তিন দিনব্যাপী প্রদর্শনী শুরু

ফুলের বাজার ১২শ’ কোটি টাকা

রফতানিতে নীতি সহায়তা দেয়ার তাগিদ * বিশ্বে ফুলের বাজার প্রতিবছর ১০% হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ফুলের বাজার

বিশ্বে ফুলের বাজার প্রতিবছর ১০ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশেও প্রতিবছর এটির ব্যবহার বাড়ছে। বর্তমানে দেশে ফুলের বাজারমূল্য প্রায় ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা। এ সম্ভাবনাময় শিল্পকে রফতানি খাতে অন্তর্ভুক্ত করতে কৃষক ও উদ্যোক্তাদের স্বল্প হারে ঋণসুবিধা দেয়া, উন্নত ও নতুন নতুন জাতের বীজ সরবরাহ, ওয়্যারহাউস ও কোল্ড স্টোরেজ নির্মাণসহ নীতি সহায়তা দিতে হবে। তাহলে তৈরি পোশাকের মতো ফুলও রফতানি আয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক ফুল প্রদর্শনী ও সম্মেলন-২০১৮-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। ইউএসএইড এবং বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির সহায়তায় তিন দিনব্যাপী প্রদর্শনীর আয়োজন করে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই)। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম। ডিসিসিআই সভাপতি আবুল কাশেম খানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. আবদুর রউফ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে দেশের মানুষের জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধির ফলে সমাজের নানা স্তরে ফুলের ব্যবহার উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এ বাস্তবতায় দেশে ফুলের বাণিজ্যিক চাষাবাদের ব্যাপক সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। পোশাক খাতের দীর্ঘমেয়াদি নীতি সহায়তা দেয়ায় বর্তমানে সারা বিশ্বে পোশাক রফতানিতে দ্বিতীয় স্থানে পৌঁছতে পেরেছি। তেমনি ফুল চাষের সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর জন্য দীর্ঘমেয়াদি নীতি সহায়তা দেয়া প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, এ খাতের সার্বিক উন্নয়নে ‘বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার গ্রোওয়ার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়শন’ নামে একটি সংগঠন স্থাপিত হতে পারে। যারা ফুল খাতে নীতি সহায়তা প্রাপ্তিতে সরকার ও স্টেকহোল্ডাদের সঙ্গে আরও ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করতে পারবে। তিনি বাংলাদেশে উৎপাদিত ফুল বিদেশে রফতানির জন্য প্যাকেজিং ব্যবস্থার উন্নয়ন, হিমাগার স্থাপন, ফুলের নতুন নতুন জাত উৎপাদনের ওপর গুরুত্বারোপের জন্য এ খাতের উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানান। বিডার চেয়ারম্যান বলেন, ফুল খাতের উন্নয়নের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো স্থাপন এবং গবেষণা পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। স্বাগত বক্তব্যে ঢাকা চেম্বারের সভাপতি আবুল কাসেম খান বলেন, কৃষিভিত্তিক একটি পণ্য হিসেবে ফুলের চাহিদা প্রতিনিয়ত বাড়ছে এবং ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড সেন্টারের (আইটিসি) তথ্যমতে, বিশ্বে ফুলের বাজার প্রতিবছর ১০ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বর্তমানে দেশে সার্বিকভাবে ফুলের বাজারমূল্য প্রায় ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা। প্রতিনিয়ত এ বাজার বাড়ছে। তিনি বলেন, এ সম্ভাবনাময় শিল্পকে এগিয়ে নেয়ার জন্য এর সঙ্গে জড়িত কৃষক ও উদ্যোক্তাদের স্বল্প হারে ঋণসুবিধা প্রদান, আধুনিক প্রযুক্তি প্রাপ্তি ও ব্যবহারের প্রশিক্ষণ প্রদান, উন্নত ও নতুন নতুন জাতের বীজ সরবরাহ করা, ওয়্যারহাউস ও কোল্ডস্টোরেজ নির্মাণ এবং সর্বোপরি অবকাঠামো উন্নয়ন আবশ্যক।

তিনি বলেন, প্রয়োজনীয় হিমাগারের অভাবে কৃষি খাতে উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য থেকে কৃষক বঞ্চিত হচ্ছেন। ফুল খাতের বিকাশে হিমাগার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিবছর পৃথিবীতে ফুলের চাহিদা বাড়ছে।

বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির সভাপতি আবদুর রহিম বলেন, কৃষি মন্ত্রণালয়ের ফুলের জন্য স্থায়ী পাইকারি বাজার স্থাপনের উদ্যোগ দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। ইউএসএইডের পরিচালক থমাস পোপ বলেন, বাংলাদেশে ফুলের বাণিজ্যিক চাষাবাদ ও এ খাতের ভ্যালু চেইনের উন্নয়নে ইউএসএইড সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদান করবে।

প্রসঙ্গত, তিন দিনব্যাপী প্রদর্শনী শনিবার শেষ হবে। প্রদর্শনীতে প্রায় ৭০টি স্টলে দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তারা ফুল ও ফুল সংশ্লিষ্ট পণ্য প্রদর্শন করছেন। থাইল্যান্ড, ভারত এবং নেপালের ১২টি স্টল অংশ রয়েছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রদর্শনী সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ইউএসএইডের কনসালট্যান্ট আনোয়ার ফারুক, ডিসিসিআই সহসভাপতি রিয়াদ হোসেন, পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার আকবর হাকিম প্রমুখ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×