ হবে?

তামিম : ওভাবে ভাবার কিছু নেই। ক্রিকেট এমন একটা খেলা যেখানে কারও জন্য কিছু থেমে থাকে না। আমার জায়গায় আরেকজন এসে নিজের সেরাটা দিয়ে খেলার চেষ্টা করবে। যেই আসুক না কেন তার জন্য শুভ কামনা। দলের কথা মাথায় রেখেই তারা পারফর্ম করার চেষ্টা করবে।

প্রশ্ন : এখন তামিম নেই। জুনিয়ররা কতটা দিতে পারবেন?

তামিম : এখানে ইতিবাচক দিক নিয়ে চিন্তা করলে জুনিয়রদের এগিয়ে আসার সুযোগ আছে। আমি থাকলে একজন জুনিয়র ওপেন করত। এখন দু’জন জুনিয়র ওপেন করবে। তাদেরও দায়িত্বের ব্যাপার আছে। আমি বিশ্বাস করি এখান থেকে তারা অনেক কিছু শিখতে পারবে। সামনে যে চারটা-পাঁচটা ম্যাচ আছে সেটা তাদের জন্য সুযোগ। দলে নিজের জায়গা পাকা করার জন্য।

প্রশ্ন : চ্যাম্পিয়ন হওয়া প্রসঙ্গে...

তামিম : একজন খেলোয়াড়ের জন্য পুরো দলের পারফরম্যান্স বদলে যাবে না। এটা উচিতও না। আমরা যেমন শুরু চেয়েছিলাম সেটা পেয়েছি। আশা করি পুরো টুর্নামেন্টেই এভাবেই আমরা খেলব। আর চ্যাম্পিয়ন হব কী হব না ওতদূর না ভেবে পরের ম্যাচে কি হবে তা নিয়ে যদি চিন্তা করাই আমাদের জন্য ভালো।

প্রশ্ন : আপনি চলে এসেছেন, মুশফিকও ইনজুরি নিয়ে খেলছেন...

তামিম : মুশফিক ইনজুরি নিয়ে ১৪০ করেছে। আশা করি ইনজুরি নিয়ে সে আরেকটি সেঞ্চুরি করবে। সাকিব বেশকিছু দিন ধরেই ইনজুরিতে ভুগছে। এগুলো নিয়েই সে ওয়েস্ট ইন্ডিজে ভালো পারফর্ম করেছে। অনেকেরই কম-বেশি ব্যথা থাকে। ইনজুরি নিয়ে যখন কেউ মাঠে নামে তখন সে জানে সে কী করছে। তবে মুশফিক ও সাকিব ইনজুরি নিয়ে যেভাবে খেলছে সেটা নিশ্চিত করে যে তারা দেশের প্রতি, খেলার প্রতি কতটা নিবেদিত।

প্রশ্ন : ভালো ফর্মে থাকার পরও এভাবে খেলতে না পারা ...

তামিম : ভালো ফর্মে থাকলে ইচ্ছা থাকে যত বেশি ম্যাচ খেলা যায় তত বেশি খেলা। হতাশা নিয়েই ফিরতে হয়েছে। চিকিৎসক যে ধরনের নির্দেশনা দেবেন সেটা পালন করে যত দ্রুত সম্ভব মাঠে ফিরে আসার লক্ষ্য থাকবে।

প্রশ্ন : ইনজুরির সর্বশেষ অবস্থা কী?

তামিম : ইংল্যান্ড থেকে চিকিৎসক জানিয়েছেন, আপাতত অস্ত্রোপচার লাগবে না। কিন্তু প্রথম সপ্তাহ একটু চিন্তার বিষয়। এক সপ্তাহ পর একটি এক্স-রে হবে। যদি দেখা যায় জোড়াটা ভালো লেগেছে তাহলে কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু যদি দেখা যায় জোড়া ঠিকমতো লাগেনি তখন অস্ত্রোপচার দরকার হতে পারে।

প্রশ্ন : এখন সময় কাটাবেন কীভাবে?

তামিম : প্রথম দু’সপ্তাহ আমার কিছু করার নেই। বিশ্রাম নিতে হবে। তৃতীয় সপ্তাহ থেকে হাতের ছোট ছোট মুভমেন্ট শুরু করতে হবে। এরপর ধাপে ধাপে এগোতে হবে।

প্রশ্ন : গ্লাভসটা এনেছেন?

তামিম : ব্যাগ তো আমি গোছাইনি (হা হা হা...)। যদি ঢোকানো হয় তাহলে থাকবে!

ঘটনাপ্রবাহ : এশিয়া কাপ ২০১৮

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×