পুজিবাজার ফটকাবাজির জায়গা নয়

শেয়ার কেলেঙ্কারিতে জড়িতদের বিচারে সময় লাগবে

অর্থমন্ত্রী

  সিলেট ব্যুরো ২১ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শেয়ার বাজার

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, শেয়ার কেলেঙ্কারির সঙ্গে যারা জড়িত ছিল তাদের সবার বিরুদ্ধেই মামলা চলছে। তবে এসব মামলায় দ্রুত ফলাফল পাওয়া যায় না, সময় লাগে। শনিবার সিলেটে ‘বিনিয়োগকারী ও উদ্যোক্তা কনফারেন্স এবং বিনিয়োগ শিক্ষা মেলা ২০১৮’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

২০১২ সালে পুঁজিবাজার ধসের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে জানতে চাইলে মুহিত বলেন, আইনে যেভাবে বলা আছে সেভাবেই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। মামলা চলছে। পুঁজিবাজার ফটকাবাজির জায়গা নয়। তিনি আশা প্রকাশ করেন, যারা কেলেঙ্কারিতে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রমাণ উপস্থাপন করা হবে এবং শাস্তি নিশ্চিত হবে।

এর আগে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ সিকিউরিটি এক্সচেঞ্জ কমিশনের যাত্রা শুরু হয়েছিল কিন্তু এই দুই দশকেই দু’বার বড় ধরনের ধসের শিকার হতে হয়েছে পুঁজিবাজারকে, যা দুঃখজনক। তবে এসব ঘটনা থেকে শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ হয়েছে। শিক্ষা গ্রহণের বিষয় হল এক্সচেঞ্জ কমিশনে নানা দুর্বলতা ছিল।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বর্তমান কমিশনে যারা যোগদান করেছেন তারা দারুণ রকমের একটি কাজ করেছেন। এর আগে নিয়ম-কানুন কঠিন ছিল না। পুঁজিবাজারের জন্য কমিশন কঠোর আইন করেছেন, যে কারণে পুঁজিবাজার একটি শক্ত ভিতের ওপর দাঁড়িয়েছে। সারা বিশ্বে দেশের পুঁজিবাজার এখন সমাদ্রিত প্রথম শ্রেণীর একটি বাজার হিসেবে।

তিনি বলেন, বর্তমান কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। যদিও সরকারের শেষ সময়, এ সময় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া একটু কঠিন তবু আরও দুই বছর যাতে এই কমিশনই থাকে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার চিন্তাভাবনা আছে বলে জানান তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, যারা পুঁজিবাজারকে ফটকা বাজার বলেন, তারা পুঁজিবাজারের শত্রু। বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের কিছু যোগ্যতা প্রয়োজন। পড়াশোনা করতে হবে। শুধু ভাগ্যের ওপর ছেড়ে দেয়ার বিষয় নয়, বিনিয়োগ সম্পর্কে জানতে হবে।

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, দেশের উন্নয়নের জন্য পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। বর্তমানে ব্যাংক এবং ব্যক্তি বিনিয়োগ রয়েছে। যদিও ব্যাংকের কাজ পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ নয়। তবে দেশে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে উদ্যোক্তারা যেভাবে এগিয়ে এসেছেন তাদের এ ভূমিকার জন্য খুব শিগগিরই বিদেশি বিনিয়োগকারীরাও এগিয়ে আসবে।

সবশেষে তিনি বলেন, আমার এখন প্রস্থানের সময়, দেশকে বর্তমান অবস্থায় আনতে আমার অংশগ্রহণ ছিল তাই এখন মনে হচ্ছে আনন্দচিত্তে প্রস্থান করতে পারব। কারণ ২০০১ সালেও একবার হতাশ হয়ে রাজনীতি থেকে প্রস্থানের চিন্তা করেছিলাম কিন্তু এবারের প্রস্থান হবে আনন্দের।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসইসি চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন। তিনি বলেন, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের দক্ষতায় দেশের আর্থিক খাতগুলোর ভিত্তি মজবুত হচ্ছে। তার বাজেট প্রণয়ন ও আর্থিক সংস্কার প্রক্রিয়ার গুণেই আজ দ্রুত বিভিন্ন খাতের উন্নয়ন হচ্ছে। পুঁজিবাজারের যাবতীয় সমস্যা দূর করতে তিনি সরকারের পক্ষ থেকে কমিশনের প্রতিটি উদ্যোগকে সমর্থন দিয়েছেন বা দিচ্ছেন। আর তাই দেশের পুঁজিবাজার এখন সমস্যামুক্ত।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter